মঙ্গলবার, ০৯ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম
ট্রাকের পেছনে গ্রীণলাইনের ধাক্কায় চালক নিহত, আহত ৩ শরণখোলায় মৃতঃ মুক্তিযোদ্ধাদের ডিজিটাল সনদ পরিবারের কাছে হস্তান্তর শরণখোলায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে নিয়োগ বানিজ্যের অভিযোগ! সিরিজ দুর্নীতির অভিযোগে পশ্চিমবঙ্গে বিপাকে মমতা কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি DC Office Job 2022 ইনজুরিতে জর্জরিত লিভারপুল – স্পোর্টস প্রতিদিন তৃতীয় সাবমেরিন ক্যাবল সংযোগে আরও পরিশোধ হল ১৫ মিলিয়ন ডলার – টেক শহর ভারতীয় ক্রিকেটার চাহালের স্ত্রী ধনশ্রী ভার্মার নাচ ভক্তদের মুগ্ধ করেছে সারা খুলনা অঞ্চলের সব খবরা খবর বেনাপোল ও শার্শা থানায় খোলা আকাশের নিচে নষ্ট হচ্ছে কোটি টাকার গাড়ি

পানি কচু চাষ করার পদ্ধতি ও পরিচর্যা | Adhunik Krishi Khamar

  • আপডেট সময় শনিবার, ২ অক্টোবর, ২০২১
কচু


পানি কচু চাষ করার পদ্ধতি ও পরিচর্যা অনেক কৃষকরাই জানেন না। আগের তুলনায় এখন কৃষকরা এই কচু চাষে বেশি আগ্রহী হয়ে উঠছেন। অনেকেই এই কচুর চাষ করে স্বাবলম্বী হয়েছেন। সঠিক নিয়ম মেনে পানি কচুর চাষ করলে সহজেই লাভবান হওয়া যায়। আজ আমরা জানবো পানি কচু চাষ করার পদ্ধতি ও পরিচর্যা সম্পর্কে-

পানি কচু চাষ করার পদ্ধতি ও পরিচর্যাঃ


কচুর জাতঃ


লতিরাজ (উফশী) ও জয়পুরহাটের স্থানীয় জাত পানি কচুর উত্তম জাত।

চাষের জমিঃ


মাঝারি নিচু থেকে উঁচু জমি যেখানে বৃষ্টির পানি সহজেই ধরে রাখা যায় অথবা জমে থাকে এমন জমি পানি কচু চাষের জন্য উপযোগী। পলি দো-আঁশ ও এঁটেল মাটি পানি কচু চাষের জন্য উত্তম।

রোপণের সময়ঃ


আগাম ফসলের জন্য কার্তিক (মধ্য-অক্টোবর থেকে মধ্য-নভেম্বর)। নাবী ফসলের জন্য মধ্য-ফাল্গুন থেকে মধ্য-বৈশাখ (মার্চ-এপ্রিল) মাসে লাগানো যায়। দক্ষিণাঞ্চলে বৎসরের যে কোন সময় লাগোনো যায়। সারি থেকে সারির দূরত্ব ৬০ সেমি. এবং চারা থেকে চারার দূরত্ব হবে ৪৫ সেমি.।

কচু রোপণের নিয়মঃ


কচু চাষের বেলায় বীজের হার প্রতি হেক্টর ৩৭-৩৮ হাজার লতা। পূর্ণ বয়স্ক কচুর গোঁড়া থেকে ছোট ছোট চারা উৎপন্ন হয়। এসব চারার মধ্যে সতেজ চারা পানি কচু চাষের জন্য ‘বীজ চারা’ হিসাবে ব্যবহার করতে হয়। পানি কচুর চারা কম বয়সের হ’তে হবে, ৪-৬টি পাতাসহ সহেজ সাকার বীজ চারা হিসাবে ব্যবহার করতে হবে। চারা রোপণের সময় উপরের ২/১টি পাতা বাদ দিয়ে বাকি সব পাতা ও পুরানো শিকড় কেটে ফেলতে হবে।

সার প্রয়োগ পদ্ধতিঃ গোবর ১৫-২০ কেজি, ইউরিয়া ১৪০-১৬০ কেজি, টিএসপি ১২০-১৩০ কেজি, এমপি ১৬০-১৯০ কেজি। গোবর, টিএসপি, এমওপি সার চারা রোপণের সময় জমিতে প্রয়োগ করতে হবে। ইউরিয়া সার ২/৩ কিস্তিতে দিতে হবে। তবে ১ম কিস্তি রোপণের ২০-২৫ দিনের মধ্যেই প্রয়োগ করতে হবে।

রোগবালাইঃ


কচুর পাতায় মড়ক রোগ হ’লে পাতার উপরে বেগুনী বা বাদামী রঙের গোলাকার দাগ পড়ে। পরবর্তীতে এসব দাগ আকারে বেড়ে একত্রিত হয়ে পাতা ঝলসে যায়। পরে তা কচু ও কন্দে আক্রমণ করে। বেশি আক্রান্ত হলে প্রতি লিটার পানিতে ২ গ্রাম রিডোমিন বা ডাইথেন এম-৪৫ মিশিয়ে ১৫ দিন পরপর ৩-৪ বার স্প্রে করতে হবে।

পোকা দমনঃ  ছোট ও কালচে লেদাপোকা পাতা খেয়ে ফেলে। এসব পোকা প্রথমত হাত দিয়ে মেরে ফেলতে হবে। সংখ্যা বেশি হলে কীটনাশক ব্যবহার করতে হবে।


আরও পড়ুনঃ কুল চাষে লাখপতি চট্টগ্রামের লোকমান আজাদ


কৃষি প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার



Source by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি

Recent Posts

সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০১৯-২০২২
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102