মঙ্গলবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন

রংপুরে জনপ্রিয়তা পাচ্ছে শিম চাষ, দামে খুশি চাষিরা! | Adhunik Krishi Khamar

  • Update Time : রবিবার, ৭ নভেম্বর, ২০২১


ফজলুর রহমান, রংপুরঃ রংপুর জেলার ৯ উপজেলার মাঠজুড়ে শিমের ফুল শোভা পাচ্ছে, চাষির মুখে দেখা দিয়েছে হাসি। উচু জমিতে শিমের খেত তৈরি করেছে মিঠাপুকুর, পীরগঞ্জ, পীরগাছা, কাউনিয়া, গঙ্গাচড়া, তারাগঞ্জ, বদরগঞ্জ ও সদর উপজেলায়র শীতের সবজি শিমখেত চাষীরা। যে দিকে তাকালেই দেখা যায়, সবুজের সঙ্গে দুলছে বেগুনি রঙে রাঙানো ফুল। কম খরচে অধিক লাভ হওয়ায় দিন দিন শীতের সবজি শিম আবাদে ঝুঁকছেন চাষিরা।

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার রানীপুকুর এলাকায় শিমের পরিচর্যা করছেন চাষি আবদুল মাজেদ। বেগুনি রঙের ফুলের শোভায় ভরে উঠছে শিমখেত। প্রকৃতিও বেশ অনুকূলে। শীতের শুরু না হতেই খেত থেকে শিম তুলে বাজারে বিক্রি করছেন চাষিরা

রংপুরে আগাম শিম চাষ করে ভালো ফলনের সম্ভাবনা দেখছেন চাষিরা। শীতকালীন সবজির মধ্যে অন্যতম হলো শিম। প্রতিবছরই জেলার উঁচু এলাকায় বাণিজ্যিকভাবে চাষ হয়ে আসছে আগাম শিম। কম খরচে অধিক লাভ হওয়ায় দিন দিন শীতের সবজি শিম আবাদে ঝুঁকছেন চাষিরা।শীতের সবজি শিমখেতের দিকে তাকালেই দেখা যায়, সবুজের সঙ্গে দুলছে বেগুনি রঙে রাঙানো ফুল। ইতিমধ্যে কিছু শিম তুলে বিক্রি করেছি ৭০-৮০ টাকা কেজিতে। শীত শুরুর আগে আগে শিম বিক্রি করতে পারলে লাভ বেশি হবে। সেভাবেই শিমের খেত তৈরি করেছি।

রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার রানীপুকুর এলাকায় সরেজমিনে দেখা যায়, মাঠের পর মাঠজুড়ে শিমখেত, যা অপরূপ সৌন্দর্য ছড়াচ্ছে। শিমের গাছ, পাতা-ফুল বাতাসে দোল খাচ্ছে। পরিচর্যায় ব্যস্ত সময় পার করছেন চাষিরা।

রানীপুকুর ইউনিয়নের খানপাড়া গ্রামের মনোয়ার হোসেন এ বছর নিজের ৪০ শতাংশ জমিতে শিম আবাদ করেছেন। তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে কিছু শিম তুলে বিক্রি করেছি ৭০-৮০ টাকা কেজিতে। শীত শুরুর আগে আগে শিম বিক্রি করতে পারলে লাভ বেশি হবে। সেভাবেই শিমের খেত তৈরি করেছি। একই এলাকার কৃষক পারভিন বেগম বলেন, এবার ৫০ শতাংশ জমিতে শিম আবাদ করেছি। গত বছর এ সময় অতিবৃষ্টিতে শিমখেত নষ্ট হয়েছে। তাই খুব একটা লাভ হয়নি তাঁর। এবার আগাম জাতের শিম বিক্রি করে বেশ দাম পাচ্ছেন। এক সপ্তাহের মধ্যে ভালো দামে আরও বেশি শিম বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন।

এদিকে রংপুর নগরের সিটি বাজারে শিম বিক্রি হচ্ছে খুচরা ১১০ টাকা কেজি। এক সপ্তাহ আগে ছিল ১৫০-১৬০ টাকা কেজি।শীতকালীন সবজির এখনো লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়নি। তবে গত বছর রবি মৌসুমে এই জেলায় ৫৪৫ হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজির আবাদ হয়েছিল।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, শীতকালীন সবজির এখনো লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়নি। তবে গত বছর রবি মৌসুমে এই জেলায় ৫৪৫ হেক্টর জমিতে শীতকালীন সবজির আবাদ হয়েছিল।

রংপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক ওবায়দুর রহমান মন্ডল বলেন, রংপুর জেলায় ৫শ৭২ হেক্টর জমিতে চলতি বছর শতিকালনি শিম চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তিনি বলেন মিঠাপুকুর এলাকা সবজি চাষের জন্য বেশ উপযোগী। শীতকালীন সবজি শিম আগাম বাজারে নিয়ে আসতে হলে মার্চ-এপ্রিলে জমিতে লাগাতে হয়। মে-জুনেও লাগানো হয়ে থাকে। এ বছর প্রকৃতি অনুকূলে থাকায় সবজির চাষাবাদ ভালো হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।


আরও পড়ুনঃ খুলনায় পরিবহন ধর্মঘটে সবজি নিয়ে বিপাকে কৃষকরা


কৃষি প্রতিবেদন / আধুনিক কৃষি খামার



Source by [সুন্দরবন]]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Recent Posts

© 2022 sundarbon24.com|| All rights reserved.
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102