শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৫১ অপরাহ্ন

সারা খুলনা অঞ্চলের খবরা খবর

  • আপডেট সময় সোমবার, ১২ জুলাই, ২০২১
  • ৯০
সারা খুলনা অঞ্চলের খবরা খবর

খুলনার কর্মরত সাংবাদিকদের বিবৃতিতে আইসিটি অ্যাক্টে মামলা তথ্য না দেয়ার নোটিশ জারির নিন্দা

খবর বিজ্ঞপ্তি

সংবাদ প্রকাশের জের ধরে ঠাকুরগাঁয়ে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন (আইসিটি অ্যাক্টে) মামলা, সাংবাদিকদের তথ্য না দিতে ঢাকা সিভিল সার্জনের নোটিশ জারি নিন্দা জানিয়েছে খুলনার কর্মরত পেশাজীবী সাংবাদিকবৃন্দ।

তাঁরা বলেছেন, এসব ঘটনা স্বাধীন সাংবাদিকতার পরিপন্থী তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ এর পুরোপুরি লংঘন। এতে সরকারের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। রবিবার (১১ জুলাই) এক যৌথ বিবৃতিতে সাংবাদিকরা এসব কথা বলেন।

সাংবাদিকবৃন্দ বলেন, ঠাকুরগাঁও সদর হাসপাতালে বরাদ্দের বিপরীতে রোগীর খাবার পরিবেশনে অনিয়ম নিয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়। ঘটনার জের ধরে জাগোনিউজ২৪.কমের জেলা প্রতিনিধি তানভীর হাসান তানু, বাংলাদেশ প্রতিদিনের জেলা প্রতিনিধি আব্দুল লতিফ লিটু নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের জেলা প্রতিনিধি রহিম শুভকে আসামী করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. নাদিরুল আজিজ বাদী হয়ে মামলা করেন। পুলিশ শনিবার (১০ জুলাই) তানুকে গ্রেপ্তার করে। রবিবার তিনি জামিন পান। এর আগে গত জুলাই ২০২১ ঢাকার সিভিল সার্জন ডা. আবু হোসেন মো. মঈনুল আহসানের সই করা নির্দেশনায় সরকারি হাসপাতালে রোগীর সেবা সম্পর্কিত স্বাস্থ্যবিষয়ক কর্মকা-ের বিষয়ে গণমাধ্যমে কোনও প্রকার তথ্য প্রদান মন্তব্য না দিতে নোটিশ জারি করেনস্বাধীন বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতা না থাকলে দুর্নীতিবাজরা দেশের সকল উন্নয়ন অর্জন ধ্বংস করে দেবে। একটি সত্য সংবাদ করার পর এভাবে মামলা দিয়ে সাংবাদিককে হয়রানি করার মানে গণমাধ্যমের কণ্ঠরোধ করার চেষ্টা।

কর্মরত সাংবাদিকরা, অবাধ তথ্য প্রবাহ, কর্মক্ষেত্রে সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত, সাংবাদিক হয়রানি বন্ধের দাবি জানান। একই সাথে সাংবাদিকদের নামে দায়ের করা ডিজিটাল মামলা প্রত্যাহার ঘটনায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানান।

বিবৃতিদাতারা হলেন এটিএন বাংলার খুলনা বিভাগীয় প্রধান এস এম হাবিব, কালের কণ্ঠের ব্যুরো প্রধান সিনিয়র রিপোর্টার গৌরাঙ্গ নন্দী, ইউএনবির খুলনা ব্যুরো প্রধান দিদারুল আলম, এনটিভির খুলনা ব্যুরো প্রধান আবু তৈয়ব, ইত্তেফাকের স্টাফ রিপোর্টার এনামুল হক, যমুনা টেভিশনের ব্যুরো প্রধান কনক রহমান, বাংলাদেশ প্রতিদিন নিউজ টুয়েন্টিফোরের ব্যুরো প্রধান সামছুজ্জামান শাহিন, মাছরাঙ্গা টেলিভিশনের বিশেষ প্রতিনিধি আবু হেনা মোস্তফা জামাল, জাগো নিউজের নিজস্ব প্রতিবেদক আলমগীর হান্নান, বাংলা ট্রিবিউনের হেদায়েৎ হোসেন মোল্লা, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার এইচ এম শামিমুজ্জামান, কালের কণ্ঠের নিজস্ব প্রতিবেদক কৌশিক দে, দৈনিক জন্মভূমির স্টাফ রিপোর্টার মো. আনিস উদ্দিন, একুশে টেভিশনের ব্যুরো প্রধান মহেন্দ্র নাথ সেন, রাইজিংবিডির মুহাম্মদ নুরুজ্জামান, বাংলা নিউজ টুয়েন্টিফোরের ব্যুরো এডিটর মাহবুবুর রহমান মুন্না, দেশ টেলিভিশনের খুলনা বিভাগীয় প্রতিনিধি এমডি অসীম, বাংলাদেশ টাইমসের খুলনা ব্যুরো প্রধান সাঈয়েদুজ্জামান স¤্রাট, দৈনিক প্রবাহের স্টাফরিপোর্টার বিমল সাহা, ইনডিপেনডেন্ট টেলিভিশনের অভিজিৎ পাল, এসএ টেলিভিশনের খুলনা প্রতিনিধি রকিবুল ইসলাম মতি, দীপ্ত টেলিভিশনের খুলনা প্রতিনিধি ইয়াসিন আরাফাত রুমি, প্রথম আলোর খুলনা প্রতিনিধি উত্তম মন্ডল, চিত্র সাংবাদিক মো. সাদ্দাম হোসেন, ডেইলী স্টারের খুলনা প্রতিনিধি দীপংকর রায়, সময়ের খবরের স্টাফ রিপোর্টার আশরাফুল ইসলাম নূর, আমিনুল ইসলাম, ঢাকা পোস্টের নিজস্ব প্রতিবেদক মোহম্মদ মিলন,বার্তা২৪. কমের মানজারুল ইসলাম, দৈনিক প্রবর্তনের শেখ আউয়াল, দৈনিক কালান্তরের মো. বেল্লাল হোসেন সজল প্রমুখ।

শেখ সোহেলের রোগ মুক্তি কামনায় সালাম মূর্শেদী এমপি’দোয়া মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভ্রাতুষ্পুত্র, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বিসিবি’পরিচালক শেখ সোহেল এবং তাঁর সহধর্মিণী শারিন জারা’রোগ মুক্তি, দ্রুত আরোগ্য দীর্ঘায়ু কামনা করে রবিবার বিকেলে খুলনা-আসনের সংসদ সদস্য বিজিএমইএ’সাবেক সভাপতি আব্দুস সালাম মূর্শেদীর খুলনাস্থ দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রূপসা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বাদশার সভাপতিত্বে সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট কাজী বাদশা মিয়া, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি অধ্যাপক  আশরাফুজ্জামান বাবুল, তেরখাদা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ শহিদুল ইসলাম, মিস্টার বাংলাদেশ আজাদ আবুল কালাম।

জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম এর সঞ্চালনায় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য আব্দুল মজিদ ফকির, এস এম গোলাম রহমান, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক মোতালেব হোসেন, তেরখাদা উপজেলা আওয়ামী লীগের  সাধারণ সম্পাদক কে এম আলমগীর হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি আইয়ুব মল্লিক বাবু, শাহজাহান কবির প্যারিস, মোরশেদুল আলম বাবু, যুগ্ম সম্পাদক ইমদাদুল ইসলাম, সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম হাবিব, যুব ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক জাহাঙ্গীর, বাছিতুল হাবিব প্রিন্স, জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবিএম কামরুজ্জামান, ভাইস চেয়ারম্যান শারাফাত হোসেন মুক্তি, ফারহানা আফরোজ মনা, ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব ইসহাক সরদার, শেখ মোহাম্মদ মহাসিন, গাজী জিয়াউর রহমান, জাহাঙ্গির শেখ, নাসির হোসেন সজল, এমপি’প্রধান সমন্বয়কারী যুবলীগ নেতা নোমান ওসমানী রিচি, দপ্তর সম্পাদক আকতার ফারুক, সাবেক চেয়ারম্যান মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান মিজান, মোস্তাফিজুর রহমান, আরিফুজ্জামান লিটন, জেলা মহিলা লীগ নেত্রী সাবিনা ইয়াসমিন, উপজেলা মহিলা লীগ নেত্রী নয়ন তারা, যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শারমিন সুলতানা রুনা, শেখ আসাদুজ্জামান, শেখ ফরিদ, রুহুল আমিন রবি, যুবলীগ নেতা হাবিবুর রহমান তারেক, এফ এম মফিজুর রহমান, মিজানুর রহমান হিরাঙ্গীর, নাজমুল ইসলাম,  ইলিয়াসুর রহমান, যুবলীগ নেতা সামসুল আলম বাবু, আ:মজিদ শেখ, তারেক আজিজ, ফরিদ শেখ,আনিসুর রহমান, নুর ইসলাম, সৈয়দ মোরশেদ মাসুম,  শিমুল শেখ, যুবলীগ নেতা তারেক, আঃ রশিদ মানিক, জ্যাকি ইসলাম সজল, সাইফুল ইসলাম শাওন, ছাত্রনেতা হিমেল, সজল, রাহাতসহ দলীয় অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।  দোয়া পরিচালনা করেন প্রভাষক মোঃ অহিদুজ্জামান।

বাগেরহাটে তিনশ পরিবহন শ্রমিককে খাদ্য সহায়তা

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে লকডাউনে কর্মহীন ৩’পরিবহন শ্রমিককে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে  খাদ্য সামগ্রী দেওয়া হয়েছে। রবিবার (১১ জুলাই) বিকেলে বাগেরহাট কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ডে কর্মহীন শ্রমিকদের হাতে খাদ্য সামগ্রী তুলে দেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান। এসময় সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোছাব্বেরুল ইসলাম, বাগেরহাট বাস মালিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তালুকদার আব্দুল বাকি, জেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি রেজাউর রহমান মন্টুসহ শ্রমিক নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

করোনা কালীন সময়ে খাদ্য সহায়তা পেয়ে খুশি বেকার শ্রমিকরা।খাদ্যসহায়তা পাওয়া শ্রমিক হাবিব মল্লিক, কামরুল ইসলাম, আসলাম, আনোয়ার মাসুম মোল্লা বলেন, লকডাউনে পরিবহন বন্ধ খুবই কষ্টে ছিলাম।জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আমাদের খাদ্য সহায়তা দেওয়া হয়েছে। কয়েকদিন খেতে পারব, খাবারের কষ্ট থাকবে না।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আজিজুর রহমান বলেন, করোনাকালীন সময়ে মানুষ এক ধরণের সংকটের মধ্য দিয়ে দিন কাটাচ্ছে। লকডাউনের ফলে এই সংকট আরও বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে সব থেকে বেশি বিপাকে পড়েছে খেটে খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষেরা। তাই এসব মানুষকে করোনা সংক্রমন থেকে বাঁচাতে এবং সরকার ঘোষিত লকডাউনের বিধি নিষেধ মান্য করতে খাদ্য সামগ্র্রী বিতরণ করেছি। করোনাকালীন সময়ে আমাদের কার্যক্রম অব্যহত থাকবে।

এছাড়া রবিবার বিকেলে বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের পক্ষ থেকে খানপুর কালিবাড়ি এলাকার খ্রিষ্টান পল্লীতে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। এসময় ওই পল্লীর ৭০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দেন বাগেরহাট সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন।

বাগেরহাটে  করোনায় শতকে পৌছালো মৃত্যু, আক্রান্ত সাড়ে চার হাজার

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে গেল ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। এই নিয়ে বাগেরহাট জেলায় করোনা আক্রান্ত মৃত্যুর সংখ্যা একশতে পৌছাল। গেল ২৪ ঘন্টায় ৪৫১ জনের নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে আরও ১৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে হাজার ৫৬৫ জনে। এর মধ্যে সুস্থ্য হয়েছেন হাজার ২৫১ জন। বিভিন্ন সরকারি বেসরকারি হাসপাতাল বাড়িতে করোনা আক্রান্ত হাজার ২১৩ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। রবিবার(১১ জুলাই)দুপুরে বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির এসব তথ্য জানিয়েছেন। আক্রান্তদের মধ্যে বাগেরহাট সদর উপজেলায় ৪৫ জন, মোল্লাহাটে ২৭, ফকিরহাটে ৩২, চিতলমারী ৪, মোড়েলগঞ্জে ৭, রামপালে ৪, মোংলায় এবং শরণখোলায় ১৬ জন রয়েছে।

বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কে এম হুমায়ুন কবির বলেন, বাগেরহাটে গেল ২৪ ঘন্টায় ৪৫১ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১৪৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।শতকরা হিসেবে শনাক্তের হার দাড়িয়েছে প্রায় ৩২ শতাংশ।এটা সংক্রমণের হারের দিক থেকে কিছুটা কম। তবে পরিস্থিতি এখনও অনেক খারাপ। এই অবস্থায় জনগনকে আরও বেশি সতর্ক স্বাস্থ্যবিধি মানার আহবান জানান তিনি।

আর্জেন্টিনার জয়ে বাগেরহাটে আনন্দ মিছিল

বাগেরহাট প্রতিনিধি

আর্জেন্টিনার জয়ে বাগেরহাটের বিভিন্ন স্থানে আনন্দ মিছিল করেছে ভক্ত-সমর্থকরা। রবিবার (১১ জুলাই) সকালে কোপা আমেরিকা ফাইনালের শেষ বাঁশি বাজতেই সমর্থকরা ফেটে পড়ে বাঁধ ভাঙ্গা উল্লাসে। করোনা ভীতি উপেক্ষা করে নেমে আসে রাস্তায়। পূর্ব থেকে তৈরি করা আর্জেন্টিনার পতাকা নিয়ে আনন্দ মিছিল করেন তারা। অল্প সময়ের মধ্যেই মিছিল শেষ করে বাড়ি ফিরে যায় তারা।

বাগেরহাট শহরতলীর কাড়াপাড়া এলাকায় এরকম একটি মিছিল দেখা যায়। আনন্দ মিছিলে অংশ নেওয়া হিমু, নাইম, মাসুদ সহ কয়েকজন জানান, আমরা আর্জেন্টিনার ঘোর সমর্থক। এতদিন অনেক কথা শুনতে হয়েছে যে আর্জেন্টিনার কোনো শিরোপা নেই। দীর্ঘ ২৮ বছর পর সেই আক্ষেপ ঘুচলো। তাই ভয়-ভীতি থাকা স্বত্তেও ছোট করে আনন্দ মিছিল করলাম। মেসিদের আনন্দে নিজেদের শরীক করলাম। ইচ্ছা ছিলো বড় মিছিল করার। কিন্তু দেশের অবস্থা ভালো না। এসময় বেশি আনন্দ করা উচিৎ নয়। আমরাও বুঝি এই বিষয়টা। এজন্য দ্রুত-ফিরে যাচ্ছি।

কোপা আমেরিকার ফাইনালে ব্রাজিলকে হারিয়ে ২৮ বছর পর কোন বড় আন্তর্জাতিক শিরোপা জিতলো আর্জেন্টিনা। মেসি পেলেন প্রথম আন্তর্জাতিক শিরোপা। অ্যাঞ্জেল ডি মারিয়ার করা একমাত্র গোলে কোপা আমেরিকার ফাইনালে লিড নেয় লিওনেল মেসির দল। আর এই এক গোল-নির্ধারিত করে দেয় ম্যাচের ফলাফল।

এর আগে ২০১৫ ২০১৬ সালে টানা দুটি কোপা আমেরিকায় আর্জেন্টিনা ফাইনালে গিয়েও হেরে যায়। শেষ পর্যন্ত সেই কোপা আমেরিকা দিয়েই প্রথম কোন আন্তর্জাতিক ট্রফি জয়ের স্বাদ পেলেন বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি।

বাগেরহাটে ১০ দিনে ৮৮৩ মামলা, চার লক্ষাধিক টাকা জরিমানা

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে স্বাস্থ্য বিধি না মানায় জুলাই মাসের প্রথম দশ দিনে ৯২২ জনকে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। এই সময়ে ৮৮৩ টি মামলার অনুকূলে লক্ষ ৪৩ হাজার ৬৩৫ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। ১লা জুলাই থেকে ১০ জুলাই রাত ১২টা পর্যন্ত বাগেরহাট জেলা প্রশাসন ৯টি উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনায় পুলিশের পাশাপাশি, বিজিবি সেনাসদস্যরা নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেটদের সহযোগিতা করেছেন।

বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ শাহিনুজ্জামান বলেণ, সরকার ঘোষিত লকডাউন বাস্তবায়ন করোনা সংক্রমন রোধ করতে জেলা প্রশাসন প্রথম থেকেই নানা উদ্যোগ গ্রহন করেছে। মানুূষকে ঘরে রাখতে সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনার পাশাপাশি খাদ্য সহায়তাও প্রদান করেছে। এরপরেও অতি উৎসাহি কিছু মানুষ স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে বাইরে আসছে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া। যাদের মধ্যে স্বাস্থ্য বিধি মানতে অনীহা রয়েছে, আমরা তাদেরকে আইনের আওতায় এনেছি। গেল ১০ দিনে আমরা ৯২২ জনকে বিভিন্ন পরিমানে জরিমানা করেছি। এই জরিমানাটা আসলে প্রতিকি, যাতে জরিমানার ভয়ে হলেও অন্যরা সচেতন হয়, এজন্যই আমাদের এই প্রচেষ্টা।

অসহায় ছিন্নমূল মানুষের মাঝে আল-কারীম অক্সিজেন সেবার পক্ষ থেকে প্যাকেট খাবার বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

রবিবার দুপুরে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর শাখার ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত আল-কারীম অক্সিজেন সেবার পক্ষ থেকে পাওয়ার হাউজ মোড়ে অসহায় ছিন্নমূল পথচারীদের মাঝে রান্না করা প্যাকেট খাবার বিতরণ করা হয়।

প্রধান অতিথি ছিলেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ খুলনা মহানগর সভাপতি আলহাজ্ব মুফতী আমানুল্লাহ, তিনি খাবার বিতরণকালে বক্তব্যে বলেন লকডাউন থেকে শাটডাউন দিয়ে সাধারণ সল্প আয়ের মানুষের জীবন যাপন চরম কষ্টসাধ্য হয়ে পড়েছে, অসহায় ছিন্নমূল মানুষেরা খেয়ে না খেয়ে দিনের পর দিন অতিবাহিত করছে, সরকার মানুষের খাবারের ব্যবস্থা না করে তাদের দোকানপাট কর্মসংস্থানের পথ বন্ধ করে দেওয়া মোটেই ভালো হয়নি। এটা চরম অমানবিক নির্যাতনের সামিল, ক্ষুধার্ত কর্মহীন মানুষ হাহাকার করছে।

উপস্থিত ছিলেন মুফতী মাহবুবুর রহমান, আবু বেলাল, শেখ মোঃ নাসির উদ্দীন, শেখ হাসান ওবায়দুল করীম, মুফতী ইমরান হুসাইন, মাওলানা দ্বীন ইসলাম, মাওলানা আব্বাস আমীন, মুফতী শেখ আমীরুল ইসলাম, মোল্লা রবিউল ইসলাম তুষার, আলহাজ্ব আবুল কাশেম, মোঃ ইমরান হোসেন মিয়া, ফেরদাউস গাজী সুমন, আব্দুর রশিদ, মোঃ ইব্রাহিম ইসলাম আবীর,  মোমিন ইসলাম নাসিব, মুফতী আমানুল্লাহ আমান, হাফেজ মোঃ হাসান, মোঃ আরিফুল ইসলাম, মিরাজ আল সাদী, নাজমুল ইসলাম মোঃ সাব্বির হোসেন, হাবিবুল্লাহ মেসবাহ, উসামা আবরার, আব্দুল্লাহ সজীব সহ প্রমূখ নেতৃবৃন্দ।

চুলকাঠিতে বিনামূল্যে করোনার টিকা নিবন্ধন করনের উদ্বোধন

ফকিরহাট প্রতিনিধ

বাগেরহাটের কৃতি সন্তান বিশিষ্ট সমাজসেবক লিটন শিকদার এর সার্বিক সহযোগীতায় কোভিড-১৯ মোকাবেলায় বিনামূল্যে করোনার টিকা নিবন্ধন টিকা কার্ড প্রদান কার্যক্রম রবিবার সকাল হতে চুলকাঠি প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শুরু হয়েছে।  রবিবার সকাল ১০টায় ভিডিও কনফারেন্স এর মাধ্যমে এই কার্যক্রমের শুভ উদ্বধন করেন বিশিষ্ট শিল্পপতি লিটন শিকদার করোনার শুরু থেকে তিনি নিজ জন্মভূমির মানুষকে ভালো রাখার জন্য ইতি মধ্যে বাস্তবায়ন করেছেন একের পর এক ব্যতিক্রম ধর্মী নানা কার্যক্রম। করোনা ভাইরাস সম্পর্কে এলাকাবাসীকে সচেতন করার জন্য প্রতিদিন ২টি প্রচার ভ্যানের মাধ্যমে বাগেরহাটের বিভিন্ন এলাকায় সচেতনাতা মুলক ব্যাপক প্রচার প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। শুধু তাই নয় ২০হাজার মানুষের মাঝে মাস্ক বিতরন ,করোনা টিকা প্রদানের জন্য মাসব্যাপী ফ্রি-রেজিষ্টেশন টিকা র্কাড প্রদান কার্যক্রম চালু করেছেন। তা ছাড়া তারই পৃষ্ঠপোষকতায় করোনার সংকট কালিন সময়ে বাগেরহাট সদর উপজেলার চুলকাটি প্রেসক্লাবের মাধ্যমে ২৪ঘন্টা হেল্পডেক্স চালু করেছেন। অপরদিকে নিজ গ্রাম হাকিমপুরে করোনাকালিন জরুরী পরিস্থিতি মোকাবেলায় শতাধিক স্বেচ্ছাসেবককে নিয়ে একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন গঠন করেছেন। ইতি পূর্বে তিনি খানপুর ইউনিয়ন পরিষদের মাধ্যমে ২হাজার কর্মহীন পরিবারের মাঝে খাদ্য স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরন করেছেন। করোনাকালিন এই দু“সময়ে এধরনের কার্যক্রম শুরু করায় সচেতন মহল সাধুবাদ জ্ঞাপন করেছেন।

করোনা মোকাবেলায় নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ড এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড এর পক্ষ হতে ত্রাণ সহায়তা প্রদান

খবর বিজ্ঞপ্তি

করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশ নৌবাহিনী পরিচালিত নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ড এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড এর পক্ষ থেকে স্থানীয় ৯০০ পরিবারের মাঝে ত্রাণ সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। রবিবার নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ড এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেড এর ডিজিএম (এডমিন) কমান্ডার এম নাজমুল ইসলাম ডকইয়ার্ডের নিজস্ব বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে নারায়াণগঞ্জের স্থানীয় অসহায় দুঃস্থ ১৫০ পরিবারের মাঝে খাদ্য সহায়তা প্রদান করেন। এসময় উক্ত প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ৭৫০ জন কর্মচারী শ্রমিকদের মাঝেও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়। সহায়তা হিসেবে প্রতিটি পরিবারকে চাল, ডাল, আলু, পেঁয়াজ তেল প্রদান করা হয়।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধে সমুদ্র উপকূলীয় এলাকায় লকডাউন নিশ্চিত করতে নৌবাহিনীর টহল অব্যাহত

খবর বিজ্ঞপ্তি

দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রমণরোধে বাংলাদেশ সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে অসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে সমুদ্র উপকুলীয় এলাকায় সর্বাত্মক লকডাউন নিশ্চিত করতে টহল অব্যাহত রেখেছে নৌবাহিনী। এসকল এলাকাগুলোতে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পাশাপাশি নৌসদস্যরা অপ্রয়োজনীয় চলাচল রোধ, মাস্ক পরিধান, সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখা, কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করাসহ সংক্রমণ প্রতিরোধে গৃহীত সকল কার্যক্রমে অসামরিক প্রশাসনকে সহায়তা করে যাচ্ছে। এছাড়া এসকল এলাকাসমূহে স্থানীয় অসহায় দরিদ্র মানুষের মাঝে খাদ্য ত্রাণ সহায়তা প্রদান করছে নৌবাহিনী।

ইতিমধ্যে চট্টগ্রাম খুলনা নৌ অঞ্চলের মোট ৮টি কন্টিনজেন্ট সমুদ্র উপকূলীয় এলাকাসমূহে টহল সচেতনতামূলক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এরমধ্যে চট্টগ্রাম নৌ অঞ্চলের ৬টি কন্টিনজেন্ট ভোলা সদর, বোরহান উদ্দিন, দৌলতখান, চর ফ্যাশন, মনপুরা, লালমোহন, তজুমুদ্দিন, সন্দ¡ীপ, হাতিয়া, টেকনাফ, কুতুবদিয়া মহেশখালী এলাকায় কাজ করছে। অন্যদিকে খুলনা নৌ অঞ্চলের ২টি কন্টিনজেন্ট মোংলা বাগেরহাট, বরগুনা সদর, আমতলী, বেতাগী, বামনা, পাথরঘাঁটা এবং তালতলী উপজেলায় কার্যক্রম পরিচালনা করছে। ‘ওহ অরফ ঃড় ঈরারষ চড়বিৎ’ এর আওতায় সরকারের নির্দেশনায় গত জুলাই ২০২১ হতে নৌবাহিনী কার্যক্রম পরিচালনা করছে। করোনা পরিস্থিতি উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত এসব এলাকায় নৌবাহিনীর কার্যক্রম অব্যহত থাকবে।

সাংবাদিক জাহাঙ্গীর এর দিনব্যাপী গনসংযোগ অব্যাহত

ডুমুুরিয়া প্রতিনিধি

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ডুমুরিয়া সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের মনোনয়ণ প্রত্যাশী উপজেলা আওয়ামী লীগের উপ-প্রচার সম্পাদক প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক এস এম জাহাঙ্গীর আলম গতকাল শনিবার দিনব্যাপী নানা কর্মসূচীতে অংশ গ্রহন করেন। তিনি গতকাল বিকেলে ডুমুরিযা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন গোলনা গ্রামের সেনা সদস্য কবির খানের ছেলে তানভীর খান নার্গিস ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন দক্ষিণ ডুমুরিয়া গ্রামের হান্নান শেখের স্ত্রী জাহানারা বেগমকে দেখতে যান। এসময় তিনি চিকিৎসকদের সাথে পরার্মশ করেন। এদিকে গতকাল ভোর টা থেকে খলশী, সাজিয়াড়া, আরাজি ডুমুরিয়া, ডুমুরিয়া বাজারসহ আশপাশের এলাকায় কোপা আমেরিকা কাপের ব্রাজিল-আর্জেন্টিনার ফাইনাল খেলায় উৎসুক দর্শকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এসময়ে সকল দর্শকদের ধর্য্য ধরে শান্তিপূর্ণভাবে খেলা উপভোগ করার আহবান জানান। সন্ধ্যায় পূর্ব ডুমুরিয়া রাতে মির্জাপুর গ্রামে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।   সময়ে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নাজমুল মোল্লা, সুমন শেখ, হারুনুর রশীদ বাবু, অমল পাল, কবির মোড়ল, রফিকুল শেখ, জাহিদুল ইসলাম, হাবিবুর রহমান খান, জাহাঙ্গীর সরদার, আরিজ শেখ, নওশের সরদার, বাধন মন্ডল, শাহাদাৎ মোড়ল প্রমুখ।

করোনা চিকিৎসায় খুলনায় ফিল্ড হাসপাতাল স্থাপনের দাবি খুলনা নাগরিক সমাজের

খবর বিজ্ঞপ্তি

করোনা সংক্রমণে হটস্পট খুলনায় করোনা চিকিৎসায় শয্যা সংখ্যা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ফিল্ড হাসপাতাল স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন খুলনা নাগরিক সমাজের নেতৃবৃন্দ। নেতৃবৃন্দ বলেন, করোনা সংক্রমণের হার এবং প্রয়োজনের তুলনায় খুলনায় করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল বা শয্যা সংখ্যা খুবই অপ্রতুল। এমতাবস্থায় ভৌত অবকাঠামোগত সংকট বিবেচনায় খুলনায় অতিদ্রুত প্রয়োজনীয় সংখ্যক শয্যাবিশিষ্ট ফিল্ড হাসাপাতাল স্থাপন সময়ের দাবি। অন্যথায় বিদ্যমান সংকট মোকাবেলা করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। এমনিতেই শয্যা সংকট, জনবলের অভাব, অব্যবস্থাপনা, অপরিকল্পিত সিদ্ধান্ত প্রভৃতি কারণে করোনা পরিস্থিতিতে মানবিক বিপর্যয়ের সৃষ্টি হয়েছে। নেতৃবৃন্দ বলেন, সরকার ঢাকায় ৫টি ফিল্ড হাসপাতাল স্থাপনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করলেও করোনা সংক্রমণে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে থাকা খুলনায় ফিল্ড হাসাপাতাল স্থাপনের সিদ্ধান্ত না নেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, যে সময়ে সর্বোচ্চ সংক্রমণ এবং মৃত্যু খুলনাতে ঠিক সে সময়ে খুলনাকে বাদ দিয়ে ধরনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ অমানবিক, বৈষম্যমূলক, অদূরদর্শি, দায়িত্ব জ্ঞানহীন। যা কোনো ভাবেই কাম্য নয়। সীমান্তবর্তী জেলা এবং ২টি স্থল বন্দর ১টি সমুদ্র বন্দর দ্বারা পরিবেষ্টিত খুলনায় পার্শ্ববর্তী পিরোজপুর, বাগেরহাট, গোপালগঞ্জ, ফরিদপুর, নড়াইল, যশোর, সাতক্ষীরাসহ আশপাশের জেলার করোনা রোগীদের চিকিৎসা খুলনাতেই হয়। অথচ বিদ্যমান ভঙ্গুর চিকিৎসা ব্যবস্থার সমাধান করার কোনো উদ্যোগ তো নেই-ই। অন্যদিকে খুলনা থেকে বার বার দাবি উত্থাপিত হওয়া সত্বেও এহেন সিদ্ধান্ত খুলনাবাসীকে হতাশ করেছে। নেতৃবৃন্দ যাচাই-বাছাইপূর্বক খুলনায় প্রয়োজনীয় সংখ্যক শয্যাবিশিষ্ট করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতাল অনতিবিলম্বে স্থাপনের আহ্বান জানান। বিবৃতিদাতারা হলেনÑসংগঠনের পক্ষে আহবায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব অ্যাডঃ মহসীন সংগঠনের সদস্য সচিব অ্যাডঃ মোঃ বাবুল হাওলাদার।

সাতক্ষীরায় করোনা উপসর্গে ৫জনের মৃত্যু : বেড়েছে মৃত্যুর হার

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরায় গত ২৪ ঘন্টায় করোনা উপসর্গ নিয়ে আরো জনের মৃত্যু হয়েছে। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ (সামেক) হাসপতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তারা মারা যান। এনিয়ে, ১০ জুলাই শনিবার পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন মোট ৭৬ জন। আর উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন অন্ততঃ ৪১৯ জন।এদিকে সাতক্ষীরায় ফের বেড়েছে সংক্রমনের হার। গত ২৪ ঘন্টায় জেলায় নতুন করে ৯৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। সময় সামেক হাসপাতালের আরটি পিসিআর ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ২৮৬ জনের। শনাক্তের হার ৩৪ দশমিক ৭০ শতাংশ।এর আগের দিন শনাক্তের হার ছিল ২৮ দশমিক ৬৪ শতাংশ।সাতক্ষীরা সদর হাসপতালের মেডিকেল অফিসার জেলা করোনা বিষয়ক তথ্য কর্মকর্তা ডাঃ জয়ন্ত কুমার সরকার জানান, গত ২৪ ঘন্টায় করোনা উপসর্গে জেলায় মারা গেছে জন। জেলায় মোট ২৮৬ টি নমুনা পরীক্ষা করে ৯৩ জনের করোনা পজেটিভ সনাক্ত হয়। শনাক্তের হার ৩৪ দশমিক ৭০ শতাংশ।১০ জুলাই পর্যন্ত সাতক্ষীরায় মোট করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হাজার ৩০৬ জন। করোনা উপসর্গ নিয়ে গত ২৪ ঘন্টায় সাতক্ষীরায় মারা গেছে ৫জন। এনিয়ে জেলায় ১০ জুলাই পর্যন্ত ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে ৭৬ জন এবং উপসর্গে মারা গেছেন অন্ততঃ ৪১৯ জন।

খুলনা বিভাগে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণ

তথ্য বিবরণী

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে চলমান কঠোর লকডাউনে খুলনা বিভাগের চুয়াডাঙ্গা, ঝিনাইদহ, কুষ্টিয়া জেলাসহ বিভিন্ন জেলায় করোনায় কর্মহীনদের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণ করা হয়। খুলনা বিভাগের চুয়াডাঙ্গার পৌর এলাকায় রবিবার করোনায় কর্মহীন লোকাল দূরপাল্লার একশত ৪০ জন পরিবহন শ্রমিকের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণ করা হয়। জনপ্রতি ১০ কেজি চাল, এক কেজি মুসরির ডাল, দুই কেজি আলু, এক কেজি পেঁয়াজ, এক লিটার সয়াবিন তেল, এক কেজি চিনি এক কেজি লবন প্রদান করা হয়। ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্টেডিয়ামে এক হাজার একশত ইজিবাইক চালকের মাঝে জনপ্রতি ১০ কেজি চাল তিনশত টাকা বিতরণ করা হয়েছে। ঝিনাইদহের জেলা প্রশাসক মোঃ মজিবর রহমান এসব খাদ্যসামগ্রী নগদ অর্থ বিতরণ করেন। এসময় পৌর সভার মেয়র সাইদুল করিম মিন্টু, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ সেলিম রেজা জেলা তথ্য অফিসার মোঃ আবুবকর সিদ্দীক উপস্থিত ছিলেন।

কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন আজ (রবিবার) দুইশত উপকারভোগী পরিবারের মাঝে ত্রাণ হিসেবে মেট্রিক টন চাল এবং ভিজিএফ কর্মসূচির আওতায় এক হাজার নয়শত ৭১ উপকারভোগীদের মাঝে ১৯.৭১ মেট্রিক টন খাদ্যশস্য বিতরণ বিতরণ করা হয়।

খুলনায় আরও করোনা ভ্যাকসিন নিয়েছেন সাতশত ৭১ জন

তথ্য বিবরণী

রবিবার খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনশত ২৯জন এবং জেনারেল হাসপাতালে চারশত ৪২ জন করোনা ভ্যাকসিন প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন। এর মধ্যে পুরুষ চারশত ৩৩ জন এবং তিনশত ৩৮ জন মহিলা। পর্যন্ত এক লাখ ৮২ হাজার ৭৪ জন করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ গ্রহণ করেছেন। যার মধ্যে সাইনোফার্মার টিকা নিয়েছেন ছয় হাজার একশত ৭১ জন। খুলনা সিভিল সার্জন দপ্তর থেকে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসকল তথ্য জানানো হয়েছে।

দেবহাটায় প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ন-প্রকল্পে গৃহহীনদের গৃহ নির্মান কাজ চলমান

কে.এম রেজাউল করিম, দেবহাটা

দেবহাটায় মুজিববর্ষে দেশের সকল গৃহহীনদেরকে সরকারীভাবে গৃহ নির্মান করে দেয়ার প্রধানমন্ত্রীর আশ^াসে দেশের সকল এলাকার পাশাপাশি দেবহাটা উপজেলাতেও ভূমিহীন গৃহহীনদের গৃহ নির্মান করে দেয়ার কাজ চলমান রয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্য্যালয়ের আশ্রয়ন-প্রকল্পের আওতায় এই গৃহ নির্মান কাজ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। দেবহাটা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর কার্য্যালয়ের আশ্রয়ন-প্রকল্পের আওতায় দেবহাটা উপজেলাতে ১ম পর্যায়ে প্রতিটি ঘরের জন্য লক্ষ ৭১ হাজার টাকা বরাদ্দে মোট ২৯টি ভূমিহীন গৃহহীনদেরকে গৃহ নির্মান করে হস্তান্তর করা হয়েছে। একই প্রকল্পের আওতায় ২য় পর্যায়ে ৭৫টি গৃহ নির্মান করার অনুমোদন পাওয়া যায়। প্রতিটি ঘরের জন্য লক্ষ ৯০ হাজার টাকা বরাদ্দে সেই ৭৫টি ঘরের মধ্যে ইতিমধ্যে ১০টি ঘর নির্মান করে গত ২০ জুন, ২০২১ ইং তারিখে প্রকৃত ভূমিহীন গৃহহীনদেরকে হস্তান্তর করা হয়েছে। এছাড়া ১০টি ঘরের নির্মান কাজ চলমান রয়েছে যেগুলোর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে। অতি দ্রুত ১০টি ঘর হস্তান্তর করা হবে বলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিউল বশার জানিয়েছেন। শফিউল বশার আরো জানান, ৭৫টি বরাদ্দপ্রাপ্ত ঘরের মধ্যে বাকী ৫৫ টি ঘরের জায়গা নি¤œাঞ্চল হওয়ার কারনে সেখানে মাটি ভরাট করা প্রয়োজন। ইতিমধ্যে ২২টি ঘরের মাটি ভরাটের জন্য বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং সেখানে মাটি ভরাটের কাজ চলছে। এছাড়া বাকি ৩৩ টি ঘরের জায়গায় মাটি ভরাটের জন্য মন্ত্রনালয়ে বরাদ্দের জন্য আবেদন জানানো হয়েছে। বরাদ্দ পাওয়া গেলেই সেখানে মাটি ভরাট করে ঘর নির্মানের কাজ শুরু করা হবে বলে তিনি জানান। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাছলিমা আক্তার জানান, প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্প হিসেবে ভূমিহীন গৃহহীনদেরকে গৃহ নির্মানের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে এই প্রকল্পের কাজ করা হচ্ছে। উপজেলার মধ্যে প্রকৃত ভূমিহীন গৃহহীন বাছাইপূর্বক প্রকৃত গৃহহীন চিহ্নিত করে তাদেরকে এই গৃহ হস্তান্তরে অগ্রাধিকার দেয়া হচ্ছে। যাতে সরকারের উদ্দ্যেশ্য বাস্তবায়িত হয় সেজন্য প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদারকিপূর্বক এই কাজ করা হচ্ছে বলে ইউএনও জানান।

ফকিরহাটে রাষ্টীয় মর্যাদায় বীর মুক্তিযোদ্ধার দাফন

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটের ফকিরহাটে বীর মুক্তিযোদ্ধা যতীন্দ্রনাথ ঘোষ জটাসাধু (৮০) শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে বাসভবন আট্টাকী ঘোষ পাড়ায় বার্ধক্য জনিত কারণে পরোলোকগমন করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, ২পুত্র কন্যাসহ অসংখ্য গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। রবিবার সকাল ১০টায় আট্টাকী ঘোষপাড়া বাসন্তী পূজা মন্দির চত্ত্বরে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: আজিজুর কবীরের উপস্থিতিতে এসআই মিজানুর রহমানের নের্তৃত্বে একদল পুলিশ মৃতঃ বীর মুক্তিযোদ্ধাকে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। এর পুর্বে উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের পক্ষ থেকে পুষ্পমাল্য অপর্ন করে শেষ শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন। এদিন দুপুরে ফকিরহাট শ্বশানঘাটে তাঁর শেষকৃত্যনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডর সৈয়দ আলতাফ হোসেন টিপু, বীর মুক্তিযোদ্ধা শেখ আলাউদ্দিন আলাল, শাহাদাৎ হোসেন, শেখ মো: আবু বকর, আব্দুল কাদের প্রমূখ।

ফকিরহাটে কৃষকের গোয়াল ঘর হতে ৩টি গরু চুরি

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটের ফকিরহাটে গভীর রাত পর্যন্ত পাহারা দিয়ে গরু তিনটি রক্ষা করতে পারলো না অসহায় পরিবারটি। ভোর রাতের কোন এক সময় চোর চক্রটি গরু তিনটি চুরি করে পালিয়েছে। এতে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন অসহায় পরিবারটি। ভুক্তভোগী পরিবার স্থানীয়না জানিয়েছেন, উপজেলার পাগলা শ্যামনগর গ্রামে অসুস্থ হয়ে সদ্য মারা গেছেন সংবাদপত্র বিক্রেতা গোপাল মিত্র। তিনি মারা যাওয়ার আগে সংবাদপত্র বিক্রির পাশাপাশি পশু পালন করে জিবিকা নির্বাহ করতেন। বর্তমানে পরিবারটি গরুর দুধ বিক্রি করে সংসার চালাচ্ছেন। গোপাল মিত্রের পুত্র অপু মিত্র জানান, রবিবার ভোর রাতে তাদের গোয়ালঘর থেকে ১টি ষাড়, ১গাভী ১টি বাছুর চুরি করে নিয়ে গেছে দুর্বত্ত্বরা। সর্বশেষ শনিবার দিবাগত রাত ৪টার দিকে তার পরিবার ঘোয়াল ঘরে গরু তিনটি দেখেছে।

লখপুর ইউপিতে শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল ব্যাগ বিতরন

ফকিরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটের ফকিরহাটের লখপুর ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে এলজিএসপি-এর আর্থিক সহযোগীতায় ২০২০-২১অর্থ বছরে ২টি কিন্ডার গার্ডেন স্কুলের শিশু শিক্ষার্থীদের মাঝে স্কুল ব্যাগ বিতরন করা হয়েছে। রবিবার বিকাল ৩টায় ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে এই স্কুল ব্যাগ বিতরন করা হয়। প্যানেল চেয়ারম্যান শেখ আহম্মদ আলীর সভাপতিত্বে ইউপি সচিব প্রসুন দাশ এর সঞ্চালনায় এতে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ট্যাগ অফিসার মোঃ আলামিন শেখ, ইউপি সদস্য হারুনার রশিদ, বিল্লাল হোসেন মিলন খুকুমনি বেগম।

নিরাপওা নিশ্চিত করতে বেনাপোল কাস্টম হাউসের প্রবেশদ্বারে ফিঙ্গার প্রিন্ট সিস্টেম চালু

বেনাপোল প্রতিনিধি

নিরাপওা নিশ্চিত করতে বেনাপোল কাস্টম হাউসের প্রবেশদ্বারে ফিঙ্গার প্রিন্ট সিস্টেম চালু করেছে কর্তৃপক্ষ। রোববার সকাল থেকে ফিঙ্গার প্রিন্ট ব্যবহার করে সংশ্লিষ্টদের কাস্টম হাউসে প্রবেশ করতে হচ্ছে। বেনাপোল কাস্টমস গেটের প্রবেশদ্বারে বসানো হয়েছে দুটি ফিঙ্গার মেশিন। একটি সিএন্ডএফ মালিকদের, অন্যটি কর্মচারীদের জন্য। যা স্পর্শ করে ভেতরে প্রবেশ করতে হচ্ছে। যাদের ফিঙ্গার প্রিন্ট কাস্টমসে এন্ট্রি করা আছে শুধু তারাই প্রবেশ করতে পারছেন। বেনাপোল কাস্টমস ব্যবহারকারী সিঅ্যান্ডএফ এজেন্সির প্রায় ৮০০ মালিক প্রায় ৪০০০ হাজার কর্মচারীর মধ্যে হাজার ৫৩০ জন এখনো পর্যন্ত এন্ট্রি করতে পেরেছেন। লকডাউনের কারণে বেনাপোলের বাইরে অবস্থানরতদের কেউ সশরীরে আসতে পারেননি। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে বাকিরা এসে ফিঙ্গার প্রিন্ট দিয়ে নিতে পারবেন বলে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ বলছেন।

এদিকে, বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে ফিঙ্গার মেশিনের ব্যবহার কতটা নিরাপদ তথা যুক্তিসঙ্গত, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। মেশিনের একই স্থানে বহু মানুষের হাতের ছোঁয়া করোনা সংক্রমণ বাড়িয়ে দিতে পারে বলে তাদের আশঙ্কা। বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এজেন্টস অ্যাসোসিয়েশনের সহ সভাপতি কামাল উদ্দিন শিমুল জানান, কাস্টমস হাউসে ফিঙ্গার প্রিন্ট ব্যবস্থায় ব্যবসায়ীরা খুশি। এতে যেমন নিরাপত্তা জোরদার হবে তেমনি অবৈধ কার্ডধারীদের প্রবেশের কোনো সুযোগ থাকবে না।

বেনাপোল কাস্টম হাউসের অতিরিক্ত কমিশনার ড. মো. নেয়ামুল ইসলাম জানান, যাদের ফিঙ্গার এন্ট্রি নেই তারা প্রবেশ করতে পারবেন না। তবে এন্ট্রি ছাড়াও জুরুরি কাজে ভেতরে যেতে হতে পারে। সেক্ষেত্রে অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কারও অনুমতি লাগবে। করোনা সংক্রমণ রোধে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে কাস্টম হাউসে প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থা বাড়ানো হয়েছে।

সাতক্ষীরার দেবহাটার পারুলিয়ায় কঠোর লকডাউন ভেঙ্গে জমজমাট গরুহাট

দেবহাটা (সাতক্ষীরা) প্রতিনিধি

সাতক্ষীরার দেবহাটায় কঠোর লকডাউন উপেক্ষা করে জমজমাট গরুহাট বসিয়েছেন ইজারাদার। রোববার সকাল থেকে পারুলিয়া গরুহাটে জনসমাগম শুরু হয় প্রায় বেলা ১২টা পর্যন্ত।

সরেজমিনে দেখা যায়, আসন্ন কুরবানির ঈদকে সামনে রেখে হাট বসানো হয়। হাটে জেলা জেলার বাহিরের বিভিন্ন এলাকার মানুষ কেনা-বেচা ঘুরতে আসেন। হাটে গরু, ছাগল, ভেড়া, কাপড়, মনোহরিসহ সব ধরণের দোকান বসানো হয়। হাটে আসা মানুষের অধিকাংশদের মুখে মাস্ক ছিল না। এমনকি সমাজিক দূরত্বের কোন বালাই ছিল না গরুহাটে। সারাদেশের কঠোর লকডাউনকে বৃদ্ধা আঙ্গুল দেখিয়ে হাট বসানো হয়। খোঁজ নিয়ে আরো জানা যায়, দেবহাটা উপজেলা নির্বাহী অফিসার তাছলিমা আক্তারের পিতার মৃত্যুতে তিনি উপজেলায় না থাকায় সুযোগে হাট বসায় ইজারাদার জেলা পরিষদ সদস্য আল ফেরদৌস আলফা। তবে হাটে খাজনা আদায়কারী কয়েকজনের সাথে লকডাউনে হাট পরিচালনার বিষয়ে কথাবলার চেষ্টা করলে তারা দৌঁড়ে পালিয়ে যায়।

এবিষয়ে তার ইজারাদারের যোগাযোগ করা হলে তিনি মোবাইল ফোন ০১৭১১-৪৪৮৯৫৬ বন্ধ করে রাখেন। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ম্যাজিস্ট্রেট বাপ্পি দত্ত রনি সেনা সদস্যরা এসে হাট বন্ধ করে দেন।

এদিকে, দেবহাটা থানার অফিসার ইনচার্জ বিপ্লব কুমার সাহা জানান, এবিষয়ে আমার জানা নেই। তবে হাটে থানা পুলিশের পিকআপ ভ্যান সহ একটি টিম সেখানে অবস্থান করছিল প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, বিষয়টি খোঁজ নিব।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বাপ্পি দত্ত রনি জানান, পারুলিয়ায় লকডাউন উপেক্ষা করে গরুহাট বসানোর বিষয়ে জানতে পেরে সেনা সদস্যদের সাথে নিয়ে অভিযান পরিচালনা করি। আমাদের উপস্থিতিতে হাটের উপস্থিত লোক পালিয়ে যায়। ইজারাদারের কোন লোককে পাওয়া যায়নি। বিষয়টি জেলা প্রশাসককে জানানো হবে।

খুলনা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত

তথ্য বিবরণী

খুলনা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির জুলাই মাসের সভা রবিবার দুপুরে জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদারের সভাপতিত্বে তাঁর সম্মেলনকক্ষ থেকে অনলাইনে অনুষ্ঠিত হয়। সভায় পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান বলেন, পুলিশ টহলের পাশাপাশি করোনাকালে বন্ধ থাকা মার্কেটগুলোয় নিজস্ব পাহারাদারের সংখ্যা বৃদ্ধি করা প্রয়োজন। কোভিডের প্রথম ঢেউ আমরা কার্যকরভাবে নিয়ন্ত্রণ করতে পেরেছি এবং চলমান পরিস্থিতও আমরা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবো। এসময় করোনার বাস্তবতা মেনে অপ্রয়োজনে ঘর থেকে বের না হওয়ার জন্য সকলকে পরার্মশ দেন পুলিশ সুপার। সভায় মেট্রোপলিটন পুলিশের উপপুলিশ কমিশনার (সদর দপ্তর) মোহাম্মদ এহসান শাহ বলেন, নগরীতে চুরি-ছিনতাই প্রতিরোধে দিনে রাতে পুলিশের বিশেষ টহল চলমান আছে। করোনাভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে মেট্রোপলিটন এলাকায় কাউন্সিলর, জনপ্রতিনিধি, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, মসজিদের ইমাম প্রমুখদের নিয়ে ৬৭টি কমিটি গঠন করা হয়েছে। যার মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডে স্বাস্থ্যবিধি পালন করোনা রোগীদের কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা হবে। সভায় সিভিল সার্জন ডাঃ নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, কোরবানির পশুরহাট থেকে যেন কোভিডের সংক্রমণ না ঘটে সে দিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। এছাড়া কোভিড বিষয়ে সচেতনতা বৃদ্ধিতে ইমামদের পাশাপাশি মসজিদের কমিটিকে সংযুক্ত করা যেতে পারে।

সভাপতির বক্তৃতায় জেলা প্রশাসক বলেন, কোভিড পরিস্থিতিতে কোরবানির পশুরহাট ব্যবস্থাপনায় স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ নিশ্চিতে সর্তক থাকতে হবে। চলমান সময়ে খেটে খাওয়া মানুষের দুর্ভোগ লাঘবে সরকারে মানবিক সহায়তা চলমান আছে। কোভিড পরিস্থিতির সুযোগ নিয়ে কেউ যেন মাদকের বিস্তার ঘটাতে না পারে সে দিকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারি বৃদ্ধি এবং মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার জন্য সংশ্লিষ্টদের নিদের্শনা দেন তিনি। নারী নির্যতানের গুরুতর অপরাধ শালিসের মাধ্যমে অপোষযোগ্য নয়। গ্রামীণ এলাকায় এবিষয়ে প্রচার চালাতে জেলা মহিলা বিষয়ক দপ্তরের কর্মকর্তাকে নির্দেশনা দেন জেলা প্রশাসক। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ ইউসুপ আলী সভার শুরুতে বিগত মাসে খুলনা জেলার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পাওয়ার পয়েন্টের মাধ্যমে তুলে ধরেন। সভায় জানানো হয় খুলনা জেলা অধিক্ষেত্রে বিগত জুন মাসে ১৭৭ টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। বিগত মে মাসেও খুলনা জেলা অধিক্ষেত্রে একই সংখ্যক মামলা দায়ের হয়েছিলো। খুলনা মহানগরী অধিক্ষেত্রে জুন মাসে ১৭০টি মামলা হয়েছে যা বিগত মে হতে দায়ের হওয়া মামলা থেকে ১৬টি বেশি। সভায় বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তা জেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সদস্যরা অনলাইনে যুক্ত হন।

পাইকগাছা পৌরসভা অভ্যন্তরে মধুমিতা পার্কের অস্তিত্ব বিলিনের পথে : পুনঃ প্রতিষ্ঠার দাবী

বাবুল আক্তার, পাইকগাছা

পাইকগাছা পৌরসভা অভ্যন্তরে মিষ্টি পুকুর পাড়ে ৮০’দশকে প্রতিষ্ঠিত মধুমিতা পার্কের কোন অস্তিত্ব নেই। রক্ষনাবেক্ষনের অভাবে সব কিছুই ধ্বংস হয়ে গেছে। পার্কের পুরানো ঐতিহ্য ফিরিয়ে আনার জন্য কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছে এলাকাবাসী।

উপজেলা সদরে পৌরসভার প্রাণ কেন্দ্রে অবস্থিত পুকুরটির নাম মিষ্টি পুকুর। বৃটিশ আমলে পানীয় জলের চাহিদা মিটানোর জন্য পুকুরটি খনন করা হয়। শেখ, কাগজী হিন্দু সম্প্রদায়ের দানীয় বিঘা জমিতে এর অবস্থান। বিনোদন বা অবসরে আড্ডা দেয়ার মত তেমন কোন পরিবেশ না থাকায় আশির দশকে তৎকালীন জেলা প্রশাসক নুরুল ইসলাম পুকুরের চার পাশে পার্ক গড়ে তোলেন। যার নাম করণ করা হয় মধুমিতা পার্ক। তৎকালীন ইউপি চেয়ারম্যান শেখ বেলাল উদ্দীন বিলু পুকুর পার্কটি দেখাশুনা করায় বেঞ্চ, দোলনা সহ বিনোদনের সবকিছু সুরক্ষিত ছিল। চারপাশে ছিল উচ্চ  প্রাচীর। চারপাশে ছিল পাকা রাস্তা। পার্কের ২/১টি বেঞ্চ থাকলেও তা বসার অনুপযোগী। প্রাচীরের বিলাশ একটি অংশ নষ্ট হয়ে গেছে। এদিকে সে সময় নলকুপ না থাকায় পুকুর বা কুয়ার পানিই ছিল একমাত্র পানীয় জলের ভরসা। তাও পর্যন্ত সংখ্য না থাকায় পুকুর থেকে চাহিদা মিটাত অত্র এলাকার মানুষ। আজও পৌর সদরে পানি হোটেল রেষ্টুরেন্টে ব্যবহার হয়ে আসছে। পুকুরটি খননের পর সম্প্রতি সংস্কার করেছেন জেলা পরিষদ সদস্য উপজেলা আ’লীগ সাধারণ সাধারণ সম্পাদক শেখ কামরুল হাসান টিপু। তিনি বলেন, মধুমিতা পার্কটি পুনরায় গড়ে তুলতে জেলা পরিষদের পরবর্তী সভায় কার্যকরী পদক্ষেপ নেয়া হবে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এবিএম খালিদ হোসেন সিদ্দিকী বলেন, আমি শুনছি এখানে মধুমিতা নামে একটা পার্ক ছিল। যেহেতু জেলা পরিষদের জায়গা সেহেতু তারা সেখানে আবারও পার্কের কাজ করলে আমার দিক দিয়ে যা যা করার প্রয়োজন সেটুকু করা হবে।

পাইকগাছায় দশম শ্রেনী ছাত্রীর আত্মহত্যা

পাইকগাছা প্রতিনিধি

পাইকগাছায় ঐশী মন্ডল (১৫) নামে দশম শ্রেনী ছাত্রী গলায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে। সে উপজেলার চকরি বকরি গ্রামের সুজন মন্ডলের মেয়ে আলোকদ্বীপ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ছাত্রী। পুলিশ লাশের সুরত হাল রিপোর্ট শেষে ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়েছে। মৃতের বড় ভাই সৌকত মন্ডল জানান, রবিবার রাত ২টার দিকে মা বাবার উপর অভিমান করে নিজ বসতঘরে গলায় ওরনা পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করে। পুলিশ পরিদর্শক (ওসি অপারেশন) জানান, এই মুহুর্তে মৃত্যুর কারন জানা যায়নি। লাশ ময়না তদন্তের জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

নগরীতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে তিম খুলনা-বিল্ড খুলনা অক্সিজেন ব্যাংক

খবর বিজ্ঞপ্তি

নগরীর ৩০৩, খানজাহান আলী রোডস্থ তারের পুকুর মোড়ের মোল্যা মঞ্জিলের তিম খুলনা-বিল্ড খুলনা অক্সিজেন ব্যাংক করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবায় নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে। যেখানে রোগীদের অক্সিজেন সমস্যা সেখানে সংগঠণের সদস্যরা হাজির হচ্ছে অক্সিজেন সিলিন্ডার নিয়ে।

সংগঠণের সাধারণ সম্পাদক মো. শাকিল আহমেদ জানান, জুন মাস থেকে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের সেবায় অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে সহয়তা কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। মো. আরিফুল হক মোল্যার উদ্যোগে পরিচালনায় বর্তমানে সংগঠণের সিলিন্ডারের সংখ্যা ৫৩। পর্যন্ত মোট ৩৫৮জনকে সহয়তা প্রদান করা হয়েছে। শাকিল আহমেদ আরো জানান, সংগঠণের অন্য সদস্য মো. ওহেদুর রহমান অভি, মো. রবিউল ইসলাম রবি, মো. তানজিল আনসারী মো. আব্দুল খালেকসহ অন্যান্যরা রোগীদের অক্সিজেন সেবায় নিয়োজিত রয়েছেন। তিনি জরুরী প্রয়োজনে ০১৯৩৭-৮৯৭৯৮৯ নম্বরে যোগাযোগ করতে সকলকে অনুরোধ জানিয়েছেন।

সাবেক কাউন্সিলর শহীদ ইকবাল বিথারের ১২তম শাহাদত বার্ষিকী পালিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

১১ জুলাই বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যুবলীগের কেন্দ্রীয় সাবেক প্রেসিডিয়াম মেম্বার, ২৪ নং ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক সদস্য শহীদ ইকবাল বিথারের শাহাদাতের একযুগ। তিনি ২০০৯ সালের ১১ জুলাই নগরীর মুসলমানপাড়ায় নিজ বাসার অদূরে মেট্টোপলিটন ক্লিনিকের সামনে সন্ত্রাসীদের গুলিতে নিহত হন। শহীদ ইকবাল বিথারের শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ স্বাস্থ্যবিধি মেনে স্মরণসভা দোয়া মাহফিলের আয়োজন করেছে। ১৩ জুলাই মঙ্গলবার বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে স্মরণসভা দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। স্মরণসভায় দোয়া মাহফিলে মহানগর, থানা ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং নির্বাচিত দলীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলরদের যথাসময়ে উপস্থিত থাকার জন্য বিশেষভাবে আহবান জানিয়েছেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি সিটি মেয়র আলহাজ্ব তালুকদার আব্দুল খালেক খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা।

২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের দোয়া মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

বঙ্গবন্ধুর ভ্রাতুষ্পুত্র, যুবলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ সোহেল তার সহধর্মিণী করোনায় আক্রান্ত। বর্তমানে তারা হোম কোয়ারেন্টাইনে আছেন। তাদের সুস্থ্যতা কামনা করে রবিবার বাদ আছর বানরগাতি বাইতুন নুর জামে মসজিদে ২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের উদ্যোগে এক দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। উক্ত দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগের তথ্য গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক ২৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্যানেল মেয়র মোঃ আলী আকবর টিপু, ২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মুন্সী আইয়ুব আলী সাধারণ সম্পাদক সরদার আব্দুল হালিম, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি আব্দুল কাইয়ুম গোরা,        যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক শরীফ এনামুল কবীর, ২৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা মাষ্টার আবু হান্নান, শেখ আব্দুর রহিম, গাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ সোহাগ, ইকতিয়ার উদ্দিন (সেন্টু), এজাজুর রহমান সুমন, মোঃ সেকেন্দার আলী, রামীম হোসেন পিকুল, ওমর ফারুক সুমন, মো. আলমগীর হোসেন, মো. নয়ন, মো. মাসুদুর রহমান রানা, মো. বাদলসহ আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের দোয়া মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভ্রাতুষ্পুত্র বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য বিসিবি’পরিচালক শেখ সোহেল তাঁর পরিবারের সুস্থতা দীর্ঘায়ু কামনায় সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে দোয়া মাহফিল বাদ মাগরীব ২০নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এমডিএ বাবুল রানা। দোয়া মাহফিলে সভাপতিত্ব করেন সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান বুলু বিশ্বাস। দোয়া মাহফিলে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামীলীগ দপ্তর সম্পাদক মো. মুন্সি মাহবুব আলম সোহাগ, কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম আকিল উদ্দিন, সোনাডাঙ্গা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তসলিম আহম্মেদ আশা, থানা আওয়ামী লীগ নেতা আরজুল ইসলাম আরজু, মোঃ আমির হোসেন, জান্নাতুল ফেরদৌস পিকুল,  আঃ কাইয়ুম গোরা, এস এম রাজুল হাসান রাজু, শরীফ এনামুল কবীর, মোক্তার হোসেন, আলী আকবর, মোঃ রুহুল আমীন খান, এ্যাড. শামীম আহম্মেদ পলাশ, খাজা মঈনুদ্দিন, শিপন চৌধুরী, মেহেজাবিন খান, ইঞ্জিনিয়ার আঃ জব্বার, তোতা মিয়াঁ ব্যাপারী, শেখ জাহিদুল হক, শেখ আবিদ উল্লাহ, শেখ আব্দুল আজিজ, মোঃ জাহিদুল ইসলাম, ইউসুফ আলী খান, হাজি মোতালেব মিয়াঁ, শেখ রুহুল আমিন, মীর মোঃ লিটন, জাকির হোসেন, মোস্তাক আহম্মেদ টুটুল, সোহেল চৌধুরী, এ্যাড. জসিমউদ্দিন খান লিটন, নুরজাহান রুমি, রোজী ইসলাম নদী,কবির হোসেন, কামরুল ইসলাম, আশরাফ আলী হাওলাদার শিপন, ইসরাফিল ইসলাম, সালাম ব্যাপারী, জামাল হাওলাদার প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন হাফেজ মাওলানা মেজবাহ উদ্দিন।

শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের রথযাত্রা উপলক্ষে মহানগর পূজা পরিষদের পক্ষ থেকে নগরবাসী দেশবাসীকে শুভেচ্ছা

খবর বিজ্ঞপ্তি

শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের রথযাত্রা অনুষ্ঠান-২০২১ আজ ১২ জুলাই সোমবার থেকে ২০ জুলাই মঙ্গলবার পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। উপলক্ষে মহানগর পূজা পরিষদের সভাপতি শ্যামল হালদার সাধারণ সম্পাদক প্রশান্ত কুমার কু-নগরবাসী দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন। এবারের শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের রথযাত্রা অনুষ্ঠান কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মহানগর পূজা পরিষদের বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সীমিত আকারে (সর্বোচ্চ ১০ জন) ধর্মীয় রীতিনীতি অনুসরণ করে মন্দির অঙ্গণে সীমাবদ্ধ রাখতে হবে। যারা মাঙ্গলিক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করবেন তাদের অবশ্যই সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সরকারের স্বাস্থ্যবিধি মেনে মাস্ক পরিধান স্যানেটাইজ করে মন্দির অভ্যন্তরে অবস্থান করতে হবে। শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের রথযাত্রা অনুষ্ঠান চলাকালীন সংশ্লিষ্ট মন্দির কমিটিকে মহামারী করোনা থেকে দেশবাসী বিশ্ববাসীর মুক্তির কামনায় প্রতিদিন প্রার্থনা করার অনুরোধ জানানো হচ্ছে। মহামারী করোনা ভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখীর কারণে উপর্যুক্ত সিদ্ধান্তসমূহ প্রতিপালনের জন্য সংশ্লিষ্ট মন্দির কমিটিকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা যাচ্ছে। তাছাড়া সকল সনাতনী ভক্তদের নিজেদের সুরক্ষার স্বার্থে মন্দিরে ভিড় না করে নিজ গৃহে থেকে শ্রীশ্রীজগন্নাথদেবের পূজা-পার্বণসহ সকলে সুস্থতা কামনা করে প্রার্থনা করার আহ্বান জানানো হচ্ছে।

জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টেস্টে দুর্দান্ত জয়ে টাইগারদের খুবি উপাচার্যের অভিনন্দন

খবর বিজ্ঞপ্তি

হারারেতে বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে সিরিজের একমাত্র টেস্টে টাইগারদের দুর্দান্ত জয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলকে শুভেচ্ছা অভিনন্দন জানিয়েছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন। এক অভিনন্দন বার্তায় তিনি বলেন, ব্যাটিং, বোলিং আর ফিল্ডিং-অসাধারণ নৈপুণ্য দেখিয়েই জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সফরের একমাত্র টেস্ট জিতেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। এজন্য দলের খেলোয়াড়সহ কোচ, ক্রিকেট বোর্ড এবং সংশ্লিষ্টদের তিনি অভিনন্দন জানান এবং এই জয়ে অনুপ্রাণিত হয়ে চলতি সফরের ওয়ানডে টি-টোয়েন্টি সিরিজেও জয়ের ধারা অব্যাহত থাকবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

শেখ সোহেল তার পরিবারের সুস্থতা কামনায় নগর যুবলীগের দোয়া মাহফিল

খবর বিজ্ঞপ্তি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভ্রাতুষ্পুত্র, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ-কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের প্রেসিডিয়াম সদস্য, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক, খুলনার ছাত্র যুবসমাজের অভিভাবক, মানবিক জননেতা জনাব শেখ সোহেল তার সহধর্মীনি করোনা (কোভিড-১৯) ভাইরাসে আক্রান্ত। বর্তমানে তিনি তার পরিবার হোম-কোয়ারেন্টাইনে আছেন।

জননেতা শেখ সোহেল এবং তার সহধর্মিণী শাহারিন জাহান এর সুস্থ্যতা কামনায় খুলনা মহানগর যুবলীগের উদ্যোগে আজ বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। মহানগর যুবলীগের আহবায়ক সফিকুর রহমান পলাশের সভাপতিত্ত্বে যুগ্ম-আহবায়ক শেখ শাহাজালাল হোসেন সুজনের পরিচালনায় দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন মহানগর আওয়ামী লীগ এর সাধারণ সম্পাদক এম ডি বাবুল রানা। উপস্থিত ছিলেন নগর আওয়ামী লীগ নেতা অধ্যাপক শহিদুল হক মিন্টু, মুন্সি মাহাবুবুল আলম সোহাগ, আলী আকবর টিপু, মফিদুল ইসলাম টুটুল, সানাউল্লাহ নান্নু, আকিল উদ্দীন, মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান রাসেল, নগর যুবলীগের সদস্য এস এম হাফিজুর রহমান হাফিজ, রোজী ইসলাম নদী, আব্দুল কাদের শেখ, আবুল হোসেন, কাজী কামাল হোসেন, সওকাত হোসেন, অভিজিৎ চক্রবর্তী দেবু, কবির পাঠান, তাজুল ইসলাম, জুয়েল হাসান দিপু, কাজী ইব্রাহিম মার্সাল, মোস্তফা শিকদার,  মহিদুল ইসলাম মিলন, মেহেদী হাসান মোড়ল, মশিউর রহমান সুমন, কে এম শাহিন হাসান, মামুন কবির কচি, আব্দুল্লাহ আল মামুন মিলন, ইলিয়াস হোসেন লাবু, রবিউল ইসলাম লিটন, শওকাত হাসান, হাসান শেখ, ইকবাল কবির লিটন, কাঞ্চন শিকদার, ইমরুল ইসলাম রিপন, জামাল শেখ, মাসুম উর রশিদ, মাসুম আহমেদ ডলার, ইব্রাহিম হোসেন তপু, হারুন উর রশিদ, আনিসুর রহমান, তাজদীক উর রহমান জয়, লাবু আহমেদ, রাকিবুল ইসলাম, জিহাদুল ইসলাম জিহাদ, মুহিদুল ইসলাম শান্ত, সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মোস্তফা আল মামুন প্রবল, রফিকুল ইসলাম রফিক, নগর ছাত্রলীগ নেতা রণবীর বাড়ই সজল, আসাদুজ্জামান বাবু, মাহামুদুল হাসান শাওন, ইখতিয়ার মোল্লা, জব্বার আলী হীরা, জহির আব্বাস, ইমতিয়াজ আহমেদ রিপন, সোহান হোসেন শাওন, হিরণ হাওলাদার, বায়েজিদ সিনা, নিশাত ফেরদৌস অনি প্রমুখ। দোয়া পরিচালনা করেন মুফতি রফিকুল ইসলাম।

রূপগঞ্জের অগ্নিকান্ডে হতাহতের প্রতি শোক-সমবেদনা খুলনা জেলা বিএনপির

খবর বিজ্ঞপ্তি

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সেজান জুস কারখানায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে ৫২জন মর্মান্তিক ভাবে আগুনে পুড়ে নিহত হওয়ার ঘটনায় গভীর শোক প্রকাশ শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেছে খুলনা জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

শোকবার্তায় বলা হয়েছে- স্বজনহারা পরিবার তাদের একমাত্র কর্মক্ষম অভিভাবকদের হারিয়ে ভবিষ্যৎ অন্ধকারাচ্ছন্ন। সরকার রাষ্ট্রকে এঘটনায় শুধুমাত্র তদন্ত নয়, কারণ উদঘাটন করে সর্বাঘেœ প্রয়োজন আগুনে পুড়ে হতাহত পরিবারের সদস্যদের বেঁচে থাকার ব্যবস্থা মিল মালিকদের গাফেলতি থাকলে তার বিচার করা কঠোর পদক্ষেপ নেয়া। নেতৃবৃন্দ নিহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা নিহতদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করেছেন। 

বিবৃতিদাতারা হলেন জেলা বিএনপি’সভাপতি এ্যাড. এসএম শফিকুল আলম মনা, সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ গাজী আবদুল হক, গাজী তাফছির আহম্মেদ, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আব্দুর রশিদ, মোল¬খায়রুল ইসলাম, এ্যাড. শরিফুল ইসলাম জোয়াদ্দার খোকন, এ্যাড. মাসুম আল রশিদ, শেখ আবু হোসেন বাবু, জিএম কামরুজামান টুকু, কেএম আশরাফুল আলম নান্নু, এ্যাড. কে এম শহিদুল আলম, এ্যাড. তছলিমা খাতুন ছন্দা শেখ শামছুল আলম পিন্টু প্রমুখ।

বাগেরহাট বিএনপির সাবেক সভাপতি বাবুর মৃত্যুতে খুলনা জেলা বিএনপির শোক

খবর বিজ্ঞপ্তি

বাগেরহাট জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি জাহাঙ্গীর আলী বাবু (৭৯) গত শনিবার খুলনা মহানগরীর একটি বেসরকারি ক্লিনিকে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল¬াহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)তার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ, শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন মরহুমের মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা জেলা বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

বিবৃতিদাতারা হলেন জেলা বিএনপি’সভাপতি এ্যাড. এসএম শফিকুল আলম মনা, সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান, সিনিয়র সহ-সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ গাজী আবদুল হক, গাজী তাফছির আহম্মেদ, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আব্দুর রশিদ, মোল¬খায়রুল ইসলাম, এ্যাড. শরিফুল ইসলাম জোয়াদ্দার খোকন, এ্যাড. মাসুম আল রশিদ, শেখ আবু হোসেন বাবু, জিএম কামরুজামান টুকু, কেএম আশরাফুল আলম নান্নু, এ্যাড. কে এম শহিদুল আলম, এ্যাড. তছলিমা খাতুন ছন্দা শেখ শামছুল আলম পিন্টু প্রমুখ।

খুলনা অঞ্চলে একদিনে আরও ৬০ মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাস আক্রান্ত ৬০ জনের মৃত্যু হয়েছে। একই সময়ে করোনা শনাক্ত হয়েছে এক হাজার ৫৯১ জনের। নিয়ে শনাক্তের সংখ্যা ৭১ হাজার ছাড়ালো। রবিবার (১১ জুলাই) বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক রাশেদা সুলতানা তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, বিভাগের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় খুলনা জেলায় ১৪ জন, বাগেরহাটে দুই জন, যশোরে ছয় জন, নড়াইলে সাত জন, মাগুরায় চার জন, ঝিনাইদহে তিন জন, কুষ্টিয়ায় ১৩ জন, চুয়াডাঙ্গায় ছয় জন মেহেরপুরে পাঁচ জন মারা গেছেন।

এর আগে গতকাল শনিবার খুলনা বিভাগে করোনায় ৪৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া যায়। আর গত জুলাই বিভাগে সর্বোচ্চ ৭১ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

গত বছরের ১৯ মার্চ খুলনা বিভাগের মধ্যে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় চুয়াডাঙ্গায়। করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে রবিবার সকাল পর্যন্ত বিভাগের ১০ জেলায় মোট ৭১ হাজার ৫৫০ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। করোনায় মারা গেছেন এক হাজার ৫৯৩ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৪৬ হাজার ২৯৯ জন।

খুলনার তিন হাসপাতালে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনার সরকারি-বেসরকারি তিন হাসপাতালে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ১২ জন করোনায় দুই জন উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন। শনিবার (১০ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে রবিবার (১১ জুলাই) সকাল ৮টা পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

১৪ জনের মধ্যে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ (খুমেক) হাসপাতালের আওতাভুক্ত করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে আট জন, বেসরকারি গাজী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে দুই জন খুলনার ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটে চার জনের মৃত্যু হয়েছে। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় শহীদ শেখ আবু নাসের বিশেষায়িত হাসপাতালে কারও মৃত্যু হয়নি।

খুমেক হাসপাতালের আওতাভুক্ত করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালের মুখপাত্র ডা. সুহাস রঞ্জন হালদার জানান, হাসপাতালে মৃত আট জনের মধ্যে করোনায় ছয় জন উপসর্গ নিয়ে দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। করোনায় মৃতরা হলেন- রূপসার সুফিয়া (৪৫), নগরীর সোনাডাঙ্গার আসাদুল হক (৭৫), খালিশপুরের শাহারা বেগম (৬৫), আফিলগেটের নাজির আহমেদ (৭০), খুলনার রাজিয়া (৫০) যশোরের এমএ খলিল (৮০)

তিনি আরও জানান, হাসপাতালটিতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৯৩ জন। তাদের মধ্যে রেড জোনে ১২১, ইয়েলো জোনে ৩৬, আইসিইউতে ১৯ জন এইচডিইউতে ১৭ জন ভর্তি রয়েছেন। গত ২৪ ঘণ্টায় ভর্তি হয়েছেন ৩৭ জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩২ জন।

গাজী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডা. গাজী মিজানুর রহমান জানান, হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় দুই জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- নগরীর সোনাডাঙ্গা মেইন রোড এলাকার আরোয়া ফকরুদ্দীন (৪৪) যশোর কেশবপুরের মঞ্জুয়ারা বেগম (৫০)চিকিৎসাধীন রয়েছেন ১৩৪ জন। তাদের মধ্যে আইসিইউতে আট জন এইচডিইউতে আছেন ১১ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৩ জন ভর্তি হয়েছেন। আরও সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ২৭ জন।

খুলনা জেনারেল হাসপাতালের করোনা ইউনিটের মুখপাত্র ডা. কাজী আবু রাশেদ জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় চার জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতরা হলেন- নগরীর ডালমিল মোড় এলাকার গোলাম কিবরিয়া (৬৮), রুপসার জীবন কৃষ্ণ পাল (৫৭), তেরখাদার মফিজুল ইসলাম (৫৫) অভয়নগরের জেসমিন বেগম (৪৫)

আসার কথা ক্যাপসিক্যাম, এলো ওষুধ মোবাইলফোন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

ভারত থেকে ক্যাপসিকাম আমদানির আড়ালে বিপুল পরিমাণ ওষুধ মোবাইলফোন সেট আনার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার (১০ জুলাই) ভোমরা স্থল বন্দরে শুল্ক গোয়েন্দা সংস্থার একটি দল অভিযান চালিয়ে ক্যাপসিকামের আড়ালে আনা ওষুধ মোবাইলফোন সেট জব্দ করে।

মামুন এন্টারপ্রাইজ নামের একটি সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট এই ক্যাপসিকাম ভারত থেকে বাংলাদেশে এনে খালাস করাচ্ছিলো। ভারতীয় ওই ট্রাকে ক্যাপসিকামের ৮২টি কার্টন ছিল।

রাতে তল্লাশি চলাকালে শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তা আমির মামুন বলেন, কয়েকটি কার্টন খুলে বেশ কিছু পরিমাণ ওষুধ ৬৪টি ভারতীয় মোবাইলফোন সেট পাওয়া গেছে। মোবাইলফোন সেটগুলো রিডমি টেন প্রো মডেলের। ৮২টি কার্টনের মধ্যে এখনও অনেকগুলো খোলা হয়নি। মধ্যরাতের পর জানানো সম্ভব হবে কতগুলো মোবাইলফোন সেট আনা হয়েছে। তবে পরে তার ফোন নম্বরে কল দিলেও কথা বলা সম্ভব হয়নি।

করোনা হাসপাতালেই নেই স্বাস্থ্যবিধি মানার বালাই!

স্টাফ রিপোর্টার

করোনা সংক্রমণের উর্ধ্বগতি এবং মৃত্যুহার বাড়ার মধ্যেও স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ক্ষেত্রে  খুলনার জনসাধারণের মধ্যে উদাসিনতা দেখা যাচ্ছে। কঠোর লকডাউনেও লোকজন স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মানছেন না। খুলনার করোনা হাসপাতালেও স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই রোগী স্বজনদের চলাচলের অভিযোগ উঠেছে। অবস্থায় করোনা পরিস্থিতি আরও খারাপের দিকে যাবে বলেই ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

শনিবার দুপুরে সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের করোনা ইউনিটের ফ্লোরে চিকিৎসাধীন করোনা রোগীর সামনে মাস্ক থুতনিতে রেখে কথা বলছেন একজন দর্শনার্থী। আবার রোগীর সঙ্গে থাকা স্বজনরা অবাধে হাসপাতালে বাইরে ভেতরে চলাচল করছেন। কিন্তু দায়িত্বশীলরা এসব বিষয়ে তেমন তদারকি করছেন না। এতে বাড়ছে স্বাস্থ্য ঝুঁকি।

এছাড়া হাসপাতালে দেখা গেছে দীর্ঘ লাইনে সাধারণ মানুষ নমুনা পরীক্ষার জন্য অপেক্ষা করছেন। গায়ে গা মিশিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন তারা।

সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে করোনা হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, গত বছরে এত অল্প সময়ে রোগীর পরিস্থিতি খারাপ হতে দেখেননি তারা। বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল অধিকাংশ রোগীকে। কিন্তু বছর শুধু হাসপাতালের চিকিৎসায় চলছে না, প্রয়োজন পড়ছে আইসিইউর। রোগীর চাপ থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বাধ্য হচ্ছেন রোগীকে ফিরিয়ে দিতে। সংক্রমণের হার বাড়ছে হু হু করে। কিন্তু পরিস্থিতিতেও কেনাকাটা সব জায়গায় উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি। মাস্ক দেখা যায় না কারও মুখে।

করোনা বিষয়ে নাগরিকদের অসেচতনতা ভয়ংকর পরিস্থিতির সৃষ্টি করতে পারে জানিয়ে খুলনা বিভাগের স্বাস্থ্য অধিদফতরের সহকারী পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডা. ফেরদৌসী আক্তার বলেন, ‘টিকা নেওয়ার পর অনেকেই নিজেকে নিরাপদ ভাবতে শুরু করেছেন। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা বাদ দিয়েছেন। বাংলাদেশে টিকা কার্যক্রম শুরু হওয়ার পর আমরা দেখছি, পারিবারিক সামাজিক অনুষ্ঠানে আমাদের অংশগ্রহণ বেড়ে গেছে। ঘরে বা বদ্ধ রুমে যখন আমরা মিলিত হচ্ছি, তখন ফ্যান বা এসি চালু করতে হচ্ছে। ঘরের বাতাস যেহেতু ঘরের মধ্যেই চলাচল করছে, তাই সংক্রমণের মাত্রাও বাড়ছে।’

খুলনা সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, নাগরিকদের ব্যক্তিগত সুরক্ষার দিকে নজর দিতে হবে। মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। প্রশাসন নাগরিকদের সমন্বিত সচেতনতা ছাড়া করোনা নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। পাড়া মহল্লার আনাচে কানাচে করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। সচেতনতা বাড়াতে হবে। সচেতন থাকতে হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি না মানাই সংক্রমণ বৃদ্ধির বড় কারণ। এর ফলে বেড়ে চলেছে আক্রান্তের সংখ্যা। এছাড়া দেরি করে পরীক্ষা করা এবং হাসপাতাল বা বাসা-বাড়িতে করোনা রোগীর সঙ্গে দেখা করা ব্যক্তিদের মাধ্যমে সংক্রমণ বাড়ছে।’

ডা. রাশেদা সুলতানা আরও বলেন, ‘যেসব রোগীর ডায়বেটিস, হার্টের সমস্যা রয়েছে; লিভারের রোগে আক্রান্ত ফুসফুস ক্ষতিগ্রস্ত; অ্যাজমা, হাইপারটেনশন, প্রেশার রয়েছে তারা করোনা আক্রান্ত হলেই অক্সিজেন লেভেল কমে যাচ্ছে। চিকিৎসকেরা চেষ্টা চালিয়েও তাদের বাঁচিয়ে রাখতে পারছেন না। এছাড়া দেখা গেছে বেশি মারা যাচ্ছেন বয়স্ক রোগীরা।’

খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সুহাস রঞ্জন হালদার বলেন, ‘যারা আক্রান্ত হচ্ছেন তাদের বেশিরভাগই হাসপাতালে আসছেন শেষ মুহূর্তে। ততক্ষণে তাদের শারীরিক অবস্থা নাজুক হয়ে পড়ছে। বেশিরভাগ রোগীর অক্সিজেন লেভেল নেমে যাচ্ছে ৮০-এর নিচে। সমস্ত রোগীই মৃত্যুর তালিকা বাড়াচ্ছেন।’

স্বাস্থ্য অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, করোনা সংক্রমণের শুরু থেকে ১০ জুলাই সকাল ৮টা পর্যন্ত খুলনা বিভাগের ১০টি জেলায় মোট শনাক্ত হয়েছে ৬৯ হাজার ৯৫৯ জন। আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন এক হাজার ৫৩৩ জন।

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে বিক্ষোভ, পালিয়েছে শিশু

যশোর অফিস

যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে (বালক) বিক্ষোভের সময় তিন শিশু বন্দি পালিয়ে গেছে। শনিবার (১০ জুলাই) রাতে বিভিন্ন দাবিতে কেন্দ্রে বিক্ষোভ ভাঙচুর করে বন্দিরা। পরে রোববার (১১ জুলাই) সকালে থানায় সাধারণ ডায়রির (জিডি) পর দুপুরে বিষয়টি জানাজানি হয়।

কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন জানান, বিভিন্ন দাবিতে শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে কেন্দ্রের ভেতর বিক্ষোভ ভাঙচুর শুরু করে বন্দিরা। এরপর জেলা প্রশাসনের সহায়তায় রাত ১টার দিকে পরিস্থিতি শান্ত হয়। সময় তিন বন্দি পালিয়ে যায়। ঘটনায় রোববার সকালে কোতোয়ালি থানায় জিডি করা হয়েছে।

এদিকে শনিবার রাতে জেলা প্রশাসক (ডিসি) মো. তমিজুল ইসলাম খান বলেন, দেড়শ জনের ধারণক্ষমতার কেন্দ্রটিতে ২৫০ জন বন্দি রয়েছে। কেন্দ্রের বন্দিদের বিভিন্ন অসন্তোষ রয়েছে। শনিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে তারা বিক্ষোভ শুরু করে। একপর্যায়ে কেন্দ্র ভাঙচুর শুরু করে তারা। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পাশাপাশি আমি নিজেও সেখানে যাই। তাদের কথা শুনে সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়েছি। তিন ঘণ্টা পর বিক্ষুব্ধরা শান্ত হয়। তবে ঘটনায় কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। তদন্ত কমিটি গঠন করে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।

অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী মো. সায়েমুজ্জামান বলেন, করোনাকালে বন্দিদের বাইরে বের হতে দেয়া হয় না, খাবারের মান খারাপ, সুপেয় পানির সমস্যা- এমন বেশ কয়েকটি দাবিতে বন্দিরা বিক্ষোভ করেছে। আলোচনা করে পরিস্থিতি শান্ত করা হয়েছে।

কেন্দ্রের সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন জানান, বেশ কিছুদিন ধরে কেন্দ্রের প্রত্যেক বন্দির জন্য দৈনিক ৭২ টাকা করে খাদ্যের বরাদ্দ দেয়ার দাবি করা হচ্ছিলো। এছাড়া কেন্দ্রেটিতে আলাদা আলাদা রুমে সিনিয়র-জুনিয়র ভেদে খাদ্য সরবাহ সুযোগ-সুবিধা দেয়ার দাবি ছিল তাদের। সেই দাবিতে শনিবার রাতে তারা বিক্ষোভ শুরু করে। পরে কেন্দ্রের আনসার সদস্যরা বিক্ষোভ বন্ধে অভিযান চালান। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে যশোর জেলা পুলিশের শতাধিক সদস্য অভিযান চালান। পরে জেলা প্রাশসনের কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে আলোচনার মাধ্যমে পরিস্থিতি শান্ত হয়।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালের ১৩ আগস্ট যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে তিন বন্দি কিশোরের হত্যা ১৫ জনের আহত হওয়ার ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছিল। একাধিক বার তদন্ত কমিটি গঠন করা হলেও কমিটির সুপারিশ বাস্তবায়ন করা হয়নি। ফলে কেন্দ্রে বার বার এমন অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

খাটের নিচে মিলল কেজি গাঁজা, নারী মাদক কারবারি আটক

বেনাপোল প্রতিনিধি

যশোরের বেনাপোল সীমান্ত এলাকার একটি বাড়ি থেকে ছয় কেজি গাঁজাসহ জাইদা খাতুন (৩৪) নামে এক নারী মাদক কারবারিকে আটক করেছে পুলিশ। শনিবার (১০ জুলাই) রাতে তাকে আটক করে বেনাপোল পোর্ট থানা পুলিশ। জাইদা বেনাপোল পোর্ট থানার সরবাংহুদা গ্রামের আলী হোসেনের স্ত্রী।

পুলিশ জানায়, মাদক পাচারের গোপন খবরে পোর্ট থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) রোকনুজ্জামান সঙ্গীয় অফিসার ফোর্স নিয়ে সরবাংহুদা গ্রামে আসামির নিজ বাড়িতে অভিযান চালান। সময় তার ঘরের খাটের নিচে থেকে ছয় কেজি গাঁজাসহ জাইদাকে আটক করা হয়।

বেনাপোল পোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন খান বলেন, আটক নারীর বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা দিয়ে তাকে রোববার সকালে যশোর আদালত পাঠানো হবে।

খুলনার বাজারে চলছে চোর-পুলিশ খেলা

স্টাফ রিপোর্টার

করোনাভাইরাসের প্রকোপ ঠেকাতে সারাদেশের ন্যায় খুলনাতেও চলছে ১৪ দিনের কঠোর লকডাউন। বিধিনিষেধ অমান্য করে খুলনার বাজারগুলোতে ঈদের কেনাকাটায় ছুটছেন মানুষ। স্বাস্থ্যবিধির চেয়ে কেনাকাটা করাটা তাদের কাছে যেন মুখ্য হয়ে উঠছে। বাজারে ক্রেতার সমাগম বৃদ্ধি পাওয়ায় দোকানপাটও খুলতে শুরু করেছে।

লকডাউনে দোকানপাট বন্ধ রাখার বিধিবিধান থাকলেও বাজারগুলোতে চলছে চোর-পুলিশ খেলা। অবস্থা এমন গোপনেই যেনো সবকিছু ওপেন রয়েছে খুলনার বড় বাজারে।

দোকানদার, ক্রেতাও শ্রমিকরা বলছেন, এতদিন সব বন্ধ থাকায় পরিবার-পরিজন নিয়ে চরম অসহায় অবস্থায় দিন চলছে। বাধ্য হয়েই চোর-পুলিশ খেলতে হচ্ছে আমাদের।

শনিবার খুলনার বড় বাজারে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় সব দোকানের সামনের সার্টার বন্ধ করে বসে আছেন দোকানীরা। কেউ সামনে দিয়ে গেলেই তার কাছে জানতে চাওয়া হচ্ছে কোনো কিছুর দরকার কি না? দরকার আছে বললেই সার্টার অর্ধেক খুলে ক্রেতাকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে ভেতরে। পুলিশ গেলেই বাইরে থেকে লাগিয়ে দেয়া হচ্ছে তালা। ভিতরে কি চলছে তা বাইরে থেকে বোঝার কোনো উপায় নেই। স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই ক্রেতারা দোকানে ঠাসাঠাসি করে পণ্য কিনে নিচ্ছেন।

বাজারের একাধিক বিক্রেতা অসহায়ত্ব প্রকাশ করে বলেন, লকডাউন তো মানতেই হবে, কিন্তু পেট তো লকডাউন মানতে চাইছে না। এতো দিন সব বন্ধ রাখায় খুব সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।

ক্রেতারা জানান, নতুন করে দেশব্যাপী দুই সপ্তাহের জন্য লকডাউন দেয়া হয়েছে। কিন্তু খুলনায় আরও বেশিদিন চলছে লকডাউন। বাসায় প্রায় সবকিছু শেষ। বাধ্য হয়ে বাজারে আসতে হয়েছে।

বড় বাজারের একাধিক ব্যবসায়ী জানান, লকডাউনের প্রথম সপ্তাহে তারা একটুও বেচাকেনা করেননি। কিন্তু দোকান না খুললে অনেক মালামাল নষ্ট হয়ে যায়। এতে সব দিক থেকে লোকসান গুনতে হচ্ছে তাদের।

বড় বাজারের মুরাদ ট্রেডার্সের ম্যানেজার জিয়াউল হক মিলন বলেন, লকডাউনের ৭/দিন পর থেকে বড় বাজারে ক্রেতা সমাগম বেড়ে গেছে বহু গুণে। সাধারণ ক্রেতাদের পাশাপাশি বিভিন্ন স্থান থেকে খুচরা বিক্রেতারা জিনিসপত্র কিনতে আসায় বাজারে ভিড় বেড়েছে। অন্য সময়ের চেয়ে ক্রেতারা পণ্যও কিনেছেন চাহিদার তুলনায় বেশি। এত ক্রেতা সামলাতে আমাদের হিমশিম খেতে হচ্ছে।

আসাদুল ইসলাম আরেক ব্যবসায়ী বলেন, লকডাউনে বড় বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকানপাট খোলা থাকবে বলার পরও ক্রেতারা স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই বাজারে হুমড়ি খেয়ে পরছেন।

খুলনা জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিয়মিত বাজারগুলোতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করা হলেও তেমন কোনো প্রভাব পড়ছে না।

 ‘সবাইরে ঘর দেছে, আমারে তো দেয় না’

মাগুরা প্রতিনিধি

শুনেছি শেখ হাসিনা সবাইরে ঘর দেছে, আমারে তো দেয় না’- কথাগুলো বলেছেন নিভৃত অজোপাড়া গ্রামের এক শারীরিক প্রতিবন্ধী অসহায় নারী লক্ষ্মী রানী। লক্ষ্মী রানী নাম হলেও কপালে দুঃখ ছাড়া সুখের দেখা মেলেনি কোনোদিনও। স্বামী-সন্তান ছাড়াও আপনজন বলে কেউ নেই তার।

লক্ষ্মী রানী শারীরিক প্রতিবন্ধী একজন নারী। ছোটবেলা থেকে তার দুই পা পঙ্গু। ভাগ্যগুণে বিয়ে হয়েছিল কিন্তু বিয়ের কয়েক মাসের মধ্যে স্বামী অমল সরকার তাকে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। সেই থেকে দরিদ্রতার সাথে যুদ্ধ করে বসবাস করে আসছেন। দুই মুঠো ভাতের জন্য পথচেয়ে বসে থাকতে হয়। আবার কোনদিন তাকে অনাহারে কাটাতে হয়।

লক্ষ্মী রানী মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলার বাবুখালী ইউনিয়নের রুই-ফলোশিয়া গ্রামে বসবাস করে। তিনি ওই গ্রামের মৃত মুকন্দ সরকারের মেয়ে।

সরেজমিন দেখা যায়, ছোট্ট একখানা খুপরি ঘরে তার বসবাস। ঝড়, বৃষ্টি, রোদ সব কিছুর সঙ্গে যুদ্ধ করে তাকে ওই ঘরেই বসবাস করতে হয়। লক্ষ্মী রানী বারান্দায় বসে খেজুর পাতার পাটি বুনছেন। পাশে একটি জরাজীর্ণ চুলা। একটি ফুটো পানির পাত্রে খাওয়া-দাওয়া চলে তার। সঙ্গী হিসেবে একটি মাত্র বিড়াল আছে, সেটিও দড়ি দিয়ে বাঁধা রয়েছে। রাত্রে ঘুমানোর জন্য রয়েছে একটি মাত্র ছিঁড়ে যাওয়া খেজুর পাতার পাটি পুরনো একটি কাঁথা।

তার সঙ্গে কথা বললে তিনি কেঁদে বলেন, পৃথিবীতে আমার কেউ নেই। আমারে আপনারা দেখবেন।

তিনি বলেন, শুনেছি শেখ হাসিনা সবাইরে ঘর দেছে, আমারে তো দেয় না। সবাই সরকারি ঘর পেয়েছে। আমি এই ঘরে শুইতে পারি না। সরকারকে বলে একটা ঘর দিয়েন আমারে।

বর্তমানে খাবার দেখাশুনা করে কে? জানতে চাইলে তিনি বলেন, পাশের বাড়ির লক্ষণ বিশ্বাস। তিনি পেশায় একজন জেলে। তিনি তার ছয় সদস্যের পরিবারের পাশাপাশি লক্ষ্মী রানীকে দেখাশুনা করেন।

লক্ষণ বিশ্বাস জানান, ২৫ বছর আগে তার স্বামী ফেলে রেখে গেছেন। কেউ খোঁজখবর নেয়নি। মানবিক চিন্তা করে তাকে দেখাশুনা করি। লকডাউনে আমার আয়ের পথ প্রায় বন্ধ। আমার পরিবার ঠিকমতো চলে না। তারপরও লক্ষ্মীকে খাবার দিই। সরকার লক্ষ্মীকে একটি ঘর করে দিলে সে ভালো করে সামনের জীবনটুকু পার করতে পারত।

বাবুখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মীর মো. সাজ্জাদ আলী বলেন, বিষয়টি আমার জানা ছিল না। তবে বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয় ইউপি সদস্যকে বলেছি তার খোঁজখবর নেওয়ার জন্য। তাকে দ্রুত সহযোগিতা করা হবে।

বিষয়ে মহম্মদপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার রামানন্দ পাল যুগান্তরকে জানান, লক্ষ্মী রানীর বিষয়ে জানতে পেরেছি। তাকে সরকারি সব ধরনের সহযোগিতা করা হবে।

মেহগনি বাগানে নবজাতকের কান্না

 কালীগঞ্জ (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার শিবনগর এলাকার একটি মেহগনি বাগান থেকে নবজাতককে উদ্ধার করা হয়েছে। কন্যা নবজাতকটি জীবিত অবস্থায় পাওয়া গেছে। মেহগনি বাগানে নবজাতকটি কান্নাকাটি করছিল বলে স্থানীয় সূত্র জানিয়েছে।

রোববার দুপুর দেড়টার দিকে উদ্ধার করা হয় শিশুটি। নবজাতককে উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রোববার দুপুরে রেহেনা খাতুন নামে এক নারী কাশিপুর থেকে হেঁটে শিবনগর এলাকায় আসছিলেন। পথিমধ্যে শিবনগর এলাকার অনিল পালের মেহগনি বাগানের মধ্যে এক নবজাতকের কান্নার শব্দ শুনতে পান। সময় তিনি নবজাতক পড়ে থাকতে দেখতে পান। পরে তিনি কোলে তুলে নেন। এরপর শিবনগর এলাকায় দুলাভাই ফরিদ হোসেনের বাড়িতে নিয়ে আসেন। বর্তমানে শিশুটি শিবনগর এলাকার রিমা খাতুনের জিম্মায় আছে।

কালীগঞ্জ থানার এসআই জাকারিয়া মাসুদ জানান, নবজাতকটি উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক ডা. রিংকু জানান, নবজাতকটি নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছে। অক্সিজেন দিতে হবে। আশা করি দ্রুতই সুস্থ হয়ে যাবে।

বটিয়াঘাটায় দৈনিক যায়যায় দিন এর ১৬ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত

বটিয়াঘাটা প্রতিনিধি

দৈনিক যায়যায় দিন এর ১৬ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত।পালন উপলক্ষ্যে পত্রিকার স্থানীয় প্রতিনিধি উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ  সম্পাদক ইন্দ্রজিৎ টিকাদার এর সঞ্চালনায় ও  উপজেলা প্রেসক্লাবের সভাপতি প্রতাপ ঘোষের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রেসক্লাবের সিনিয়র সহ-সভাপতি পরিতোষ কুমার রায়, সহ-সভাপতি এ্যাডডভোকেট প্রশান্ত কুমার বিশ্বাস, কোষাধ্যক্ষ মোঃ মনিরুজ্জামান শেখ, সহ-সাধারণ সম্পাদক বিপ্রদাস রায়, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ শাওন হাওলাদার, সাংগঠনিক সম্পাদক বুদ্ধদেব মন্ডল,আইন বিষয়ক সম্পাদক এডভোকেট মোঃ মোস্তফা বিলাল, দপ্তর সম্পাদক মোঃ ইমরান হোসেন, কার্যনির্বাহী সদস্য এস এম ভূট্টো, নিখিলেশ গাইন, নিতিশ বাছাড় পরাগ রায় প্রমূখ সভায় বক্তারা দৈনিক যায়যায় দিন পত্রিকার আরো বেশি অগ্রযাত্রা লাভ করুক আশাবাদ ব্যক্ত করে মত প্রকাশ করেন বেগম রাজিয়া নাসের অক্সিজেন সেবা’উদ্দ্যোগে

শেখ সোহেলের সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

খবর বিজ্ঞপ্তিঃ

গতকাল বিকাল বাদ আসর বেগম রাজিয়া নাসের অক্সিজেন সেবার উদ্দ্যোগে সংগঠনের আহসান আহমেদ রোডস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে জাতির পিতার ভ্রাতুষ্পুত্র, বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য, মানবিক নেতা শেখ সোহেল তার সহধর্মিনী শারিন জারা হায়দার এর আশু সুস্থতা কামনায় দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন বেগম রাজিয়া নাসের অক্সিজেন সেবা’প্রধান পৃষ্ঠপোষক, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জেলা যুবলীগ সভাপতি মোঃ কামরুজ্জামান জামাল। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের বন পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক এ্যাড. শাহ আলম, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য মোঃ জামিল খান, যুবনেতা সরদার জাকির হোসেন, মাহাফুজুর রহমান সোহাগ, বিধান চন্দ্র রায়, জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোঃ ইমরান হোসেন, চঞ্চল রায়, তানভীর রহমান আকাশ, চিশতি নাজমুল বাসার, আবিদ হাসান ফাহিম, তোহিদ মিয়া, ইসমাইল মৃধা ইমন প্রমুখ।

অভয়নগরে বিএনপির উদ্যোগে করোনা সহায়তা সেলের উদ্বোধন

অভয়নগর (যশোর) প্রতিনিধি-

অভয়নগরে বিএনপির উদ্বোগে করোনা সহায়তা সেলের উদ্বোধন করা হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল ১০ টায় থানা বিএনপি কার্যালয়ে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়। করোনা পরিস্থিতিতে মানবিক সেবামূলক কার্যক্রমকে আরো বৃদ্ধি করার লক্ষ্যে ফ্রী অক্সিজেন সহায়তা সেলের কার্যক্রমে এগিয়ে এসেছে অভয়নগর থানা নওয়াপাড়া পৌর বিএনপি। উক্ত কর্মসূচির উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন নওয়াপাড়া পৌর বিএনপির সভাপতি আবু নঈম মোড়ল। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অভয়নগর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ফারাজী মতিয়ার রহমান। বিশেষ অথিতি হিসাবে বক্তব্য রাখেন অভয়নগর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী গোলাম হায়দার ডাবলু, নওয়াপাড়া পৌর বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম মোল্লা, পৌর বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ জাকির হোসেন, অভয়নগর থানা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক রেজাউল ইসলাম মোল্লা, বিএনপি নেতা হাবিবুর রহমান খোকন, ফরহাদ হোসেন, নওয়াপাড়া পৌর বিএনপি নেতা আসাদুজ্জামান জনি, বিএনপি নেতা মোঃ আব্দুল গফফার, অবেদ আলি, আবুল কালাম, যশোর জেলা যুবদলের সহ সাধারণ সম্পাদক যুবদল নেতা আঃ রশিদ বিশ্বাস, সহ সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আবজাল হোসেন, অভয়নগর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক, সাবেক জি এস – মোল্যা হাবিবুর রহমান (হাবিব), পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ন আহবায়ক মোঃ রিয়াজ উদ্দিন মিঠু,যশোর জেলা ছাত্রদলের সাবেক সমাজ সেবা সম্পাদক মোঃ সাইফুল ইসলাম, অভয়নগর থানা ছাত্রদলের সাবেক সহ সভাপতি মোঃ মাসুদ রানা তুহিন, সাবেক ক্রিড়া সম্পাদক অনিক রহমান জুয়েল, পৌর ছাত্রদলের সাবেক সহ সাধারণ সম্পাদক মোঃ রাজু আহম্মেদ, অভয়নগর থানা ছাত্রদল নেতা মোঃ হানিফ মুন্সী, নওয়াপাড়া কলেজ ছাত্রদলের  আহবায়ক তাওহীদ আল ওসামা, সদস্য সচিব মোঃ আরশাদুল ইসলাম প্রমুখ।অনুষ্ঠানে নেতৃবৃন্দ বলেন, ফ্রী অক্সিজেন সেবা নিয়ে যথাসাধ্য বিএনপি জনগণের পাশে থাকবে। প্রয়োজনে যে কেউ ফ্রী অক্সিজেন হেল্প সেলের ০১৭১১৫৭৪৯৬৬ এবং  ০১৭১০২৮০৭৬৫ নাম্বারে যোগাযোগ করলে সেল টিম সেবা দিতে সর্বক্ষণ প্রস্তুত আছে।

রূপসায় চাচা কর্তৃক ভাতিজার পান বরাজ ভেঙ্গে দেওয়ার অভিযোগ

রূপসা প্রতিনিধি

রূপসায় জমিজমা সংক্রান্তকে কেন্দ্র করে চাচা কর্তৃক ভাতিজার পান বরাজ ভেঙ্গে দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ব্যপারে মিলন মালাকার বাদী হয়ে রূপসা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। অভিযোগে জানাগেছে, উপজেলার ঘাটভোগ ইউনিয়নের গোয়াড়া এলাকায় বাল্যক মালাকার দুই ছেলে মনোরঞ্জন মালাকার সত্যমালাকারকে রেখে মারা যান। পরে মনোরঞ্জন তার স্ত্রী সন্তানদের রেখে মারা যান। পৈত্রিক সূত্রে মিলন তার বাবার ওয়ারেশ সূত্রে জমিতে ভ্গে দখল করতে থাকে। গত জুলাই সকালে তার চাচা সত্য তার ছেলে অনুকুল মালাকার বহিরাগত লোকজন নিয়ে মিলনের ২৫ বছরের ভোগ দখলীয় জমিতে পান বরাজটি ভেঙ্গে মাটিতে লুটিয়ে দেয়। এসময় মিলন তাতে বাধা দিতে গেলে তাকে তার পরিবারকে মারতে উদ্যাত হয়। ঘটনায় থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে মিলন মালাকার।

রথযাত্রা পালনে প্রস্তুতি সভা

খবর বিজ্ঞপ্তি

সনাতন ধর্মাবলম্ভীদের রথযাত্রা উৎসব আজ সোমবার। এই উৎসব পালন উপলক্ষে এক প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার সকাল ১০টায় বাজার পুরাতন কালিমাতা মন্দিরে এই সভার আয়োজন করা হয়। বছর করোনার কারণে মন্দিরে শুধু মাত্র পূজা অনুষ্ঠিত হবে। উপলক্ষে খুলনা বাজার পুরাতন কালিমাতা মন্দিরে স্বাস্থ বিধি মেনে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ৯দিন ব্যাপী পূজা অনুষ্ঠিত হবে। আগামী ২০জুলাই এই পূজা শেষ হবে। মন্দিরটি সুসজ্জিত করা হয়েছে।

সভায় সভাপতিত্ব করেন উজ্জল ব্যানার্জী। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন আকাশ ব্যানার্জী সুশান্ত ব্যানার্জী। বক্তৃতা করেন মন্দিরের পুরাহিত সেবায়েত শিবচন্দ্র ব্যানার্জী, শ্যামল হালদার, অরবিন্দ সাহা, ভোলানাথ ভট্টচার্য, গোপী কিষান মুন্ধাড়া, প্রশান্ত কুমার কুন্ডু, সুব্রত হালদার তপা, প্রশান্ত ব্যানার্জী, তোতন হালদার,  রতন দেবনাথ, শংকর ঘোষ, স্বপন সরকার, দিলীপ সাহা, শরৎ মুন্ধাড়া, তরুন রায় শিবু, চিত্তরঞ্জন দাস,বিশ^জিৎ দে মিঠু,শংকর কর্মকার, ভবেশ সাহা, রুপম দে, গনেশ হাজরা,ইন্দ্রজিত কুন্ডু গোপাল, বাবলু বিশ^াস, বিকাশ সাহা, সনদ বকসী, মিঠুন সাহা পলাশ সাহা।

নগরীর পথের বাজার মুসলিম হোটেলে মানা হচ্ছেনা কোন ধরনের স্বাস্থ্যবিধি

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

করোনা সংক্রমণ রোধে সারা দেশে সর্বাত্মক কঠোর বিধিনিষেধ আরপ করেছে সরকার। সংক্রান্ত কঠোর বিধিনিষেধের আওতায় হোটেলরেস্তোরা খোলা থাকবে। তবে খোলা রাখার বিষয়ে নতুন সময়সূচি নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। খুলনা জেলা প্রসাশনের গণবিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, খাবারের দোকান, হোটেল রেস্তোরা সকাল ৭টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত খোলা থাকবে তবে হোটেল রেস্তোরায় বসে কেউ খাবার খেতে পারবেনা। শুধু মাত্র পার্সেল-অনলাইনে খাবার সরবরাহ করতে পারবে। সকল বিধিনিষেধ অমান্য করে পুলিশের চোখকে ফাকি দিয়ে নগরীর পথের বাজার “মুসলিম হোটেল” মানছে না কোন সরকারি নির্দেশনা। অথচ পাশেই রয়েছে পথের বাজার পুলিশ ফাঁড়ি চেকপোস্ট।এ ব্যাপারে হোটেল মালিক আসলাম ভূঁইয়ার নিকট জানতে চাইলে তিনি প্রতিনিধিকে তেড়ে এসে বলেন, “আমি আর্মি রিটায়ার্ড পার্সন কোন সমস্যা নাই আমার খাবার দিন রাত ২৪ ঘন্টা পুলিশ এবং পাবলিক খাচ্ছে”এব্যপারে সচেতন মহল ঊর্ধ্বতন প্রশাসনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শিরোমণি কেডিএ মার্কেটে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

চলমান কঠোর বিধিনিষেধ উপেক্ষা করে  দোকান পাট খোলা রাখা স্বাস্থ্যবিধি না মানায় খানজাহান আলী থানাধীন শিরোমণি কেডিএ মার্কেটে ১১ জুলাই রবিবার বেলা ১১টায় খুলনা জেলা প্রশাসকের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট দীপংকর দাস ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। সময় কেডিএ মার্কেট এর দোকান খোলা ও  মুখে মাস্ক না থাকাসহ বিভিন্ন অপরাধের কারণে মোট ৬টি মামলা এবং হাজার ৭’টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। ভ্রাম্যমান আদালত চলাকালে ৩নং আর্মড ব্যাটালিয়ন সদস্যগণ সহযোগিতা করেন

শিরোমনি কেডিএ মার্কেটের ব্যবসায়ী গাজী আলমের ইন্তেকাল

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

শিরোমনি কেডিএ মার্কেটের গৃহিণী ক্রোকারিজের স্বত্বাধিকারী গিলাতলা ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা  গাজী আলমগীর হোসেন ১১ জুলাই রবিবার বেলা সাড়ে ১২টায় নিজ বাসভবনে স্ট্রোক করলে দ্রুত বয়রা আদ-দ্বীন হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫০ বছর। তিনি স্ত্রী, ছেলে মেয়ে সহ বহু গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। রবিবার মাগরিব বাদ গিলাতলা বাইতুল আকসা জামে মসজিদ প্রাঙ্গণে মরহুমের নামাজে জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। জানাযায় উপস্থিত শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন, ফুলতলা উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ ইকবাল হোসেন, আটরা গিলাতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব শেখ মনিরুল ইসলাম, শেখ হারুন অর রশিদ,অধ্যাপক মিয়া গোলাম কুদ্দুস, শেখ সিরাজুল ইসলাম, ইউপি সদস্য শেখ আব্দুস সালাম, বাইতুল আকসা জামে মসজিদের খতিব পেশ ইমাম মাওলানা আকরাম হোসেন, শেখ রুহুল আমিন,শেখ গোলাম কিবরিয়া মিন্টু, গাজী সিরাজুল ইসলাম, শেখ ফেরদৌস রহমান, গাজী ইমলাক হোসেন, শেখ শাহিন হোসেন, হাফেজ আব্দুল লতিফ,সাংবাদিক গাজী মাকুল উদ্দীন, শেখ আব্দুল হালিমসহ এলাকার গণমান্য ব্যক্তি শিরোমণি কেডিএ মার্কেট এর ব্যবসায়ীবৃন্দ। জানাযায় ইমামতি করেন ইউপি সদস্য হাফেজ গোলাম মোস্তফা।

হরিনটানা থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম’উদ্যোগে সচেতনতামূলক কার্যক্রম মাস্ক বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি:

হরিনটানা থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম’উদ্যোগে সচেতনতামূলক কার্যক্রম মাস্ক বিতরণ করা হয়। শনিবার দুপুর থেকে হরিনটানা থানা ব্যপী করোনা সচেতনতায় মাইকিং মাস্ক বিতরণ করা হয়। এসময় হরিনটানা থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম’সভাপতি আজগর বিশ্বাস তারা কর্মহীনদের মাঝে নগদ অর্থ, খাদ্য সহায়তা প্রদান সচেতনতা মূলক প্রচারনা করার জন্য টা বিটে হ্যান্ড মাইক প্রদান করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন কেএমপির সোনাডাঙ্গা মডেল থানা জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো: আবুল খায়ের, হরিনটানা থানার অফিসার্স ইনচার্জ এনামুল হক, হরিনটানা  থানা কমিউনিটি পুলিশিং ফোরাম’সভাপতি আজগর বিশ্বাস তারা, সাধারন সম্পাদক অনুপ গোলদার, ১৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি শেখ আবিদ উল্লাহ, নগর যুবলীগের সদস্য রোজী ইসলাম নদী, ডুমুরিয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি সজিব মন্ডল প্রমুখ। এসময় সবাইকে ঘরে থেকে করোনা মোকাবেলায় সরকারকে সহযোগিতা করার জন্য আহবান করা হয়।

কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে এইচআরডি’আলোচনা সভা

খবর বিজ্ঞপ্তি:

কোভিড পরিস্থিতি হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডারদের ভূমিকা শীর্ষক’ একটি আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার (১১ জুলাই) বিকেলে ভিডিও কনফারেন্সে প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত বক্তব্য রাখেন এমএসএফ’ফাউন্ডার প্রেসিডেন্ট অ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল। খুলনা থেকে যুক্ত ছিলেন, সিনিয়র সাংবাদিক গৌরঙ্গ নন্দী, নাইস ফাউন্ডেশনের নির্বাহী প্রধান এম মজিবুর রহমান, সাংবাদিক বেল্লাল হোসেন সজল, রাবেয়া সুলতানা পলি প্রমুখ।

সময় হিউম্যান রাইটস ডিফেন্ডারের সদস্যদের গনসচেতনতায় অংশ নিয়ে সংক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্য স্বস্ব অবস্থান থেকে কাজ করার জন্য দিক নির্দেশনা প্রদান করা হয়। এছাড়া দেশের সার্বিক পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষের পাশে থাকার আহবান জানানো হয়। আলোচনা সভায় দেশে বিভিন্ন জেলার এইচআরডি সদস্যরা যুক্ত ছিলেন।


Post Views:
4



Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি
সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০২১
Designer: Shimulツ
themesba-lates1749691102