শুক্রবার, ১৯ অগাস্ট ২০২২, ০৮:২৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
চালের বস্তায় নিষিদ্ধ পলিব্যাগের ব্যাবহার ভ্রাম্যমাণ আদালতে দুই ব্যবসায়ীকে ৩০হাজার টাকা জরিমানা মেয়াদোত্তীর্ণ ইনজেকশন পুশ করায় রোগীর শরীরে জ্বালাযন্ত্রনা ফার্মেসী সিলগালা:পলাতক গ্রাম্য চিকিৎসক বাংলাদেশকে জানতে হলে আগে বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে ….এমপি মিলন সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে মোংলায় বিক্ষোভ মিছিল সারা খুলনা অঞ্চলের সব খবরা খবর নদীর পাড়ে শাড়ি পরে দুর্দান্ত ড্যান্স দিলো সুন্দরী যুবতী যুদ্ধের ধ্বংসস্তুপের উপর দাঁড়িয়েও বঙ্গবন্ধু প্রযুক্তি কাঠামো দাঁড় করিয়েছেন – মোস্তাফা জব্বার – টেক শহর বিশ্বকাপে পর্তুগালকে ফেবারিট মানছেন আর্জেন্টাইন তারকা – স্পোর্টস প্রতিদিন বিশ্ববাজারে আবারও কমল জ্বালানি তেলের দাম গর্তে লুকিয়ে থাকা ইঁদুরটি দেখলো চাষী ও তার স্ত্রী দুজনে মিলে

দিনাজপুরে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে মাল্টা চাষ | Adhunik Krishi Khamar

  • আপডেট সময় শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
মাল্টা চাষ


দিনাজপুরে দিন দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে মাল্টা চাষ। জেলার চিরিরবন্দরে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে মাল্টা চাষ। এখনাকার মাটি ও আবহাওয়া অকূলে থাকায় মাল্টার চাষ ভালো হচ্ছে। তবে ভালো দাম পাওয়ায় সমতল ভূমিতে দিনদিন মাল্টা চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের।

জানা যায়, উপজেলার উত্তর নশরতপুর গ্রামের কৃষক আহসান হাবিব রাসেল বাণিজ্যিকভাবে মাল্টা চাষ করে সফলতা পেয়েছেন। তার প্রায় ৫০ শতাংশ জমিতে গাছে গাছে এখন ঝুলছে হাজার হাজার মাল্টা। তার সাফল্য দেখে এলাকার অনেকেই মাল্টা চাষে আগ্রহী হচ্ছেন। ঐ গ্রামেই তার দেখে আরো ১০ জন কৃষক মাল্টা চাষ শুরু করেছেন। আর চিরিরবন্দরে মাল্টা চাষে নেমেছেন শতাধিক কৃষক।

কৃষি অফিস বলছে, দ্বিতীয় শস্য বহুমুখী প্রকল্পের আওতায় কৃষি কার্যালয় থেকে বিনা মূল্যে বারি জাত-১ এর মাল্টা গাছের চারা সরবরাহ করা হয়। রাসেল প্রথমে ২৫ শতাংশ জমিতে ৫৬টি মাল্টার চারা রোপণ করেন। প্রায় দেড় বছর পরিচর্যার পর গাছে ফল আসতে শুরু করে। প্রতিটি গাছে বর্তমানে ৫০-১০০টি ফল ধরেছে।

এদিকে মাল্টা বিক্রি হচ্ছে ১৪০ টাকা থেকে ১৫০ টাকা প্রতি কেজি দরে। এ বছরে সব বাগানেই বিপুল পরিমাণ মাল্টা ধরেছে। এদিকে বেকার যুবকেরা মাল্টা চাষে আগ্রহ প্রকাশ করছে। কৃষকরা বলছেন, সরকারিভাবে ঋণ সুবিধাসহ সার্বিক সহযোগিতা পেলে উৎপাদিত মাল্টা চাষ প্রসারে ব্যাপক ভূমিকা রাখতে পারবে উপজেলার কৃষকরা।

মাল্টা চাষি কাজল ও ফিরোজ জানান, রাসেল ভাইয়ের মাল্টার বাগান দেখে আমরা এই বছর মাল্টার বানিজ্যিকভাবে চাষ শুরু করেছি। মাল্টার বাগানে তেমন বেশি রাসায়নিক সারের প্রয়োজন হয় না। মাল্টার ফুল আসার আগে জৈব সারের সঙ্গে স্বল্প পরিমাণে রাসায়নিক সার দিতে হয়। মাল্টার বাগানে পরিচর্যা করেই ভাল মানের ফল পাওয়া যায়।

কৃষক আহসান হাবিব রাসেল বলেন, উপজেলার কৃষি কর্মকর্তাদের সহযোগিতায় উপজেলায় আমিই প্রথম মাল্টা চাষ শুরু করি। তিনি আরোও এখন আমি ৩ একর জমি মাল্টা চাষ করছি।

উপজেলার কৃষি কর্মকর্তা জোহরা সুলতানা জানান, মাল্টা ভিটামিন-সি সমৃদ্ধ ফল। মাল্টাতে রয়েছে ভিটামিন বি, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস এবং চর্বিযুক্ত ক্যালরিসহ বিভিন্ন ওষুধিগুণ। এটি চাষে এলাকার পুষ্টির চাহিদা মেটানোর পাশাপাশি আর্থিকভাবে কৃষকরা লাভবান হবেন।



Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি

Recent Posts

সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০১৯-২০২২
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102