বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৪:৪২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
মোরেলগঞ্জে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ মেম্বারদের ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৩৪ জন চাকরিচ্যুত দক্ষিণ সিটির উপ-কর কর্মকর্তাসহ ৩৪ জন চাকরিচ্যুত মোংলায় ৮টি বোটসহ ১৩৫ ভারতীয় জেলে আটক শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের দায়িত্বও রাষ্ট্রকেই নিতে হবে – মোস্তাফা জব্বার – টেক শহর ম্যানসিটির বিপক্ষে রিয়ালের জয়ে কষ্ট পেয়েছেন বার্সার সভাপতি প্রার্থী – স্পোর্টস প্রতিদিন চট্রগ্রাম বন্দরকে পিছনে ফেলে সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়লো মোংলা বন্দর শাড়ির কুঁচি ধরা শিখতে ব্যাংকক যেতে চায় নিখিল বাংলা স্বামী সংঘের ৩০০ সদস্য চট্টগ্রামে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১ আগুনে পুড়ল দিনমজুর পরিবারের সব

পুলিশ আসতেই দৌড়ে পালালেন বর-কনেসহ অতিথিরা

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১
পুলিশ আসতেই দৌড়ে পালালেন বর-কনেসহ অতিথিরা

প্রকাশিত: ১২:২৮ পূর্বাহ্ণ, ২৯ জুন ২০২১

মহামারী করোনার প্রাদূর্ভাব নিয়ন্ত্রণে সরকার কর্তৃক ঘোষিত নিষেধাজ্ঞাকে উপেক্ষা করে রীতিমতো কমিউনিটি সেন্টার ভাড়া করে চলছিল বিয়ের অনুষ্ঠান। ৫ থেকে ৬শ অতিথির উপস্থিতিতে রীতিমতো সাজসাজ রব, কেউ খাচ্ছেন, কেউ বা আবার উপহার বুঝিয়ে দিয়ে পান চিবুতে চিবুতে খোশগল্পে মাতছেন। থেমে ছিল না শাড়ি লেহেঙ্গার ঝকমারি সাজে বিয়ে আনন্দে। চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলাধীন নোয়াপাড়া ইউনিয়নের চট্টগ্রাম কাপ্তাই রোড সংলগ্ন কর্ণফুলী কনভেনশন হলে আজ সোমবার (২৮ জুন) দুপুরে এই ঘটনা ঘটে।

রাউজান পুলিশ সুত্রে জানা যায়, আজ দুপুরে চট্টগ্রামের রাউজান উপজেলার নোয়াপাড়া কর্ণফুলী কনভেনশন হলে ৫ থেকে ৬শ অতিথির উপস্থিতিতে বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। খবর পেয়ে পুলিশ ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে হাজির হন চট্টগ্রামের সহকারী পুলিশ সুপার এএসপি (রাউজান রাঙ্গুনিয়া সার্কেল) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম। ঘটনাস্থলে পুলিশের আগমনে দেখে সবাই প্লেট,খাবার-দাবার, উপহার ফেলে দৌড়ে পালাতে শুরু করে অতিথিরা, বাদ যাননি বর রফিকুল ইসলাম এবং কনে শাহনাজ বেগমও। সুযোগ বুঝে সন্তর্পণে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন বর কনে দুইজন। পরবর্তীতে ঘন্টা দুয়েক পর কমিনিউটি হলের ব্যবস্থাপক জামাল উদ্দিন বাদশা এবং পাত্রীর বাবা মো. জামাল উদ্দিনের হদিস মেলে। পরে তারা দুইজন এএসপির নিকট এই মর্মে মুচলেকা দেন যে, তারা সরকারি নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আর কখনো এমন অনুষ্ঠানের আয়োজন করবেন না।

রাউজান থানার অফিসার ইনর্সাজ (ওসি) আবদুল্লা আল হারুন বলেন, পুলিশের চোখকে ফাকি দিয়ে একটি বিয়ের অনুষ্ঠান চলছিল। সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. আনোয়ার হোসেন শামীম বিষয়টি জানার পর ঘটনাস্থলে এসে সাথে সাথে বিয়ের অনুষ্ঠানটি বন্ধ করে দেন। এবং বর এবং কনের পিতা মুচলেখা দেন সরকারী নিষেধাজ্ঞার মধ্যে আর বিযের আয়োজন করবেন না।

কাওসার/শিই




Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি

Recent Posts

সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০১৯-২০২২
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102