সোমবার, ২৪ জানুয়ারী ২০২২, ০৫:১৪ অপরাহ্ন

ভয় পেয়ে হাল ছেড়ে দেওয়ার আগে ভাবুন ভয়ের পরেই কিন্তু জয়!

  • আপডেট সময় সোমবার, ২ আগস্ট, ২০২১
  • ৬০
ভয় পেয়ে হাল ছেড়ে

ভয় শব্দের সাথে আমরা সবাই পরিচিত। এটি এমন এক অনুভূতি, যার সাথে আমাদের প্রায়ই লড়াই করতে হয়। তবে অতিরিক্ত ভয়ের কারনে আমাদের জীবনের নানা সুযোগ বা সফলতা হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। তাই কোন কিছু নিয়ে অতিরিক্ত ভয় পেয়ে পিছিয়ে আসার চেয়ে ভয়কে কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা করা উচিত।

ভয় কাটিয়ে ওঠা সহজ নয়, তবে অসম্ভবও নয়।

কে বলতে পারে, হয়তো এর মাঝেই লুকিয়ে আছে আপনার জীবনের সফলতা।

স্যার টমাস আলভা এডিসন বলেছেন, “অনেক মানুষ ব্যর্থ হয়েছে শুধু হার মেনে নেয়ার কারণে।

অনেকেই হার মেনে নেয়ার সময়ে বুঝতেও পারেনি তারা বিজয়ের কতটা কাছে পৌঁছে গিয়েছিল”।

ভয় কি?

খুব সহজে বলা যায় সাহসের অভাবকে ভয় বলে।

যার মধ্যে যত সাহস কম তার মধ্যে তত ভয় বেশী।

ভয় হলো বিপদের আশংকা।

অদূর ভবিষৎতে ক্ষতিগ্রস্থ হওয়ার আতঙ্ক হলো ভয়।

এটি মানুষের মনের একটি বিশেষ অনুভূতি।

শুধু মানুষই নয় বরং সকল প্রাণীর মধ্যেই ভয়ের অনুভূতি আছে।

মানুষ শিশুকাল থেকেই ভয়ের সাথে পরিচিত।

উদাহরনস্বরুপ বলা যায়, শিশু তার আশেপাশে পরিচিত মানুষ না দেখলে অথবা অপরিচিত মানুষের কাছে গেলে কান্না করে অর্থ্যাৎ সে ভয় পায়।

ভয়ের ধরন

ভয়ের নানা ধরন আছে।

যেমন কেউ মাকড়সার ভয় পায়, কেউবা সাপ।

কেউ ভীড় ভয় পায়, কারো হয়তো উচ্চতা ভীতি ভয় কাজ করে।

কেউ কেউ হয়তো ইনজেকশন নিতে ভয় পায়।

কিন্তু অসুস্থ হলে তার রোগ মুক্তির জন্য প্রয়োজনবোধে ইনজেকশন নিতেই হয়।

অর্থ্যাৎ ভয়কে সে জয় করে।

ভয়ের কারনে সাধারনত মানুষের দুই ধরনের পরিবর্তন হয়, শারীরিক এবং মানসিক।

মাথা যন্ত্রণা, পিপাসা, হাত পা ঠান্ডা, কাঁপুনি, শরীর অবশ হয়ে যাওয়া, প্রেসার বেড়ে যাওয়া, শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি শারীরিক পরিবর্তন ভয়ের কারনে হতে পারে।

ভয়ের কারণে স্মরণশক্তি কমে যাওয়া, রাগ বেড়ে যাওয়া, অস্থিরতা, মৃত্য ভয়, দুঃচিন্তা ইত্যাদি মানসিক পরিবর্তন দেখা যেতে পারে।

অনেক সময় অতিরিক্ত ভয়ের জন্য ডাক্তারের পরামর্শেও নিতে হতে পারে।

জীবনের এই বিভিন্ন রকম ভয়ের মধ্যে আজ আমরা কথা বলবো “হেরে যাওয়ার ভয়” নিয়ে।

আমরা চারপাশে অনেক সফল মানুষ দেখি, ঠিক তেমনি অনেক অসফল মানুষও দেখি। সফলতার গল্প একদিনে তৈরী হয় না।

অনেক ব্যর্থতা, ভয়, হারানোর পরে আসে জয়। সফলতার প্রথম ধাপই হলো ভয়কে জয় করা।

আমরা অনেকেই আছি, যাদের দারুণ আইডিয়া আছে, কর্মক্ষমতা আছে।

শুধু অসফল হতে পারে এই ভয়েই তারা কাজ শুরু করে না।

কাজ শুরু না করে সফল হওয়ার চিন্তা করাটা বোকামি।

হতে পারে আপনার জীবনের প্রথম পদক্ষেপটি ভুল।

কিন্তু পরের পদক্ষেপটি হয়তো সঠিক।

আপনি যদি চেষ্টা নাই করেন তবে বুঝবেন কীভাবে আপনার জন্য সঠিক পথ কোনটি।

মুচির সন্তান হিসাবে বারবার অপমানিত হওয়া, পিয়নের চাকরি করা, বারবার নির্বাচনে হেরে যাওয়া আব্রাহাম লিংকন আমেরিকার ১৬তম প্রেসিডেন্ট হিসাবে শপথ গ্রহন করেন।

জীবনে তিনি যদি হেরে যাওয়ার ভয় করতেন তাহলে কোন দিনই সফলতার শিখরে পৌঁছাতে পারতেন না।

পথটা সহজ নয়, তবে অসম্ভবও নয়।

এর বহু উদাহরণ আছে আমাদের চারপাশে।

প্রয়োজন শুধু ভয় কাটিয়ে কাজ শুরু করা।

ভয়কে কাটিয়ে ওঠার জন্য করনীয়

১। ভয় কাটিয়ে উঠতে প্রথমেই বিশ্বাস করুন নিজেকে।

বাইরের কেউ আাপনাকে সাময়িক মোটিভেশন দিতে পারে।

তবে নিজেকে নিজে মোটিভেট করতে পারলে কাজ হবে দ্বিগুণ।

২। পরিকল্পনা করুন।

কি করতে চাইছেন সেটি নিয়ে বার বার চিন্তা করুন।

সঠিক পরিকল্পনা আপনার কাজের অগ্রগতি ও সফলতা নিশ্চিত করবে।

৩। কি নিয়ে ভয় বেশি পাচ্ছেন সেটি নিয়ে ভাবুন।

সম্ভাব্য ঝুঁকি বিশ্লেষণ করুন এবং ঝুঁকি কমানোর উপায় সমূহ খুঁজে বের করুন।

ক্ষতিগ্রস্ত হলে আপনার পরবর্তী পদক্ষেপ কি হবে সেটিও পরিকল্পনার মধ্যে রাখুন।

৪। সুযোগ থাকলে সেই বিষয়ে ইতিমধ্যে সফল এমন ব্যক্তির সাথে আলোচনা করতে পারেন।

তবে নেতিবাচক কথা শুনলে হতাশ হবেন না।

মনে রাখবেন অনেকই সফল হতে পারে তবে সকলে অন্যের সফলতার অংশ হতে পারে না।

তেমন কেউ না থাকলে অভিজ্ঞ ব্যক্তির বা আপনার আস্থাভাজন মানুষের সাথে আলোচনা করতে পারেন।

৫। ভুল বিশ্বাস থেকে বেরিয়ে আসুন।

অনেক ভ্রান্ত ধারনা আমাদের চারপাশে আছে।

যেমন লাখ লাখ টাকা ছাড়া ব্যবসা হয় না।

এটি প্রচলিত ভ্রান্ত ধারনা।

স্বল্প পুঁজির অনেক ব্যবসাও কিন্তু আছে।

পরিশ্রম করলে আপনি স্বল্প পুঁজির ব্যবসা দিয়েও সফল হতে পারবেন।

আবার রিসেইলিং পদ্ধতির ব্যবসার ক্ষেত্রে অনেক সময় তেমন কোন পুঁজি লাগে না।

অনলাইন মার্কেটে বা অফলাইন মার্কেটে শুধুমাত্র পন্যের ছবি দেখিয়ে আপনি ক্রেতার কাছে পন্যের বিবরন তুলে ধরতে পারেন এবং চাহিদা মতো সরবারহ করতে পারেন।

এটিও বর্তমান সময়ে জনপ্রিয় একটি ব্যবসা।

৬। ভয়কে শক্তিতে রূপান্তর করুন।

সহজে যে সফলতা আসে তার মধ্যে আনন্দ থাকলেও কষ্টে অর্জিত সফলতা অনেক বেশি স্থায়ী এবং আনন্দের।

আপনি নিজে যখন উপলব্ধি করবেন আপনার কত কষ্ট করে পাওয়া এই অর্জন, তখন আনন্দ হবে কয়েক গুণ বেশি।

৭। ব্যর্থতাকে ভয় পাবেন না।

ব্যর্থতার পরই সফলতা আসে।

ছোট ছোট ভুল আপনাকে আরো অনেক বেশি পরিনত করবে।

হতাশ না হয়ে ভুল থেকে শিক্ষা নেওয়ার চেষ্টা করুন।

অনেকেই আমরা ভুল করলে বা ব্যর্থ হলে হাল ছেড়ে দেই।

সফল হতে হলে আপনাকে হাল ছাড়লে হবে না।

মনে রাখবেন সব অর্জনের গল্পেই কিছু ব্যর্থতার গল্প থাকে।

একদিনে কেউ সফল হয় নি, আর হবেও না। আমরা সবাই জানি, অপেক্ষার ফল মিষ্টি হয়।

৮। সময়ের সাথে পরিবর্তন হতে শিখুন এবং পরিবর্তন মেনে নিন।

আমাদের পরিকল্পনা থাকে কিন্তু সবসময় পরিকল্পনা অনুসারে কাজ হয় না।

তাই যেকোন পরিস্থিতিতে নিজেকে মানিয়ে নিতে শিখুন এবং বিশ্বাস রাখুন আপনি পারবেন।

নতুন সময় ও প্রযুক্তির সাথে মানিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করুন।

অনেকই আমরা পুরানো ধ্যান ধারণা বা প্রচলিত বিষয়ের বাইরে যেতে চাই না বা ভয় পাই।

যেমন, প্রথম যখন অনলাইন সেবা ব্যবসা ক্ষেত্রে আসলো, অনেকেই সেটি সহজভাবে মানতে পারি নি।

প্রথম দিকে, আমরা অনেকেই এটি বিশ্বাস করতাম না বা ভুল ধারণা ছিল।

বর্তমানে অনলাইন ব্যবসার সাথে আমরা সকলেই পরিচিত।

তবে নতুনদের জন্য পথটা সহজ ছিল না।

অনেকের অনেক নেতিবাচক কথা, ভ্রান্ত ধারনা এবং অনেক গুলো ভয়কে জয় করেই আজ তারা সফলতার দ্বারপ্রান্তে।

এখন অনেকেই দিন দিন অনলাইন ব্যবসার জন্য আগ্রহী হয়ে উঠছেন।

বড় বড় শপিং মলে দোকান থাকার পাশাপাশি অনলাইনেও ব্যবসা করছে অনেকে। এটাই সময়ের দাবি।

৯। সিদ্ধান্ত  গ্রহনে সক্ষম হন।

অনেকের সাথে বিষয়টি নিয়ে পরামর্শ করতে পারেন, তবে সিদ্ধান্ত নিন নিজে।

ছোট ছোট বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ নিজের প্রতি আস্থা আনতে সাহায্য করবে এবং পরবর্তী সময়ের জন্য আপনাকে প্রস্তুত করবে।

অন্যের উপর নির্ভর করার চেয়ে নিজেকে সক্ষম করে তোলা অধিক বুদ্ধিমানের কাজ।

১০। নিজেকে পুরস্কৃত করুন।

নিজের ব্যর্থতা জন্য যখন নিজেকে দায়ী করে কষ্ট দিয়েছেন, ঠিক তেমনি ছোট ছোট অর্জনে নিজেকে ছোট হলেও কিছু উপহার দিন।

কাজে উৎসাহ আসবে, গতিও আসবে দ্বিগুণ।

নেলসন ম্যান্ডেলার মতে “করে ফেলার আগে সবকিছই অসম্ভব মনে হয়”। ভয়ের সাথে আমাদের যুদ্ধ জন্মলগ্ন থেকেই।

একবার চোখ বন্ধ করে ভাবুন, ছোটবেলা থেকে আমরা কতগুলো ভয় কাটিয়ে আজ এই পর্যন্ত এসেছি।

সামনের ভয় গুলো জয় করতে পারলেই সফলতা। হেরে যাওয়ার ভয়ে ভীত হওয়ার আগে, চেষ্টা করুন। আর নিশ্চিত থাকুন, একদিন কোথাও না কোথাও আপনি আপনার সফলতার গল্প হাসি মুখে অন্যকে শোনাবেন।



Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি
সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০১৯-২০২২
Designer: Shimulツ
themesba-lates1749691102