বুধবার, ২৯ জুন ২০২২, ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৩৪ জন চাকরিচ্যুত দক্ষিণ সিটির উপ-কর কর্মকর্তাসহ ৩৪ জন চাকরিচ্যুত মোংলায় ৮টি বোটসহ ১৩৫ ভারতীয় জেলে আটক শিক্ষার ডিজিটাল রূপান্তরের দায়িত্বও রাষ্ট্রকেই নিতে হবে – মোস্তাফা জব্বার – টেক শহর ম্যানসিটির বিপক্ষে রিয়ালের জয়ে কষ্ট পেয়েছেন বার্সার সভাপতি প্রার্থী – স্পোর্টস প্রতিদিন চট্রগ্রাম বন্দরকে পিছনে ফেলে সর্বোচ্চ রেকর্ড গড়লো মোংলা বন্দর শাড়ির কুঁচি ধরা শিখতে ব্যাংকক যেতে চায় নিখিল বাংলা স্বামী সংঘের ৩০০ সদস্য চট্টগ্রামে শিশু ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার ১ আগুনে পুড়ল দিনমজুর পরিবারের সব শরণখোলায় ১০ দিনের ব্যাবধানে ২টি অজগর উদ্ধার! ভিডিও সহ।।

চিতল মাছের নার্সারি পুকুর প্রস্তুতি ও রোগ দমন | Adhunik Krishi Khamar

  • আপডেট সময় বুধবার, ১৪ জুলাই, ২০২১
চিতল মাছ


চিতল মাছের নার্সারি পুকুর প্রস্তুতি ও রোগ দমন কিভাবে করতে হবে তা মৎস্য চাষিদের ভালোভাবে জানতে হবে। বর্তমান সময়ে পুকুরে মাছ চাষ খুবই জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। পুকুরে অনেকেই চিতল মাছের চাষ করে থাকেন। চলুন আজকে জানবো চিতল মাছের নার্সারি পুকুর প্রস্তুতি ও রোগ দমন সম্পর্কে-

চিতল মাছের নার্সারি পুকুর প্রস্তুতি ও রোগ দমনঃ


নার্সারি পুকুর প্রস্তুতিঃ

চিতলের ডিমের সংখ্যা যেহেতু কম সেহেতু ছোট ছোট নার্সারি প্রস্তুত করে নিতে হয়। ৫ শতাংশের পুকুর নার্সারির জন্য নির্বাচন করা সাধারণত ভাল। প্রথমে পুকুর শুকিয়ে পুকুরের তলা চাষ দিয়ে নিতে হবে। তারপর পরিষ্কার পানি দিতে হবে। পানির উচ্চতা হবে ২/৩ ফুট পর্যন্ত। পানি দেওয়া হয়ে গেলে ডিমসহ কাঠের ফ্রেমটিকে নার্সারি পুকুরে সর্তকতার সাথে দ্রুত এনে ডুবিয়ে রাখতে হবে। চিতলের ডিম ফুটতে প্রায় ১৫ দিনের মত সময় লাগে। এজন্য ডিম দেখে নার্সারি পুকুর প্রস্তুত করা ভাল। না হলে আগেই নার্সারি পুকুর প্রস্তুত হয়ে গেলে পানি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। পানি পরিষ্কার না হলে ডিমে ফাঙ্গাস পড়তে পারে। এভাবে ডিম সংগ্রহ করে নার্সারিতে নেয়ার পর তাপমাত্রাভেদে ১২ থেকে ১৫ দিনের মধ্যেই ডিম থেকে বাচ্চা ফুটে বের হবে।

পোনার খাদ্যঃ 

বাচ্চা বেরোনোর পর খাদ্য হিসেবে কার্প জাতীয় মাছের রেনু পুকুরে ছাড়তে হবে। চিতলের পোনা পূর্ণাঙ্গভাবে বিকশিত হবার পর পরই প্রায় ১/২ ইঞ্চি সাইজের হয়। এভাবে নার্সারি পুকুরে সপ্তাহ দুয়েক রাখার পর প্রায় ৩ ইঞ্চি সাইজের হয়। তারপর চিতলের পোনাকে চাষের পুকুরে ছাড়তে হবে।

রোগ-বালাইঃ

চিতল মাছের তেমন কোন রোগ-বালাই হয় না বললেই চলে। তবে প্রজননের সময় একটি আরেকটিকে আক্রান্ত করে ফেলার সম্ভাবনা থাকে। বিশেষ করে এদের মুখের দিকে কাঁটা বা বুকের নীচের কাঁটা দিয়ে একে অপরকে নিজের অজান্তেই আক্রান্ত করতে পারে। সেই ক্ষত থেকে পরবর্তীতে সমস্ত শরীরে ক্ষত রোগ ছড়িয়ে পড়তে পারে।

প্রতিকারঃ 

রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য প্রত্যেকবার ডিম দেয়ার পর পুকুরে পটাসিয়াম পার-মেঙ্গানেট ছিটিয়ে দিতে হবে। এতে প্রজননের পর আক্রান্ত মাছগুলো দ্রুত আরোগ্য লাভ করবে।



Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি

Recent Posts

সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০১৯-২০২২
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102