বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১০:২৯ অপরাহ্ন

ছাত্র অবস্থায় সফল হতে করণীয়

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৯ আগস্ট, ২০২১

ছাত্র অবস্থায় সফল হতে করণীয়

ছাত্র অবস্থায় সফল হতে করণীয়

লক্ষ্য নির্ধারণ, কঠোর পরিশ্রম এবং চেষ্টা ছাড়া সফল হওয়া সম্ভব নয়। সফল হতে চাইলে এই তিনটি বিষয় থাকতেই হবে। যে ভাবেই আপনি যেভাবেই সফলতা চান না কেন, আপনাকে অবশ্যই লক্ষ্য নির্ধারণ করে কঠোর পরিশ্রম মাধ্যমে সেটি অর্জন করতে হবে।

লাগাতার চেষ্টা, ব্যর্থতা থেকে শিক্ষা গ্রহন আপনার সফলতাকে নিশ্চিত করবে। প্রতিটি মানুষ চায় সফল হতে। সেই ছোট বেলা থেকে জীবনে কিছু করে দেখানোর ইচ্ছেই আমাদের তাগিদ দেয় সামনের দিকে এগিয়ে যাওয়ার।

জীবনে যে কোন সময় আপনি চেষ্টা করতে পারেন। তবে যত আগে শুরু করবেন আপনার জন্য ততই লাভজনক।

আর তাই ছাত্র অবস্থাতেই যারা জীবনকে নিয়ে ভাবে, সফল হওয়ার চেষ্টা করে, তাদের জন্য সফলতার সোনালী সূর্য জয়ের সম্ভাবনা অনেক বেশিই থাকে।

আমাদের দেশে অনার্স মাস্টার্স পর্যন্ত ছাত্র অবস্থা ধরা হয়। সাধারণত এই ছাত্র অবস্থায় তেমন কেউই কোন কিছু করে না। আসলে ইচ্ছে থাকলেও আমদের দেশে ছাত্রদের কাজ করার সুযোগ নেই বললেই চলে।

যেখানে একটি চাকুরিতে কমপক্ষে ৩ বছরের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়, সেখানে ছাত্র অবস্থায় চাকুরি পাওয়ার সম্ভাবনা বেশ কম। আর তাই ইচ্ছে থাকলেও উপায় হয় না।

যদিও পরিস্থিতি কিছুটা বদলেছে তবে তেমন উল্লেখযোগ্য পরিমানে নয়। বিদেশে ছেলে মেয়ে উভয়কেই ১৮ বছরের পর নিজের দায়িত্ব নিজেকেই নিতে হয়। খাওয়া, থাকা এমনকি পড়াশোনার দায়িত্বও।

আমাদের দেশে বরং বাবা মায়েরা অনেক বেশি ধৈর্য্যশীল। অর্নাস কিংবা মাস্টার্স পাশ করার পর চাকুরি পাওয়ার আগ পর্যন্ত তারা খরচ চালিয়ে যায়।

কিন্তু বেকারত্বেও হার দিন দিন যেমন হারে বাড়ছে, চাকুরি পাওয়া সেখানে সম্মুখ যুদ্ধ। আর তাই পড়াশোনা শেষে চাকুরির জন্য লম্বা সময় অপেক্ষা করতে হয়।

আবার মনের মত চাকুরি এবং আয় করতে না পারার কষ্ট তো আছেই নিত্যদিনের যন্ত্রণা।

কিন্তু যদি ছাত্র অবস্থা থেকেই আমরা নিজের স্বপ্ন নিয়ে কাজ করি, নিজের সফলতার জন্য কাজ করি তবে অর্নাস শেষ হওয়ার আগেই নিজের পরিবারের দায়িত্ব নেওয়া সম্ভব।

অবাক হচ্ছেন? না, আমি আকাশ কুসুম কোন স্বপ্নের কথা বলছি না।

সত্য কথাই বলছি। ছাত্র অবস্থা থেকেই যদি কেউ চেষ্টা করে তবে পড়াশোনার পাশাপাশি আয় করা সম্ভব।

অবশ্যই এক্ষেত্রে তাকে অতিরিক্ত পরিশ্রম করতে হবে। তবে পড়াশোনা শেষে যখন সবাই হন্যে হয়ে চাকুরি খুঁজবে তখন সে সফলতার পথে অনেকটা অতিক্রম করে ফেলবে।

ছাত্র অবস্থায় সফল হওয়ার জন্য কি কি করা উচিত চলুন জেনে আসি

১। ছাত্র অবস্থায় সফল হতে চাইলে করতে হবে লক্ষ্য নির্ধারন

প্রথমেই লক্ষ্য নির্ধারন করুন। প্রথমে ঠিক করুন আপনি কোথায় যেতে চান? কি কি করতে চান? এক্ষেত্রে আপনি স্বল্প মেয়াদি এবং দীর্ঘ মেয়াদি পরিকল্পনা করুন।

ছোট ছোট অর্জন আপনাকে অনুপ্রেরণা দিবে, সামনে এগিয়ে যাওয়ার সাহস দিবে।

সেই সাথে জীবনে আসলে আপনি কোথায় নিজেকে দেখতে চান সেই বিষয়ে ভাবুন। ১ বছর / ৩ বছর/ ৫ বছর এমন মেয়াদি লক্ষ্য নির্ধারন করুন।

২। কঠোর পরিশ্রমের মানসিকতা

পড়াশোনার পাশাপাশি চাকুরি বা ব্যবসা চালিয়ে যাওয়া খুবই কঠিন।

আর এই কঠিন কাজটি করার জন্য আপনাকে অবশ্যই মানসিক ভাবে শক্ত হতে হবে।

অন্যেরা যখন পড়ছে, আপনি তখন পড়াশোনার পাশাপাশি কাজও করছেন।

সুতরাং আপনার দায়-দায়িত্ব দুটোই বেশি। পরিশ্রম ছাড়া কিছুই অর্জন হয় না।

আপনি যখন দুটো কাজ একসাথে করবেন তখন আপনাকে নিজেকে নিঁগড়ে দিতে হবে।

তবে বিশ্বাস রাখুন নিজের এত পরিশ্রমের ফল আপনি নিশ্চয় পাবেন আশানুরূপ ভাবে।

৩। সময়ের মূল্য দিন

জীবনের প্রতিটি সময় মূল্যবান। এক সেকেন্ডের ব্যবধানে জীবন চলে যায় মানুষের। অথচ এই সময়কে আমরা প্রতিনিয়ত কত অবহেলা করি।

কথায় বলে, ১ বছরের কি মূল্য সেটা ১ জন ছাত্রকে জিজ্ঞেস করো যে এবার অকৃতকার্য হয়েছে।

জীবনে যে যত সময়কে মূল্য দিয়েছে সফলতা তার জীবনের তত বেশি ধরা দিয়েছে। যে সময় চলে যায় তা কখনোই ফিরে আসে না।

আর তাই সময়ের মূল্য দিতে শিখুন। আড্ডা, মজা, আনন্দ জীবনের প্রয়োজন আছে, আবার সফলতার প্রয়োজন আছে।

আপনাকে অবশ্যই ব্যালেন্স করে চলতে হবে। বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলো বেশ জনপ্রিয়, বিশেষ করে ছাত্র সমাজের কাছে। আমরা আপনাকে এগুলো ব্যবহার করতে নিষেধ করছি না।

শুধু বলতে চাইছি, আপনি কত সময় এর পিছনে ব্যয় করলেন এবং কি অর্জন করলেন সেটি একবার ভাবুন। আনন্দ, খোঁজখবর, নিজের স্ট্যাটাস আপডেট, ছবি আপলোডের জন্য সারাদিনে ১ ঘন্টা সময়ও লাগে না।

কিন্তু আমরা ঘন্টার পর ঘন্টা সময় নষ্ট করি এগুলোর পিছনে। কিন্তু দিনশেষে অর্জন বা প্রাপ্তি কিন্তু তেমন কিছুই নয়। সুতরাং কোথায় কত সময় ব্যয় করছেন সে বিষয়ে সর্তক হতে হবে।

৪। জ্ঞান অর্জনের চেষ্টা করুন

নিজের পাঠ্য বইয়ের বাইরেও নিজের জ্ঞানকে বিকশিত করুন।

আপনার যে বিষয় ভাল লাগে সেই বিষয়েই জানুন, শিখুন। শেখার কোন শেষ নাই।

আপনি যা শিখবেন সেটি কেউ আপনার কাছ থেকে কেড়ে নিতে পারবে না।

সুতরাং প্রতিনিয়তই কিছু শিখতে চেষ্টা করুন।

পড়াশোনার বাইরে কিছু শিখতে আপনাকে যে অনেক সময় দিতে হবে এমন না।

প্রতিদিন অল্প সময় দিলেই আপনি নিজেকে সমৃদ্ধ করে তুলতে পারবেন।

তবে নিয়মিত চেষ্টা অব্যাহত রাখতে হবে।

উন্নত প্রযুক্তি আমাদের জীবনকে সহজ করে দিয়েছে।

চাইলে ঘরে বসেই আমরা দেশ বিদেশের নানা তথ্য পেতে পারি।

আপনি চাইলে দেশে বসেই বিদেশের বিভিন্ন সর্ট কোর্স করতে পারেন।

তাই নিজের জানার পরিধিকে বাড়াতে হবে। সেই বিষয়েই জানুন, যা আপনার স্বপ্নের সাথে জড়িত।

পরবর্তী জীবনে এই জ্ঞান আপনাকে সফলতা নিশ্চিত করতে সাহায্য করবে।

৫। হাল ছাড়বেন না

জীবনে আমাদের ব্যর্থতার অন্যতম কারন আমরা অল্পতেই হাল ছেড়ে দেই। ব্যর্থতাকেই আমরা শেষ বলে ধরে নেই।

আপনি আপনার পছন্দের কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে পারলেন না বলে আপনি জীবনে সফল হতে পারবেন না এমন নয়।

জীবনে আপনি তখনই সফল হবেন, যখন আপনি লাগামহীন চেষ্টা অব্যাহত রাখবেন। কোনভাবেই হাল ছাড়বেন না।

৬। আত্মবিশ্বাসী হতে হবে

আত্মবিশ্বাস মানুষকে সফল করে। সফল মানুষদের নিজের প্রতি বিশ্বাস ছিল যে, তারা সফল হবেনই। নিজের ওপর এই আস্থাই তাদরকে সফল করে তুলেছেন। নিজের সিদ্ধান্তের ওপর অটুট বিশ্বাস রাখুন।

বিশ্বাস রাখুন যতবার আপনি পড়ে যাবেন, দ্বিগুণ শক্তিতে উঠে দাঁড়ানোর ক্ষমতা আপনার আছে। নিজেকে কখনোই ছোট ভাববেন না।

যখন কেউ আপনার পাশে থাকবে না, তখনও নিজের ওপর আস্থা রাখবেন। এবং আপনি যে ভুল নন, সেটি নিজের কাজ দিয়েই প্রমান করবেন।

৭। বড় স্বপ্ন দেখুন

কখনো ছোট স্বপ্ন দেখবেন না। নিজেকে নিয়ে বড় বড় স্বপ্ন দেখুন। আপনাকে যদি কেউ পাগল বলে তাহলে তাকে বলতে দিন।

সফল ব্যক্তিরা প্রত্যেকেই মানুষের চোখে পাগল ছিল। আর তাতে তাদের অর্জনে কোন প্রভাব ফেলে নি। নিজেকে নিয়ে স্বপ্ন দেখুন প্রাণ খুলে।

জীবন সহজ না। সফলতা সবার কাছে ধরা দেয় না। সফলতা তার কাছেই আসে যে সফল হওয়ার জন্য ব্যগ্র ভাবে চেষ্টা করে।

আপনি যখন ছাত্র অবস্থাতে কাজ করবেন অনেকেই আপনাকে নিয়ে ঠাট্টা করতে পারে, কটুক্তি মন্তব্য করতে পারে। কখনোই সেই কথার জন্য নিজের লক্ষ্য থেকে সরে আসবেন না। আপনি যদি চেষ্টা করেন তাহলে সবই সম্ভব।

মনে রাখবেন, যিনি বলছেন আপনি পারবেন না, তিনি নিজের জীবনে সেই কাজ পারে নি। আর তাই তিনি আপনাকেও সেই স্বপ্ন দেখাতে পারছে না।

সফল ব্যক্তিদের সফলতার গল্পের সাথে সাথে তাদের ব্যর্থতার গল্পও পড়ুন। এতে আপনার সাহস বাড়বে। সফলতা ছেলের হাতের মোয়া না যে, কেউ আপনাকে এনে দিবে। আপনার নিজের ক্ষমতা বলেই সেটি অর্জন করতে হবে। ভিজিট করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল – Bangla Preneur YouTube Channel 

 



Source by [সুন্দরবন]]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Recent Posts

© 2022 sundarbon24.com|| All rights reserved.
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102