বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২১ অপরাহ্ন

সারা খুলনা অঞ্চলের খবরা খবর

  • আপডেট সময় বুধবার, ৩০ জুন, ২০২১
  • ১৩৪
সারা খুলনা অঞ্চলের খবরা খবর

কুষ্টিয়ায় প্রস্তুত দেড় লক্ষাধিক গরু-ছাগল, বিক্রি নিয়ে শঙ্কায় খামারীরা

মোঃ রেজাউর রহমান তনু, কুষ্টিয়া

আসছে কোরবানির ঈদ। আর এই ঈদকে ঘিরে ব্যস্ত সময় পার করছেন সীমান্তবর্তী জেলা কুষ্টিয়ার খামারীরা। কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে এই জেলায় যে পরিমাণ গরু ছাগল প্রস্তুত করা হয় তা স্থানীয় চাহিদা পূরণের পাশাপশি দেশের চাহিদার বড় একটি অংশ পূরণ হয়ে থাকে। এদিকে, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে সারা দেশেই একটা অস্থিরতা বিরাজ করছে। তাই ঈদ যতই এগিয়ে আসছে কোরবানির পশু বিক্রি করা এবং লোকশান নিয়ে ততই শঙ্কিত হচ্ছে এখানকার খামারীরা। কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ঝাউদিয়া ইউনিয়নের হাতিয়া গ্রামের মৃত আরজ আলী বিশ্বাসের ছেলে আমিরুল মেম্বার। কোরবানির জন্য প্রস্তুত করেছেন বিশাল আকারের একটি গরু। গায়ের রঙ কালো হওয়ায় ভালোবেসে গরুটির নাম রেখেছেন ‘ব্ল্যাক কাউ’দুই বছর আগে গরুটি কিনেন আমিরুল। অল্প অল্প করে টাকা বিনিয়োগ করে কোনো রকম স্টেরোয়েড বা ক্ষতিকর কিছু ছাড়াই শুধু গমের ছাল বিচালি খাওয়ায়ে পারিবারিক আদলে গরুটিকে মোটাতাজা করেন তিনি। উদ্দেশ্য, কোরবানির ঈদে বিক্রি করে একবারে হাতে টাকা পাওয়া কিছু লাভের আশা। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে গত কোরবানি ঈদে সঠিক দাম না পাওয়ায় বিক্রি করতে পারেনি গরুটি। বর্তমান সময়ে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের প্রভাবে সারা দেশেই একটা অস্থিরতা বিরাজ করছে। এর প্রভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে গরুর সব রকম খাদ্যের দাম। এমন অবস্থায় গরুটি বাজারে নিতে পারবেন কিনা, বাজারে নিলেও ক্রেতা মিলবে কিনা, ক্রেতা মিললেও সঠিক দাম পাওয়া যাবে কিনা এসব নানা বিধ বিষয় নিয়ে শঙ্কায় রয়েছে আমিরুল মেম্বার। আমিরুল মেম্বার জানান, এই ঈদে যেভাবেই হোক গরুটি বিক্রি করতে চান তিনি। গরু মোটাতাজা করা কুষ্টিয়ার ঐতিহ্য। জেলায় এমন বাড়ি খুঁজে পাওয়া যাবে না, যেখানে দু’একটি গরু নেই। এখানকার খামারী কৃষকরা কোরবানির ঈদের পরে কমদামে ছোট গরু কিনে লালন পালন শুরু করে। অল্প অল্প করে টাকা বিনিয়োগ করে এসব খামারে বাড়িতে বাড়িতে পারিবারিক আদলে গরুকে মোটাতাজা করে তারা। উদ্দেশ্য, পরের কোরবানির ঈদে বিক্রি করে একবারে হাতে টাকা পাওয়া কিছু লাভের আশা। কুষ্টিয়া সদরের হাটশ হরিপুরের খামারী জাকিরুল ইসলাম খাজানগরের খামারী ওমর ফারুক জানান, কোরবানির পশু বাজারে তোলার সময় ঘনিয়ে এলেও মহামারি করোনাভাইরাস নিয়ে চরম দুশ্চিন্তায় ভুগছেন তারা। আসছে কোরবানির জন্য দেশে যথেষ্ঠ গরু প্রস্তুত করা হয়েছে। তাই এই শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে এবং খামারীদের লোকসানের হাত থেকে বাঁচাতে ভারত থেকে গরু আমদানি না করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তারা। ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় কোরবানির জন্য দেশীয় গরু হিসেবে কুষ্টিয়া জেলার গরুর রয়েছে বিশেষ চাহিদা। কুষ্টিয়া জেলা প্রাণিসম্পদ অফিসের তথ্যমতে, জেলায় এবার কোরবানির জন্য প্রায় এক লাখ গরুকে মোটাতাজা করা হয়েছে। কুষ্টিয়ার চাহিদা পূরণ করে প্রায় ৭০ শতাংশ গরু দেশের বিভিন্ন স্থানে চলে যাবে। এছাড়াও এবার ৬০ হাজার ছাগল কিছু মহিষও কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। কোনো রকম ক্ষতিকর উপাদান ছাড়াই মাঠের ঘাস স্বাভাবিক খাবারে এসব গরু মোটাতাজা হয়েছে বলে নিশ্চিত করে জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা জানান, করোনাভাইরাসের প্রার্দুভাবে ক্ষতিগ্রস্ত আট হাজার খামারীদের প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। খামারীদের গরু ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রির করার জন্য প্রশিক্ষণ পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। খামারীরা এবার কোরবানির গরুর নায্য দাম পাবেন বলেও জানান তিনি। গত বছরের মতো এবারও লোকসান হলে কুষ্টিয়ার খামারীরা আগামীতে গরু পালন থেকে সরে আসবে। তাই ঐতিহ্যবাহী এই পেশাকে টিকিয়ে রাখতে হলে সরকারের বিশেষ দৃষ্টির দাবি সংশ্লিষ্টদের।

বরিশাল সমিতির উদ্যোগে খুলনার নবাগত ডিসি’কে স্বাগত সংবর্ধনা

খবর বিজ্ঞপ্তি

ঐতিহ্যবাহী বরিশাল বিভাগীয় কল্যাণ সমিতি, খুলনা’উদ্যোগে খুলনার নবাগত জেলা প্রশাসক, বরিশাল বিভাগের কৃতি সন্তান মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদারকে স্বাগত সংবর্ধনা প্রদান করা হয়। মঙ্গলবার  বিকেল ৪:৩০টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সমিতির সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব জলিল খান কালামের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব রোটারিয়ান ইঞ্জিনিয়ার রুহুল আমিন হাওলাদারের সঞ্চালনায় সমিতির পক্ষ থেকে জেলা প্রশাসককে ফুল সমিতি’মনোগ্রাম  খচিত ক্রেস্ট দিয়ে সংবর্ধিত করা হয়। সভায় স্বাগত বক্তৃতা করেন সমিতির প্রতিষ্ঠাতা নেতা মোঃ ফিরোজ আলম খান এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব মনির হোসেন। সভায় সংক্ষিপ্ত বক্তৃতা করেনÑ সমিতির খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের ভাইস প্রেসিডেন্ট আলহাজ্ব অধ্যক্ষ দেলওয়ারা বেগম, সমিতির উপদেষ্টা খুবি’প্রফেসর ড. প্রকৌশলী মোঃ মনিরুজ্জামান, খুলনা মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিচালক মোঃ আবুল হোসেন, সমিতি’ভাইস প্রেসিডেন্ট কাজী নুরুল ইসলাম, খুলনা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোস্তাক আহমেদ, আলহাজ্ব অধ্যাপক শিকদার রুহুল আমিন জাতীয় পার্টি (জেপি)’খুলনা জেলার প্রেসিডেন্ট এ্যাড. আব্দুল মজিদ।

সময়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেনÑ সমিতির নেতা আলহাজ্ব রোটারিয়ান আলতাফ হোসেন, এম সালাম, বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী মতিয়ার রহমান, আলহাজ্ব চ. ম. মুজিবর রহমান, অধ্যাপক এম মান্নান বাবলু, মোঃ আশরাফ হোসেন, এ্যাড. শহিদুল ইসলাম, হুমায়ুন কবির বালি, ইলিয়াস হোসেন লাবু, আলহাজ্ব হেমায়েত উদ্দিন, রোটাঃ আল আমিন রাকিব, আলহাজ্ব সরোয়ার হোসেন, শিক্ষক হুমায়ুন কবির, আলহাজ্ব নাজেম খলিফা, আলহাজ্ব দেলোয়ার তালুকদার, মনির হোসেন, কাজী জাহেনুর ইসলাম বাবু, লিটন হাওলাদার, মোঃ রুবেল তালুকদার প্রমুখ।

সংবর্ধনার জবাবে সংক্ষিপ্ত বক্তৃতায় নবাগত জেলা প্রশাসক সমিতির নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন এবং সমিতির উদ্যোগে মানব কল্যাণমূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখার পাশাপাশি খুলনায় সরকারি দায়িত্ব পালনকালে তাকে সার্বিক সহযোগিতার আহ্বান জানান।

ইসলামী আন্দোলন খুলনা মহানগর কমিটির জরুরী সভা

খবর বিজ্ঞপ্তি

ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর কমিটির এক জরুরী সভা মঙ্গলবার (২৯ জুন) বিকাল টায় নগরীর পাওয়ার হাউজ মোড়স্থ আইএবি মিলানায়তনে নগর সভাপতি আলহাজ্ব মুফতী আমানুল্লাহ’সভাপতিত্বে নগর সেক্রেটারী শেখ মোঃ নাসির উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় উপস্থিত ছিলেন জয়েন্ট সেক্রেটারী মাওঃ ইমরান হোসাইন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ সাইফুল ইসলাম, সহ প্রচার দাওয়াহ্ সম্পাদক গাজী ফেরদাউস সুমন, মাওঃ আব্বাস আমিন, আলহাজ্ব হাফেজ আব্দুল লতিফ, আলহাজ্ব আবু তাহের, মুক্তিযোদ্ধা জিএম কিবরিয়া, আলহাজ্ব সরোয়ার হোসেন বন্দ, নির্বাহী সদস্য মাওঃ হাফিজুর রহমান, যুব আন্দোলন নগর সভাপতি আলহাজ্ব আবুল কাশেম, ছাত্র আন্দোলন নগর সভাপতি মোঃ মঈনুল ইসলাম প্রমুখ নেতৃবৃন্দ। সভায় অতিদ্রুত করোনা রোগীদের সহায়তার জন্য অক্সিজেন ব্লাড ব্যাংকের উদ্বোধন, সার্বক্ষনিক একটি স্বেচ্ছাসেবক টিম রাখা সহ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

সাতক্ষীরায় করোনা আক্রান্ত উপসর্গ নিয়ে দুই নারীসহ জনের মৃত্যু

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরায় চলমান লকডাউনের মধ্যেও গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত উপসর্গ নিয়ে দুই নারীসহ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে খুলনা মেডিকেলে একজন উপসর্গ নিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে জনের মৃত্যু হয়েছে। এনিয়ে, জেলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ৬৮ জন। আর ভাইরাসটির উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন আরো অন্ততঃ ৩৩২ জন। এছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ১২০ জনের নমুনা পরীক্ষা শেষে ৩৩ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। যা শনাক্তের হার ২৭ দশমিক শতাংশ। নিয়ে জেলায় আজ পর্যন্ত মোট করোনা আক্রান্ত হয়েছেন হাজার ৩২১ জন। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন হাজার ৪৩৩ জন। এছাড়া বর্তমানে জেলায় ৮২০ জন করোনা আক্রান্ত রুগী রয়েছেন। এর মধ্যে মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২৬ জন করোনা আক্রান্ত রুগী ২৪৮ জন উপসর্গ নিয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। আর বেসরকারী হাসপাতালে ১৭ জন আক্রান্ত রুগী ১১৮ জন উপসর্গ নিয়ে ভর্তি চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এছাড়া ৭৭৭ জন ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে বাড়িতে হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এদিকে, চলমান লকডাউনের ২৬ তম দিনেও নানা অজুহাতে মানুষ শহরমুখী হচ্ছেন। হাটে বাজারে এমনকি হাসপাতাল ক্লিনিকে কেউই সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখছেন না। করোনা আক্রান্ত ব্যাক্তির পরিবারের লোকজনও স্বাভাবিক ভাবে চলাফেরা করছেন। এর ফলে সংক্রমন প্রতিরোধ করা খুবই কঠিন হয়ে পড়েছে। এদিকে, রোগীর চাপ সামাল দিতে হিমসিম খেতে হচ্ছে ডাক্তার, নার্স স্বাস্থ্য কর্মীারা। মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মানার ব্যাপারে খুবই অনীহা লক্ষ্য করা গেছে। চলছে ঢিলেঢালা লকডাউন। শহর গ্রামাঞ্চলের হাটবাজার গুলোতে প্রচুর মানুষের ভিড়। ভারি যানবাহন ছাড়া সবই চলছে স্বাভাবিকভাবে। শহরের অধিকাংশ দোকানপাট গুলোতে চলছে চুরি করেই বেচাকেনা। পুলিশের বাধা ব্যারিকেডও মানছে না কেউই। যদিও পুলিশ মোড়ে মোড়ে চেকপোষ্ট বসিয়ে চলাচল নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করছেন। বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন। লকডাউনে জরুরি সেবা প্রতিষ্ঠান খোলা রয়েছে। তবে, লকডাউনে বিপাকে পড়েছেন মোটর চালিত ভ্যান রিক্সা চালকসহ খেটে খাওয়া মানুষ।

সাতক্ষীরার সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন শাফায়াত জানান, জনসচেতনতার অভাবে মানুষ লকডাউন লঙ্ঘন করছেন। তবে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা জনসমাগম যানবাহন চলাচল নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। এজন্য পুলিশ মোড়ে মোড়ে ব্যারিকেড দিয়ে চলাচল নিয়ন্ত্রনের চেষ্টা করছেন।

অভয়নগরে ১৬ জন করোনায় আক্রান্ত

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি

অভয়নগরে ১৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার নতুন ৬৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করে যশোর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্ের সূত্রে জানা গেছে, নতুন ৬৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করে যশোর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। পৌরসভা ইউনিয়নের মধ্যে ১৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। পযর্ন্ত করোনায় মারা গেছেন ৩০ জন। অনেকেই করোনা উপর্সগ নিয়ে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে। এছাড়াও করোনা আক্রান্ত হয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর করোনা ইউনিটে ভর্তি আছে। এবং কেউ কেউ বিভিন্ন জায়গায় করোনা উপসর্গ গোপনে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আবার অনেকই হোম কোরেন্টাইনে আছেন। অভয়নগরবাসীর মাঝে করোনার ভীতি বাড়ছে। সেই সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে সংক্রমণ। দেখা দিয়েছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট। এলাকাবাসীর দাবি, যশোর জেলা ভারতের বর্ডার এলাকা হওয়ায় দেখা দিয়েছে করোনার ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট। অবৈধ্য ভাবে যশোর অঞ্চলে ভারত থেকে আশা মানুষের কাছ থেকে সংক্রমন বাড়ছে। প্রতিদিন ভারত থেকে অবৈধ্য ভাবে করোনা পজিটিভ নিয়ে দেশে প্রবেশ করছে। যার ফলে পাবলিক ট্রান্সমিশনও শুরু হয়েছে। ফলে করোনার এক ভয়াবহ সময় পার করছে অভয়নগরের মানুষ। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্্েরর আবাসিক মেডিকেল অফিসার আলীমুর রাজীব বলেন, মঙ্গলবার ৬৬ জনের নমুনা সংগ্রহ করে ল্যাবে পাঠানো হয়েছে। ১৬ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছে। ভয়াবহ অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে নওয়াপাড়া পৌর, ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায়। অবস্থায় সকলকে প্রশাসনের কঠোর বিধি নিষেধ মানতে হবে।

আফিলগেট চেকপোষ্টে ৫০০ গ্রাম গাজা সহ মহিলা মাদক ব্যাবসায়ি আটক

 ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

নগরির খানজাহান আলী থানাধীন আফিলগেট পুলিশ চেকপোষ্টে শত গ্রাম গাজা সহ এক মহিলা মাদক ব্যাবসায়িকে আটক করেছে পুলিশ খানজাহান আলী থানার অফিসার ইনচার্জ প্রবীর কুমার বিশ্বাস জানান চেকপোষ্টে নিয়মিত তল্লাশি চলাকালে ২৯ জুন মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২ টার সময় আটরা পুলিশ ফাড়ি ইনচার্জ  এস আই আনোয়ার হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স সহ তল্লাশি চালিয়ে যশোর জেলার মনিরামপুরের ঝাউডাঙ্গা গ্রামের আতিয়ার রহমানের কন্যা তানিয়া (২০) এর ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে শত গ্রাম গাজা উদ্ধার করে , ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে

ঘুর্ণিঝড় ইয়াস এর প্রভাবে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে টায় ঘুর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে শ্যামনগর উপজেলার পদ্মপুকুর ইউনিয়নের বন্যাতলা গ্রামে ক্ষতিগ্রস্থ ৫০ পরিবারে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা লিডার্স।

সম্প্রতি  ২৬ মে ঘুর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে উচ্চ জোয়ারে বেড়িবাঁধ ভেঙে উপচিয়ে উপকূলীয় এলাকা প্লাবিত হয়। পদ্মপুকুর ইউনিয়নের বন্যাতলা গ্রামও লোনা পানিতে ভেসে যায়। অধিকাংশ অতিদিরিদ্র পরিবারগুলোর ঘরবাড়ি ভেসে যাওয়ায় বেড়িবাঁধের উপর আশ্রয় নেয়। এসব পরিবারগুলো খাদ্য সংকটে পড়লে লিডার্স এর সহযোগিতায় অতিদরিদ্র পরিবারের নিকট খাদ্য সামগ্রী তুলে দেওয়া হয়েছে। প্রতিটি খাদ্য প্যাকেজে আছে চাল কেজি, ডাল ৫০০ গ্রাম, তেল ৫০০ মিলি লিটার, লবন ৫০০ গ্রাম, মাস্ক টি।

উক্ত খাদ্য সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পদ্মপুকুর ইউনিয়নের আওয়ামীলীগের কাউন্সিলর মোঃ কামরুল ইসলাম মোল্যা। লিডার্স এর মনিটরিং অফিসার রনজিৎ কুমার মন্ডল, প্রোগ্রাম অফিসার দেবব্রত কুমার গাইন, মেড়িকেল এসিসট্যান্ট সুব্রত রায় প্রমূখ।

ফকিরহাটের লখপুরে মহিলাকে সেলাই মেশিন প্রদান

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটের ফকিরহাটের লখপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে এবং এলজিএসপি-এর অর্থায়নে অসহায় দুস্থ্য গরীব মহিলাদের স্বাবলিম্ব করার জন্য সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়েছে। মঙ্গলবার দুুপুরে ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে ৭জন মহিলাদের মাঝে এই সেলাই মেশিন বিতরন করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন প্যানেল চেয়ারম্যান-শেখ আহম্মদ আলী, ইউনিয়ন আ,লীগ নেতা মোঃ মুনসুর আলী খান, ইউপি সচিব প্রসুন দাশ, ইউপি সদস্য ফিরোজ খান, হারুনার রশিদ, বিল্লাল হোসেন মিলন মোতালেব মোড়ল প্রমুখ।

চুলকাটিতে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে প্রশাসনের তড়িৎ পদক্ষেপ গ্রহন

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাট সদর উপজেলার চুলকাটি প্রেসক্লাবের সামনে সরকারী জমিতে অবস্থিত অবৈধ স্থাপনা গুলি উচ্ছেদের জন্য উপজেলা প্রশাসন তড়িৎ পদক্ষেপ গ্রহন করেছেন। তারই প্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার বিকালে চুলকাটি প্রেসক্লাবের সামনের অবৈধ স্থাপনা গুলি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিদ্দেশে উক্ত স্থান পরিদর্শন করেছেন ভাটপাড়া ইউনিয়ন সহকারী ভুমি কর্মকর্তা সৈয়দ দিলদার আলী। তিনি সময় অবৈধ ভাবে দখলে থাকা স্থাপনার মালিক মোঃ খায়রুল ইসলাম সহ অপর তিনজনকে আগামী দিনের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা গুলি নিজ নিজ দায়িত্বে সরিয়ে নেওয়ার জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মোছাব্বেরুল ইসলাম এর পক্ষে নির্দ্দেশ প্রদান করেন। এতে স্থানীয়দের মাঝে কিছুটা সস্তি ফিরে এসেছে, তবে স্থানীয় সচেতন মহল দ্রুত সরকারী জমি দখল মুক্ত করার দাবী করেছেন। এব্যাপারে জানতে চাওয়া হলে ভাটপাড়া ইউনিয়ন সহকারী ভুমি কর্মকর্তা সৈয়দ দিলদার আলী বলেন তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের লিখিত নিদ্দেশে অবৈধ স্থাপনা গুলি সরেজমিনে দেখতে এসেছেন। অবৈধ স্থাপনা থাকার সত্যতা পাওয়ায় অবৈধ দখলদারদেরকে আগামী দিনের মধ্যে অবৈধ দখল ছেড়ে দেওয়ার নিদ্দেশ প্রদান করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন নির্দ্ধরিত সময়ের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা গুলি অপসরন করা না হলে উপজেলা প্রশাসন আইনগত ব্যাবস্থা গ্রহন করবেন বলেও তিনি জানান।

খুলনা জেলা নির্মূল কমিটির ওয়েবিনারে শাহরিয়ার কবির‘ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে’

খবর বিজ্ঞপ্তি

সমকাল বলতে আমরা যদি বর্তমান শতককে বিবেচনা করি, যার একুশ বছর গত হয়েছে Ñ বাংলাদেশের রাজনীতিতে বহু ঘটনা এবং অঘটন ঘটেছে। ২০০০ সাল থেকে ২০০১ এক সালের মধ্যভাগ পর্যন্ত আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় ছিল। ২০০১ সালের শেষে নজিরবিহীন সন্ত্রাস কারচুপির নির্বাচনের মাধ্যমে বিএনপি-জামায়াতের নেতৃত্বাধীন মৌলবাদী সাম্প্রদায়িক যুদ্ধাপরাধীদের চার দলীয় জোট ক্ষমতায় এসে যাবতীয় সন্ত্রাস, ভিন্নমত দমন, দুর্নীতি দুঃশাসনের যে বিভীষিকা সৃষ্টি করেছিল তা আমরা জানি। একইভাবে ২০০৯ সালে দ্বিতীয় বার ক্ষমতায় এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের মহাজোটের সাফল্যও আমরা দেখছি। একটানা বার বছর ক্ষমতায় থাকাকালে বর্তমান সরকার আমাদের দাবি এবং নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচার আরম্ভ করেছে। এই সরকারের বিস্ময়কর আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃতি পেয়েছেÑ এসবই সত্য। কিন্তু এর চেয়ে কঠিন সত্য হচ্ছে যে আদর্শ লক্ষ্য নিয়ে আমরা বাংলাদেশ স্বাধীন করেছিলাম, সেখান থেকে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব প্রদানকারী দল আওয়ামী লীগ অনেক দূরে সরে গিয়েছে। ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহার উদ্বেগজনকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি খুলনা জেলার ওয়েবিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যকালেলেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির একথা বলেন।

সোমবার বিকাল ৩.৩০টায় একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি খুলনা জেলা শাখার উদ্যোগে শহীদজননী জাহানারা ইমামের ২৭তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক আন্তর্জাতিক ওয়েবিনারের আয়োজন করা হয়েছে। আলোচনার বিষয় হচ্ছে ঃ ‘সমকালীন রাজনীতি জাহানারা ইমামের আন্দোলনে চ্যালেঞ্জ’ওয়েবিনারে নির্মূল কমিটি খুলনা জেলা শাখার সভাপতি ডাঃ শেখ বাহারুল আলম-এর সভাপতিত্বে নির্মূল কমিটি খুলনা জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক শ্রী মহেন্দ্র নাথ সেন সাঞ্চলনায় আলোচক হিসাবে থাকবেন নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির, নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সমাজকর্মী কাজী মুকুল, নির্মূল কমিটির খুলনা জেলার সহ-সভাপতি সাংবাদিক গৌরাঙ্গ নন্দী, নির্মূল কমিটি খুলনার সাবেক সদস্য সচিব সাংবাদিক মঞ্জরুল আলম পান্না, জাসদ খুলনা মহানগরের সভাপতি খালিদ হোসেন, ওয়ার্কাস পাটির কেন্দ্রীয় নেতা দিপঙ্কর সাহা দিপু, নির্মূল কমিটির চুকনগর শাখার সভাপতি অধ্যক্ষ এমবিএম শফিকুল ইসলাম, প্রজন্ম ৭১-এর খুলনার সদস্য মফিদুল ইসলাম টুটুল, খুলনা আওয়ামীলীগ নেতা এডভোকেট ফরিদ আহমেদ ওয়ার্কাস পাটি খুলনা মহানগরের সভাপতি মফিদুল ইসলামসহ খুলনা জেলার নেতৃবৃন্দ।

নির্মূল কমিটির কেন্দ্রীয় সভাপতি লেখক সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির বলেন, ‘২০১৯ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের প্রাক্কালে ‘একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটি’পক্ষ থেকে আমরা সংবাদ সম্মেলন করে সরকারকে বলেছিলাম সরকারিভাবে বঙ্গবন্ধুর পূর্ণাঙ্গ জীবনী প্রকাশ এবং বিশ্বের অন্তত একশটি ভাষায় এটি অনুবাদের উদ্যোগ গ্রহণের জন্য। বর্তমানে ধর্মের নামে সমগ্র বিশ্বে সংঘাত, সন্ত্রাস, গৃহযুদ্ধ সাম্প্রদায়িক হানাহানি সংঘটিত হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক দর্শন এই দুঃসময়ে বিশ্বশান্তির ক্ষেত্রেও নিয়ামক ভূমিকা পালন করতে পারে। দুর্ভাগ্যের বিষয় হচ্ছে সরকার কিংবা আওয়ামী লীগ এখন পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর প্রামাণ্য জীবনী রচনার উদ্যোগও গ্রহণ করে নি। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সমসাময়িক শীর্ষস্থানীয় রাষ্ট্রনায়কদের ভেতর বঙ্গবন্ধু বহু ক্ষেত্রে অগ্রগামী হলেও বর্তমান বিশ্বে কোথাও তার জীবন দর্শন সেভাবে আলোচনায় আসে না। না আসাটাই স্বাভাবিক, কারণ বঙ্গবন্ধুর নিজের দলের নেতাকর্মীরা যদি বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসরণের প্রয়োজন বোধ না করেন, সেক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বঙ্গবন্ধুর চর্চা আশা করা বাতুলতা মাত্র।

বঙ্গবন্ধুর ধর্মনিরপেক্ষ মানবতার আদর্শ অনুসরণ না করলেও কেন্দ্র থেকে তৃণমূল পর্যায়ে আওয়ামী লীগের নেতারা ধর্মের রাজনৈতিক ব্যবহারের ক্ষেত্রে বিএনপির চেয়ে কোনও অংশে কম যায় না। অথচ ’৭১-এর মুক্তিযুদ্ধ ছিল পাকিস্তানের রাজনৈতিক ইসলামের বিরুদ্ধে। বঙ্গবন্ধু আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ভাস্বর সংবিধানে ধর্মের নামে রাজনীতি নিষিদ্ধ করেছিলেন।

নির্মূল কমিটি খুলনা জেলা শাখার সভাপতি ডাঃ শেখ বাহারুল আলম বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী মৌলবাদী অপশক্তি ওয়াজ দাওয়াতি কার্যক্রমের নামে তৃণমূলে বিস্তার ঘটাচ্ছে। নির্মূল কমিটিকে এই অপশক্তি প্রতিরোধে তৃণমূলে সংগঠনের বিস্তার ঘটাতে হবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মৌলবাদী অপশক্তির অপপ্রচার বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই অপশক্তি ‘সাইবার জেহাদ’ মোকাবেলার জন্য নির্মূল কমিটি একটি সাইবার বাহিনী গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে। দেশে বিদেশে নির্মূল কমিটির বর্তমান সদস্য সংখ্যা প্রায় এক লক্ষ। আগামী সম্মেলনের আগে এই সংখ্যা ১০ লক্ষে উন্নীত করার পদক্ষেপ নেয়া হবে।

অনুষ্ঠানে অন্য বক্তারা বলেন বাংলাদেশের মানুষ ধর্মপ্রাণ, ধর্মান্ধ নয়। ধর্মকে রাজনীতির হাতিয়ার করবেন না। প্রত্যেককে নিজ নিজ ধর্ম পালনের অধিকার রাখেন। বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। মুসলমান, হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান সকল ধর্ম বর্ণের মানুষের রক্তের বিনিময়ে দেশ স্বাধীন হয়েছে।

রূপসায় চায়ের দোকান ভ্যান চালকদের মাঝে  এমপি সালাম মূর্শেদীর  খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

রূপসা প্রতিনিধি

খুলনা-৪আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূশের্দী বলেছেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা করোনা মোকাবেলায় সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছেন। করোনা থেকে রক্ষা পেতে সরকারি বিধি-নিষেধ মানতে হবে। যারা লকডাউন অমান্য করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। করোনা প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্তি পেতে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন, শারীরিক দুরত্ব বজায় রাখা বার বার হাত ধোয়া প্রয়োজন।

তিনি আরও বলেন, যতদিন করোনাভাইরাস পরিস্থিতি থাকবে ততদিন  সালাম মূশের্দী সেবা সংঘের খাদ্য সহায়তা চলমান থাকবে। সালাম মূশের্দী সেবা সংঘের  আয়োজনে মঙ্গলবার বিকালে রূপসা উপজেলার নৈহাটি ইউনিয়নের ৩’শত ভ্যান শ্রমীক চায়ের দোকানদের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি একথা বলেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন  জেলা আ’লীগের সদস্য অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম, বিশিষ্ট ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব মিস্টার বাংলাদেশ আজাদ আবুল কালাম,জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ম আহবায়ক মোতালেব হোসেন,

ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, এমপির প্রধান সমন্বয়ক যুবলীগ নেতা নোমান ওসমানী রিচি,  ইউপি চেয়ারম্যান কামাল হোসেন বুলবুল,উপজেলা আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক আকতার ফারুক  এমপির প্রতিনিধি মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান মিজান, আজিজুল হক কাজল, আজমল ফকির, সালাম মূর্শেদী সেবা সংঘের টিম লিডার যুবলীগ নেতা শামসুল আলম বাবু, ফরিদ শেখ,নাজির শেখ, যুবলীগ নেতা আ:মজিদ শেখ, বাদশা মিয়া, খালিদ হোসেন, আজমল শেখ,সেবা সংঘের তরিকুল ইসলাম,খলিল, আরাফাত,রাসেল,শিমুল,ছাত্রলীগের এস এম রিয়াজ,হিমেল,জাহিদুলসহ অনেকেই।

খুলনায় মঙ্গলবার করোনা ভ্যাকসিন নিয়েছেন দুইশত ৫০ জন

তথ্য বিবরণী

মঙ্গলবার খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে দুইশত ৫০ জন করোনা ভ্যাকসিন প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে পুরুষ একশত ৪৬ জন এবং একশত চার জন মহিলা। পর্যন্ত মোট দুই হাজার পাঁচশত ৭২জন করোনা ভ্যাকসিন প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে পুরুষ এক হাজার একশত ৪৬ এবং মহিলা এক হাজার চারশত ২৬ জন। খুলনা সিভিল সার্জন দপ্তর থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসকল তথ্য জানানো হয়েছে।

মাগুরায় করোনায় কর্মহীনদের মাঝে খাদ্যসহায়তা বিতরণ

তথ্য বিবরনী

মাগুরা জেলা ত্রাণ পুনর্বাসন দপ্তরের উদ্যোগে মঙ্গলবার করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত এক হাজার দুইশত উপকারভোগীদের মাঝে উপকারভোগী প্রতি সাড়ে চারশত টাকার খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করা হয়। এছাড়া ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় দুই হাজার উপকারভোগীদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণ করা হয়।

নগরীতে নারী নির্যাতন এবং বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ প্লাটফর্ম সদস্য সমন্বয়ে এ্যাডভোকেসি সভা

তথ্য বিবরণী

নারী নির্যাতন বাল্য বিয়ে প্রতিরোধে খুলনা সিটি কর্পোরেশন প্লাটফর্ম এর আয়োজনে এক এ্যাডভোকেসি সভা মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। নারী নির্যাতন বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ প্লাটফর্ম-এর সদস্যরা ছাড়াও সরকারি কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, এনজিও প্রতিনিধি, নারীনেত্রীগণ সভায় অংশগ্রহণ করেন। অন-লাইন জুম প্লাটফর্মে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

কেসিসি প্লাটফর্মের আহ্বায়ক কেসিসি’কাউন্সিলর আমেনা হালিম বেবীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায়  অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন খুলনা আঞ্চলিক তথ্য অফিসের উপপ্রধান তথ্য অফিসার জিনাত আরা আহমেদ, তথ্য অফিসার মোঃ মঈনউদ্দীন, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের উপপরিচালক হাসনা হেনা, প্রোগ্রাম অফিসার সাজিয়া আফরিন সিদ্দিকী, খুলনা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এস এম জাহিদ হোসেন, খুলনা জজ কোর্টের পিপি এ্যাডভোকেট ফরিদ আহমেদ, মহিলা আওয়ামী লীগ খুলনা জেলা সাধারণ সম্পাদক হোসনেয়ারা চম্পা, সাংবাদিক সামসুজ্জামান শাহীন। প্লাটফর্ম সদস্যদের মধ্যে বক্তৃতা করেন যুুগ্ম-আহ্বায়ক রীনা পারভীন, সদস্য সচিব এ্যাডভোকেট পপি ব্যাণার্জী, সদস্য এ্যাডভোকেট শামীমা সুলতানা শিলু, এ্যাডভোকেট মোমিনুল ইসলাম, তা’লিমুল মিল্লাত মাদ্রাসার প্রিন্সিপ্যাল এএফএম নাজমুসুস সাউদ, খুলনা প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক হাসান আহমেদ মোল্লা, যুগ্ম-সম্পাদক সোহরাব হোসেন, সহ-সম্পাদক মাহবুবুর রহমান মুন্না, ফুলবাড়িগেট হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম, আফরোজা জেসমিন বীথি প্রমূখ। ধন্যবাদ জানান রূপান্তরের জিবিভি প্রকল্পের সমন্বয়কারী অসীম আনন্দ দাস। সভায় নারী নির্যাতন এবং বাল্যবিয়ে প্রতিরোধ বিষয়ক সংবাদ পরিবেশনের ক্ষেত্রে সংবাদপত্র যাতে আরো সংবেদনশীল ভূমিকা পালন করে সে জন্য খুলনা প্রেস ক্লাবের সাথে এ্যাডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালনা, যে যে অবস্থানে আছেন সেই অবস্থানে থেকে নারী নির্যাতন এবং বাল্যবিয়ে প্রতিরোধে ভূমিকা পালনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। উল্লেখ্য, ইউএসএইড এবং ইউকেএইড-এর আর্থিক সহায়তায় কাউন্টারপার্ট ইন্টারন্যাশনাল কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রোমোটিং এ্যাডভোকেসি এন্ড রাইটস (পার) কর্মসূচির আওতায় খুলনাসহ চারটি জেলায় রূপান্তরের নেতৃত্বে নারীর প্রতি সহিংসতা প্রতিরোধে সামাজিক সংগঠনসমূহকে উদ্বুদ্ধকরণ প্রকল্প এই সভার আয়োজন করে।

পানিতে ভাসছে কয়রার মানুষ অথচ থেমে নেই এনজিও কর্মীদের কিস্তি আদায়

কয়রা প্রতিনিধি

উপকূলীয় এলাকা খুলনার কয়রায় মানুষ যখন করোনা সংক্রমনের ঝুকিতে এবং ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের তান্ডবে ভাসছে তখনও থেমে নেই এনজিও কর্মীদের কিস্তি আদায়। এনজিও কর্মীরা বাড়ী বাড়ী গিয়ে সাপ্তাহিক কিস্তি আদায় এই এলাকায় যে কোন দূর্যোগপরবর্তী সময় কখনও থেমে থাকতে দেখা যায়নি। তাই ঝড় ঝামটা বন্যা সহ যে কোন দূর্যোগের সময়েও দয়া দাখিন্য দেখায় না কিস্তি আদায়কারীরা এমনটি অভিযোগ এলাকাবাসীর। ঘূর্ণিঝড় আম্পান, ইয়াস সহ কয়েক দিন আগে অতিবৃষ্টিতে সমগ্র কয়রা উপজেলা যখন পানিতে ভাসছে, তখনও এনজিও নারী পুরুষ কর্মীরা রাত পোহাতেই কৃষকের দরজায় কড়া নাড়তে শুরু করছেন। আবার অনেক গ্রামে রাস্তাঘাট ইয়াসের পানিতে ভেঙে যোগাযোগ বিছিন্ন হলেও মুঠোফোনে কিস্তির টাকা ডেকে পাঠায় ওরা। অথচ কয়েকদিন আগেও ইয়াসের তান্ডবে যখন এই উপজেলার প্রায় ৫০ টি গ্রাম লবণ পানিতে ভেসে গ্রােেমর মানুষ জীবন বাঁচাতে ওয়াপদার বেঁড়িবাঁধে অথবা আশ্রয়কেন্দ্রে অবস্থান নিয়েছিল, কিস্তি আদায় তখনও থামেনি। উল্লেখ্য ২০২০ সালের ২১ মে আম্পান এবং ২০২১ সালের ২৬ মে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস পাল্টে দেয় কয়রার অনেক গ্রামের চিত্র। অতঃপর চলতি আষাঢ়ের শুরুতেই দিনের টানা বৃষ্টিতে ছোট বড় হাজার হাজার চিংড়ী ঘের সাদা মাছের খামারসহ ভেসে যায় কৃষকের খেতের বর্ষাকালীন শাকসবজি। অথচ তারপরও সাপ্তাহিক কিস্তি আদায় থেমে নেই এনজিও কর্মীদের। বিষয় খবর নিয়ে জানা গেছে, বেসরকারী সংস্থা (এনজিও) আশা, ব্র্যাক, গ্রামীণ ব্যাংক, টিএমএসএস, গণমুখী, সোনালী স্বপ্ন, ব্যুরো বাংলাদেশ, জাগরণী চক্র, এসডিএফ, এসডিএফ মৎস্য, সাস, জেজেএস, প্রদীপন, সহ স্থানীয় কিছু সংগঠন বাড়ী বাড়ী গিয়ে সাপ্তাহিক কিস্তির টাকা আদায় করছেন। মঠবাড়ী গ্রামের চিংড়ী চাষী প্রিতিশ মন্ডল, ছাগল পালনের জন্য ঋন নেওয়া আমেনা বেগম, নং কয়রা গ্রামের হাসমুরগি পালনের ঋণ গ্রহীতা লতিফা খাতুন কদবানু বিবি সহ একাধিক এধরনের ঋন গ্রহিতা জানান, তারা ১০ থেকে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত বিভিন্ন সংস্থার কাছ থেকে ঋন নিয়েছেন। কিন্তু বিগত দেড় বছর যাবত বিভিন্ন দূর্যোগের কারনে সাপ্তাহিক কিস্তির টাকা দিতে না পারলে অনেক বেশি কথা শুনতে হয় এমনকি মামলার ভয়ও দেখায়। তারা বলেন, বেশি কথা শোনার ভয়ে কিস্তি দেওয়ার দিন আগে থেকেই ওদের টাকা জোগাড় করে রাখতে হয়। এদিকে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হওয়ার পর থেকে ধীরে ধীরে মৃত্যু আক্রান্ত্রের হার বাড়তে থাকায় সরকার দেশ জুড়ে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করে। ফলে আমাদের স্বামীরা দিনমজুর, কেউ ভ্যান চালায়, কারোর ক্ষুদ্র ব্যবসা এবং চলাচল বন্ধ থাকায় আয় রোজগারের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। আমরা খেটে খাওয়া মানুষ না খাটলে সংসার চলে না। সারা দিন ভ্যান চালিয়ে যে টাকা উপার্জন হয় তাতে সংসারই চলেনা এর মধ্যে কিস্তি দেব কোথা থেকে। অন্যদিকে করোনা সংক্রমন এড়াতে দেশের বিভিন্ন স্থানের ন্যায় বর্তমান কয়রায় চলছে দিনের কঠোর লকডাউন এবং দোকান-পাট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। এছাড়া লোকজন চলাচলও সীমিত করায় নিম্ম আয়ের মানুষদের কর্মসংস্থান কমে গেছে। এতে দিন মজুর, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের আয় নেই বললেই চলে। এমন পরিস্থিতিতে বিভিন্ন গ্রামে চলছে এনজিও কর্মীদের কিস্তি আদায়। এতে এনজিও ঋণ গ্রহণকারী দরিদ্র মানুষ এখন বিপাকে।তাদের দাবি পরিস্থিতি স্বাবাবিক না হওয়া পর্যন্ত কিস্তি আদায় স্থগিত করার। ভুক্তভোগীরা জানায়, কিস্তির টাকা না দিলে কর্মীরা কিস্তির জন্য রাত অবধি বসে থাকেন, এবং গালমন্দসহ হুমকি দেন। সম্পার্কে স্থানীয় এনজিও আশা এর ম্যানেজার সংকর বিশ^াস কিস্তি আদায় করা হচ্ছে না জানালেও মাঠে তাদের কিস্তি আদায় করতে দেখা যাচ্ছে। অপর সংস্থা গ্রামীন ব্যাংক এর ম্যানেজার আঃ গফুর সাপ্তাহিক কিস্তি আদায়ের কথা অস্বীকার করে বলেন জোর করে কারোর কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে না। বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার অনিমেষ বিশ^াস বলেন, লকডাউন সময়ে কিস্তি আদায় করবে না। কোন এনজিও করলে কোন প্রমাণ পেলে আমরা তার ব্যবস্থা নিব।

মোড়েলগঞ্জে নিজ বাড়ির বাগান থেকে ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

 মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে আবুল বাশার হাওলাদার ওরফে বাদশা(৫০) নামে এক ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছেন তার স্বজনেরা। মঙ্গলবার সকাল ৬টার দিকে সানকিভাঙ্গা গ্রামের মুদি দোকানী বাদশার মরদেহ তার নিজ বাড়ির বাগানে একটি গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায়  পাওয়া যায়।

বাদশার স্ত্রী রনজিদা বেগম বলেন, সকালে ফজরের নামাজ পড়ে ঘর থেকে বের হয়ে আর ফেরেনি। কিছুক্ষণ পরে গাছের সাথে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। গাছ থেকে নামিয়ে হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎিসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। সন্তানের পিতা বাদশা আত্মহত্যা করেছেন বলে পরিবারের তরফ থেকে দাবি করা হলেও এলাকায় ভিন্ন মতও রয়েছে।

বাদশার পকেটে পাওয়া এক চিরকুটে লেখা রয়েছে,‘আমার মৃত্যুর জন্য কেউ দায়ী নয়। কোন ভাই-বন্ধুরা আমাকে নিয়ে গুজব ছড়াবেনা, দাবী’পুলিশ চিরকুটটি জব্দ করেছে।

বিষয়ে থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, বাদশার মৃত্যুর সঠিক কারণ নির্ণয়ের জন্য অপমৃত্যু মামলা রেকর্ড করে লাশের পোষ্টমর্টেম করানো হয়েছে।

মোড়েলগঞ্জে খাদ্যের সন্ধানে হাতি এখন শহরে

আরিফুল ইসলাম আরিফ,মোড়েলগঞ্জ

 মহারানি করোনা ভাইরাসে গোটা পৃথিবী যখন নিস্তব্ধ নি¤œ আয়ের দিনমজুর শ্রমীকসহ কর্মহিন হয়ে পড়া মানুষ, কিভাবে চলবে তাদের সংসার।

ঠিক সেই মুর্হুতে বন্য প্রাণীরাও খাবারের সন্ধ্যানে এখন লোকালয়ে। মঙ্গলবার সকালে মোড়েলগঞ্জ পৌর শহরের হাট বাজারে হাতির খাবার সংগ্রহের জন্য একটি হাতি নিয়ে দোকানি পথচারিদের কাছ থেকে টাকা উত্তোলন করছেন মাহুত। রংপুর জেলা থেকে শরণখোলার উদ্যোশে রওনা মাহুত রুস্তুম। এক সময়ে সার্কেস চালিয়ে হাতির খাবার জোগানসহ তাদের সংসার চলতো। এখন আর সেই সার্কেস বন্ধ হয়ে গেছে করোনায়। কিভাবে চলবে নিজেদের সংসার তারপরেও আবার প্রাণীর খাবার কিভাবে মিটাবে। সরকারি সহযোগিতায় সার্কেস শ্রমিকদের করোনা সহায়তার আওতায় আনার জোর দাবি জানিয়েছেন রুস্তুম আলী।

মোড়েলগঞ্জে যুবলীগ নেতা অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ টিপু চলে গেলেন না ফেরার দেশে

মোড়েলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জে সকলের প্রিয় যুবলীগ নেতা অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ টিপু চলে গেলেন না ফেরার দেশে। সোমবার সন্ধা সাড়ে ৬টায় ঢাকা বঙ্গবন্ধু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃতুবরন করেন। তিনি করোনা পজেটিভ ছিলেন। তার বড় ভাই আব্দুল মজিদ জব্বার খবর নিশ্চিত করেছেন। তার বয়স হয়েছিল ৫৭ বছর। যুবলীগ নেতা আব্দুল আহাদ টিপু স্ত্রী, দুই মেয়ে এক ছেলে সন্তানসহ বহু স্বজন, শুভাকাঙ্খী রেখে  গেছেন। মঙ্গলবার ১১টায় টাউন মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে জানাজা শেষে পিরোজপুরের সংকর পাশা গ্রামের বাড়িতে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হয়।

আব্দু আহাদ টিপু মোড়েলগঞ্জের সন্নাসী এআর খান ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ ছিলেন। তিনি রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাষ্টার্স ডিগ্রী লাভ করেন।টিপু ছাত্র জীবনে ছাত্র ইউনিয়ন পরে মোড়েলগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৯৯ সালে তিনি এআর খান ডিগ্রী কলেজে প্রভাষক পদে যোগদান করেন। ২০১৬ সালে অধ্যক্ষ পদে নিযুক্ত হন। তার অকাল মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমেছে মোড়েলগঞ্জে।

মোংলায় নতুন শনাক্ত ১৪, শনাক্তের হার ৪৫ ভাগ

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

মোংলায় নতুন করে ১৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ৩১ জন করোনা পরীক্ষা করিয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৪ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার শনাক্তের হার ছিল ৪৫ ভাগ। এর আগে সোমবার ছিল ৫৬.৫২ ভাগ আর রবিবার ছিল ৫৫.৫৫ ভাগ। গত এক মাস ধরে মোংলায় শনাক্তের গড় হার ৫৫ ভাগ বলে জানিয়েছেন উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: জীবিতেশ বিশ্বাস। এদিকে মঙ্গলবার ছিল ৫ম দফায় ঘোষিত কঠোর বিধি নিষেধের ৬ষ্ঠ দিন।

ঝিনাইদহে ২৪ ঘন্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে জনের মৃত্যু, আক্রান্তের হার ৬৪ ভাগ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

আক্রান্ত আর মৃত্যু দিন দিন বাড়ছে সীমান্তবর্তী জেলা ঝিনাইদহে। গত ২৪ ঘন্টায় ঝিনাইদহে করোনায় জন উপসর্গ নিয়ে জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়াও গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ৯৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে।

ঝিনাইদহের সিভিল সার্জন ডা: সেলিনা বেগম জানান, সকালে ঝিনাইদহ কুষ্টিয়া ল্যাবে পরীক্ষা করে ১’৪৪ টি নমুনার ফলাফল এসেছে। এর মধ্যে ৯৩ জনের করোনা পজেটিভ এসেছে। আক্রান্তের হার ৬৪ দশমিক ৫৮ ভাগ। নিয়ে জেলায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাড়ালো হাজার ২’২৬ জনে।

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা: হারুন-অর-রশিদ জানান, বর্তমানে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি আছে ৮৫ জন রোগি। তিনি বলেন, প্রতিদিন নতুন নতুন রোগী ভর্তি হচেছ। রোগীর চাপ সামলাতে করোনা ইউনিটের শয্যা সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। বাড়তি রোগীর কারণে চিকিৎসা দিতে হিমশিম খাচ্ছে চিকিৎসক সংশ্লিষ্টরা। এদিকে ঝিনাইদহে চলমান লকডাউনের ৮ম দিনে চলছে ঢিলেঢালা ভাবে। স্থানীয় হাট-বাজার, চায়ের দোকানে ভীড় করছে মানুষ। মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্য বিধি। জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শহরের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে। পুলিশ ভ্রাম্যমাণ আদালতের চোঁখ ফাঁকি দিয়ে চলাচল করছে ইজিবাইক, নসিমনসহ যানবাহন।

ঝিনাইদহে হাজার কৃষকদের মাঝে সার বীজ বিতরণ

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

রোপা আমন উৎপাদন বৃদ্ধির লক্ষ্যে ঝিনাইদহে হাজার ক্ষুদ্র  প্রান্তিক চাষীদের মাঝে বিনামুল্যে সার বীজ বিতরণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে সদর উপজেলা পরিষদ চত্বরে কৃষি অফিসের আয়োজনে প্রণোদনা প্রদাণ করা হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন ঝিনাইদহ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক কৃষিবিদ আজগর আলী, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাড. আব্দুর রশিদ, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এস এম শাহীন, ভাইস চেয়ারম্যান রাশিদুর রহমান রাসেল, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান আরতি দত্ত, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা জুনাইদ হাবীব প্রমুখ। অনুষ্ঠানে আলোচনা সভা শেষে হাইব্রিড ধান চাষকারী প্রত্যেক কৃষকদের মাঝে কেজি বীজ, ২০ কেজি ডিএসপি সার ১০ কেজি করে এমওপি সার এবং উফশী ধান চাষকারী কৃষকদের প্রত্যেককে কেজি ধান বীজ, ১০ কেজি ডিএসপি সার ১০ কেজি করে এমওপি সার বিতরণ করা হয়।

তারুন্যের অহংকার শেখ তন্ময়ের জন্মদিন পালন করলেন নগর যুবলীগ ছাত্রলীগ

খবর বিজ্ঞপ্তি

তারুণ প্রজন্মের অহংকার, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দৌহিত্র, জননেতা শেখ হেলাল উদ্দীন এমপির সুযোগ্য পুত্র, বাগেরহাট-আসনের সংসদ সদস্য শেখ সারহান নাসের তন্ময় এর জন্মদিন উপলেক্ষ্য কেক কেটে জন্মদিন অনুষ্ঠান পালন করেছে খুলনা মহানগর যুবলীগ মহানগর ছাত্রলীগ। গতকাল দুপুর টায় আওয়ামী লীগ দলীয় কার্যালয়ে কেক কাটা হয়। কেককাটা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা। কেককাটা অনুষ্ঠানে অন্যানের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশ, যুগ্ম আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজন,  মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেল, জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসেন ইমু, মহানগর যুবলীগ নেতা রোজি ইসলাম নদী, আব্দুল কাদের শেখ, কাজী কামাল হোসেন, শওকাত হোসেন, অভিজিৎ চক্রবর্তী দেবু, কবির পাঠান, মহদিুল ইসলাম মিলন, মশিউর রহমান সুমন, মেহেদী হাসান মোড়ল, কেএম শাহীন হাসান, ইমরুল ইসলাম রিপন, কাঞ্চন শিকদার, মাসুম উর রশিদ, বাদল সিপাহী, আনসিুর রহমান, জামিল আহমেদ সোহাগ, মহিদুল হক শান্ত, লাবু আহমেদ, বিপুল মজুমদার, অভিজিৎ পাল, মহানগর ছাত্রলীগ জেলা নেতা আসাদুজ্জামান বাবু, জব্বার আলী হীরা, জহির আব্বাস, ইয়াসিন আরাফাত, মেহেদী হাসান, দিদারুল আলম, মাহামুদুল ইসলাম সুজন,আমির মোমেন রানা, সোহান হোসেন শাওন, তানভীর রহমান আকাশ, মাহামুদুর রহমান রাজেস, এমএ হোসেন সবুজ, হিরণ হাওলাদার, আব্দুল কাদির সৈকত, আহনাফ অর্পন, নিশাত ফেরদৌস অনি, রুমান আহমেদ, মোঃ মফিজুর রহমান, মোল্লা নাহিদুর রহমান, ফাহাদ হোসেন সুজন, সৈকত দাশ, ওমর কামাল,  শফিকুল ইসলাম মুন্না, পিয়াল হাসান, আবিদ হাসান সহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

দেড় বছরে করোনায় মারা যাওয়া ৪৭ জনকে গোসল করিয়েছেন সালাম ব্যাপারী

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

মোংলায় করোনা আক্রান্ত হয়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। মঙ্গলবার ভোরে করোনায় পৌর শহরের সিগনাল টাওয়ার এলাকায় সোহরাব হোসেন (৮৫) এবং উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের পাখিমারা এলাকায় মতলেব খাঁ (৭০) মৃত্যু হয়েছে। দুইজনেরই গত সপ্তাহে করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয় বলে জানিয়েছে তাদের পরিবার।

নিহতদের পরিবার সূত্রে জানা যায়, পৌরসভার নম্বর ওয়ার্ডের সিগনাল টাওয়ার এলাকার বাসিন্দা সোহরাব হোসেনের গত ২৪ জুন করোনা পজেটিভ হয়। এরপর থেকে তিনি বাড়ীতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। মঙ্গলবার ভোর ৬টার দিকে তিনি তার নিজ বাড়ীতেই মারা যান। করোনায় তার মৃত্যুর পর স্থানীয় যারা লাশের গোসল করান তারা না আসায় খবর পেয়ে শহরের কুমারখালী এলাকার বাসিন্দা আব্দুস সালাম ব্যাপারী গিয়ে ওই লাশের গোসল করান। আব্দুস সালাম ব্যাপারী মোংলাসহ আশপাশ এলাকায় করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদেরকে গত বছর থেকে নিজ ইচ্ছায় ফ্রি গোসল করিয়ে আসছেন। শুধু করোনায় নয়, যে কোন ব্যক্তির মৃত্যুর খবর পেলে সেখানে ছুটে যান আব্দুস সালাম ব্যাপারী। আব্দুস সালাম ব্যাপারী বলেন, করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিকে ভয়ে গোসল করাতে এবং কাছেও কেউ আসতে চায় না। তাই আমি নিজ ইচ্ছা থেকেই করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদেরকে ফ্রি গোসল করিয়ে আসছি। মঙ্গলবার একজনসহ গত দেড় বছরে ৪৭ জন করোনা রোগীর লাশের গোসল করিয়েছি।

অপরদিকে মঙ্গলবার সকালে করোনা আক্রান্ত উপজেলার সুন্দরবন ইউনিয়নের বাঁশতলার পাখিমারা গ্রামের বাসিন্দা মতলেব খাঁ (৭০) কে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়ার পথে মারা যান। তিনিও গত সপ্তাহে করোনা পজেটিভ শনাক্ত ছিলেন। এদিকে এর আগে গত শনিবার করোনায় পাখিমারা জামে মসজিদের মুয়াজ্জিন জামাল হোসেনের মৃত্যু হয়।

বাগেরহাটে করোনায় কর্মহীণদের মাঝে পুলিশের পক্ষ থেকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাটে করোনায় কর্মহীণ লকডাউনের মধ্যে আর্থিক সংকটে থাকা বাগেরহাটে নিম্ন আয় বিশেষ শ্রেণি-পেশার মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ জুন) দুপুরে বাগেরহাট শহর, মুনিগঞ্জ হাড়িখালি সহ বিভিন্ন এলাকায়  পাঁচ শতাধিক পরিবারের মাঝে বাগেরহাট জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে এই খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। সময় বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আসাদুজ্জামান মো. মিজানুর রহমানসহ পুলিশ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার কেএম আরিফুল হক বলেন, করোনাকালীন সময়ে মানুষ এক ধরণের সংকটের মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছে। লকডাউনের ফলে এই সংকট আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে সব থেকে বেশি বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষ বিশেষ পেশার মানুষেরা। তাই এসব মানুষকে করোনা সংক্রমন থেকে বাঁচাতে এবং সরকার ঘোষিত লকডাউনের বিধি নিশেধ মান্য করতে খাদ্য সামগ্র্রী বিতরণ করেছি। এই সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান।

বাগেরহাটে পথচারীদের মাঝে মাস্ক বিতরণ

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাটে পথচারীদের মধ্যে মাস্ক বিতরণ সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। মঙ্গললবার (২৯ জুন) দুপুরে বাগেরহাট সদর উপজেলার যাত্রাপুর বাজারে যাত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে এই কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। এসময় যাত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম মতিন সহ পরিষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। এদিন যাত্রাপুর বাজারে বিভিন্ন এলাকা থেকে আসা পাচ শতাধিক মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরণ করা হয়। করোনা সংক্রমণ রোধে ব্যবসায়ীসহ সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহবান জানানো হয়।

যাত্রাপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এম মতিন বলেন, যাত্রাপুর বাগেরহাটের অন্যতম বড় বাজার। সপ্তাহের দুটি হাটে এখানে প্রচুর লোক সমাগম হয়। হাটের দুই দিন আমরা স্থানীয়দের সচেতন করতে ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে মাইকিং, মাস্ক লিফলেট বিতরণ করে থাকি। করোনা মহামারী শেষ না হওয়া পর্যন্ত আমাদের কার্যক্রম অব্যহত থাকবে।

বাগেরহাটে জমি জবর দখলে প্রভাবশালীদের পায়ঁতারার অভিযোগ

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাট সদর উপজেলার পশ্চিম হাড়িখালী গ্রামের সাবেক পুলিশ সদস্য পরিমল চন্দ্র রায়ের সম্পত্তিতে অবৈধভাবে চলাচলের পথ বৈদ্যুতিক লাইন সংযোগ অভিযোগ দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে বিষয়ে ভুক্তভোগীর  স্ত্রী মেরি রায় (৪৫) বাদি হয়ে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

মেরী রায় জানান, পাশ^বর্তী সিকদার ইলিয়াস আহম্মেদের ছেলে রাব্বি ইসলাম মুকাব্বির (২২) তার স্ত্রী মাকসুদা বেগমের সাথে জায়গা জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। তারা আমাদের ক্রয়কৃত সম্পত্তির বসত ঘরের পূর্ব পাশের্^সম্পত্তিতে জোর পূর্বক চলাচলের পথ তৈরী করে বৈদ্যুতিক লাইন সংযোগ দেয়। আমরা যেন ভাল ভাবে বসবাস করতে না পারি এজন্য প্রতিনিয়ত আমাদের ঘরের জানালা দরজার উপর  আঘাত করে বিভিন্ন ভয় ভীতি প্রদর্শন করে। আমরা ঘটনার প্রতিবাদ করলেই তারা আমাদের গালিগালাজ সহ মারপিটের ভয় ভীতি প্রদর্শন করে। গত ১৩ জুন সকাল ১১ টায় আমার মেয়ে রিমা রায় (২৫) আমাদের বসত ঘরের পূর্ব পাশে^ অবস্থান করছিল। সময় পূর্ব পরিকল্পনা মোতাবেক পাশ^বর্তী রাব্বি ইসলাম মুকাব্বির মাকসুদা বেগম সম্পূর্ন বেআইনী ভাবে আমাদের বাড়িতে প্রবেশ করে আমার মেয়েকে মারধর করে গুরুত্বর জখম করে। সময় আসামী রাব্বি ইসলাম মুকাব্বির আমার মেয়ের গলা থেকে স্বর্নের চেন ছিনিয়ে নেয়। আমার মেয়ের ডাক চিৎকারে আশাপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে আসামীরা খুন জখমের হুমকি দিয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। তিনি জানান, জমির সঠিক কাগজপত্র থাকা সত্ত্বেও আমরা সংখ্যা লঘু হওয়ায় নিজস্ব সম্পত্তিতে ভোগ দখল করতে পারছিনা। বিষয়টি সমাধানের জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

বিষয়ে বাগেরহাট মডেল থানার ভার প্রাপ্ত কর্মকর্তা কে এম আজিজুল ইসলাম বলেন, ঘটনার সঠিক তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

বাগেরহাটে সুদের টাকার জন্য ঘরে তালা, পালিয়ে বেড়াচ্ছেন দিনমজুর রবিউল

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

মহামারি করোনার মধ্যেও বাগেরহাটের চিতলমারি উপজেলায় সুদের টাকা আদায়ের জন্য একজন দিনমজুরের ঘরে তালা দিয়েছে চিহ্নিত সুদ ব্যবসায়ী। যা নিয়ে এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সুদ ব্যবসায়ীর হুমকির মুখে ঘর ছেড়ে প্রাণভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে দিনমজুর রবিউল ইসলাম। ঘরে ফেরার উপায় নেই। সুদের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় আমার ঘরে এখন তালা ঝুলছে। মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছি না।সোমবার দুপুরে চিতলমারি উপজেলার প্রেসক্লাবে এসে সাংবাদিকদের কাছে নিজের সমস্যার কথা বর্ণনা করেন ভুক্তভোগী চিতলমারী উপজেলার ঘোলা গ্রামের দিনমজুর রবিউল ইসলাম।

তিনি জানান, প্রতিবেশি ইদ্রিস শেখের কাছ থেকে তিনি ৪৬ হাজার টাকা সুদে আনেন। এর জন্য সুদের দ্বিগুণ টাকা তিনি পরিশোধ করেছেন। এরপরও সুদব্যবসায়ী তাকে চাপ প্রয়োগ করলে বর্তমানে তিনি ঘর ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। অবস্থায় তার বাড়ির জায়গা দখলসহ ঘরে তালা লাগিয়ে দিয়েছে ওই সুদ ব্যবসায়ী ইদ্রিস শেখ। পরিস্থিতিতে ভুক্তভোগী রবিউল ইসলাম চরম দুশ্চিন্তায় ভুগছেন।

ভুক্তভোগী পরিবার এলাকাবাসী জানান, কারেন্ট সুদের রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে এলাকার কতিপয় অসাধু লোক। মাকড়সার মতো জাল বিছিয়েছে তারা। আর জালে ধরা পড়ছে এলাকার সাধারণ দিনমজুর চাষীসহ নানা শ্রেণি পেশার লোক। করোনার সময়ে ক্ষতিগ্রস্ত চাষীসহ অনেকে কোনো উপায়ান্ত না পেয়ে এসব সুদব্যবসায়ীদের কাছে থেকে কারেন্ট সুদে টাকা নিয়ে পরবর্তীতে তাদের সুদের জন্য গুণতে হচ্ছে কয়েকগুণ। এরপরেও ঋণ শোধ হচ্ছে না তাদের। শেষ পর্যন্ত অনেককে লিখে দিতে হচ্ছে নিজের বাসতভিটা। আবার অনেকে সুদকারবারীদের হুমকির মুখে নিরুপায় হয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছেন। বাড়িঘর ছাড়ছেন কেউ কেউ। এলাকার অনেকের মতে করোনার চেয়ে ভয়াবহ ত্রাস সৃষ্টি করছে এসব চিহ্নত সুদ ব্যবসায়ীরা। তারা সুদের টাকা আদায়ের জন্য হুমকি-ধামকির পাশাপাশি পাওনাদারের বাড়িতে গিয়ে মা-বোন স্ত্রীর সামনে অশ্লীল ভাষায় গালাগাল মারধর করার কারণে অনেকে আত্মহত্যার পথ বেছে নিচ্ছেন। গত ২০২০ সালের ১৯ জুলাই উপজেলার খড়মখালী গ্রামের হাসি কণা বিশ্বাস নামে এক স্কুল শিক্ষিকা সুদকারবারীদের হুমকির মুখে আত্মহত্যা করেন। এছাড়া চলতি মাসের ১৭ জুন টেলিভিশন বেতার শিল্পী উপজেলার চরবানিয়ারী গ্রামের মনোরঞ্জন বিশ্বাস সুদের টাকার চাপে গলায় রশি দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। কালশিরা গ্রামের ভাস্কর্য শিল্পী রাম প্রসাদ বালার আত্মহত্যার জন্য প্রভাবশালী এক সুদব্যবসায়ীকে দায়ী করা হয়। পাশাপাশি কারেন্ট সুদের চাপে কালশিরা গ্রামের বাবু রাম ব্রহ্ম, অজয় বালা, কৃষ্ণ বালা বেন্নাবাড়ি গ্রামের মনোজ বিশ্বাস, বাবু বিশ্বাস, কালা বিশ্বাসসহ অনেকে দেশ ছেড়েছেন। বাড়িঘর ছেড়ে পরিবার নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন দলুয়াগুনী গ্রামের আরিফুল শিকদার, ঘোলা গ্রামের জাকির হোসেন, একই গ্রামের মনজুর ফকিরসহ অনেকে। তাদের ঘরেও ঝুলছে তালা।

চিতলমারী সদর ইউনিয়নে নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জাহাঙ্গীর মোল্লা জানান, সুদকারবারীদের জন্য এলাকার অনেকে ঘরছাড়া হয়েছে। তাদের হুমকিতে আত্মহত্যা করেছে অনেক লোক। এসব সুদ ব্যবসায়ীরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে অনেকে কথা বলতে সাহস পায় না। তারা টাকা দিয়ে সব অপরাধ ধামাচাপা দেয়ার কারণে ক্ষতিগ্রস্তরা কোনো বিচার পায় না। করোনার সময়ে মানুষ নানা শঙ্কায় আছেন কিন্তু মনে হচ্ছে করোনার চেয়ে বড় ত্রাস এসব সুদব্যবসায়ীরা।

ঘোলা গ্রামের ইদ্রিস শেখের সাথে কথা হলে তিনি সুদে টাকা দেয়ার বিষয়ে জানান, রবিউল শেখের কাছে তিনি ধানের বিনিময় টাকা দিয়েছেন। রবিউল তার সাথে ঠিকমত লেনদেন না করার কারণে তার ঘরে তালা লাগিয়েছেন। তবে তালা লাগানোর জন্য তিনি ভুল স্বীকার করেছেন।

বিষয়ে বড়বাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান মাসুদ সরদার জানান, রবিউলের বিষয়টি শুনেছি। পাওনা টাকার জন্য কারো ঘরে তালা লাগানো, বাড়ি দখল করা মোটেই ঠিক কাজ হয়নি।

বিষয়ে বাগেরহাটের পুলিশ সুপার একে এম আরিফুল হক বলেন, জাতীয় সুদ ব্যবসার সাথে যারা জড়িত তাদের কোনো ভাবেই ছাড় দেয়া হবে না। ভুক্তভোগীরা থানায় অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

বাগেরহাটে পান চাষ করে ভাগ্য বদলেছে কৃষকের

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাট সদরসহ ৯টি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামাঞ্চলে পতিত উঁচু জমিতে, বাড়ির পাশে, বিভিন্ন গাছে কিংবা বাড়ির উঠোনে পান চাষে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে। এতে এক দিকে চাঙ্গা হচ্ছে গ্রামীণ অর্থনীতি, অন্য দিকে স্বাবলম্বী হচ্ছে এলাকার অনেক দরিদ্র পরিবার। তবে বাজারে পানের দাম বেশি ব্যাপক চাহিদা থাকায় অন্যান্য ফসলের তুলনায় পান চাষের দিকে ঝুঁকছে স্থানীয় চাষিরা।

উপজেলার ৭৫টি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে অসংখ্য পানের বরজ রয়েছে। এখানকার উৎপাদিত পান উপজেলার চাহিদা মিটিয়ে সরবরাহ হচ্ছে পার্শ্ববর্তী গোপালগঞ্জ, খুলনা ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন শহরে। এরই মধ্যে উপজেলার চুনখোলা, আটজুড়ি, গিরিস নগর, সরসপুর, উত্তর আমবাড়ি, গাংনী, পুরাতন ঘোষগাতী বিভিন্ন এলাকার মানুষ পান চাষ করে বদলে দিয়েছে গোটা উপজেলার অর্থনীতি। পাশাপাশি পান চাষিরাও তাদের শ্রম কাজে লাগিয়ে বদলে দিচ্ছে তাদের পরিবারের ভাগ্য।

বাগেরহাটের সদওে ২টি মোল্লাহাট উপজেলার উদয়পুর সদর ইউনিয়ন চুনখোলা ইউনিয়নে দুইটি পানের হাট রয়েছে। উদয়পুর সদরে প্রতি সপ্তাহে সোমবার বৃহস্পতিবার এবং চুনখোলা ইউনিয়নে শনিবার মঙ্গলবার হাট বসে। ওই হাটে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ক্রেতারা এসে পান ক্রয় করেন। সদরে প্রতিহাট বারে প্রায় ১০/২৫ লক্ষ টাকার পান বিক্রি হয়।

উপজেলা কৃষি অফিসের তথ্য মতে, চলতি বছর উপজেলায় ১৪২ হেক্টর জমিতে পানের আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও আবাদ হয়েছে অনেক বেশি। কৃষকরা জানায়, প্রতি একর জমিতে পানের উৎপাদন ব্যয় পাঁচ-ছয় লাখ টাকা, আর তা বিক্রি হয় ১০-১২ লাখ টাকায়।

উপজেলায় নয়টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকায় পাঁচ শতাধিক পান চাষি রয়েছে। উপজেলার চুনখোলা গ্রামের পান চাষি উদ্ধব রায়, বরেন হীরা, বাবুল বিশ্বাস, জানান, পান চাষাবাদের এক-দেড় মাস যেতেই বরজের বিক্রির মতো পান ফুটে ওঠে। বর্ষা মৌসুমে পানের উৎপাদন একটু বেশি হয়। জন্য কোনো কাজের লোক রাখতে হয় না। অবসর সময়ে ব্যয় করে এই বরজের পেছনে। এতে বরজ থেকে প্রতি মাসে ২০ থেকে ২৫ হাজার টাকা আয় করতে সক্ষম হয় তাঁরা।

উপজেলার গিরিস নগর গ্রামের পান চাষি মাধবচন্দ্র রায় জানান, পান লাভজনক ফসল। উৎপাদন খরচের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ লাভ হওয়ায় বরজ পাল্টে দিয়েছে তার অভাবের সংসারের চিরচেনা স্মৃতি। পানের এই আয় থেকেই ছেলেমেয়েদের লেখাপড়া করানোর পাশাপাশি স্বাবলম্বী হচ্ছে তারা। কিনেছে ফসলি জমিও।

ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ অনিমেষ বালা জানান, পান চাষ লাভজনক হওয়ায় অঞ্চলে পান চাষ জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। এবার উৎপাদিত পান থেকে প্রচুর আয় হবে বলে আশা করা হচ্ছে। পানে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হলে কৃষকদের বিভিন্ন স্পে জৈব বালাই নাশক ছেটানোর পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছি। তা ছাড়া পান চাষ করতে গিয়ে কৃষক বিভিন্ন রকমের সমস্যার সম্মুখীন হলে খুব দ্রুত তাদের পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করে থাকেন বলেও জানান তিনি।

দিঘলিয়ায় মাসিক আইন-শৃংখলা কমিটির সভা

দিঘলিয়া প্রতিনিধি

গতকাল বিকাল ৪.০০ টায় উপজেলা কন্ফারেন্স রুমে উপজেলা আইন-শৃংখলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা প্রশাসন কতৃক আয়োজিত আইন-শৃংখলা কমিটির সভায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ মাহবুবুল আলম এর সভাপতিত্বে ভিডিও কন্ফারেন্স এর মাধ্যমে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা-০৪ আসনের সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মূর্শেদী। তিনি বলেন করোনা মহামারীতে সকলে আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে, নিজেদের স্বার্থ ত্যাগ করে একসাথে কাজ করতে হবে। অপ্রয়োজনে বাড়ীর বাইরে বের না হওয়ার আহবান জানান। জরুরী প্রয়োজনে খাদ্য সহায়তা, চিকিৎসা সেবার জন্য সালাম মূর্শেদী সেবা সংঘ সবসময় আপনাদের পাশে আছে সবসময়।তিনি আরও বলেন জননেত্রী শেখ হাসিনা রুপসা, তেরখাদা দিঘলিয়ার উন্নয়ের জন্য  ব্রিজ, ফোরলেন রাস্তা (তেরখাদার সাথে গোপালগঞ্জের হাইওয়ে সংযোগ সড়ক) নির্মানের প্রস্তাবনা  গ্রহনের আশ্বাস প্রদান করেন।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শেখ মারুফুল ইসলাম, উপজেলা সহকারী কমিশনার ভুমি মোঃ আলিমুজ্জামান মিলন, উপজেলা আওয়ামীলীগ এর সাধারন সম্পাদক জেলা পরিষদ সদস্য মোল্লা আকরাম হোসেন, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আহসান উল্লাহ চৌধুরী, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান দ্বয় আলী রেজা বাচা, মমতাজ শিরিন ময়না, দিঘলিয়া সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ ফিরোজ মোল্লা, সেনহাটী ইউনিয়ন পরিষদ  চেয়ারম্যান গাজী জিয়াউর রহমান, গাজীরহাট ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী হেলাল, এমপি প্রতিনিধি এস এম গোলাম রহমান, মোঃ হাবিবুর রহমান তারেক, বিভিন্ন দপ্তরের দাপ্তরিক প্রধানগন, সুধিজন সাংবাদিক বৃন্দ।

কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে খুলনায় ৫শ’ আনসার মাঠে নামবে

স্টাফ রিপোর্টার

আগামী বৃহস্পতিবার থেকে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে খুলনায় শত আনসার মাঠে নামবে। উপজেলা প্রশাসনের নির্দেশনা বাস্তবায়নের পাশাপাশি জনসমাবেশ না করা জন্য ইউনিয়নবাসিদের পরামর্শ দেবে। মহানগরী পর্যায়ে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় পুলিশের পাশাপাশি আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় সহায়তা করবে। নগরীর ভুতের বাড়িস্থ আনসার জেলা সদর দপ্তর থেকে সপ্তাহকালের কঠোর লকডাউন মনিটরিং করা হবে।

স্থানীয় সুত্র বলেছেন, লকডাউন নিশ্চিত করতে উপজেলা প্রশাসনকে সহায়তা করার জন্য বৃহস্পতিবার (জুলাই) আনসার সদস্যদের মাঠে নামার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। যেসব আনসাররা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার নিরাপত্তায় রয়েছে তারাও লকডাউন বাস্তবায়নের সহায়তায় নামবে। ইউএনওদের নিরাপত্তায় প্রত্যেক উপজেলায় ১৫জন আনসার দায়িত্ব পালন করছে। গত ২২জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত দাকোপ পাইকগাছা উপজেলায় পুলিশের সহায়তায় ২০জন করে আনসার জনসচেতনতায় এবং ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় নামে। সংক্রমন কমাতে উপজেলা পর্যায়ে আনসাররা লিফলেট বিতরণ করেছে। লিফলেটে করোনা সংক্রামনরোধে জনসচেতনতাবৃদ্ধিতে পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

আনসারের জেলা কম্যান্ডান্ট হাফিজ আল মোহাম্মার গাদ্দাফী জানান, টিকাদান কেন্দ্রগুলোতে আনসার স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করছে। মহানগরীর ১৩টি টিকাদান কেন্দ্রে আনসাররা শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব পালন করেন। করেন্টাইন সেন্টারে পুলিশের সাথে সাথে আনসারও নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে। মহাপরিচালকের দপ্তর থেকে পহেলা জুলাইয়ের প্রস্তুতি নিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার থেকে জেলা প্রশাসনের নির্দশনায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় আনসারদের সম্পৃক্ততা থাকবে। তিনি বলেন, ২০১৩ সালে বিরোধী দল আহুত রাজপথ রেলপথ অবরোধ কর্মসুচিতে রেললাইন রক্ষায় দীর্ঘদিন আনসার বাহিনী পাহারা দেয়। সে সময় দেশের কোন রেল পথে অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটেনি।

বৃদ্ধা মাকে বাগানে ফেলে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে ঢাকায়

পাইকগাছা (খুলনা) প্রতিনিধি

বৃদ্ধা মাকে বাগানে ফেলে বাড়ির গেটে তালা দিয়ে স্ত্রী-সন্তানসহ ঢাকায় পাড়ি জমিয়েছেন একমাত্র ছেলে। তার আগে জায়গা-জমি সব বিক্রি করে দেন ছেলে। সোমবার খুলনার পাইকগাছার কপিলমুনির শিলেমানপুর গ্রামে ঘটনাটি ঘটে। পরে বৃদ্ধার ভাই মোহাম্মদ আলী খবর পেয়ে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করে কাশিমনগরে বাড়িতে নিয়ে যান।

বৃদ্ধার নাম জামিলা বিবি, বয়স ৮২ বছর। এলাকার মৃত লতিফ সরদারের স্ত্রী তিনি। তার একমাত্র ছেলে মো. জায়েদই (৫০) তাকে বাগানে ফেলে রেখে ঢাকায় চলে গেছেন বলে অভিযোগ।

জামিলা বিবির ভাইয়ের ছেলে আব্দুর রহমান জানান, তারা ঘটনাস্থলে গিয়ে মস্তিষ্ক বিকৃত দৃষ্টি প্রতিবন্ধী জামিলাকে পড়ে থাকতে দেখেন। পরে পাইকগাছা থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এজাজ শফীকে জানালে তিনি জামিলাকে নিয়ে থানায় যেতে বলেন। পরে স্থানীয় ইউপি সদস্য এজাহার আলীকে জানিয়ে জামিলাকে তারা নিজেদের বাড়িতে নিয়ে যান।

তিনি আরও জানান, জায়েদের বাড়ির দু’টি ভবনের চারটি রুমের সবগুলোই তালাবদ্ধ। জামিলাকে উদ্ধার করে নিয়ে আসার সময় প্রতিবেশী এক নারী জায়েদ ঘরের চাবি রেখে গেছে বলে জানান। তবে স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে জায়েদ কোথায় গেছেন কিংবা কবে ফিরবেন তা কাউকে জানিয়ে যাননি।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে আব্দুর রহমান বলেন, জায়েদ তার মাকে ফেলে যাবার আগে বাড়ি-ঘর বিক্রি করে দিয়েছেন। তবে কার কাছে বিক্রি করেছেন তা জানা যায়নি।

মোবাইল ফোনে কল করলে জায়েদ জানান, মাকে ফেলে রেখে যাওয়ার সময় তিনি অনেক কেঁদেছেন। তবে কবে ফিরবেন কিংবা আদৌ ফিরবেন কিনা তা জানাননি তিনি।

স্থানীয়রা জানান, বৃদ্ধা জামিলা বিবির মস্তিষ্ক বিকৃতি আছে। তিনি দৃষ্টিপ্রতিবন্ধীও। ছেলে জায়েদের সঙ্গে থাকতেন শিলেমানপুরেই। তার নাতিরা ঢাকায় বড় চাকরি করেন। সোমবার দিনের কোন এক সময় মাকে বাড়ির বাগানে ফেলে রেখে বাগানের গেটে তালাবদ্ধ করে ঢাকায় চলে গেছেন জায়েদ।

জমি নিয়ে দুই ভাইয়ের বিরোধে ভাইপো নিহত

মহম্মদপুর (মাগুরা) প্রতিনিধি

মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার বানিয়াবহু গ্রামে দুই ভাইয়ের জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের হামলায় ভাইপো নিহত হয়েছেন। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে আটক করেছে।

মঙ্গলবার সকালের ঘটনার সময় একটি বাড়িতে ভাংচুর লুটপাটের ঘটনা ঘটে। পুলিশ এলাকাবাসী জানায়, জমি নিয়ে বানিয়াবহু গ্রামের দুই ভাই আফসার মোল্যা কদম মোল্যার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। সকাল ৯টার দিকে বিরোধপূর্ণ জমি আফসার মোল্যা দখল করতে গেলে কদম মোল্যা বাধা দেন। এতে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। খবর জানাজানির পর উভয় পক্ষের লোকজন ছুটে এসে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। সময় প্রতিপক্ষ কদম মোল্যার লোকজনের লাঠির আঘাতে ভাইপো মাফুজার (৩৫) ঘটনাস্থলে নিহত হন। তিনি আফসার মোল্যার বড় ছেলে। সময় কমপক্ষে পাঁচজন আহত হন। গুরুতর আহত খলিলুর রহমান (৬০) মুন্নাফ মোল্যাকে (৫৫) মাগুরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। অন্যরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে চারজনকে আটক করেছে। সংঘর্ষ চলাকালীন সবুজ নামের এক ব্যক্তির বাড়িতে ভাংচুর লুটপাটের খবর পাওয়া গেছে। খবর পেয়ে মাগুরার পুলিশ সুপার মো. জহিরুল ইসলাম, ইউএনও রামানন্দ পাল উপজেলা চেয়ারম্যান আবু আব্দুল্লাহ হেল কাফী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

মহম্মদপুর থানার ওসি মো. নাসির উদ্দীন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে চারজনকে আটক করা হয়েছে। পুনরায় সংঘর্ষ এড়াতে এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

খুলনার গ্রামাঞ্চলে আক্রান্ত মানুষ সাপোর্ট পাচ্ছেন না

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনার গ্রামগঞ্জ পাড়া-মহল্লায় করোনাভাইরাস সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিদিন সিজনাল সর্দি-জ্বরের সঙ্গে মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। চিকিৎসা নিতে শহরে ছুটছেন তারা। কিন্তু আক্রান্তের সংখ্যা বেশি হওয়ায় শহরে তারা ন্যূনতম সাপোর্টও পাচ্ছেন না। এদিকে খুলনা বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। সময়ে হাজার ৪৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। ২১ জুন কয়রা উপজেলার উত্তর বেদকাশী ইউনিয়নের শেখ আবুল কালাম আজাদ করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। উপসর্গ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে তিনি অ্যান্টিজেন পরীক্ষা করিয়ে এর রেজাল্ট পান। দুই দিনের মধ্যে তার অক্সিজেন স্যাচুরেশন কমে ৭৫-নেমে আসে। দুই দিনেও তিনি অক্সিজেন সিলিন্ডার জোগাড় করতে পারেননি। জেলা সদর থেকে নানা চড়াই-উতরাই পার করে স্বজনরা একটি সিলিন্ডার নিয়ে যান গ্রামে। অবস্থা আরও বেগতিক দেখে পরিবারের লোকজন ২৭ জুন তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তার ভাই পাইকগাছা কলেজের প্রফেসর আবু সাইদ বলেন, গ্রাম পর্যায়ে কেউ করোনায় আক্রান্ত হলে ন্যূনতম সেবা পাচ্ছেন না। না চিকিৎসাসেবা, না আনুষঙ্গিক সাপোর্ট। আক্রান্ত হওয়ার পর অবস্থার অবনতি হলে সঙ্গে সঙ্গে শহরে না আনলে মৃত্যু নিশ্চিত। তিনি আরও বলেন, আক্রান্ত হওয়ার সার্টিফিকেট পেতেই তার ভাইকে দীর্ঘ সময় ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে। অন্যদিকে সার্টিফিকেট না নিলেও প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিতেও পারছেন না চিকিৎসকরা।

গ্রামে করোনার ভয়াবহতা যত বাড়ছে, মানুষের দুর্ভোগও তত বাড়ছে। সিভিল সার্জনের অফিস থেকে পাওয়া তথ্য বিশ্লেষণে দেখা গেছে, খুলনায় করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর ৯টি উপজেলার মধ্যে ফুলতলা উপজেলায় সংক্রমণের হার এগিয়ে। শহরের পাশে উপজেলার অবস্থান হওয়ায় এখানকার সংক্রমণের হারও বেশি বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা। ফুলতলা উপজেলায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৭০২ জন। আর সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর দিক থেকে এগিয়ে রয়েছে রূপসা উপজেলা।

খুলনার সিভিল সার্জন নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, জুনের প্রথম থেকে খুলনায় করোনার সংক্রমণ ব্যাপকভাবে বেড়েছে। শহরের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে গ্রামে। স্বাস্থ্যবিধি না মানলে সংক্রমণ মৃত্যুহার আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে তিনি বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোয় করোনার চিকিৎসা চলবে। তবে যে ধরনের সাপোর্ট দরকার, তা সেখানে নেই। ফলে সিরিয়াস রোগীদের কোভিড বিশেষায়িত হাসপাতালের সাপোর্ট প্রয়োজন। কয়রা উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা সুদীপ কুমার বালা বলেন, কয়েক সপ্তাহ ধরে সর্দি-জ্বরে আক্রান্ত রোগী বেশি আসছেন। তাদের কোভিড পরীক্ষা করাতে বললে তারা তা করছেন না। তাদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত থাকলেও চিহ্নিত করা সম্ভব হচ্ছে না। এতে সংক্রমণ বাড়ছে।

প্রতিদিন খুলনা বিভাগ করোনা শনাক্ত মৃত্যুর রেকর্ড ভাঙছে। ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে খুলনা বিভাগে ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। সময় নতুন করে রেকর্ড হাজার ৪৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সোমবার পর্যন্ত খুলনায় করোনায় মৃতের সংখ্যা এক হাজার ছাড়িয়েছে। একই সঙ্গে শনাক্তের সংখ্যা ৫৩ হাজার ছাড়িয়েছে। বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক রাশেদা ডা. সুলতানা এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের দপ্তর সূত্র জানায়, ২৪ ঘণ্টায় কুষ্টিয়ায় সর্বোচ্চ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া খুলনায় ছয়জন, মেহেরপুরে চারজন, ঝিনাইদহে চারজন, চুয়াডাঙ্গায় দুজন, বাগেরহাটে দুজন, যশোরে একজন, সাতক্ষীরার একজন এবং নড়াইলে একজন মারা গেছেন। খুলনা সিভিল সার্জন অফিসের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. শেখ সাদিয়া মনোয়ারা ঊষা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা জেলার ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া খুলনা জেলা মহানগরীতে ৭৬৮টি নমুনা পরীক্ষা করে ২৯৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে, যা মোট নমুনা পরীক্ষার ৪০ শতাংশ।

ঘুম পাড়িয়ে সর্বস্ব লুটে নিল ‘জিনের বাদশা’

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি

চিকিৎসার নাম করে নিম পাতার রসের সঙ্গে চেতনানাশক খাইয়ে এক পরিবারের সবাইকে ঘুম পাড়িয়ে সর্বস্ব লুটে নিয়ে গেছে জিনের বাদশা পরিচয় দেওয়া এক প্রতারক। সোমবার ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার হিতামপুর গ্রামের বাসিন্দা সয়ফুল ইসলামের বাড়িতে ঘটনা ঘটে।

বৃদ্ধ সয়ফুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন ধরে নানা রোগে ভুগছেন তিনি। চিকিৎসার জন্য গত রোববার বিকালে সদর উপজেলার কুশাবাড়িয়া গ্রামের রবিউল ইসলাম রবি (৬০) নামের এক জিনের বাদশাকে ডেকে আনেন তিনি। জিনের বাদশা তাদের বলেন, এখন তো সন্ধ্যা হয়ে গেছে, আজকে গিয়ে কি করব। আর এই বাড়িতে অনেক কিছু আছে। আসনে বসতে হবে।

সয়ফুল ইসলাম জানান, পরে তাদের কাছ থেকে টাকা টাকা নিয়ে দোকান থেকে মোমবাতি, সিঁদুর নিয়ে আসে ওই জিনের বাদশা। রাতে ঘরে আসন বসাবে বলে তাদেরকে নিমের পাতা বাটতে বলে। পরে তাদের সবাইকে যার যার ঘরে যেতে বলে। রাত ১০টার দিকে সবাইকে ডেকে নিম পাতার রস খাইতে দেয়। পরে ঘরে গিয়ে  তারা ঘুমিয়ে পড়ে। দুপুরে আমাদের ঘুম ভাঙলে তারা দেখতে পান, সব লুট করে নিয়ে গেছে জিনের পরিচয় দেওয়া ওই প্রতারক।

সয়ফুলের ছেলে সুজন জানান, যাওয়ার সময় বাড়িতে থাকা নগদ ৬৫ হাজার টাকা, জোড়া সোনার দুল, টি আংটি, জোড়া সোনার হাতের বালা পোশাক নিয়ে গেছে।

ব্যাপারে শৈলকুপা থানার ওসি (তদন্ত) মহসীন হোসেন বলেন, ঘটনায় থানায় কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটারদের খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থা ট্রাকসুট প্রদান

ক্রীড়া প্রতিবেদক

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) গেম ডেভলেপমেন্টের আয়োজনে বয়স ভিত্তিক ক্রিকেটের গত দুই মৌসুমে আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় খুলনা জেলার খেলোয়াড়দের ট্রাকসুট ট্রাউজার দিয়েছে খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থা। মঙ্গলবার (২৯ জুন) খুলনা জেলা ক্রীড়া সংস্থার সম্মেলন কক্ষে এসব উপহার তুলে দেন সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এসএম মোয়াজ্জেম রশিদী দোজা।

২০১৮-২০১৯ মৌসুমে খুলনা জেলার অনুর্ধ্ব-১৪ দল একই মৌসুমে অনুর্ধ্ব-১৮ দল এবং চলতি ২০১৯-২০২০ মৌসুমে খুলনা অনুর্ধ্ব-১৮ ক্রিকেট দল আঞ্চলিক পর্বে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করে। এই তিন বিভাগের চ্যাম্পিয়ন খেলোয়াড়দের কর্মকর্তাদের সাফল্যে ট্রাকসুট ট্রাউজার প্রদান করা হয়। বিসিবির খুলনা বিভাগীয় কোচ মনোয়ার আলী মনুর উপস্থাপনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সংস্থার যুগ্ম সম্পাদক মোমতাজ আহম্মেদ তুহিন, বিভাগীয় ক্রীড়া সংস্থার সদস্য শেখ হেমায়েত উল্লাহ, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য মোলা খায়রুল ইসলাম, তরিকুল ইসলাম, মো. নাজমুল ইসলাম, ফয়সাল আহমেদ পপা, বিসিবির খুলনা জেলা কোচ মো. শামছুল আলম রনি প্রমুখ।

রূপসায় র‌্যাবের অভিযানে চাঞ্চল্যকর লাকি হত্যা মামলার আসামি রিয়াজুল গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার

রূপসা থানার দক্ষিণ নন্দনপুর গ্রামের গৃহবধূ লাকি হত্যা মামলার প্রধান আসামি রিয়াজুলকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। সোমবার (২৮ জুন) দুপুর ২টার দিকে রূপসা রামনগর এলাকার আকবরের মোড়ের সফিকুলের চায়ের দোকনের সামনে থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। রিয়াজুল রূপসা থানার রামনগর গ্রামের মো. রসুল খানের ছেলে।

র‌্যাব-এর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মো. বজলুর রহমান জানান, ২০১৯ সালের ১৩ সেপ্টেম্বর রূপসা থানার দক্ষিণ নন্দনপুর এলাকার মো. আনছার আলীর মেয়ে মোসাম্মৎ লাকী বেগম খুন হয়। অজ্ঞাতনামা আসামিরা লাকী বেগমকে খুন করে তার ঘরের মূল্যবান সম্পত্তি লুট করে। ঘটনা বিভিন্ন স্থানীয় জাতীয় মিডিয়ায় প্রকাশ পায় এবং জনমনে ব্যাপক উদ্বেগের সৃষ্টি হয়। হত্যার বিষয়ে ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে রূপসা থানায় অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে হত্যা মামলা দায়ের করেন যার নং-৬। মামলায় রূপসা থানা পুলিশ ভিকটিমের তৃতীয় স্বামী মো. ফুল মিয়াকে সন্দেহমূলক ভাবে গ্রেফতার করে। পরবর্তীতে মামলা পিবিআই এর নিকট হস্তাস্তরিত হয়। পিবিআই এর তদন্তকারী অফিসার পুলিশ পরিদর্শক মো. শহিদুল্লাহ মামালার মূলরহস্য উদঘাটন করেন এবং হত্যাকারীদের শনাক্ত করেন। এরপর ২৮ জুন ১০ ঘন্টার গোপন অভিযান চালিয়ে মামলার প্রধান আসামি রিয়াজুলকে গ্রেফতার করা হয়। আসামিকে পিবিআইতে হস্তান্তর করা হয়েছে।

নগরীতে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালতে জনকে জরিমানা

স্টাফ রিপোর্টার

নগরীর খুলনা সদর থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় করোনা ভাইরাসের সচেতনতা উপেক্ষা করে জনসমাগম করার অপরাধে জনকে সাড়ে হাজার টাকা জরিমানা করেছে র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত। মঙ্গলবার (২৯ জুন) বিকেল ৪টা থেকে রাত সাড়ে ৭টা পর্যন্ত খুলনার সহকারী কমিশনার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এর নেতৃত্বে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হয়।

র‌্যাব-জানায়, মঙ্গলবার (২৯ জুন) বিকেল ৪টা থেকে রাত সাড়ে ৭টা পর্যন্ত খুলনা সদর থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় করোনা ভাইরাসের সচেতনতা উপেক্ষা করে জনসমাগম করায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে র‌্যাব-৬। এসময় ১৮৬০ সালের দন্ডবিধি আইনের ১৮৮ ২৬৯ ধারা মোতাবেক জনকে সর্বমোট সাড়ে হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযুক্তরা জরিমানার অর্থ তাৎক্ষণিকভাবে স্বেচ্ছায় পরিশোধ করেছেন। আদায়কৃত টাকা সরকারি কোষাগারে জমা করা হয়েছে।

নগরীতে র‌্যাবের অভিযানে ১২৮ লিটার চোলাই মদসহ গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা সদর থানাধীন স্টেশন রোড এলাকায় অভিযান চালিয়ে ১২৮ লিটার চোলাই মদসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। ২৮ জুন দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ী হলেন

খুলনা জেলার রূপসা থানার রাজাপুর গ্রামের হবি কাজীর বাড়ীর ভাড়াটিয়া পরিতোষ দাসের ছেলে তাপস দাস (৪০)

র‌্যাব-জানায়, ২৮ জুন দিবাগত রাত সোয়া ১২টার দিকে খুলনা সদর থানাধীন স্টেশন রোড এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় মেসার্স আবির এন্টারপ্রাইজ নামক রড সিমেন্টের দোকানের সামনে থেকে ১২৮ লিটার চোলাই মদসহ তাপস দাসকে গ্রেফতার করা হয়। তার বিরুদ্ধে খুলনা সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

কেএমপির অভিযানে মাদকসহ গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার

গত ২৪ ঘন্টায় খুলনা মহানগর পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে ৮০ লিটার দেশীয় তৈরী চোলাই মদ, ৩০০ গ্রাম গাঁজা ৩৫ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন নগরীর স্টেশন রোডের মৃত. বাবুল খান এর ছেলে  আজিম খান সনি (৩৮), বসুপাড়া সিদ্দিকীয়া মহল্লার মো. সুলতান মোল্লার ছেলে মো. সাদ্দাম মোল্লা ওরফে কামাল (৩০), ৫নং মাছঘাট মামুর মাজার এর পেছনের আহম্মদ গাজীর ছেলে মো. সাদ্দাম (৩৩) হোগলাডাঙ্গা রহমান মিস্ত্রির বাড়ীর পাশের আব্দুল আওয়াল হাওলাদারের ছেলে মো. সোহাগ হাওলাদার (৩০)

কেএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. শাহ্ জাহান শেখ জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ। এসময় ৮০ লিটার দেশীয় তৈরী চোলাই মদ, ৩০০ গ্রাম গাঁজা ৩৫ পিস ইয়াবাসহ মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৪টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

সাতক্ষীরায় র‌্যাবের অভিযানে ৩৯ লিটার চোলাই মদসহ গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার

সাতক্ষীরা জেলার সদর থানাধীন ঝাউডাঙ্গা বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩৯ লিটার চোলাই মদসহ দু’মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৬। ২৮ জুন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে গোপন সংবাদের মাধ্যমে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতার মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন সাতক্ষীরা জেলার সদর থানার তুজুলপুর এলাকার আব্দুল মান্নান গাজীর ছেলে আমানউল্লাহ আমান ওরফে রাজা (১৭) কলারোয়া থানার তুলশীডাঙ্গা গ্রামের আবু বক্কার এর ছেলে আব্দুর রহমান গাজী ওরফে পিলে (৩৬)

র‌্যাব-জানায়, ২৮ জুন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সাতক্ষীরা জেলার সদর থানাধীন ঝাউডাঙ্গা বাজার এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি আভিযানিক দল। এসময় মাছ পট্টি  মেসার্স মাম্পি এ্যান্ড প্রান্ত ফিস ঘরের মধ্যে হতে ৩৯ লিটার চোলাই মদসহ রাজা পিলেকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

বিএনপি নেতার ইন্তেকালে খুলনা মহানগর বিএনপির শোক

 খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগরীর দৌলতপুর থানা বিএনপির ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক সাবেক ৫নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি শেখ মোশাররফ হোসেন (৮২) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না….রাজিউন)মঙ্গলবার (২৯ জুন) বিকাল ৪টায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি ইন্তেকাল করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে, দুই মেয়ে, ভাইবোন-আত্মীয় স্বজনসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। মরহুমের নামাজে জানাজা বাদ এশা দৌলতপুর আঞ্জুমান ঈদগাহ ময়দানে অনুষ্ঠিত হয়। পরে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়েছে। নামাজে জানাজায় বিএনপির নগর সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জুসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। এদিকে বিএনপি নেতার মৃত্যুতে গভীর শোক, শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা মহানগর নেতৃবৃন্দ। বিবৃতিদাতারা হলেন খুলনা মহানগর বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য নজরুল ইসলাম মঞ্জু, সাধারন সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মনি, সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশাররফ হোসেন, জাফরউল¬াহ খান সাচ্চু, জলিল খান কালাম, সিরাজুল ইসলাম, এড. ফজলে হালিম লিটন, এড. বজলুর রহমান, এড. এস আর ফারুক, আব্দুর রহমান, শেখ ইকবাল হোসেন, শেখ জাহিদুল ইসলাম, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, সিরাজুল হক নান্নু, মো. মাহবুব কায়সার, নজরুল ইসলাম বাবু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, এস এম আরিফুর রহমান মিঠু ইকবাল হোসেন খোকন প্রমুখ।

সুস্থতা কামনা: খুলনা মহানগর বিএনপি নেতৃবৃন্দ অপর এক বিবৃতিতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সাবেক মহানগর যুবদলের সাধারন সম্পাদক ইশতিয়াক উদ্দিন লাভলু, ১৬নং ওয়ার্ড বিএনপির সহ সভাপতি শেখ আকিরুল ইসলাম, গুরুতর অসুস্থ মহানগর বিএনপির পরিবার কল্যান বিষয়ক সম্পাদক মোহাম্মদ শাহজাহান, সোনাডাঙ্গা থানা বিএনপির সহ সভাপতি কাজী নজরুল ইসলামের আশু রোগ মুক্তি কামনা করেছেন।

খুলনা-আসনের সংসদ সদস্যের শোক সমবেদনা

খবর বিজ্ঞপ্তি

পাইকগাছা উপজেলা আইনজীবী সমিতির সহ-সভাপতি এ্যাড. আবুল কালাম আজাদ (৪৭) শ্বাসকষ্টে আক্রান্ত হয়ে গত সোমবার দিবাগত রাত ২টা ১০ মিনিটে এবং কয়রা উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়ন পরিষদের নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য (মেম্বর) মাসুদ রানার পিতা জিএম আব্দুস সাত্তার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মঙ্গলবার (২৯ জুন) সন্ধ্যায় ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)তাদের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ শোক সন্তপ্ত উভয় পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা এবং বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু।

মহেশপুরে করোনা যোদ্ধা ইউএনও নিজেই করোনায় আক্রান্ত

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধিঃ

নিজে করোনার ভয় না করে ভারত থেকে আসা ব্যক্তিদের থাকা,খাওয়ার ব্যবস্থা,করোনা রোগীদের বাড়ী বাড়ী খাবার ঔষধ পৌছে দিয়ে আসছিলেন আজ সেই করোনা যোদ্ধা ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীল নিজেই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সুত্রে জানাগেছে, গতকাল মঙ্গলবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীলসহ ৩০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীলসহ ১৮ জনের করোনা প্রজেটিভ হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা ডাঃ ডাঃ হাসিবুর সাত্তার জানান, মাঝে দু’দিন আক্রান্তের সংখ্যা কম খাকলেও মঙ্গলবার ১৮ জন করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। এর মধ্যে মহেশপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাশ্বতী শীলও রয়েছেন। স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মকর্তা আরো জানান,অসুস্থ অবস্থায় তিনি বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।  

মহেশপুরে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহরা দিয়ে বাড়ীতে ঢুকে নারীসহ জনকে আহত করা হয়েছে

মহেশপুর(ঝিনাইদহ)প্রতিনিধিঃ

জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহরা দিয়ে হাসেম পাটোয়ারী তার শাঙ্গ পাঙ্গরা বাড়ীতে ঢুকে মনোয়ারা বেগম (৬০), শাহিনুর বেগম (৩৮),সোনিয়া খাতুন (২০) জাহিদুল ইসলামকে (২২) পিটিয়ে আহত করে। পরে পুলিশ ঘটনা স্থলে পৌছালে হাসেম পাটোয়ারী তার শাঙ্গ পাঙ্গরা অস্ত্র হাতে নিয়ে পুলিশের সামনে দিয়েই চলে যায়। এঘটনায় পুলিশ মামুন পাটোয়ারী (৩৫) নামের এক জনকে আটক করেছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার ৯টার দিকে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার পান্তাপাড়া ইউনিয়নের ঘুগরী বেলেঘাট পাড়ায়।

এঘটনায় শাহিনুর বেগম বাদি হয়ে হাসেম পাটোয়ারী,মহাসিন পাটোয়ারী,মামুন পাটোয়ারী,ওহিদুল,রুবেল,জয়নাল,সাত্তারসহ ১০ জনকে আসামী করে থানায় একটি লিখিত অভিয়োগ দায়ের করেছেন।

এলাকাবাসী জানায়, জমি জমা নিয়ে আদালতের রায় হাসেম পাটোয়ারীর পক্ষে না যাওয়ায় তারা ক্ষিত হয়ে ৬/৪/২০২১ তারিখ সকালে প্রকাশ্যে দিবালোকে বাড়ী-ঘর ভাংচুর লুটপাটের ঘটনা ঘটিয়ে বাড়ী দখলের চেষ্টা চালিয়ে ছিলো। পরে তারা পুলিশের কারনে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যায়। কিন্তু তারা আবারও মঙ্গলবার ৯টার দিকে প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহরা দিয়ে হাসেম পাটোয়ারী তার শাঙ্গ পাঙ্গরা বাড়ীতে ঢুকে মহিলাদেরকে পিটিয়ে আহত করেছে।

আহত শাহিনুর বেগম জানান,আমাদের বসত ভিটা নিয়ে দীর্ঘ দিন ধরে আদালতে মামলা চলে আসছে। বিজ্ঞ আদালত পর পর তিনবার আমাদের পক্ষে রায় দিয়েছেন। আদালতের রায় তাদের পক্ষে না যাওয়ার কারনে তারা বিভিন্ন ধরনের অস্ত্র হাতে নিয়ে হাসেম পাটোয়ারী,তার ভাই মহাসিন পাটোয়ারীসহ তাদের দল বল নিয়ে জমি দখলের চেষ্টা করে চলেছে। তিনি আরো জানান, হাসেম পাটোয়ারী,তার ভাই মহাসিন পাটোয়ারী প্রকাশ্যে বলে বেরাচ্ছেন দিনে রাতে যেখানেই পাবো সেখানেই কুপিয়ে মারবো।   

মহেশপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। মারপিট কারীদের এক জন মামুনকে আটক করা হয়েছে। বাকিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অভয়নগর উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে বিভিন্ন শিক্ষ প্রতিষ্ঠান সামাজিক সংগঠনকে ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি-

অভয়নগর উপজেলা পরিষদের ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের উন্নয়ন তহবিলের অর্থ থেকে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সামাজিক সংগঠনকে ক্রীড়া সামগ্রী যেমন, ফুটবল, ভলিবল ক্রিকেট সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল সকাল ১২টায় উপজেলা পরিষদ হতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে এই ক্রীড়া সামগ্রী উপস্থিথ বিবিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক সামাজিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের হাতে প্রধান অতিথি হিসাবে তুলেদেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ্ ফরিদ জাহাঙ্গীর। এসময় অরোও উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ গোলাম ছামদানী, সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা মো: ফরুখ হোসাইন সাগর, পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা মেহেদী হাসান সহ প্রমুখ।

মটরশ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য ড্রাইভার তারু মিয়া’রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্টিত

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

খুলনা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য ড্রাইভার তারু মিয়ার রুহের মাগফেরাত কামনা করোনা মহামারি থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য  এক দোয়া অনুষ্টান মঙ্গলবার বাদ আছর ফুলবাড়ীেেগট মটর শ্রমিক ইউনিয়নের উদ্যোগে ফুলবাড়ীগেট দরবার শরীফ জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় দোয়া অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি গাজী নুর ইসলাম বেবি, সাধারন সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন বিপ্লব, মতিয়ার রহমান মতি,কাজী শহিদুল ইসলাম, ফুলবাড়ীগেট মটরশ্রমিক ইউনিয়ন শাখার সাবেক সাধারণ সম্পাদক মোঃ ফারুক হোসেন, মোঃ রহিম খান ড্রাইভার, সাবেক মেম্বর মোঃ শামিম আহম্মেদ, মোঃ মনির হোসেন ভুঁইয়া, মোঃ সিদ্দিক ড্রাইভার, সেন্টু ড্রাইভার, শেখ আনিস, মেহেদী হাসান, নজরুল ইসলাম, হালিম মিয়া, রওশন আলী, মোঃ দুলাল, মোঃ মিজান, শেখ জাহিদ হোসেন, হারুন ব্যাপারী, মোঃ লুৎফর, হ্যাপি খান, মোঃ মাসুম, আনোয়ার হোসেন আনু , মোঃ মধু, খোকন মুন্সি, মোল্লা আজাদ, জাহিদ খান, বাবুল মাতব্বর, বাদশা মিয়া, নাসির খান, শেখ শাহিন, টুটুল প্রমুখ দোয়া পরিচালনা করেন ফুলবাড়ীগেট দরবার শরীফ জামে মসজিদের ইমাম সৈয়দ মাওলানা আমিনুল ইসললাম। উল্লেখ্য গত ২৭ জুন রবিবার ভোর সাড়ে ৫টায় খুলনা মটর শ্রমিক ইউনিয়নের সদস্য ড্রাইভার তারু মিয়া হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে ইন্তেকাল করেছেন।

খানজাহান আলী থানার এস আই হারুনুর রশিদ করোনা আক্রান্ত

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

খানজাহান আলী থানার এস আই শিরোমনি পুলিশ ফাড়ি ইনচার্জ এস আই হারুনুর রশিদের ২৮ জুন সোমবার রাতে করোনা পরীক্ষার ফল পজিটিভ আসে। তার শরীরে করোনা উপসর্গ দেখা দেয়ায় করোনা পরীক্ষার জন্য গত ২৪ জুন খুমেক হাসপাতালে নমুনা দেন। করোনাভাইরাস  শুরু থেকে থানা এলাকার আটরা গিলাতলা , শিরোমনি, গিলাতলা নং বিহারী কলোনি এলাকার জনগণকে সচেতন করতে হ্যান্ডমাইক হাতে নিয়ে সর্বত্র ছুটে চলেছেন এস আই হারুনুর রশিদ সামাজিক দুরুত্ব মেনে চলার গুরুত্ব, মাস্ক ব্যবহার নিশ্চিত করা, নিয়ম মেনে বাববার হাত ধোয়ার প্রয়োজন সম্পর্কে জনগণকে সচেতন করতে, প্রতিদিন সকাল থেকে রাত পর্যন্ত এলাকার হাটবাজার, গ্রামে সড়কে ঘুরে ঘুরে মানুষকে সচেতন করার চেষ্টা করেছেন।অসচেতন মানুষকে সচেতন করতে নিজস্ব অর্থায়নে অসহায় মানুষের মধ্যে খাদ্রসামগ্রী বিতরন করেছেন তিনি করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে জনগণকে রক্ষা করার জন্য সবাইকে ঘরে রাখতে চেষ্টা করেছেন। মানুষ মানুষের জন্য মানব জীবনের এই মহান দায়িত্ব কর্তব্য পালনে সর্বদা ছুটে চলা নির্ভীক সৈনিক সেই এসআই   এখন করোনা আক্রান্ত। তিনি করোনামুক্ত হতে এখন ঘরে অবস্থান করে চিকিৎসা নিচ্ছেন তার স্ত্রী ছোট শিশু সন্তান জ্বর, সর্দি , কাশি জ্বনিত রোগে ভুগছেন করোনাভাইরাস মুক্ত হতে সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন এস আই হারুনুর রশিদ তিনি বলেন, আমি সুস্থ হয়ে আবারও আগের মতো আমার উপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করতে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে চাই। যদি আমার সামান্য জীবনে যদি একজন মানুষেরও উপকারে আসতে পারি, সেটিই হবে আমার মানবজীবনের স্বার্থকতা। দেশ মানুষের কল্যাণে মানবজীবন উৎসর্গ করতে পারলে নিজেকে ধন্য মনে করব। এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় (২৮ জুন) খানজাহান আলী থানা এলাকায় জনের করেনা পজিটিভ রিপোট এসেছে এদের মধ্যে শিরোমনি গ্রামের রওশনারা, হাফিজা বেগম, যোগিপোল গ্রামের খাদিজা বেগম , পলি বেগম, ফুলবাড়ীগেটের মোঃ জাহাঙ্গির, নুরজাহান বেগম বাদামতলা পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের বিপুক কান্তি সরকার

বাগেরহাটে কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে ভিক্ষুকদের সহায়তা প্রদান

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাটের চিতলমারীতে ভিক্ষাবৃত্তি রোধে বিকল্প কর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে ভিক্ষুকদের মাঝে সহয়তা প্রদান করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৯ জুন) দুপুর টায় উপজেলা পরিষদ চত্বরে দাড়িয়ে পাঁচজন ভিক্ষুকের হাতে সহায়তা তুলে দেয়া হয়।

সময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন চিতলমারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অশোক কুমার বড়াল, সহকারি কমিশনার (ভূমি) জান্নাতুল আফরোজ স্বর্ণা, চিতলমারী উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ আবু মূছা, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মোঃ সোহরাব হোসেন চিতলমারী উপজেলা প্রেস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদক শেখর ভক্ত প্রমূখ। চিতলমারী উপজেলা সমাজ সেবা অফিসের উদ্যোগে বিতরণকৃত সহয়তার মধ্যে ছিল টি ছাগল, নগদ ১১০০ টাকা, খানা ঢেউটিন, চাল ১০০ কেজি, ডাল কেজি, লবন কেজি সয়াবিন তেল লিটার।

সহয়তা প্রাপ্ত ভিক্ষুকরা হলেন, উপজেলার শিবপুর গ্রামের আব্দুস ছালাম মোল্লা, বড়গুনি গ্রামের কহিনুর বেগম, শিবপুর গ্রামের লতিফা বেগম, পরানপুর গ্রামের সালাম মৃধা শিবপুর গ্রামের রাহিমা বেগম।

রামপালে তিব্রলবণাক্তার ভিতরে সৌদি খেজুরচাষে সফল আইনজিবী জাকির হোসেন

মেহেদী হাসান(রামপাল)বাগেরহাট

উপকূলীয় জেলা বাগেরহাট রামপালের মাটিতে এবার চাষাবাদ হচ্ছে সৌদি খেজুর। মরুভূমির এই উদ্ভিদ চাষে নতুন সম্ভাবনা দেখছেন জেলার চাষিরা। ভিনদেশি ফলের সম্ভাবনার নতুন দুয়ার উন্মোচন করেছেন বাগেরহাট জেলা জজ আদালতের আইনজীবী দিহিদার জাকির হোসেন।রামপাল উপজেলার সন্ন্যাসী হাজীপাড়া এলাকায় ‘রামপাল সৌদি খেজুর বাগান’ সৌদি খেজুর চাষ করে জাকির হোসেন স্বপ্ন দেখাচ্ছেন স্থানীয়দের।

১৫ একর মৎস্য ঘেরের খামারের বেড়িবাঁধে এখন আড়াই হাজারের মতো খেজুরগাছ রয়েছে জাকিরের। দুই বছরেই ফল এসেছে অনেক গাছে। লোনা পানির এই এলাকায় সৌদি খেজুর চাষের সফলতাকে অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি কৃষিক্ষেত্রে ইতিবাচক হিসেবে দেখছে জেলা কৃষি বিভাগ।খেজুরচাষি দিহিদার জাকির হোসেন ঢাকা পোস্টকে বলেন, ২০১৪ সালে ১৫ একর জমিতে ৯টি পুকুর খনন করে মাছ চাষ শুরু করি। পুকুরের পাড়জুড়ে বিভিন্ন ফলজ গাছও রোপণ করি। কিন্তু লোনা পানির জন্য এসব ফসলে লাভ হচ্ছিল না। অন্যদিকে অতিরিক্ত লোনা পানির কারণে ঘেরে গলদা চিংড়ি বা কার্পজাতীয় মাছ ভালো হয় না। তারপর কয়েক বছরে বাগদা চিংড়িতেও লোকসানে পড়ি। পরে হতাশা কাটিয়ে উঠতে ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে ‘রামপাল সৌদি খেজুর বাগান’ নাম দিয়ে এই খেজুর চাষ শুরু করি।তিনি আরও বলেন, প্রথম দিকে লোকজন আমাকে পাগল বলত। ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে ২০০ সৌদি খেজুরের চারা এনে রোপণ করি। পরবর্তীতে নরসিংদী থেকে আরও ১০০ চারা আনি। বর্তমানে আমার আজোয়, মরিয়ম, সুকারি, আম্বার বারহি― এই পাঁচ জাতের আড়াই হাজারের মতো খেজুর চারা রয়েছে। ছাড়া হাজার ৫০০ চারা প্রস্তুত রয়েছে নার্সারিতে। বর্তমানে ৫০টি গাছে ফলন হলেও আগামী এক বছরের মধ্যে বাগানের অন্তত ২০০ থেকে ৩০০ গাছে খেজুর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আগামী বছর থেকে বাণিজ্যিক উপায়ে খেজুর চারা বিক্রির আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।এ ছাড়া খেজুরের পাশাপাশি ভিয়েতনামি নারকেল, কয়েক প্রজাতির আম, আমড়া, মাল্টাসহ বেশ কিছু ফলের চাষ করেন তিনি। খামারে রয়েছে ৩০টি দেশি গরু। নতুনদের উদ্দেশে জাকির হোসেনের পরামর্শ, কলম বীজ দুভাবেই সৌদি খেজুরের চারা তৈরি হয়। এই বীজের চারার বেশির ভাগ পুরুষ হয়ে যায়। ফলে ফল আসে না। তাই নতুন যারা শুরু করবে, তাদের কলমের (অপ শুট) চারা কেনার জন্য পরামর্শ দেন তিনি।জাকির হোসেন আরও বলেন, আমার এখানে এখন সার্বক্ষণিক তিনজন কর্মচারী রয়েছে। ভবিষ্যতে এই নার্সারিতে আরও অনেক মানুষের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

সাংবাদিক এস এম মহিদার রহমানের শাশুড়ির মৃত্যুতে  শোক জ্ঞাপন

সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি

দৈনিক ভোরের পাতার সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি, দৈনিক দেশসংযোগের ব্যুরো চিফ, সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের সদস্য এবং সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’সাধারণ সম্পাদক এস এম মহিদার রহমান এর শাশুড়ি আনোয়ারা বেগম (৬৫) মঙ্গলবার ভোর টার সময় নিজ বাসভবনে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না ইলাহি……..রাজিউন)তার মৃত্যুতে গভীর শোক শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন সাতক্ষীরা জেলা ক্রাইম রিপোর্টার্স এ্যাসোসিয়েশন’ এর নেতৃবৃন্দ। বিবৃতি দাতারা হলেন, সভাপতি মোঃ মতিয়ার রহমান মধু, সহ-সভাপতি এম ঈদুজ্জামান ইদ্রিস, জি এম মুজিবর রহমান, মোঃ আব্দুল হাকিম, সহ সাধারণ সম্পাদক মোঃ আব্দুল আলিম, সহ- সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আনিছুর রহমান,সহ-সাধারণ সম্পাদক মোঃ হাফিজুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী আলী সুজয়, অর্থ সম্পাদক শেখ আমিনুর রশিদ সুজন, তথ্য সম্পাদক শেখ হাসান গফুর, দপ্তর সম্পাদক বোরহান উদ্দীন বুলু, প্রচার সম্পাদক তাজমিনুর রহমান টুটুল, শিক্ষা সম্পাদক প্রফেসর রজব আলী, মানবাধিকার সম্পাদক খান নাজমুল হুসাইন, সাহিত্য বিষয়ক সম্পাদক মোঃ রবিউল ইসলাম, প্রকাশনা সম্পাদক আসিফ পারভেজ বীরু, জনকল্যান সম্পাদক মোঃ মনিরুজ্জামান মনি, সাংস্কৃতিক সম্পাদক এস এম শাহনেওয়াজ মাহমুদ রনি, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক সাবিনা ইয়াসমিন পলি, জনসংযোগ সম্পাদক মোঃ কামাল হোসেন, সমাজকল্যান সম্পাদক জি এম সোহরাব হোসেন, ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মোঃ আবুল হোসেন, কার্যকরী সদস্য এ্যাডঃ বি এম সেলিম, মোঃ শহিদুল ইসলাম, মোশাররফ হোসেন, মোঃ শফিকুল ইসলাম, মোঃ জিয়াউর রহমান, সাইফুল বারী সফু, এস কে সিরাজ, সৈয়দ রেজাউল করিম বাপ্পা, মোঃ অহিদুজ্জামান, প্রভাষক নাজমুল হক, মোঃ আনোয়ার হোসেন, মোঃ কামরুল ইসলাম, সৈয়দ আব্দুস সালাম পান্না, মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান, মোঃ হাবিবুর রহমান হবি, মোঃ ইদ্রিস আলী, মোঃ গফফার হোসেন, মোঃ আব্দুস সালাম, খান আল মাহাবুর হুসাইন, মোঃ হাবিবুল্লাহ বাহার, মোঃ তারিকুল ইসলাম, মোঃ আমিরুল ইসলাম, মোঃ শহিদুল ইসলাম শহিদ, মোঃ আব্দুল হাকিম, মোঃ রাউফুজ্জামান, এ্যাডঃ সোহরাব হোসেন, সরদার জিল্লুর রহমান, গাজী সুলতান আহমেদ, সুকুমার দাশ বাচ্চু, এম এম রোকনুজ্জামান টিটু, মোঃ জাহিদুর রহমান, অর্জুন বিশ্বাস, মোঃ রেজাউল করিম, মোঃ সেলিম হায়দার, মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, মোঃ ইব্রাহিম খলিল, মোঃ হাসান ইকবাল মামুন, এস কে হাসান, এম হাফিজুর রহমান শিমুল, শেখ রায়হান, মোঃ আশরাফুল ইসলাম, মীর তুহিন হাসান, গফফার হুসাইন, মোঃ আনারুল ইসলাম, আবু তালেব, মোঃ ইয়াছিন আলী, জি এম আব্বাস উদ্দীন, শেখ আব্দুল আলিম মিঠু, গোলাম মোস্তফা, মোঃ আব্দুল মাতিন, খায়রুল আলম সবুজ, মোঃ মফিজুল ইসলাম, ফরিদ হাসান জুয়েল, ইন্দ্রজিৎ সাধু, শেখ মাগফুর রহমান জান্টু, সাইফুল আযম খান মামুন, মোঃ জি এম মনিরুল ইসলাম প্রমুখ।

কেশবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় এক মটর সাইকেল চালকের মৃত্যু

কেশবপুর (যশোর) প্রতিনিধি,

যশোরের কেশবপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে  এক মটর সাইকেল চালকের মৃত্যু হয়েছে। কেশবপুর হাসপাতাল থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার মজিদপুর ইউনিয়নের আটুন্ডা গ্রামের ইবাদত আলীর ছেলে তজিমুদ্দিন (৩২) মটর সাইকেল দূর্ঘটনায় ঘটে।  সে সকালে বাড়ি থেকে মটর সাইকেল যোগে মনিরামপুর যাওয়ার পথে মধ্যকুল নামক স্থান তেল পাম্পের পাশে সকাল সন্ধ্যা হোটেলের সামনে মটর সাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পথের পাশে বৈদ্যুতিক পিলারের সাথে ধাকা খায়ে গুরুতর জখম হয়। তাকে দ্রুত কেশবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। কেশবপুর থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃতের সুরতহাল প্রস্তুত করে। অপমৃত্যু সংক্রান্তে আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন।


Post Views:
4



Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি
সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০২১
Designer: Shimulツ
themesba-lates1749691102