রবিবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২১, ০২:২১ পূর্বাহ্ন

সারা খুলনা অঞ্চলের খবরা খবর

  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৫ নভেম্বর, ২০২১
  • ১১
সারা খুলনা অঞ্চলের খবরা খবর

ভারতে বছর কারাভোগের পর বেনাপোল দিয়ে বাংলাদেশী যুবতীকে বাংলাদেশে হস্তান্তর

বেনাপোল প্রতিনিধি

ভারতে বছর কারাভোগের পর রতনা খাতুন (১৯) নামে বাংলাদেশী এক যুবতীকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে হস্থান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ। মঙ্গলবার (২৪শে নভেম্বর) রাতে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে ভারতীয় ইমিগ্রেশন পুলিশ বাংলাদেশ ইমিগ্রেশন পুলিশের কাছে তাকে হস্তান্তর করে।

ফেরতআসা যুবতী যশোর সদর উপজেলার বাসিন্দা। ভালো কাজের প্রলোভন দেখিয়ে আড়াই বছর আগে যশোর সীমান্ত দিয়ে ভারতে পাচার করা হয় তাকে।

জাস্টিক এন্ড কেয়ারের গ্রহণকারী ফিল্ড কর্মকর্তা রোকেয়া খাতুন জামান,  সংসারে অভাব অনটনের সুযোগ নিয়ে  ভালো কাজের কথা বলে তাকে ভারতে পাচার করে দালালরা। পরে ভারতীয় পুলিশ তাকে উদ্ধার করে আদালতে পাঠায়। আদালত তাকে বছরের সাজা প্রদান করে কারগারে প্রেরন করেন। সাজার মেয়াদ শেষে ভারতের  গুজরাটের একটি এনজিও সংস্থা তাদের শেল্টার হোমে আ¤্রয় দেয় তাকে।

বেনাপোল ইমিগ্রেশন পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাজু আহম্মেদ  জানান, বাংলাদেশী এক যুবতীকে বেনাপোল চেকপোস্ট দিয়ে বাংলাদেশে হস্থান্তর করেছে ভারতীয় পুলিশ।ইমিগ্রেশনের কাগজপত্রের আনুষ্ঠানিকতা শেষে বেনাপোল পোটথানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে তাকে।

কপিলমুনি ৬শ গ্রাম গাঁজাসহ দেবর-ভাবী আটক

কপিলমুনি (খুলনা) প্রতিনিধি

পাইকগাছায় কপিমুনির কাশিমনগর গ্রাম থেকে ৬শ গ্রাম গাঁজাসহ  দেবর-ভাবীকে পুলিশ আটক করেছে। মঙ্গলবার রাত ১১ টায় গোপণ সংবাদে কপিলমুনি ফাঁড়ি উপ পুলিশ পরিদর্শক আব্দুল আলীম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে কাশিমনগর গ্রামের আলমঙ্গীর গাজীর বাড়ীতে অভিযান চালায়। বাড়ীর গৃহিণী বিলকিস বেগম (২৮) এর স্বীকারোক্তি মোতাবেক তার বাড়ীর বারান্ডা থেকে গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করে ঘটনাস্থল থেকে আলমঙ্গীর গাজীর স্ত্রী বিলকিস বেগম, হোসেন গাজীর ছেলে দেবর দেলোয়ার গাজী(৩০) কে আটক করে। আলমঙ্গীর গাজী পালিয়ে যায়। থানায় মাদক দ্রব্য বিক্রি আইনে মামলা হয়েছে। ওসি জিয়াউর রহমান জানান ধৃত আসামীদের বুধবার আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। এরা দীর্ঘদিন ধরে মাদক ব্যবাসয়ের সাথে জড়িত।

দাকোপের বাজুয়া ইউনিয়নে ইউডিএমসি, ডব্লিউডিএমসি, সিপিপি প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত

বাজুয়া (দাকোপ) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপ উপজেলার বাজুয়া ইউনিয়নে ওয়ার্ল্ড ভিশনের বিএইচএ প্রকল্প কর্তৃক ইউডিএমসি, ডব্লিউডিএমসি, সিপিপি এবং যুব ক্লাব সদস্যদের দিন ব্যাপী দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাসে পূর্ভাবাস, প্রাথমিক চিকিৎসা উদ্ধার বিষয়ক রিফ্রেশার প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে ২৩ ২৪ নভেম্বর (মঙ্গল বুধবার ) বাজুয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মানস কুমার রায় এর সভাপতিত্বে- ওয়ার্ল্ড ভিশনের সিডিএফ স্নেহাশিস মল্লিক এর সঞ্চালনায় ওয়ার্ল্ড ভিশন বাংলাদেশ এর আয়োজনে দুর্যোগ মোকাবেলায় কমিউনিটির সহনশীলতা বৃদ্ধি প্রকল্প ইউএসএআইডি (টঝঅওউ) এর ব্যুরো ফর হিউম্যানিটারিয়ন অ্যাসিস্টান্স, কার্যক্রম দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা এসওডির আলোকে ইউডিএমসি, ডব্লিউডিএমসি, সিপিপি এবং যুব ক্লাব সদস্যদের দিন ব্যাপী দুর্যোগ ঝুঁকিহ্রাসে পূর্ভাবাস, প্রাথমিক চিকিৎসা উদ্ধার বিষয়ক রিফ্রেশার প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়।

প্রশিক্ষণে উপস্থিত ছিলেন বাজুয়া ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত মেম্বারগণ বিভিন্ন ওয়ার্ড ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি, সিপিপি এবং ইয়ুথ ক্লাবের থেকে মোট ৩৮ জন সদস্যগন (পু: ২৯ ম:০৯)প্রশিক্ষণটি পরিচালনা করেন ওয়ার্ল্ড ভিশনের বিএইচএ প্রকল্পের প্রকল্প কর্মকর্তা হিউবার্ট সনি রতœওয়ার্ল্ড ভিশন কর্তৃক আয়োজিত প্রশিক্ষণটি বাজুয়া ইউনিয়নবাসীর জন্য সুফল বয়ে আনবে বলে মন্তব্য করেন অংশ গ্রহণকারীগণ এবং ভবিষ্যতে যে কোন দুর্যোগে ক্ষয়ক্ষতি কমিয়ে আনতে উল্লেখিত প্রশিক্ষণের আলোকে দুর্যোগে ঝুঁকি হ্রাস পূর্ভাবাস, আহত ব্যক্তিদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান এবং উদ্ধারের মাধ্যমে দায়িত্ব পালন করে তারা সচেতনতা সৃষ্টিতে এগিয়ে আসবেন এবং ক্ষয়ক্ষতি কমাতে সহায়ক ভুমিকা পালন করবেন বলে অঙ্গিকারাবদ্ধ হন।

আশাশুনিতে বিজয় দিবস পালনের প্রস্তুতি সভা

আশাশনি প্রতিনিধি

আশাশুনিতে মহান বিজয় দিবস পালনে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ১০.৩০ টায় উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে সভা অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজমুল হুসেইন খাঁনের সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম কবির, স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ সুদেষ্ণা সরকার, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান অসীম বরণ চক্রবর্তী, সিনিঃ উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা সৈকত মল্লিক, সমাজ সেবা অফিসার রফিকুল ইসলাম, উপজেলা প্রকৌশলী আক্তার হোসেন, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা আজিজুল হক, পিআইও সোহাগ খান, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা সাইদুল ইসলাম, বুধহাটা ইউপি চেয়ারম্যান ইঞ্জিঃ মোছাদ্দেক, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার আঃ হান্নান, প্রধান শিক্ষক আশরাফুন নাহার নার্গিস, আ’লীগ নেতা রফিকুল ইসলাম মোল্যা, আশাশুনি প্রেসক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি জি এম মুজিবুর রহমান, অধ্যাপক সুবোধ চক্রবর্তী, প্রদর্শক ইয়াহিয়া ইকবাল, প্রেসক্লাব সাংগঠনিক সম্পাদক আকাশ হোসেন, রিপোর্টার্স ক্লাবের বিএম আলাউদ্দিন প্রমুখ। সহকারী কমিশনার (ভূমি) শাহীন সুলতানার সঞ্চালনায় সভায় মহান বিজয় দিবস যথাযথ ভাবে উদযাপনের লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি কাজ বাস্তবায়নে বিভিন্ন উপকমিটি গঠন করা হয়।

বৈকরঝুটিতে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

আশাশুনি প্রতিনিধি

আশাশুনির শোভনালী ইউনিয়নে পানিতে ডুবে এক শিশু মারা গেছে। মৃত শিশুর নাম নুহা, বয়স বছর।বুধবার (২৪ নভেম্বর) সকাল টার দিকে ইউনিয়নের বৈকরঝুটি গ্রামে মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।  বৈকরঝুটি গ্রামের জাহিদ হাসান (বাপ্পি মাস্টার) এর মেয়ে নুহা ঘটনার সময় বাড়িতে খেলা করছিল। সকলের অজান্তে খেলা করতে করতে সে পাশের ভাটা সংলগ্ন পুকুরে পড়ে যায়। কিছুক্ষণ পরে খোজাখুঁজির এক পর্যায়ে সকাল ৯.৩০ টার দিকে পুকুরে তার লাশ ভাসতে দেখা যায়। তাকে উদ্ধার করে ডাক্তারের কাছে নেওয়া হলে তাকে মৃত্যু ঘোষণা করা হয়।

বড়দলে কৃষকলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত

আশাশুনি প্রতিনিধি

আশাশুনির বড়দল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডে কৃষকলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিকালে মধ্যম বড়দল দূর্গা মন্দির চত্বরে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বড়দল ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড কৃষকলীগের আহবায়ক স্বপন মন্ডলের সভাপতিত্বে সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা কৃষকলীগের সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহবায়ক এন এম বি রাশেদ সরোয়ার শেলী। প্রধান বক্তা ছিলেন, সদস্য সচিব মতিলাল সরকার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বড়দল ইউনিয়ন কৃষকলীগের আহবায়ক মোঃ আছাদুল ইসলাম ফকির, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ আব্দুল আলিম মোল্যা, মেম্বার মোঃ আব্দুর রশিদ মোঃ সালাউদ্দিন।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে ৩নং ওয়ার্ড সভাপতি শংকর কুমার, সম্পাদক বাবু গাজী, ৪নং ওয়ার্ড সুব্রত, জগদীশ, ৭নং ওয়ার্ড জিল্লুর, বাবু মালি, সবুর গাজী ৯নং ওয়ার্ড সভাপতি বিশ্বেশ্বর সরকার বক্তব্য রাখেন।

সম্মেলনে স্বপন মন্ডলকে সভাপতি, কামাল হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক, মিনু মোল্যকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ৫১সদস্য বিশিষ্ট ৮নং ওয়ার্ড কৃষকলীগের কমিটির নাম ঘোষণা করা হয়।

পুলিশি হামলায় আহত ফটো সাংবাদিক দেবু বাসায় বিএনপি নেতৃবৃন্দ

খবর বিজ্ঞপ্তি

গত ২২ নভেম্বর খুলনা মহানগর জেলা বিএনপির সমাবেশে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে পুলিশি হামলায় মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত দৈনিক জম্মভুমি পত্রিকার সিনিয়র ফটো সাংবাদিক দেবব্রত রায় দেবুকে দেখতে তার বাসায় যান বিএনপি নেতৃবৃন্দ। বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিকেল সাড়ে ৪টায় মহানগর বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জুর নেতৃত্বে বাগমারাস্থ বাসভবনে সাংবাদিক দেবুর শয্যাপাশে কিছু সময় অবস্থান করেন এবং চিকিৎসার খোঁজ-খবর নেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক সিটি মেয়র মনিরুজ্জামান মনি, মজিবর রহমান ফয়েজ, সাংবাদিক মিজানুর রহমান মিলটন, কাউন্সিলর মাজেদা খাতুন, ওহেদুর রহমান বাবু, হুমায়ুন কবির, জাকির হোসেন, হাসানুল কবির বাপ্পী, আল আমিন হোসেন, আজমল হোসেন পিন্টু, আবুল হোসেন, সাজ্জাত হোসেন জিতু, এস এম আলমগীর হোসেন, লাকী, লাইজু, বিশ্ব প্রমুখ।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহেল আহম্মেদ এর ইন্তেকাল

খবর বিজ্ঞপ্তি

নগরীর নাজিরঘাট মেইন রোডের স্থায়ী বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহেল আহম্মেদ (৭০) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না……রাজিউন)বুধবার (২৪ জুলাই) ভোর পৌনে ৪টার দিকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, মেয়ে, জামাতা, নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন। মরহুমের বড় মেয়ে সালমা সোহেল রিপা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

মরহুমের নামাজে জানাযা বাদ জোহর নাজিরঘাট জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। পরে তাকে নিরালা কবরস্থানে (মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সংরক্ষীত) গার্ড অব অনার শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়। নামাজে জানাযা পরিচালনা করেন মরহুমের মেঝে মেয়ের ছেলে হাফেজ সালমান। সময় কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলমগীর কবির, বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মোড়ল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোতাহার, বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবু নির্মল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ফারুকুজ্জামান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. হাফিজুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা রতন সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, প্রতিবেশী আত্মীয়-স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহেল আহম্মেদ ১৯৭১ সালে ৯ম সেক্টরে যুদ্ধ করেন। তিনি নগরীর নাজিরঘাট মেইন রোডের মৃত. তোফাজ্জেল হোসেন সফুরা খাতুনের ছেলে।

নতুন উদ্দ্যামে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা 

সাবজাল হোসেন,বিশেষ প্রতিনিধি

সারাদেশের স্বর্ণালংকারের বাজারে ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের কারিগরদের তৈরী করা নাকফুলের ঐতিহ্য দীর্ঘদিনের। এখানকার দক্ষ কারিগরদের তৈরী করা সেই নাকফুলে পড়েছিল মহামারি করোনার ছাপ। করোনা বিস্তারকালে নাকফুল কিনতে অন্য জেলা থেকে আসতো না কোন পাইকার। ফলে বন্ধ হয়ে যায় নাকফুল তৈরীর কারখানা। কাজ হারিয়ে বেকার হয়েছিল এখানকার কমপক্ষে সাড়ে হাজারের অধিক কারিগর। কারখানার মালিকেরা হারিয়েছে পূঁজি। যা এখনও ঠিকমত কাটিয়ে উঠতে না পারলেও ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টায় মালিক শ্রমিক উভয়ই ব্যস্ত।

কালীগঞ্জ উপজেলা স্বর্ণাকারদেরসূত্রে জানাগেছে, উপজেলায় ছড়িয়ে ছিটিয়ে প্রায় সাড়ে হাজারের অধিক নাকফুল তৈরীর কারিগর রয়েছে। তাদের তৈরী করা বিভিন্ন ডিজাইনের নাকফুলের সারাদেশে ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। এখানকার নাকফুলের ঐতিহ্য দীর্ঘদিনের। ফলে বিভিন্ন জেলা থেকে পাইকারেরা এসে নাকফুল কিনে নিয়ে যায়। কিন্ত করোনার সময়ে তাদের আসা একেবারে বন্ধ ছিল। তাদের মতে, স্বর্ণালংকার একটি সৌখিন জিনিস। এগুলো মানুষ ব্যবহার করে মনের সখে। কিন্ত সখ পূরন কখনই জীবন বাঁচানোর চেয়ে অধিক গুরুত্বপূর্ণ নয়। সেই কারনেই তো সৌখিন খাতে এতো ধস নেমেছিল। বর্তমানে দেশে স্বাভাবিকতা আসায় আবার কারিগরেরা ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন।

স্বর্ণাকারদেরসূত্রে আরও জানাগেছে, এখানকার নাকফুলের চাহিদা সারাদেশে। ঢাকাসহ দেশের বড় বড় শহরের স্বর্ণ ব্যবসায়ীদের পাইকারেরা এসে এখানকার ঐতিহ্যবাহী নাকফুল কিনে নিয়ে যান। এটা অনেক পূর্ব থেকে বয়ে আসছে। যা করোনার কারনে দীর্ঘ প্রায় দেড় বছর ধরে বন্ধ ছিলো। এখানকার নাকফুলের নকশা অত্যন্ত আকর্ষনীয়। অসংখ্য নকশার নাকফুল কারিগরেরা তৈরী করে রেখে দেয় যে মডেলগুলো পছন্দ করে কিনে নিয়ে যান। সব ধরনের নাকফুলের চাহিদা রয়েছে তবে আড়াইশ থেকে এক হাজার টাকা পর্যন্ত মূল্যের নাকফুল ঢাকার পাইকারেরা বেশি পছন্দ করেন।

স্বর্ণ কারিগর কালীগঞ্জ পৌরসভার কলেজপাড়া গ্রামের শুশান্ত বিশ^াস জানান, প্রায় ২০ বছর আগে থেকে নাকফুল তৈরীর কাজ করে আসছেন। প্রতিদিন কাজ করে সাড়ে ৪’থেকে ৫’টাকা আয় করেন। তা দিয়ে সদস্যের সংসার চালাতে হয় তার। কিন্ত করোনার সময়ে এলাকার নাকফুলের সমস্ত কারখানা বন্ধ হয়ে গিয়েছিল। সে সময়ে কোন অলংকার বিক্রিও ছিল না। ফলে দিনমজুর শ্রেনীর কারিগরেরা কাজ হারিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে থেকে বেকার জীবন করেছে। পরে এখন আবার তাদের কাজ আস্তে আস্তে স্বাভাবিক পর্যায়ে যাচ্ছে। তিনি আরও বলেন, শুধু কারিগরেরাই নয় কারখানার মালিকেরাও অনেকে পূঁজি হারিয়ে ফেলেছে। মালিকেরাও এখন নতুন উদ্যোমে আবার শুরু করেছে।

জিহাদ হোসেন নামের আরেক কারিগর জানান, এলাকার নাকফুলের ঐতিহ্য দীর্ঘদিনের। সারাদেশে তাদের তৈরী বিশেষ নঁকশা করা নাকফুলের  চাহিদা রয়েছে। তারা মজুরী ভিত্তিতে কাজ করেন। যে কারনে কারখানা বন্ধ থাকলে তাদের রোজগার থাকে না। তখন তাদের অনাটন শুরু হয়।

কালীগঞ্জ উপজেলা কালীগঞ্জ উপজেলা জুয়েলারী মালিক সমিতির (বাজুস) সভাপতির ওসমান আলী জানান, করোনার সময়ে তাদের পেশাজীবিদের পর্যাপ্ত ক্ষতি হয়েছে। কারন সময়ে সব ধরনের মানুষ করোনার ভয়ে ভীতু ছিল। সৌখিন অলংকার কেনাকাটার কথা কেউ ভাবতোই না। তাই সৌখিন খাতে বেশি ক্ষতি হয়েছে। অনেক স্বর্ণাকার মালিক অভাবে পড়ে দায়দেনার শিকার হয়েছেন। ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে তাদের বেশ সময় লাগবে। তারপরও নতুন উদ্যোমে তারা আবার ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছেন।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাদিয়া জেরিন জানন, আমি নতুন যোগদান করেছি তবে কর্মহীন সকল শ্রমিককে সহযোগিতা করা হবে। আমি স্বর্ণ কারিগরদের জন্য সরকারি সহযোগিতার ব্যবস্থা করবো।

বাগেরহাটে কমিউনিটি ক্লিনিকের সেবার মানোন্নয়ন করণীয় শীর্ষক সংলাপ

বাগেরহাট প্রতিনিধি।।

বাগেরহাটে কমিউনিটি ক্লিনিকের সেবার মানোন্নয়ন করণীয় শীর্ষক সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩নভেম্বর) বিকালে জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সংলাপে প্রধান অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করে জেলা প্রশাসক মোহম্মদ আজিজুর রহমান।  ডিষ্ট্রিক্ট পলিসি ফোরামের সভাপতি বাবুল সরদারের সভাপতিত্বে সাধারন সম্পাদক মো: আঃ ছালামের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠিত সংলাপে বিশেষ অতিথি হিসাবে বক্তৃতা করেন জেলা সিভিল সার্জন ডা: জালাল উদ্দিন আহমেদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক খোন্দকার মোহম্মদ রেজাউল করিম। সংলাপে পজিশন পেপার উপস্থাপন করেন সাংবাদিক, গবেশক কমিউনিকেশন এ্যাডভাইজার সুনীল কুমার দাস। এসময় সংলাপে অংশগ্রহন কারিদের মধ্যে বক্তৃতা করেন সমাজ সেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম রফিকুল ইসলাম, ডিষ্ট্রিক্ট ফ্যাসেলিটর গপিনাথ সাহা, মুখাইট কমিউনিটি ক্লিনিকের মো. মিজানুর রহমান, বাধন মানব ইন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক মঞ্জুরুল হাসান মিলন, সুপ্তি নারী উন্নয়ন সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ঝিমি মন্ডল, কমিউনিটি ক্লিনিকের সিজি কমিটির সহ-সভাপতি শেখ আব্দুল গফ্ফারসহ আরো অনেকে।

দাকোপ থানা পুলিশের অর্ধ বার্ষিকী পরিদর্শন

বাজুয়া ( দাকোপ) প্রতিনিধি

খুলনার দাকোপ থানা পুলিশ সূত্রে জানা যায় ২৪ তারিখ বুধবার দাকোপ থানা পুলিশের অর্ধ বার্ষিকী পরিদর্শন করেন মোঃ রাশেদ হাসান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সি-সার্কেল, খুলনা। এসময়  মো: রাশেদ হাসানকে থানার একটি চৌকস দল সালামী প্রদান করে। পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন শেখ সেকেন্দার আলী অফিসার ইনচার্জ, দাকোপ থানা, খুলনা মো: আশরাফুল আলম, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত), দাকোপ থানা, খুলনা। পরবর্তীতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সি-সার্কেল খুলনা থানার বিভিন্ন নথিপত্র পর্যালোচনা করেন এবং থানার বিভিন্ন সরকারী মালামালের অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। যথাযথ পুলিশি সেবা নিশ্চিত করতে তিনি থানার নারী, শিশু, বয়স্ক প্রতিবন্ধী সার্ভিস ডেস্ক, থানার বিভিন্ন অবকাঠামো এবং রেজিস্ট্রারাদি পরিদর্শন করেন। পরিদর্শন শেষে তিনি দাকোপ থানার আফিসার ইনচার্জ পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত), কে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।

সাইফুল-তারা পরিষদ বিজয়ী হলে আইনজীবীদের পেশার উন্নয়ন হবে

খবর বিজ্ঞপ্তি

সাইফুল তারা পরিষদ বিজয়ী হলে আইনজীবী সমিতির এবং সদস্যদের পেশার উন্নয়ন হবে। ইতিমধ্যে মহামারী করোনায় কর্মহীন আইনজীবীদের পাশে গিয়ে দাড়িয়েছে সমিতির সভাপতি সাধারণ সম্পাদক। এছাড়া গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ব্যবস্থায় আইনজীবীদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। এই গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে জবাবদিহিতার জায়গায় আনতে হলে সাইফুল তারা পরিষদের কোন বিকল্প নেই। আইনজীবীদের পেশার মান উন্নয়ন এবং গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে শক্তিশালী খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতিকে সমৃদ্ধ করতে সাইফুল তারা পরিষদে ভোট দেয়ার আহবান জানান বক্তরা।

গতকাল বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় জেলা আইনজীবী সমিতির মিলনায়তনে এ্যাড. কাজী বাদশার মিয়ার সভাপতিত্বে এবং এ্যাড. কাজী আবু শাহীনের পরিচালনায় প্রজেকশন সভায় বক্তরা এসব কথা বলেন। এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম এসময়ে প্যানেল পরিচিতি করিয়ে দেন। সভার শুরুতে কোরান তেলওয়াত করেন এ্যাড. মো. সেলিম আহমেদ এবং গীতা পাঠ করেন এ্যাড. নবকুমার চক্রবর্তী। এসময়ে বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী, এ্যাড. এম এম মুজিবর রহমান, এ্যাড. আহমেদ উল্লাহ পিলু, এ্যাড. রজব আলী সরদার, এ্যাড. আইয়ুব আলী শেখ, এ্যাড. ফরিদ আহমেদ, এ্যাড. সরদার আনিসুর রহমান পপলু, এ্যাড. বিজন কৃষ্ণ ম-ল, এ্যাড. অলোকা নন্দা দাস, এ্যাড. কে এম ইকবাল, এ্যাড. এনামুল হক, এ্যাড. অসিত কুমার হালদার, এ্যাড. মিনা মিজানুর রহমান, এ্যাড. মাহতাব উদ্দিন, এ্যাড. সন্দ্বীপ কুমার রায়, সমীর কুমার ঘোষ, এ্যাড. সেলিনা আক্তার পিয়া, এ্যাড. জিয়াদুল ইসলাম, এ্যাড. নজরুল ইসলাম সহ বিভিন্ন পর্যায়ের আইনজীবী।

এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, এ্যাড. এম এম সাজ্জাদ আলী, এ্যাড. শেখ ফারুক হোসেন, এ্যাড. জি এম আমানউল্লাহ, এ্যাড. মো. নজরুল ইসলাম, এ্যাড. তমাল কান্তি ঘোষ, এ্যাড. আশরাফুল আলম রাজু, এ্যাড. তামিমা লতিফ ¯িœগ্ধা, এ্যাড. নওশীন রহমান বর্ষা, আব্দুস শফিক মোল্লা জনি, এ্যাড. রোমানা তানহা, এ্যাড. অশোক গোলদার, সেখ মনিরুজ্জামান মনি, এ্যাড. মেহেদী হাসান, এ্যাড. প্রজেশ রায় সহ বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী পরিষদ আইনজীবী সমিতির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

ডুমুরিয়ায় পূনঃ নির্বাচনে আহম্মদ সরদার বিজয়ী

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি

ডুমুরিয়া মাগুরখালী ইউনিয়নে পূনঃ নির্বাচনে ১নং ওয়ার্ডে ইউপি সদস্য পদে আহম্মদ সরদার নির্বাচিত হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল ৯টা হতে বিকেল ৪টা পর্যন্ত খোরেরাবাদ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। গত ১১ নভেম্বর নির্বাচনে চাচা-ভাতিজা দু‘প্রার্থী সমভোট পাওয়ায় পরবর্তি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে আহম্মদ সরদার তালা প্রতীকে ৫৪৭ ভোট পেয়ে বিজয়ী ভাতিজা ইউনুস সরদার মোরগ প্রতিকে ৪৬৮ ভোট পেয়ে পরাজিত হন। দিনব্যাপি উৎসব মুখর পরিবেশে ১৩৩৬ ভোটারের মধ্যে ১০২৫ ভোটার ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। নির্বাচনে প্রিজাইডিং ’দায়িত্বে ছিলেন উপজেলা ল্লী দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা প্রতাপ চন্দ্র দাস। সাথে নিয়োজিত ছিল ১জন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট,৭২জন পুলিশ ১৭জন আনসার।

ডুমুরিয়ায় উপজেলা ছাত্রদলের কর্মী সভা

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি

ডুমুরিয়ায় উপজেলা ছাত্রদলের আয়োজনে সংগঠনকে গতিশীল করতে এক কর্মী সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।গত মঙ্গলবার বিকেলে ট্রলারঘাট দলীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক ফয়সাল চৌধুরী।উপজেলা ছাত্রদলের সদস্য সচিব জিএম মনিরুজ্জামান সোহাগের সার্বিক পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সভায় বক্তব্যদেন ভান্ডারপাড়া ইউনিয়ন ছাত্রদল সভাপতি খান মফিজুর রহমান,শোভনা ইউনিয়ন সভাপতি মেহেদী হাসান তুহিন,গুটুদিয়া ইউনিয়ন সভাপতি আশিক গোলদার,ডুমুরিয়া ইউনিয়ন সভাপতি মোঃ লেলিন জোয়ার্দার,এসএম সাকিব হাসান,এমরান হোসেন,সাকিল আহম্মেদ,ইভান গাজী,ইব্রাহিম হোসেন,মেহেদী হাসান, নাঈম হাসান,মোঃ আবদুল্লাহ,আসলাম শেখ,ইয়াসিন রহমান,পারভেজ,তারেক রহমান,আল-আমিন,এজাজ আহমেদ,মনি,জাকারিয়া শেখ প্রমূখ।

ডুমুরিয়ায় কালীতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সমরেশ বাড়ই সভাপতি

ডুমুরিয়া প্রতিনিধি

ডুমুরিয়ায় কালীতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে ম্যানেজিং কমিটি নির্বাচনে অধ্যাপক সমরেশ বাড়ই সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে।গতকাল বুধবার সকালে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে একাডেমিক সুপার ভাইজার’কার্যালয়ে সর্বসম্মতি ক্রমে তাকে সভাপতি নির্বাচিত করা হয়।তিনি রংপুর কলেজের সহকারী অধ্যাপক। এরআগে গত ১৯ নভেম্বর বিদ্যালয়ে অভিভাবক সদস্য পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।অধ্যাপক জ্যোতিষ বিশ্বাস ও  সমরেশ বাড়ই প্যানেলের মধ্যে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সমরেশ প্যানেলে আনন্দ দফাদার,উল্লাস বিশ্বাস,পংকজ মন্ডল,মিঠুন বৈরাগী সংরক্ষিত মল্লিকা মন্ডল বিজয়ী হন।নির্বাচনে প্রিজাইডিং অফিসার ছিলেন একাডেমিক সুপার ভাইজার টিকেন্দ্রনাথ সানা।

সাংসদ বাবু’মাতার মৃত্যুবার্ষিকীতে স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার দোয়া

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ¦ মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু’মাতা মরহুমা ফাতেমা খানমের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল করেছে কয়রার দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়নের স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থা। বুধবার (২৪ নভেম্বর) বাদ যোহর আংটিহারা এলাকায় স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার কার্যালয়ে সংসদ সদস্য বাবু’মাতার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন দক্ষিণ বেদকাশী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আছের আলী মোড়ল, প্যানেল চেয়ারম্যান ৪নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুস সালাম খান, যুবলীগ নেতা কাজী মাহবুব রহমান, খুলনা জেলা ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি স্বাধীন সমাজকল্যাণ যুব সংস্থার সভাপতি মোঃ আবু সাঈদ খান, সংস্থার সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান, সহ-সভাপতি আহাদ আলী খান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মামুন কবির, সদস্য মফিজুল ইসলাম, আকবর আলী, তাজমুন হোসেন, সাইফুদ্দিন তুহিন, মোস্তাক শেখ, শাহিনুর, আঃ বারিক, শাহ আলমগীর মিলন, আজিজুল ইসলাম, আসাদুজ্জামান লিটন, রাকিব, রব্বানী প্রমুখ। দোয়া মাহফিল পরিচালনা করেন মাওলানা নূর মোহাম্মাদ।

আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের নব নির্বাচিত মেম্বার আল আমিনকে নিসচা সংবর্ধনা

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

নং আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের নং ওয়ার্ড এর মেম্বার আলহাজ্ব শেখ আল আমিন  বিপুল ভোটে নির্বাচিত হওয়ায় খানজাহান আলী থানা নিরাপদ সড়ক চাই এর নেতৃবৃন্দ ফুলেল শুভেচ্ছা সংবর্ধনা প্রদান করেন। ২৪ নভেম্বর সন্ধ্যায় শিরোমণিস্থ নিসচা কার্যালয়ে সংগঠনের সভাপতি শেখ আবদুস সালামের সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ লুৎফর রহমান লিটনের পরিচালনায় বক্তৃতা করেন খানজাহান আলী থানা সাংবাদিক ইউনিটির সভাপতি শেখ বদর উদ্দিন, শেখ মাসুম বিল্লাহ, মোঃ আব্দুস সামাদ, মিন্টু কুমার দত্ত, শেখ আবুল কালাম,  শেখ ইফতেখার আলম বাপ্পি,এমদাদুল ইসলাম, মোহাম্মদ লিমন মোল্লা, শেখ শরিফুল ইসলাম, মোঃ মহিবুল্লাহ শেখ, মিয়া খালিদ হাসান, আশরাফ আহমেদ, মোঃ বিপ্লব হোসেন, এম আলী, নুরুল ইসলাম লিটন, মোঃ সুজন মোল্লা, শেখ আলমগীর হোসেন, শেখ বাচ্চু, মোঃ মোস্তাকিম বিল্লাহ, সাগর শেখ, নাজমুল শেখ, শেখ বাহাউদ্দিন, শাহজাহান শেখ, মাসুম শেখ, মোঃ ফারুক হোসেন, মোহাম্মদ সাহেব আলী প্রমুখ উল্লেখ্য গত ১১ নভেম্বর য় দফায় অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আটরা গিলাতলা ইউনিয়নের নং ওয়ার্ড থেকে ১ম বারের মত বিপুল ভোটে মেম্বার পদে বিজয়ী হয়

পিরোজপুরে কৃষি উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় কৃষক প্রশিক্ষণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

মাটির নমুনা সংগ্রহ পদ্ধতি, সুষম সার ব্যবহার ভেজাল সার সনাক্তকরণ বিষয়ক দিন ব্যাপী কৃষক প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর উপজেলার চরখোলা গ্রামে দিন ব্যাপী এর আয়োজন করা হয়। মৃত্তিকা সম্পদ উন্নয়ন ইনস্টিটিউট গোপালগঞ্জ-খুলনা-বাগেরহাট সাতক্ষীরা-পিরোজপুর কৃষি উন্নয়ন প্রকল্প  এসআরডিআই অংগ এই প্রশিক্ষণের আয়োজন করা হয়। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ বিধি মেনে প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয়েছে।

প্রশিক্ষণ প্রদান করেন প্রকল্প পরিচালক অমরেন্দ্রনাথ বিশ^াস বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা শামসুুন নাহার রতœা। প্রশিক্ষণে বিভিন্ন এলাকা থেকে আগত ৩০জন কৃষাণ কৃষাণী অংশ গ্রহণ করেন। 

প্রশিক্ষকগন বলেন, ফসলের খাদ্য ভান্ডার হলো মাটি। অপরিকল্পিত ভাবে সার ব্যবহারের ফলে মাটির উর্ভরতা শক্তি ক্রমেই কমে যাচ্ছে। ফলে ফসলের ফলন উৎপাদন আশানুরুপ হচ্ছে না। এমতাবস্থায় প্রয়োজন মাটির  উর্বরতা বৃদ্ধি সংরক্ষণ করা। জন্য মাটির উর্বরতা সংরক্ষণসহ ফসলের কাঙ্খিত ফসল বৃদ্ধির জন্য মাটি পরীক্ষা করে সুষম সার প্রয়োগ করতে হবে। অধিক ফসল উৎপাদনের জন্য বর্তমানে বিভিন্ন রাসায়নিক সার ব্যবহার করা হচ্ছে। কিছু অসাধু ব্যবসায়ী সারে ভেজাল দ্রব্য মিশিয়ে নকল সার বা ভেজাল সার তৈরী করে বিক্রি করছে। এতে মাটির গুনাগুন নষ্ট হচ্ছে। কৃষকরা একটু সতর্ক হলেই আসল সার জেভাল সারের পার্থক্য বুঝতে পাবেন। প্রশিক্ষণে মাটির নমুনা সংগ্রহ পদ্ধতি, সুষম সার ব্যবহার ভেজাল সার সনাক্তকরণ বিষয়ক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করার পর তা সকল কৃষকের মাঝে ছড়িয়ে দেয়ার আহবান জানানো হয়।

কয়রায় বিভিন্ন স্কুল, মাদ্রাসা দলীয় কার্যালয়ে এমপি বাবুর মায়ের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল

কয়রা(খুলনা)প্রতিনিধি

কয়রায় বিভিন্ন স্কুল মাদ্রাসা, ইউনিয়ন পরিষদ দলীয় কার্যালয়ে নানা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) সংসদ সদস্য আলহাজ¦ মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু’মমতাময়ী মাতা মরহুমা ফাতেমা খানমের ২য়  মৃত্যুবার্ষিকী পালন উপলক্ষে কোরআন খতম, মিলাদ দোয়া মাহফিল করেছে কয়রা উপজেলা আওয়ামী লীগ, ছাত্রলীগ আওয়ামীলীগের সকল সহযোগী সংগঠন। ২৪ নভেম্বর  বৃুধবার ফজর নামাজের পর থেকে উপজেলার সকল মসজিদ হাফিজিয়া মাদ্রাসায় মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনায় কুরআন খতম, দোয়া মাহফিল করা হয়েছে। এবং হেফজ ছাত্রদের মাঝে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়। সকাল টায় মহারাজপুর ইউনিয়নে কালনা আমিনিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি জিএম মোহসিন রেজার সভাপতিত্বে, ১০ টায় কয়রা উত্তর চক আমিনিয়া কামিল মাদ্রাসায় বিভিন্ন হাফিজিয়া মাদ্রাসায় ছাত্রলীগ সভাপতি শরিফুল ইসলাম টিংকু, সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক বাদলের নেতৃত্বে কোরআন খতম দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। বেলা  ১১ টায় সদর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি এস এম জিয়াদ আলীর সভাপতিত্বে বিকালে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি শরিফুল ইসলাম টিংকুর সভাপতিত্বে সাধারণ সম্পাদক আমিনুল হক বাদলের সঞ্চালনায় উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যালয়ে দোয়া মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা,আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান এসএম বাহারুল ইসলামসহ আওয়ামীলীগ, ছাত্রললীগ  নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন অনুষ্ঠান শেষে দোয়া মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মাওলানা আব্দুল কাদের। অনুষ্ঠান শেষে তাবারক দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়। এছাড়া উপজেলার সকল মসজিদে এমপি বাবুর মাতার রুহের মাগফেরাত কামনায় দোয়া মাহফিল করা হয়।

কয়রা সরকারি মহিলা কলেজের এইচ এস সি পরিক্ষার্থীদের বিদায় দোয়া অনুষ্ঠান

কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি

কয়রায় কয়রা সরকারি মহিলা কলেজের ২০২১ সালের এইচ এস সি পরিক্ষার্থীদের বিদায় দোয়া অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৪ নভেম্বর সকাল ১১ টায় বিদ্যালয় চত্তরে বাংলা বিভাগের প্রভাষক মোঃ হাবিবুর রহমানের সভাপতিত্বে প্রভাষক নুরুজ্জামান জহুরুল হকের সঞ্চালনায় বিদায় দোয়া অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন অত্র কলেজের  উপাধাক্ষ্য এইচ এম নজরুল ইসলাম। এসময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি এইচএম নজরুল ইসলাম শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে  বলেন, শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড, শিক্ষা ছাড়া কোন জাতি উন্নতির চরম শিখরে পৌছাতে পারে না। সে জন্য তোমাদেরকে পড়াশুনায় আরও মনোযোগী হয়ে ভাল ভাবে পরিক্ষা দিতে হবে। এবং ভালো ফলাফল করে দেশ জাতি সমাজের মুখ উজ¦করার পাশাপাশি উচ্চ শিক্ষা গ্রহনের সিড়ি বেয়ে রাষ্ট্রের উচ্চ স্থান দখল করবে এই দোয়া কামনা করছি। অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ইংরেজি প্রভাষক রেজাউল করিম, ইসলাম শিক্ষা প্রভাষক মোস্তফা অলিউল্লাহ, প্রভাষক উম্মে সালমা পারভীন, বিদায়ী ছাত্রীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ফারজান, তানিয়া মেহেরুন্নেছা। প্রথম বর্ষের ছাত্রীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ফারহানা, নাজমুন্নাহার, ফারজানা, মারিয়া, তানিয়া সুরাইয়া প্রমুখ। অনুষ্ঠান শেষে মিলাদ দোয়া মোনাজাত করেন মাওলানা মোস্তফা অলিউল্লাহ।

দিন পর শুরু হয়েছে ডুবন্ত বাল্কহেডের কয়লা অপসারণ কাজ, এখনও খোঁজ মেলেনি স্টাফের

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের হাড়বাড়িয়া এলাকায় কয়লা নিয়ে ডুবে যাওয়া এম,ভি ফারদিন-বাল্কহেডের কয়লা অপসারণ কাজ দিন পর শুরু হয়েছে। বুধবার দুপুর কাজ শুরু করেছেন কয়লা আমদানীকারক প্রতিষ্ঠান বাল্কহেড মালিক পক্ষ। ঢাকার নারায়ণগঞ্জের ভাই ভাই স্যালভেস প্রতিষ্ঠানের ১৫ সদস্যের একটি দল বুধবার হাড়বাড়িয়া এলাকায় ভাটার সময়ে ডুবন্ত নৌযান থেকে কয়লা অপসারণের কাজ শুরু করেন। সমুদয় কয়লা অপসারণের পর ডুবন্ত নৌযানটি তোলা হবে বলে জানিয়েছেন নৌযান মালিক মোঃ ফজলুল হক খোকন। তিনি আরো বলেন, টানা  দিন ধরে ডুবে থাকার কারণে পলি পড়ে বাল্কহেডটির হ্যাচ ভরে যাওয়ার পাশাপাশি কয়লাও ঢেকে গেছে। ফলে কয়লা অপসারণ বাল্কহেডটি উত্তোলণে সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন স্যালভেজ প্রতিষ্ঠানের ডুবরি দলের প্রধান মোঃ সাত্তার হাওলাদার।

এদিকে কয়লা বোঝাই ডুবে যাওয়া নৌযানটিতে জন ষ্টাফের মধ্যে দুর্ঘটনার রাতে দুইজনকে জীবিত, পরদিন দুইজনকে মৃতকে এবং তৃতীয় দিনে মৃত আরো একজনের লাশ উদ্ধার হয়। তবে এখনও নিঁখোজ রয়েছেন আরো দুই ষ্টাফ। সংশ্লিষ্টরা ওই দুইজনের উদ্ধার অভিযান বন্ধ করে দিলেও নিখোঁজদের পরিবার তাদের সন্ধানে নদীতে ট্রলার নিয়ে ঘুরে ফিরছেন।

গত ১৫ নভেম্বর মোংলা বন্দরের হাড়বাড়িয়ার নম্বর এ্যাঙ্কারে থাকা বিদেশী জাহাজ এম,ভি এলিনা-বি থেকে কয়লা বোঝাই করে ছেড়ে যাওয়ার সময় অপর একটি বিদেশী জাহাজের ধাক্কায় ডুবে যাওয়া বাল্কহেড ফারদিন-০১।

বেতাগা ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে উন্মুক্ত ওয়ার্ড সভা

ফকিরহাট প্রতিনিধি।

বাগেরহাটের ফকিরহাটের বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের উদ্যোগে ৫নং পূর্ববেতাগা ওয়ার্ডের উন্মুক্ত ওয়ার্ড সভা বুধবার বিকাল ৪টায় তপন স্মৃতি মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইউপি সদস্য অসিত কুমার দাশ এর সভাপতিত্বে এর উদ্ভোধন করেন, ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুস আলী শেখ, প্রধান অতিথি ছিলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ, সম্মানিত অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সানজিদা বেগম, বিশেষ অতিথি ছিলেন ৭২তম বুনিয়াদী প্রশিক্ষনে আসা কর্মকর্তারা, উপদেষ্টা ছিলেন সংরক্ষিত মহিলা সদস্যা কামরুন্নাহার নীপা। তন্ময় কুমার দাশ এর সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তৃতা করেন, দি হাঙ্গার প্রজেক্টের প্রকল্প সমন্বকারী নাজমুল হুদা মিনা, লখপুর ইউপি চেয়ারম্যান এমডি সেলিম রেজা, পিলজংগ ইউপি চেয়ারম্যান মোড়ল জাহিদুল ইসলাম, শুভদিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ফারুকুল ইসলাম ওমর বেতাগা ইউনিয়ন উন্নয়ন সহযোগী আনন্দ কুমার দাশ প্রমুখ। সময় চাহিদা দাবী করে অর্ধশতাধিক ওয়ার্ডবাসি তাদের চাহিদার কথা তুলে ধরে বক্তৃব্য রাখেন। ##

বেতাগা ইউপির অর্জন সম্প্রকীত মতবিনিময়

ফকিরহাট প্রতিনিধি।

৭২তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্সের মাঠ সমীক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহনকারী (বি.সি.এস) কর্মকর্তাবৃন্দের সঙ্গে ফকিরহাটের বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের অর্জন, কার্যক্রম ভবিষ্যত পরিকল্পনা নিয়ে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের আয়োজনে বুধবার সকাল ১১টায় ইউনিয়ন পরিষদ মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) খোন্দকার মোঃ রিজাউল করিম। অনুষ্ঠানে সম্মানীত অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা বেগম। বেতাগা ইউপি চেয়ারম্যান মো. ইউনুস আলী শেখের সভাপতিত্বে সভায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সহকারী কমিশনার সঞ্জয় দাশ, সহকারী কমিশনার ইসরাত জাহান, সহকারী পুলিশ সুপার খান আসিফ তপু, সহকারী কর কমিশনার ইনজামান উল হক, সহকারী কমিশনার মোহাম্মদ আসলাম সারোয়ার, সহকারী কমিশনার শামস শাহাদাত মাহমুদ উল্লাহ, সহকারী কমিশনার পায়রা চৌধুরী, সহকারী কমিশনার তানভীর হাসান তুরান, সহকারী কমিশনার সৌম্য চৌধুরী, সহকারী মহা হিসাব রক্ষক আতিক মাহমুদ প্রমূখ। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন সিআইজি ফোরামের সাধারন সম্পাদক মো. নাজমুল হুদা। অনুষ্ঠানের শেষে বেতাগা ইউনিয়ন পরিষদের পক্ষ থেকে সকলকে ক্রেষ্ট প্রদান করা হয়েছে। এসময় বিভিন্ন কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, সংবাদকর্মী সহ বিশিষ্টজনেরা উপস্থিত ছিলেন। ##

লখপুরে দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ডেউটিন চেক প্রদান

ফকিরহাট প্রতিনিধি।

বাগেরহাটের ফকিরহাট উপজেলার লখপুর ইউনিয়নে দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে ঢেউটিন নগত অর্থ প্রদান করা হয়েছে। বুধবার দুপুর ১২টায় লখপুর ইউনিয়ন পরিষদ চত্ত্বরে প্রত্যেক পরিবারকে ২বান ঢেউটিন ৬হাজার হাজার টাকার চেক প্রদান করা হয়। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান স্বপন দাশ প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এদিন ৯টি পরিবারকে মোট ৫৪হাজার টাকার চেক ১৮বান ঢেউটিন বিতরণ করেন। এতে সভাপতিত্ব করেন লখপুর ইউপি চেয়ারম্যান এম.ডি সেলিম রেজা। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা প্রকল্প বাস্তবয়ন কর্মকর্তা সাঈদা দিলরুবা সুলতানা, ইউপি সদস্য আহম্মদ আলী, শেখ সেলিম, আসপিয়ার হোসেন মোড়র, কবির মোড়ল মহিলা সদস্যা তাসলিমা লতা প্রমূখ।

রূপসায় আইনশৃংখলা কমিটি সভা অনুষ্টিত

রূপসা প্রতিনিধি

রূপসা উপজেলা মাসিক আইন শৃংখলা কমিটির সভা ২৪নভেম্বর বেলা ১১টায় অফিসার্স ক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্টিত হয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়া তাছনিম এর সভাপতিত্বে প্রধান  অতিথির বক্তৃতা করেন স্থানীয় সাংসদ আঃসালাম মূর্শেদী, বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা  পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বাদশা, সহকারী কমিশনার ভূমি সাজ্জাদ হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ যোবায়ের, ফারহানা আফরোজ মনা, কৃষি কর্মকর্তা মো:ফরিদুজ্জামান, থানা অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন। এসময় বক্তৃতা করেন প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা: প্রদীপ কুমার মজুমদার, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আইরিন পারভিন, সমাজসেবা কর্মকর্তা জেসিয়া জামান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা আরিফ হোসেন,বন কর্মকর্তা মুজিবর রহমান, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সদস্য আ:মজিদ ফকির,  ইউপি চেয়ারম্যান আশরাফুজ্জামান বাবুল, এসহাক সরদার,কামাল হোসেন বুলবুল,উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আ:রাজ্জাক শেখ, উপজেলা প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি এম মুরশিদ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক আ:মজিদ শেখ প্রমূখ।

সরকার জনগণের অবিসংবাদিত নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার প্রতি মনুষ্যত্বহীন আচরণ করছে: মঞ্জু

।। খবর বিজ্ঞপ্তি।।

কেন্দ্রীয় বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক নজরুল ইসলাম মঞ্জু বলেছেন, সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী বিএনপি’চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গুরুতর অবস্থায় রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ২০১৮ সালের ৮ই ফেব্রুয়ারী সাজানো মামলায় ফরমায়েসী রায়ের মাধ্যমে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাবন্দী করা হয়। তাঁকে যখন কারাগারে নেয়া হয় তখন তিনি সুস্থ ছিলেন, যা দেশবাসী গণমাধ্যমে অবলোকন করেছেন। দীর্ঘ কারাবাসে তিনি ক্রমান্বয়ে অসুস্থ হতে থাকেন। কারাগারে নানাবিধ জটিল রোগে ভুগতে থাকলেও সরকার তাতে কর্ণপাত করেনি। দল পরিবারের পক্ষ থেকে বারবার তাঁর সুচিকিৎসার জন্য দাবি করা হলেও সরকার বিষয়ে সম্পূর্ণরুপে নির্বিকার থাকে। নিজ বাসভবনে অবস্থান করলেও মূলত: বেগম খালেদা জিয়া বন্দী এবং তাঁর সকল মৌলিক মানবাধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বেলা ১২টায় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা আইসিটি) মো. সাদিকুর রহমান খানের কাছে গুরুতর অসুস্থ সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং সুচিকিৎসার জন্য বিদেশ প্রেরণের দাবিতে স্মারকলিপি প্রদান শেষে সাংবাদিকদের কাছে তিনি এসব কথা বলেন। সাবেক সংসদ সদস্য মঞ্জু আরো বলেন, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া করোনায় গুরুতরভাবে আক্রান্ত হন। করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠলেও পোষ্টকোভিড জটিলতা এবং এর ওপর নানাবিধ রোগ তাঁর জীবনকে বিপন্ন করে তুলেছে। চিকিৎসাধীন বেগম খালেদা জিয়ার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ডও তাঁকে বিদেশে উন্নত চিকিৎসার জন্য সুপারিশ করেছে। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে চিকিৎসার দাবি শুধুমাত্র বিএনপি-নয়, দেশের বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, নাগরিক সমাজ আইন বিশেষজ্ঞগণ জানিয়েছেন। দেশের আপামর জনসাধারন দেশনেত্রীর মুক্তি এবং বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে সোচ্চার। সুচিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে দেশের প্রচলিত আইনে কোন বাধা নেই বলে আইন বিশেজ্ঞরা অভিমত দিয়েছেন। কিন্তু কর্তৃত্ববাদী দুর্বিনীত অমানবিক সিদ্ধান্তে জীবন-মরণের সন্ধিক্ষণে থাকা বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে সুচিকিৎসার সুযোগ না দেয়া তাঁর মৌলিক অধিকার হরণ। দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সুচিৎসার জন্য তাঁকে অবিলম্বে বিদেশ পাঠানো না হলে এবং এর ফলে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটলে সরকার এর দায় এড়াতে পারবে না। জনগণ মনে করে-সরকার নিজেদের সীমাহীন ব্যর্থতা আড়াল করার জন্য দেশকে অরাজক পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিতেই জনগণের অবিসংবাদিত নেত্রী বেগম জিয়ার প্রতি মনুষ্যত্বহীন আচরণ করেছে। এই মূহুর্তে মানবিক বিবেচনায় বেগম জিয়াকে মুক্তি এবং তাঁকে উন্নত চিকিৎসার জন্য অবিলম্বে বিদেশ পাঠাতে হবে। বেগম জিয়ার মুক্তি এবং সুচিকিৎসা পেতে তাঁকে বিদেশ পাঠানোর দাবী এখন জনদাবীতে পরিণত হয়েছে। স্মারনকলিপি প্রদান কালে উপস্থিত ছিলেন, জেলা বিএনপির সভাপতি এড. শফিকুল আলম মনা, নগর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মনি, জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আমীর এজাজ খান, জাফরউল¬াহ খান সাচ্চু, রেহানা ঈসা, শাহজালাল বাবলু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আব্দুর রশিদ, মোল্যা খায়রুল ইসলাম, সাইফুর রহমান মিন্টু, অধ্যাপক মনিরুল হক বাবলু, আব্দুর রকিব মল্লিক, আবু হোসেন বাবু, কামরুজ্জামান টুকু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, সামসুল আলম পিন্টু, ওহেদুর রহমান রানা, সাজ্জাদ আহসান পরাগ, ইকবাল হোসেন খোকন, নিজাম উর রহমান লালু, মুন্সি শফিকুল আলম, হাসানুর রশিদ মিরাজ, মিজানুর রহমান মিলটন, শামসুজ্জামান চঞ্চল, খায়রুল ইসলাম জনি, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, কাজী শফিকুল ইসলাম শফি, তানভীরুল আজম রুম্মন, কালাম শিকদার, সামসুল বারী পান্না, ইশহাক শিকদার, ইমতিয়াজ আলম বাবু, আসলাম হোসেন, সাইমুন ইসলাম রাজ্জাক, মোহাম্মাদ আলী, শাহনাজ পারভীন, শামীম আশরাফ, শাকিল আহমেদ, মশিউর রহমান লিটন, সাজ্জাত হোসেন জিতু, এডভোকেট এস এম মারুফ হোসেন, আলমগীর হোসেন প্রমুখ। 

দক্ষিণ পশ্চিম উপকূলীয় এলাকাকে দূর্যোগ প্রবণ এলাকা ঘোষনাসহ বিভিন্ন দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারক লিপি প্রদান

খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরাসহ দেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকুলীয় এলাকাকে দূর্যোগ প্রবন এলাকা ঘোষনা করে টেঁকসই বেঁড়িবাধ নির্মান দ্রুত বাস্তবায়ন লবনাক্ত নিরসনে পদক্ষেপ গ্রহনসহ দফা দাবীতে প্রধানমন্ত্রী বরাবর উপকুলীয় এলাকার ১০ হাজার মানুষের স্বাক্ষরিত এক স্মারক লিপি প্রদান করা হয়েছে। সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবিরের মাধ্যমে উক্ত স্মারক লিপি প্রদান করেন, বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা বিন্দু নারী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

স্মারক লিপিতে সময় তারা উল্লেখ করেন, জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সবচেয়ে বেশী ঝুকিতে রয়েছে সাতক্ষীরা জেলা। জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে সাইক্লোন, বন্যা, খরা, লবনাক্ততা, নদী ভাঙন, বেঁড়িবাধ ভাঙন পানির সমস্যা সাতক্ষীরাসহ দেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকুলীয় এলাকার মানুষের নিত্য সঙ্গী। সাতক্ষীরা জেলায় হাজার ৪০২টি পানির উৎস সম্পূর্ণ অকেজো হয়ে যাওয়ায় সুপেয় পানির সংকটে রয়েছে জেলা ১০ লক্ষাধিক মানুষ। এছাড়া ১৯৬০ থেকে ৬৫ সালের নকশায় তৈরী বেঁড়িবাধ ৩৫ দশমিক কিলোমিটার ঝুকিতে রয়েছে। ২০০০ সাল থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত বছরে লবনাক্ত জমি ৩৬ হাজার হেক্টর বৃদ্ধি পেয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে তারা সাতক্ষীরাসহ দেশের দক্ষিণ পশ্চিম উপকুলীয় এলাকাকে দূর্যোগ প্রবণ এলাকা ঘোষনা করে টেঁকসই বেঁড়িবাধ নির্মান দ্রুত বাস্তবায়ন, নির্দিষ্ট বরাদ্দ রাখা, লবনাক্ত নিরাসনে পদক্ষেপ গ্রহন, সুপেয় পানির উৎস পূনরাদ্ধার সুন্তরবন রক্ষা পরিকল্পনাধীন কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র বন্ধসহ দফা দাবীতে তারা প্রধানমন্ত্রী বরাবর এই স্মারক লিপি প্রদান করেন।

সাতক্ষীরায় জেলা বিএনপির স্মারকলিপি প্রদান

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

বিএনপি চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি এবং সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবীতে সাতক্ষীরায় স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হুমায়ুন কবিরের নিকট জেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা উক্ত স্মারকলিপি প্রদান করেন।

স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির আহবায়ক অ্যাড সৈয়দ ইফতেখার আলী, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব চেয়ারম্যান আব্দুল আলিম, যুগ্ন আহবায়ক শেখ তারিকুল হাসান, হাবিবুর রহমান হাবিব, মৃনাল কান্তি রায়, জেলা শ্রমিকদল সভাপতি আব্দুস সামাদ, জেলা যুবদল সভাপতি আবু জাহিদ ডাবলু, জেলা স্বেচ্ছাসেবকদল সভাপতি সোহেল আহমেদ মানিক, পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ শাহীন, যুবদল সাধারন সম্পাদক হাফিজুর রহমান মুকুল, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি শরিফুজ্জামান সজিব, অ্যাডঃ এ.বি.এম সেলিম, অ্যাডঃ আকবর আলী, অ্যাড. আরিফুর রহমান প্রমুখ।

শরণখোলার সাউথখালী ইউপির সাত মেম্বরকে পরিষদ থেকে বের করে দিলেন চেয়ারম্যান

মোঃ আনোয়ার হোসেন, (শরণখোলা)

শরণখোলার সাউথখালী ইউনিয়ন পরিষদে প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচন নিয়ে বিরোধের কারণে সাত মেম্বরকে পরিষদ থেকে বের করে দিলেন চেয়ারম্যান। ঘটনার প্রতিকার চেয়ে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন তারা।

সাউথখালী ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বর জামাল হোসেন জমাদ্দার, বাচ্ছু মুন্সি, দেলোয়ার হোসেন মীর,  আল-আমিন খান, জাহাঙ্গীর খলিফা, তহমিনা বেগম, লাভলি বেগম লিখিত অভিযোগে জানান, ইউনিয়ন পরিষদের সভায় চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন মেম্বরদের কোন মতামত গ্রহন করেন না। তার ইচ্ছামত সিদ্ধান্ত নেন। কেউ কথা বললে তাকে পরিষদ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। এমনকি গত নভেম্বর পরিষদের প্রথম সভায় প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচনের নিয়ম থাকলে তার পছন্দের প্রার্থী নির্বাচিত করতে না পারায় সভা মুলতবি করেন।

এরপর বুধবার সকাল ১০টায় পরিষদের এক সভায় প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বাচন নিয়ে পুনরায় আলোচনা হয়। এসময় ইউপি চেয়ারম্যান তার নিজের পছন্দের প্যানেল চেয়ারম্যানের নাম প্রস্তাব করেন। কিন্তু পরিষদের ১২ মেম্বরের মধ্যে সাতজন বিকল্প প্রস্তাব দেন। এতে চেয়ারম্যান মোজ্জাম্মেল হোসেন ক্ষুব্ধ হয়ে ওই সাত মেম্বরকে পরিষদ থেকে বের করে দেন এবং তিনি একাই পরিষদ চালাবেন বলে ঘোষনা দেন। ঘাটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। পরে ওই সাত মেম্বর ঘটনার প্রতিকার চেয়ে বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দেন।

জানতে চাইলে সাউথখালী ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ মোজাম্মেল হোসেন বলেন, আমি কাউকে পরিষদ থেকে বের করে দেইনি। তবে প্যানেল চেয়ারম্যান নির্বচিত করতে মেম্বরদের ভোটের প্রয়োজন নেই। আমার পছন্দের মেম্বর জাকির হোসেন হাওলাদারকে প্যানেল চেয়ারম্যান বানিয়েছি।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা খাতুনে জান্নাত বলেন, সাউথখালীর সাত মেম্বরের একটি লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি নিয়ে উর্ধ্বতন কর্তপক্ষের সাথে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শরণখোলায় বিদ্যুতে দিন মজুরের মৃত্যু

শরণখোলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

বাগেরহাটের শরণখোলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মোশারেফ ফকির (৪৫) নামে এক দিনমজুর মারা গেছেন। বুধবার দুপুর ১২টার দিকে একটি রেইন ট্রি গাছের ডাল কাটার সময় বিদ্যুতের তারে ডালের অংশ স্পর্শ করে। এতে বিদ্যুতায়িত হয়ে তিনি ছিটকে পড়েন। পরে হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

নিহতের চাচাতো ভাই আব্দুর রহিম জানান, মোশারেফ দিন চুক্তিতে একই গ্রামের ইসাহাক শরীফের বাড়ির রেইনট্রি গাছের ডাল কাটতে গিয়েছিলেন। ডাল কাটার শেষ পর্যায়ে পাশ থেকে যাওয়া বিদ্যুতের তারে ডালের মাথার অংশ লেগে যায়। সঙ্গে সঙ্গে ছিটকে মাটিতে পড়ে যান।

শরণখোলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক ডা. গোলাম মোক্তাদির জানান, হাসপাতালে আসার আগেই মোশারেফের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর বিষয়টি পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে। 

শরণখোলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইদুর রহমান জানান, ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জলবায়ু দুর্যোগ প্রোমোশনে অবহিতকরণ কর্মশালা

কপিলমুনি প্রতিনিধি

পাইকগাছায় গদাইপুর ইউনিয়ন পরিষদে জলবায়ু দুর্যোগ প্রোমোশন বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় পরিষদের সভাকক্ষে ইউপি চেয়ারম্যান শেখ জিয়াদুল ইসলাম জিয়া সভাপতিত্বে ব্যক্তব্য রাখেন এনজিও ডরপ সুশিলন প্রতিনিধি তাপস কুমার দাস, হাসি আক্তার, আফিরোননেচ্ছা শিলা ইউপি সদস্য ইউনুস আলী। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রেসক্লাব পাইকগাছা সাধারণ সম্পাদক বাজেট মনিটরিং ক্লাবের সদস্য মহানন্দ অধিকারী মিন্টু, সাংবাদিক ফসিয়ার রহমান, কৃষি কর্মকর্তা ডলটন রায় (এসএএও), ইউপি সদস্য পুরুষ মহিলা, ডরপ প্রতিনিধি বিপ্লব মন্ডল, মা সংসদের সদস্যসহ এালাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবগ্য উপস্থিত ছিলেন।

পাইকগাছায় ৭০ বছরের পথে ঘেরাবেড়ায় পরিবারের  সদস্যরা মানবেতায় জীবন যাপন করছে

পাইকগাছা প্রতিনিধি।।

 পাইকগাছায় ৭০ বছরের পারিবারিক পথে ঘেরাবেড়া পাঁকা স্থাপনা তৈরী করে বন্ধ করে দেয়ায় পরিবারের ৪০ জন সদস্য মানবেতায় জীবন যাপন করছে। নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদ সহ বিভিন্ন জায়গায় অভিযোগ করেও প্রতিকার মেলেনি। ভুক্তভোগী পরিবার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্থক্ষেপ কামনা করেছেন।

অভিযোগে জানাগেছে, উপজেরার লতা ইউনিয়নের তেতুলতলা গ্রামের মৃত্যু হাজরা পদ ঢালীর ছেলে গোস্ট বিহারী ঢালীর সাথে মৃত্যু শিশুবর ঢালী ছেলে সত্যজিৎ ঢালী গংদের সাথে শরীক সম্পত্তি ভাগবাটোয়ার করে শান্তি পূর্ণভাবে ভোগ দখলে রয়েছেন। গোস্ট বিহারীর ছেলে দিবাশিষ ঢালী জানান, গত জুলাই রাস্তায় ঘেরা বেড়া দিতে গেলে আমরা বাঁধা দিলে তারা আমার আমার ভাইকে পিটিয়ে আহত করে। নিয়ে উপজেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মামলা রয়েছে। বর্তমানে আমরা অতুল বিশ্বাস খগেন বিশ্বাসের চিংড়ী ঘেরর বাঁধ দিয়ে বের হতে হচ্ছে। ছোট কোমলমতি শিশু বৃদ্ধরা বাঁধ দিয়ে স্কুলে যেতে পরে না। তিনি আরো বলেন তারা কোন শালিশ বা আইন আদালত মানে না। সে কারণে আমরা যাতে বাড়ি থেকে বের হতে পরি তার জন্য উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। বিষয় সত্যজিৎ ঢালী জানান পথ নিয়ে মামলা চলছে। ঘর নির্মানের কথা স্বীকার করে বলেন আমরা আমাদের জায়গা দিয়ে বেরহতে দিবনা। লতা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কাজল কান্তি বিশ্বাস জানান, আমি বিষয়টি দেখার জন্য ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। দেখেছি চেষ্টা করে দেখছি তাদের দুই পরিবারের আপোষ মিমাংসা করে পথ বের করে দেওয়ার জন্য।

পাইকগাছা-কয়রার সংসদ সদস্য’মায়ের ২য় মৃত্যুবার্ষিকীর দোয়া মাহফিল

পাইকগাছা প্রতিনিধি।।

পাইকগাছা-কয়রার সংসদ সদস্য মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবুর মায়ের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে স্মরণ সভা দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকাল ১১ টায় সোলাদানা ইউনিয়নের আবু হোসেন কলেজে দোয়া অনুষ্ঠান হয়েছে। সরদার আবু হোসেন কলেজের অধ্যক্ষ শেখ ফারুক হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন, সোলাদানা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান গাজী আব্দুল মান্নান গাজী। সম্মানীত অতিথি ছিলেন, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ওই কলেজের সভাপতি মোঃ শিহাব উদ্দীন ফিরোজ বুলু। এম এম আজিজুল হাকিম প্রভাষক বজলুর রহমানের পরিচালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন ব্যবসায়ী আব্দুল মজিদ সানা, প্রভাষক আবু সালে মোঃ ইকবল, জি এম রেজাউল করিম, শাহাবুদ্দী শাহিন। বক্তব্য রাখেন, বরবিউল ইসলাম রবি গাজী, সায়েদ আলী মোড়ল কালাই, পঞ্চানন সানা, ইউপি সদস্য আজিজুল রহমান লাভলু, আবুল কালাম আজাদ, বি এম আরেফিন আলম, জুলি শেখ, শফিকুল ইসলাম, আসমা আহম্মদ, রাজেশ মন্ডল, পিজুষ কুমার মন্ডল, আব্দুল্লাহ আল মামুন। দোয়া অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন মাওঃ মোঃ আব্দুর রহমান।

বেগম জিয়ার মুক্তি সুচিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর দাবিতে খুলনায় বিএনপির স্মারকলিপি

খবর বিজ্ঞপ্তি

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি বিদেশে সুচিকিৎসার দাবিতে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার খুলনা জেলা প্রশাসককে স্মারকলিপি দিয়েছে খুলনা মহানগর জেলা বিএনপি। দুপুর ১২টার দিকে বিএনপি এবং অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী জেলা প্রশাসক কার্যালয় চত্বরে জড়ো হন। সেখান থেকে শীর্ষ নেতৃবৃন্দের একটি প্রতিনিধি দল অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা আইসিটি) মো: সাদিকুর রহমান খানের দফতরে যান এবং তার হাতে স্মারকলিপি তুলে দেন।

স্মারকলিপিতে বলা হয়েছে, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ফরমায়েশি রায়ে তাকে কারাগারে পাঠানোর সময় তিনি সুস্থ ছিলেন, কিন্ত সুচিকিৎসার অভাবে ক্রমান্বয়ে অসুস্থ হতে থাকেন। কারাগারে নানা জটিল রোগে ভুগতে থাকলেও সরকার তাতে কর্ণপাত করেনি। করোনার শুরুতে তাকে শর্তসাপেক্ষে মুক্তি দিলেও তিনি মূলত গৃহবন্দী এবং তাঁর সকল মৌলিক মানবাধিকার কেড়ে নেয়া হয়েছে। এরপর তিনি করোনায় আক্রান্ত হন এবং পোস্টকোভিড জটিলতাসহ নানাবিধ রোগ তাঁর জীবনকে জটিল করে তুলেছে। তার চিকিৎসার জন্য গঠিত মেডিকেল বোর্ড বিদেশে পাঠানোর সুপারিশ করেছে। রাজনীতিবীদ পেশাজীবী সহ অনেকেই দাবিতে সোচ্চার।

স্মারকলিপিতে বলা হয়, তাকে বিদেশে পাঠানো না হলে এবং এর ফলে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটলে সরকার দায়ভার এড়াতে পারবেনা। সরকার সীমাহীন ব্যর্থতাকে আড়াল করতে দেশকে অরাজক পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দিতে তার প্রতি মনুষত্যহীন আচরণ করছে। জনগনের এই দাবিপত্র সরকারের কাছে পৌছে দেয়ার জন্য জেলা প্রশাসকের প্রতি আহবান জানানো হয়।

স্মারকলিপি প্রদানকালে উপস্থিত ছিলেন মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ সভাপতি সাহারুজ্জামান মোর্ত্তজা, শফিকুল আলম তুহিন, এস এম মনিরুল হাসান বাপ্পি, আজিজুল হাসান দুলু, এহতেশামুল হক শাওন, মুর্শিদ কামাল, শেখ সাদী, মোঃ মাসুদ পারভেজ বাবু, কে এম হুমায়ুন কবির, রফিকুল ইসলাম বাবু, শেখ ইমাম হোসেন, আবু সাঈদ হাওলাদার আব্বাস।

যুবদলের নেতৃবৃন্দের মধ্য উপস্থিত ছিলেন চৌধুরী শফিকুল ইসলাম হোসেন, ইবাদুল হক রুবায়েত, কাজী নেহিবুল হাসান নেহিম, আব্দুল আজীজ সুমন, মেহেদী মাসুদ সেন্টু, আয়ুব মোল্যা, জাহাঙ্গীর হোসেন, জাকীর ইকবাল বাপ্পি, আসাদুজ্জামান আসাদ, এস এম শরিফুল আলম, মোল্য সোলায়মান, হারুনর রশীদ মাসুম, মনিরুজ্জামান মনি, মাহমুদ হাসান বিপ্লব, এম এম জসিম, আমিন হোসেন, কামাল হোসেন, শাকারুল ইসলাম সুমন, নাজমুল হোসেন বাবু।

স্বেচ্ছাসেবক দলের নেতৃবৃন্দের মধ্য উপস্থিত ছিলেন তৈয়েবুর রহমান,ফারুক হিল্টন, আনোয়ার হোসেন আনো, শরিফুল ইসলাম টিপু,অহিদুজ্জামান হাওলাদার, ইউসুফ মোল্লা, মুনতাসির আল মামুন, খায়রুজ্জামান সজিব, জাহিদুল ইসলাম বাচ্চু, মীর মোঃ আল আমিন, সাইদুল ইসলাম তুহিন। মহিলাদল নেত্রী লাভলী আক্তার। মুক্তিযুদ্ধা প্রজন্ম দলের সজিব তালুকদার, ছাত্রদল নেতা আঃ মান্নান মিস্ত্রী, ইসতিয়াক আহম্মেদ ইস্তি, গোলাম মোস্তফা তুহিন, তাজিম বিশ্বাস প্রমুখ।

৩’৫০টি পরিবারের প্রত্যেকের মাঝে কেজি চাল কম্বল বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক বুধবার সকালে নগরীর খালিশপুরস্থ প্রভাতী মাধ্যমিক বিদ্যালয় ময়দানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে দুঃস্থ কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য এবং শীতবস্ত্র বিতরণ করেন। সিটি মেয়র ৩’৫০টি পরিবারের প্রত্যেকের মাঝে কেজি চাল একটি করে কম্বল বিতরণ করেন। স্থানীয় একজন সমাজসেবকের উদ্যোগে ত্রাণ সমাগ্রী বিতরণ করা হয়।

কেসিসি’কাউন্সিলর মোঃ মনিরুজ্জামান, মোঃ ডালিম হাওলাদার, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর পারভীন আক্তার, প্রভাতী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ মুনসুর রহমানসহ স্থানীয় আওয়ামী লীগ অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সময় উপস্থিত ছিলেন।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস আজ: শিক্ষাকার্যক্রমের একত্রিশ বছর পূর্তি

খুবি প্রতিনিধি

আজ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। বছর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষাকার্যক্রমের একত্রিশ বছর পূর্তি হচ্ছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার ইতিহাসের সাথে জড়িয়ে রয়েছে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের আপামর মানুষের নিরলস প্রচেষ্টা ত্যাগ। দীর্ঘ আন্দোলন-সংগ্রামের পর ১৯৮৭ সালের জানুয়ারি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠা সংক্রান্ত সরকারি সিদ্ধান্ত গেজেট আকারে প্রকাশিত হয়। ১৯৮৯ সালের মার্চ আনুষ্ঠানিকভাবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তুর স্থাপন করা হয়। ১৯৯০ সালের জুলাই মাসে জাতীয় সংসদে ‘খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় আইন-১৯৯০’ পাস হয়, যা গেজেট আকারে প্রকাশ হয় ওই বছর ৩১ জুলাই। এর পর ১৯৯০-৯১ শিক্ষাবর্ষে ৪টি ডিসিপ্লিনে ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। ১৯৯১ সালের ৩০ আগস্ট প্রথম ওরিয়েন্টেশন এবং ৩১ আগস্ট ক্লাস শুরুর মাধ্যমে শিক্ষা কার্যক্রমের সূচনা হয়। পরবর্তীতে ১৯৯১ সালের ২৫ নভেম্বর শিক্ষাকার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়। ২০০২ সালের ২৫ নভেম্বর থেকে প্রতিবছর দিনটি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে উৎসবমুখর পরিবেশে পালিত হয়ে আসছে। দেশে উচ্চশিক্ষা ক্ষেত্রে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় সেশনজট, সন্ত্রাস রাজনীতিমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে স্বতন্ত্র ভাবমূর্তি অর্জনে সক্ষম হয়েছে।

প্রতিষ্ঠাকালের দিক থেকে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থান নবম। মহানগরী খুলনা থেকে কিলোমিটার পশ্চিমে খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়ক সংলগ্ন ময়ূর নদীর তীরে এক মনোরম পরিবেশে গল্লামারীতে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় অবস্থিত। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস সংলগ্ন এলাকাটি ছিলো ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের সময়কার এক বধ্যভূমি। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় একটি সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়। তবে সময়ের চাহিদা অনুযায়ী এখানে বিজ্ঞান, প্রকৌশল প্রযুক্তিবিদ্যা, চারুকলাসহ অন্যান্য বিষয়ের প্রতিও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

বর্তমানে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮টি স্কুল (অনুষদ) রয়েছে। এখানে মোট ২৯টি ডিসিপ্লিনে (বিভাগ) শিক্ষা গবেষণা কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নিয়মিত ব্যাচেলর ডিগ্রি, ব্যাচেলর অব অনার্স ডিগ্রি, মাস্টার্স ডিগ্রি, এম ফিল এবং পিএইচডি প্রদান করা হয়। স্কুলগুলোর মধ্যে কলা মানবিক স্কুলের আওতায়  রয়েছে ইংরেজি, বাংলা এবং ইতিহাস সভ্যতা ডিসিপ্লিন। আইন স্কুলের আওতায় রয়েছে আইন ডিসিপ্লিন।

জীববিজ্ঞান স্কুলের আওতায় রয়েছে এগ্রোটেকনোলজি, বায়োটেকনোলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স, ফিশারিজ এন্ড মেরিন রিসোর্স টেকনোলজি, ফরেস্ট্র্রি এন্ড উড টেকনোলজি, ফার্মেসি সয়েল, ওয়াটার এন্ড এনভায়রনমেন্ট ডিসিপ্লিন। ব্যবস্থাপনা ব্যবসায় প্রশাসন স্কুলের আওতায় রয়েছে ব্যবসায় প্রশাসন এবং হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট ডিসিপ্লিন।

বিজ্ঞান, প্রকৌশল প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের আওতায় রয়েছে আর্কিটেকচার, আরবান এন্ড রুরাল প্লানিং, কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং, ইলেক্ট্রনিক্স এন্ড কমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং, গণিত, পদার্থবিজ্ঞান, রসায়ন এবং পরিসংখ্যান ডিসিপ্লিন।

সামাজিক বিজ্ঞান স্কুলের আওতায় আছে অর্থনীতি, সমাজবিজ্ঞান, ডিভেলপমেন্ট স্টাডিজ গণযোগাযোগ সাংবাদিকতা ডিসিপ্লিন।

চারুকলা স্কুলের আওতায় তিনটি ডিসিপ্লিন চালু রয়েছে, এগুলো হলো ড্রইং এন্ড পেইন্টিং, প্রিন্টমেকিং ভাস্কর্য ডিসিপ্লিন।

শিক্ষা স্কুলের অধীন রয়েছে শিক্ষা গবেষণা ইনস্টিটিউট।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর মধ্যে বুয়েটের পরই ১৯৯৭-৯৮ শিক্ষাবর্ষ থেকে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে কোর্স ক্রেডিট পদ্ধতি চালু হয়। দেশের মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ¯œাতক পর্যায়ে নগর গ্রামীণ পরিকল্পনা ডিসিপ্লিন, ব্যবসায় প্রশাসন ডিসিপ্লিন, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স ডিসিপ্লিন এবং ঢাকার বাইরে স্থাপত্য ডিসিপ্লিন কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিসিপ্লিন প্রথম এবং দেশের মধ্যে ফরেস্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজি ডিসিপ্লিন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ২য় হিসেবে চালু হয়। সুন্দরবন উপকূল নিয়ে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে দেশের মধ্যে প্রথম স্থাপিত হয়েছে ইনস্টিটিউট ফর ইন্টিগ্রেটেড স্টাডিজ অন দ্য সুন্দরবনস এন্ড কোস্টাল ইকোসিস্টেম (আইআইএসএসসিই)দেশের মধ্যে প্রথম সয়েল আর্কাইভ স্থাপিত হয়েছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে। এছাড়া রিসার্চ সেলে স্থাপিত হয়েছে আরটি-পিসিআর মেশিন। যা দ্বারা সাম্প্রতিক সময়ে করোনার নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। মডার্ণ ল্যাংগুয়েজ সেন্টার, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় স্টাডিজ শিক্ষা গবেষণা ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে চলেছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা-গবেষণার মান বিশ্বমান অর্জনে সেন্টার অব এক্সেলেন্স ইন টিচিং এন্ড লার্নিং (সিইটিএল) এবং ইনস্টিটিউশনাল কোয়ালিটি এস্যুরেন্স সেল (আইকিউএসি) প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এছাড়া খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদেশি শিক্ষার্থীদের সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি এবং বিশ্বের উন্নত বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যৌথ শিক্ষা-গবেষণা জোরদারে দ্য অফিস অব ইন্টারন্যাশনাল স্থাপন করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্তমানে শিক্ষক সংখ্যা শতাধিক। ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে প্রায় হাজার। এর মধ্যে বিদেশী শিক্ষার্থী রয়েছে ১৯ জন। এছাড়া কর্মকর্তা রয়েছেন শতাধিক এবং কর্মচারি রয়েছে শতাধিক। শিক্ষাকার্যক্রমের গত ৩১ বছরে ২৭টি ব্যাচে থেকে উত্তীর্ণ গ্রাজুয়েট সংখ্যা ১৩ সহ¯্রাধিক। যারা দেশে-বিদেশে দক্ষতা, সুনাম সাফল্যের সাথে নানা পেশায় কাজ করছেন। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের মধ্যে এক তৃতীয়াংশই পিএইচডি ডিগ্রিধারী। শিক্ষার্থী শিক্ষক অনুপাত ১:১১। যা স্বীকৃত আন্তর্জাতিক এবং দেশের মধ্যে শীর্ষ পর্যায়ের।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকগণ বিশেষ করে নবীন শিক্ষকবৃন্দ যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশসমূহ, অস্ট্রেলিয়া, জাপানসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে উচ্চশিক্ষা গবেষণা ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সংখ্যায় স্কলারশিপ পাচ্ছেন। দেশি-বিদেশি সংস্থার গবেষণা সহায়তাও বাড়ছে। শিক্ষা গবেষণা কর্মকা-ের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন বিদেশি সংস্থা, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত উন্নত বিশ্বের বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে জাপানের কিয়োটো বিশ্ববিদ্যালয়, নেপালের কেআইএএস বিশ্ববিদ্যালয়, সারওয়াক বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের মেকানিকাল বিভাগ মালয়েশিয়া এবং ইন্দোনেশিয়ান ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স (এলআইপিআই) এর বায়োমেটিরিয়ালস সেন্টার এবং জার্মানির স্টুটগার্টস ইউনিভার্সিটির সাথে শিক্ষা গবেষণা বিষয়ক সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে যুক্তরাজ্যের লিডস ইউনিভার্সিটি লিভারপুল জন মুরস ইউনিভার্সিটির সাথে যৌথ গবেষণা প্রোগ্রাম বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উন্নত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিতে স্বনামধন্য দু’টি বেসরকারি হাসপাতাালের সাথে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। আন্তঃমহাদেশীয় একটি গবেষণা প্রকল্পের বাংলাদেশ অংশে নেতৃত্ব দিচ্ছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীত জ্ঞান যাতে বাস্তবে কাজে লাগানো যায় এবং সেখানে শিক্ষার্থীদের হাতে কলামে প্রশিক্ষণ হয় সে জন্য বটিয়াঘাটা উপজেলার জলমা ইউনিয়নের রাইঙ্গামারি গ্রামকে বিশ্ববিদ্যালয়ের ল্যাবরেটরি ভিলেজ হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে। দেশের মধ্যে সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান গবেষণা সংস্থার সাথে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের রয়েছে একাধিক সমঝোতা স্মারক। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে পরপর দু’বার স্কোপাস পরিচালিত জরিপে দেশের মধ্যে উদ্ভাবনীতে প্রথম গবেষণায় দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থান লাভ করে। ২০২১ সালে বিশ্ব বিজ্ঞানীদের র‌্যাংকিংয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৯ জন শিক্ষক-গবেষক বিভিন্ন ক্যাটাগরিতে মর্যাদাপূর্ণ স্থান লাভ করেছেন। এবছর জাতিসংঘের এসডিজি অর্জনে সহায়তায় প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে চেঞ্জমেকার অ্যাওয়ার্ড লাভ করেছেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন ডিসিপ্লিনের ৪র্থ বর্ষের শিক্ষার্থী ফাইরুজ ফাইজা বিথার। এছাড়া আন্তর্জাতিক তাত্ত্বিক পদার্থবিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়ে দেশের মধ্যে প্রথম স্থান অর্জন করেছে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান ডিসিপ্লিনের ফার্মিনেফ দল। সম্প্রতি স্টুডেন্ট প্রজেক্ট প্রতিযোগিতায় ১২টি পাবলিক প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপটিমিস্ট দলের উদ্ভাবনা চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে রয়েছে ৩টি একাডেমিক ভবন, প্রশাসনিক ভবন, ভাইস-চ্যান্সেলরের বাসভবন, পাঁচটি আবাসিক হল, শিক্ষক, কর্মকর্তা কর্মচারীদের জন্য ৫টি বাসভবন, অগ্রণী ব্যাংক, ডাকঘর, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রিয় জামে মসজিদ বিশ্ববিদ্যালয় মন্দির। ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষকদের জ্ঞান সহায়তায় রয়েছে সমৃদ্ধ কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি ভবন। বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণা কার্যক্রম জোরদারের লক্ষ্যে বহুতল বিশিষ্ট কেন্দ্রীয় গবেষণাগার স্থাপন করা হয়েছে। এই গবেষণাগার আরটি-পিসিআর মেশিনসহ উন্নতমানের গবেষণা যন্ত্রপাতির সংস্থান করা হয়েছে। এই গবেষণাগারের মাধ্যমে ৬২টি গবেষণা প্রকল্পে ইতোমধ্যে কোটি টাকারও বেশি অনুদান বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। সাম্প্রতিক সময়ে শতাধিক গবেষণা নিবন্ধ আন্তর্জাতিক জার্নালে প্রকাশিত হয়েছে। এর মধ্যে জীববিজ্ঞান স্কুলের ১৩৬টি, বিজ্ঞান, প্রকৌশল প্রযুক্তিবিদ্যা স্কুলের ৯৮টি, সামাজিক বিজ্ঞান স্কুলের ৪০টি, কলা মানবিক স্কুলে ২০টি, চারুকলা স্কুলে ১৬টি এবং ব্যবসায় প্রশাসন স্কুলে ৩টি গবেষণা নিবন্ধ রয়েছে। এবছর জনকে পিএইচডি ডিগ্রি প্রদান করা হয়েছে। বিভিন্ন স্কুলের অধীন ৩৬ জন পিএইচডি প্রোগ্রামে গবেষণারত রয়েছেন।

এছাড়া করোনা মহামারিতে সৃষ্ট স্থবিরতা কাটিয়ে চলতি সংশোধিত উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন অবকাঠামো নির্মাণ কাজ পুরোদমে শুরু হয়েছে। প্রকল্পগুলো হলো দশতলা জয়বাংলা একাডেমিক ভবন, তলা আইইআর ভবন, চারতলা মেডিকেল সেন্টার, কেন্দ্রীয় গবেষণাগার নির্মাণ, বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের পার্শ্ব ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ, ১১ তলা আবাসিক ভবন নির্মাণ। প্রায় ৫৫ কোটি টাকা ব্যয় সাপেক্ষ দীর্ঘ প্রতীক্ষিত টিএসসি ভবনের নির্মাণকাজের চুক্তি শেষে সম্প্রতি শুরু হয়েছে। ২৪ কোটি টাকা ব্যয় সাপেক্ষ জিমনেশিয়ামের চুক্তি সম্পাদন হয়েছে। ফলে ৩৩৫ কোটি টাকার সংশোধিত প্রকল্পের অবশিষ্ট প্রায় ২২৩ কোটি টাকার সব কম্পোনেন্টের কাজ চালু হয়েছে। ২০২৩ সালের মধ্যে নির্মাণাধীন এসব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের অবকাঠামোগত সুবিধা বহুলাংশে বৃদ্ধি পাবে।

দেশের তথা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের উচ্চশিক্ষার বিকাশে, গবেষণা জোরদারের মাধ্যমে স্থানীয় সম্পদ আহরণ, উন্নয়ন সংরক্ষণের মাধ্যমে জাতীয় অর্থনীতিকে শক্তিশালী করা, প্রশিক্ষিত, দক্ষ মানবিক গুণাবলী সম্পন্ন জনসম্পদ সৃষ্টি, জ্ঞান-বিজ্ঞানের নানা শাখায় উচ্চতর শিক্ষা গবেষণার মাধ্যমে দেশকে সমৃদ্ধির সোপানে এগিয়ে নেয়া এবং সম্ভাবনার নতুন নতুন দিগন্ত উন্মোচনের লক্ষ্য উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা গবেষণার কাজ এগিয়ে চলেছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকে শিক্ষা সাফ্যল্যের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখে অগ্রসর হচ্ছে তার অভীষ্ট লক্ষ্যে।

দেশের উন্নয়ন সমৃদ্ধির জন্য কর প্রদান একটি আবশ্যিক দায়িত্ব : খুবি উপাচার্য

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনায় সর্বোচ্চ দীর্ঘ সময় আয়কর প্রদানকারী ১৪ জনকে সেরা করদাতা সম্মাননা-২০২১ প্রদান করেছে কর অঞ্চল-খুলনা। বুধবার সকাল ১১টায় কর অঞ্চল-খুলনার সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সেরা করদাতাদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, দেশের উন্নয়ন সমৃদ্ধির জন্য কর প্রদানযোগ্য নাগরিকের কর প্রদান করা একটি আবশ্যিক দায়িত্ব। সময়মতো নিয়মিত আয়কর প্রদান করলে প্রাতিষ্ঠানিক এবং ব্যক্তির আয়ের স্বচ্ছতা থাকে। আমাদের দেশে অনেকেই কর প্রদানের বিষয়টিকে এখনো ঝামেলা মনে করেন। এজন্য সচেতনতামূলক কার্যক্রম জোরদার করা প্রয়োজন। তিনি সেরা করদাতাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

কর অঞ্চল-খুলনার কর কমিশনার মোঃ ফারুক আহমেদ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন কর আপীল অঞ্চল-খুলনার কর কমিশনার আ.স.ম. ওয়াহিদুজ্জামান, কাস্টমস্ এক্সাইজ এন্ড ভ্যাট কমিশনারেট-খুলনার কমিশনার মোঃ সামছুল ইসলাম।

অনুষ্ঠানে খুলনা সিটি কর্পোরেশন এলাকায় এস এম মনিরুজ্জামান শাহীন, মোঃ শরিফুল ইসলাম, মোঃ রবিউল আহসান, নির্মল চন্দ্র বণিক, কাজি আমিনুল হক, ফিরোজা বেগম, বি এম আছলাম উদ্দিন এবং জেলা পর্যায়ে মোঃ জিয়াউল হাসান, মোঃ শামীম আহসান, কাজী হেদায়েত উল্লাহ, অনুপ কুমার সাধু, গাজী হারুন অর রশিদ, মহাসিনা শিরীন চিন্ময় সাহাকে সেরা করদাতা সম্মাননা-২০২১ প্রদান করা হয়।

বটিয়াঘাটায় ঢাঁক-ঢোঁল বাজিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে প্রার্থীদের মনোনয়ন পত্র জমা ২৬ ডিসেম্বর নির্বাচন

বটিয়াঘাটা (খুলনা) প্রতিনিধি

সারা দেশে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে আগামী ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠেয় ১নং জলমা ইউনিয়নে উৎসব মূখর পরিবেশে একের পর এক  চেয়ারম্যান সাধারণ এবং সংরক্ষিত পদে মনোনয়নপত্র জমা পড়ছে।গত ২৩ নভেম্বর থেকে মনোনয়ন পত্র  জমা নেওয়া শুরু  হলে প্রতিদিন একাধিক প্রার্থী ঢাঁক-ঢোঁল বাজিয়ে কর্মী সমর্থকদের সাথে নিয়ে স্থানীয় উপজেলা নির্বাচন অফিসে রিটার্নিং অফিসার নির্বাচন কর্মকর্তা আঃ সাত্তার’কাছে জমা দিচ্ছেন। বৃহষ্পতিবার মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার শেষ দিন।গতকাল বুধবার পর্যন্ত ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন জন। এরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সাবেক একাধিক বার নির্বাচিত চেয়ারম্যান আঃ গফুর মোল্যা,জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে মোঃ মিজানুর রহমান এলাহী,ইসলামি আন্দোলনের হাতপাখা নিয়ে মোঃ শফিউল ইসলাম স্বতন্ত্র প্রার্থী বিদার শিকদার। ইউনিয়নের নয়টি ওয়ার্ডে মোটার ভোটার সংখ্যা ৫০ হাজার ১৭৯ জন।এর মধ্যে ২৪ হাজার ৬৯৯ জন পুরুষ ২৫ হাজার ৪৮০ জন নারী ভোটার। আগামী ২৯ নভেম্বর প্রার্থীতা বাঁছাই এবং ডিসেম্বর প্রার্থীতা প্রত্যাহার প্রার্থীদের মাঝে প্রতীক বরাদ্ধ।জনসংখ্যা ভৌগলিক অবস্থানগত দিক থেকে ইউনিয়ন অনেক বড়। ইউনিয়নে বটিয়াঘাটা, হরিণটানা, লবনচরা মিলে তিন তিনটি পুলিশ থানা। এর মধ্যে একটি জেলা পুলিশ দুইটি কেএমপি পুলিশ দ্বারা শাসিত। তবে প্রশাসনিক কর্মাদি, দলিল রেজিষ্ট্রি,খাজনা নামপত্তন সহ সকল কিছুই উপজেলা পরিষদ এবং প্রশাসনের আওতায় এখনো বহাল। উপজেলার স্থানীয় ইউনিয়ন নির্বাচনে এবারও মোট কেন্দ্রের সংখ্যা ১৮ টি। এর মধ্যে লবনচরা থানা পুলিশের আওতাধীন এলাকার মধ্যে পড়েছে ১১ টি কেন্দ্র। বটিয়াঘাটা থানা পুলিশের আওতাধীন এলাকার মধ্যে পড়েছে টি কেন্দ্র এবং হরিণটানা থানা পুলিশ এলাকার মধ্যে পড়েছে টি কেন্দ্র।চতুর্থ ধাপের নির্বাচন আগামী ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও সারাদেশে ওইদিন এইচ,এস,সি পরীক্ষা থাকায় নির্বাচন কমিশন তারিখ পরিবর্তন করে  আগামী  ২৬ ডিসেম্বর ভোট গ্রহণ হবে বলে ঘোষণা দেয়। আগামীকাল বৃহস্পতিবার মনোনয়ন পত্র জমা দেওয়ার শেষ দিনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে বর্তমান চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আশিকুজ্জামান আশিক নৌকার প্রার্থী বিধান রায় মনোনয়নপত্র  জমা দিবেন বলে জানা গেছে।তপশীল ঘোষণার সেই বছর খানেক আগে থেকেই সকল পদের প্রার্থীরা আগাম মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। কেউ কারো থেকে নির্বাচনী প্রচার-প্রচারণা  গনসংযোগ থেকে পিঁছিয়ে থাকতে রাজী নয়। বিয়ে,আঁকিকা,সুন্নতে খৎনা সহ এমনকি কেউ মারা গেলে মৃত ব্যক্তির স্বজনদেরও আগে  পৌঁছে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। চাওর করছেন প্রার্থীরা সমব্যাথায় ব্যথিত ভাগীদার হতে।  সব মিলিয়ে বিভাগীয় শহরের প্রবেশদ্বার জনসংখ্যা সহ সকল ক্ষেত্রে অন্যান্য ইউনিয়নের দিক থেকে এগিয়ে থাকা ইউনিয়নে নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই ভোটার এবং সাধারণ মানুষের মাঝে নির্বাচনী আমেজ তোড়-জোড়ে বইতে শুরু করেছে।আগামী ২৬ ডিসেম্বর সাধারণ ভোটারদের ভোটাধিকার প্রয়োগের মাধ্যমে কে দখল করতে যাচ্ছেন জনগুরুত্বপূর্ন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের চেয়ার মসনদ তা কেবল সেই মাহেন্দ্রক্ষণের অপেক্ষা মাত্র।

বাগেরহাটে সাত সেরা করদাতাকে সম্মাননা প্রদান

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাটে সাত জন করদাতাকে সেরা করদাতা সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) দুপুরে কর অঞ্চল খুলনা‘অধীনস্থ সার্কেল-১৪, বাগেরহাটের আয়োজনে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। উপ কর কমিশনার নীলাক্ষি রতন মন্ডল সম্মাননা প্রাপ্তদের হাতে সনদ ক্রেস্ট তুলে দেন।

সম্মাননা প্রাপ্তরা হলেন, বাগেরহাট জেলার ফকিরহাট উপজেলার কাঠালতলা এলাকার শেখ আছলাম আলী, চিতলমালী উপজেলার আড়ুয়াবর্নি এলাকার মোঃ আনিসুর রহমান, বাগেরহাট সদর উপজেলার নাগের বাজার এলাকার শেখ ইদ্রিস আলী, সরুই এলাকার পপি আক্তার, ফকিরহাট উপজেলার ঘনশ্যামপুর এলাকার চিন্ময় বিশ্বাস, আট্টাকী এলাকার রতন কুমার রায়, বাগেরহাট সদর উপজেলার মেইনরোড এলাকার শংকর কুমার সেন।

এদের মধ্যে সর্বোচ্চ করদাতা শেখ আছলাম আলী, কোটি ১৬ লক্ষ ৮১ হাজার ৯৮৯ টাকা, ২য় সর্বোচ্চ করদাতা মোঃ আনিছুর রহমান কোটি লক্ষ ৩২ হাজার ৫৩৪ টাকা এবং ৩য় সেরা করদাতা শেখ ইদ্রিস আলী ২৭ লক্ষ ৩২ হাজার ২৫৭ টাকা কর দিয়েছেন। এছাড়া লক্ষ ৭০ হাজার ৫৬৭ টাকা দিয়ে  একমাত্র নারী সেরা করদাতা হিসেবে সম্মাননা পেয়ছেন পপি আক্তার নামের এক ব্যবসায়ী।

টাকার অংকে বেশি এবং নিয়মিত করপ্রদানে উৎসাহ দিতে জাতীয় রাজস্ব বিভাগ প্রতি বছর সেরা করদাতাদের সম্মাননা প্রদান করে থাকে।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে বিএনপির স্মারক লিপি

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)‘চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সুচিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি প্রদানের দাবিতে বাগেরহাটে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। বুধবার (২৪নভেম্বর) দুপুরে বাগেরহাট জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে বাগেরহাটের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মোঃ শাহীনুজ্জামান নিকট স্মারকলিপি প্রদান করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বাগেরহাট জেলা বিএনপির আহবায়ক এটিএম আকরাম হোসেন তালিম, সদস্য সচিব মোজাফ্ফর রহমান আলম, জেলা বিএনপির সাবেক সহ সভাপতি এসকেন্দার হোসেন,  জেলা বিএনপির সদস্য সরদার ওহিদুল ইসলাম পল্টু, ডা হাবিবুর রহমান, সৈয়দ নাসির আহম্মেদ মালেকসহ বিএনপি সহযোগী সংগঠনের নেতা কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বাগেরহাট জেলা বিএনপির আহবায়ক এটিএম আকরাম হোসেন তালিম বলেন, একটি দেশের তিন তিন বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি না দেওয়াটা রাজনৈতিক সিস্টাচার বহির্ভুত। এটা অগনতান্ত্রিক সৈরাচার সরকারের অবৈধ কার্যক্রমের নমুনা মাত্র। আমাদের মা বেগম খালেদা জিয়াকে সু-চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়ার অনুমতি  দিতে হবে। তা না হলে কঠোর আন্দোলনের মাধ্যমে এই সরকারের পতন ঘটিয়ে, মায়ের সু-চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে।

সাংবাদিক জাকির হোসেনকে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারের প্রতিবাদে মানববন্ধন

মহেশপুর (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি,

ঝিনাইদহের মহেশপুরে আনন্দ টিভির সাংবাদিক জাকির হোসেনকে মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারের প্রতিবাদ নিঃশর্ত মুক্তির দাবীতে মানববন্ধন করেছে সাংবাদিকরা। বুধবার (২৪ নভেম্বর) সকালে মহেশপুর শহরের কলেজ বাস স্ট্যান্ডে মানববন্ধন পালন করেন তারা।

মানববন্ধনে মহেশপুর প্রেসক্লারের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সাজ্জাদুল ইসলাম সাজ্জাদ বলেন, এভাবে কোন সাংবাদিককে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো আইন বিরোধী। মামলার বাদী ৭জনকে আসামী করে মামলা করলেও অদৃশ্য শক্তি বলে ১০নং আসামীর জায়গায় সাংবাদিক জাকির হোসেনের নাম দেওয়া হয়েছে। মামলার বাদী জাকির হোসেনকে আসামী করার ব্যাপারে কিছুই জানেন না। পুলিশ বে-আইনি তাকে থানায় ডেকে এনে আটক করে ভোর হওয়ার আগেই চালান দিয়েছে।

তিনি আরোও বলেন থানা পুলিশ যদি দিনের মধ্যে সুষ্ঠ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিল না করে তাহলে লাগাতার কর্মসূচীর ঘোষণা করা হবে। এছাড়াও যতদিন জাকির হোসেন মুক্ত না হয় ততদিন পর্যন্ত থানা- পুলিশের কোন সংবাদ সংগ্রহ করবেন না সাংবাদিকরা।    

এসময় উপস্থিত ছিলেন, আরটিভির জেলা প্রতিনিধি শিপলু জামান, মাইটিভির জেলা প্রতিনিধি মিঠুমালিতা, উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মীর সুলতানুজ্জামান লিটন, মানব জমিনের মহেশপুর প্রতিনিধি সরোয়ার হোসেন, মডেল প্রেসক্লারের সভাপতি শরিফুল ইসলাম, আমাদের সময়ের আ: সেলিম, সংবাদের এমদাদুল হক, আজকালের খবরের অসীম মোদক, লোক সমাজের জিয়াউর রহমান, যাযযায় দিনের বাবর আলী, প্রতিদিনের সংবাদের পলাশ রহমান, ভোরের দর্পনের শামীম খান, প্রর্বাহের সুজন মিয়া, শ্যামবাজারের রমজান আলী, গ্রামের কন্ঠের হাসান আলী, আমার সংবাদের সাইফুল ইসলামসহ কমরত সকল সাংবাদিকরা।

খুলনায় পেশাদার ৩১ জন সাংবাদিকের যৌথ বিবৃতি: মানবিক কারণে খালেদা জিয়াকে বিদেশ যাওয়ার অনুমতি দেয়া প্রয়োজন

খবর বিজ্ঞপ্তি।।

দেশের সর্বজন শ্রদ্ধেয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সাবেক প্রধানমন্ত্রী, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ। তার অবস্থা এখন সংকটাপন্ন। এই অবস্থায় সরকারের কাছে সবিনয় অনুরোধ, সঙ্কীর্ণ দল ব্যক্তি স্বার্থ পরিহার করে মানবিক কারণে জনগণের এই প্রিয় নেত্রীকে যত দ্রুত সম্ভব, অত্যাধুনিক চিকিৎসা নেয়ার জন্য বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দিন। খুলনায় পেশাদার ৩১জন সাংবাদিক স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে এই আহ্বান জানানো হয়েছে। বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিবৃতিতে সাংবাদিকরা আশঙ্কা করেন, বেগম খালেদা জিয়াকে বিদেশে যাওয়ার অনুমতি দেয়ার ক্ষেত্রে যেকোনো ধরনের বিলম্ব অজুহাত বড় বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে। যা করো জন্য ভালো বার্তা বহন করবে না। তারা প্রত্যাশা করেন সরকারের মধ্যে কল্যান মঙ্গলবোধ জেগে উঠবে। তারা সত্যিকারের দায়ত্বশীলতার সাথে শুভ চেতনার পরিচয় দিয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিদেশ যাত্রার ব্যবস্থা করবেন। ৭৬ বছর বয়সী সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া বহু বছর ধরে আর্থরাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেন। বিবৃতিদাতারা হলেন, মুহাম্মাদ আবু তৈয়ব (এনটিভি), কাজী মোতাহার রহমান বাবু (খুলনা গেজেট), মিজানুর রহমান মিলটন ( দৈনিক খুলনাঞ্চল), সোহরাব হোসেন ( দৈনিক জন্মভূমি), হাসান আহম্মেদ মোল্লা ( দৈনিক তথ্য), আহমেদ মুসা রঞ্জু ( দৈনিক পুর্বাঞ্চল), আতিয়ার পারভেজ ( বাংলাভিশন), মুনির উদ্দিন আহমেদ ( নিউএজ), রকিবুল ইসলাম মতি (এসএ টিভি), আজিজুল ইসলাম (এনটিভি), আরিফ বিল্লাহ (বাংলা ভিশন), জিয়াউস সাদাত ( দৈনিক প্রবর্তন), এরশাদ আলী (নয়াদিগন্ত), মাসুদুর রহমান রানা ( দৈনিক সময়ের খবর), সাইফুল ইসলাম বাবলু ( দৈনিক সময়ের খবর), আরাফাত হোসেন অনিক ( ইন্ডিপেন্ডেন্ট টিভি), আমিনুল ইসলাম ( দৈনিক সময়ের খবর), এম জলিল ( দৈনিক খুলনাঞ্চল), মুহাম্মাদ নুরুজ্জামান (রাইজিংবিডি), মো. খাইরুল আলম (ঢাকা নিউজ)সহ ৩১জন।

নড়াইলে হত্যাকান্ডের ঘটনায় একজনের যাবজ্জীবন কারাদন্ড

আবু তাহের, নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার ইতনা গ্রামে পরকীয়া প্রেমের জেরে একব্যক্তিকে হত্যার দায়ে পলাশ মিনাকে (৩২) যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া ৫০ হাজার জারিমানা, অনাদায়ে আরো মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড দেয়া হয়। বুধবার (২৪ নভেম্বর) সকাল ১০টার দিকে জেলা দায়রা জজ মুন্সী মশিয়ার রহমান আদেশ দেন। রায় ঘোষণার সময় দন্ডপ্রাপ্ত আসামি পলাশ মিনা আদালতে উপস্তিত ছিলেন। মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৬ সালের ২২ জানুয়ারি সন্ধ্যায় ভূক্তভোগী ঠান্ডু সরদারকে মোবাইল ফোনে ডেকে নিয়ে যায় আসামি পলাশ মিনা। রাতে ঠান্ডু সরদার বাড়িতে ফিরে না আসায় বিভিন্ন জায়গায় খোঁজ করেও তাকে পাওয়া যায়নি। পরেরদিন দুপুরে ইতনা বালিকা বিদ্যালয়ের পাশের ক্ষেত থেকে ঠান্ডুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। আসামি পলাশ মিনা ভূক্তভোগী ঠান্ডু সরদারকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে হত্যা করে। ঘটনায় নিহত ঠান্ডুর মা গোলাপী বেগম বাদী হয়ে লোহাগড়া থানায় মামলা করেন।

৭নং ওয়ার্ডে রূপান্তরের উপকারভোগী চিত্রায়ন চাহিদা নিরূপণ” কার্যক্রম অনুষ্ঠিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

করোনা অতিমারীতে ক্ষতিগ্রস্ত জনগোষ্ঠীর জন্য জরুরি পুনর্বাসন উদ্যোগ’ (ঝঈজঊঅগ) প্রকল্পের আওতায় ওয়ার্ডওয়ারী ‘সম্ভাব্য উপকারভোগী সনাক্তকরণ চাহিদা নিরূপন’ কর্মসূচীর অংশ হিসেবে আজ বুধবার খুলনা সিটি কর্পোরেশনের ৭নং ওয়ার্ড কমিউনিটি সেন্টারে সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন কেসিসির ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মোঃ সুলতান মাহামুদ পিন্টু। সভায় ‘স্ক্রীম’ প্রকল্পের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য এবং উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেন জেলা কর্মকর্তা শেখ জার্জিজ উল্লাহ। সভায় কারিগরি সেশন পরিচালনা করেন ফিল্ড অফিসার মোঃ মোশারেফ আলী সোহেল। সহায়তায় ছিলেন ফিল্ড অফিসার মোঃ মনিরুল হক, আকাশ সাহা প্রমুখ। সভায় অংশগ্রহণকারীবৃন্দ দলীয় কাজের মাধ্যমে ওয়ার্ডভিত্তিক উপকারভোগী নির্বাচন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে বিশ্লেষণমুলক উপস্থাপনা উপস্থাপন করেন।

উল্লেখ্য, সুইজারল্যান্ড সরকারের সহায়তায় রূপান্তরের বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পটি খুলনা উপকূলীয় এলাকার প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর কর্মদক্ষতা সৃষ্টি করে করোনার নয়া স্বাভাবিকত্ব পরিস্থিতির সাথে খাপ খাওয়ানোর উদ্দেশ্যেই বাস্তবায়িত হচ্ছে।

রামপালে নির্বাচনী সহিংসতা  ইউপি সদস্য সোহগকে মারপিটের ঘটনায় মামলা

রামপাল (বাগেরহাট) সংবাদদাতা

রামপালে ইউপি সদস্য শেখ শফিকুল ইসলাম সোহাগের উপর সন্ত্রাসী হামলা, মারপিট টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় তিন সন্ত্রাসীসহ অজ্ঞাত ৫/জনের বিরুদ্ধে রামপাল থানায় অবশেষে একটি মামলা দায়ের হয়েছে। মামলা নং- ১৭, তারিখ-২০-১১-২০২১। মামলার আসামিরা হলেন, উপজেলার ইসলামাবাদ গ্রামের মৃত শেখ তাছিন উদ্দীনের পুত্র মারুফ শেখ ওরফে ফাউল মারুফ, শেখ মোস্তাফিজ ওরফে ভুদে শেখ মাসুম বিল্লাহ ওরফে থ্রো মাসুম।  এজাহার সূত্রে জানা গেছে, গত ২০- ০৯-২০২১ তারিখের ইউপি নির্বাচনে বাঁশতলী ইউপির নং ওয়ার্ডে নির্বাচনে প্রতিপক্ষ মারুফ ওরফে ফাউল মারুফ ব্যপক ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হন। এতে তারা আরও ক্ষিপ্ত হয়ে প্রতিপক্ষ মারুফ ওরফে ফাউল মারুফ তার ভাইয়েরাসহ অজ্ঞাত সন্ত্রাসীরা সোহাগ কে হত্যার ষড়যন্ত্র করে। পর্যায়ে গত ইং ১৬-১১-২০২১ তারিখ সন্ধ্যায় গিলাতলা বাজারের সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আ. ওহাব এর বাড়ির সামনে দিয়ে হেটে বাড়িতে আসছিলেন সোহাগ। সময় মারুফের নেতৃত্বে তার ভাইয়েরা দলবদ্ধ হয়ে হামলা করে। তাকে হত্যার উদ্দেশ্য কুপিয়ে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে। সময়ে তার গলায় থাকা স্বর্ণের চেইন, আই ফোন ব্যবসায়ীক নগদ লক্ষ টাকা ছিনিয়ে নেয়। মুমূর্ষু অবস্থায় সোহাগ কে প্রথমে রামপাল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অভিযোগের বিষয়ে মাসুমের কাছে জানতে চাইলে তিনি সকল অভিযোগ অস্বীকার করেন। রামপাল থানার ওসি মোহাম্মাদ সামসুদ্দীন মামলা দায়েরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন আসামিদের আটকে জোর তৎপরতা চালাচ্ছি।

কলারোয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত

কলারোয়া প্রতিনিধি

কলারোয়ায় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন অবহিতকরন বাস্তবায়ন বিষয়ক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার বেলা ১১টার দিকে কলারোয়া উপজেলা অডিটরিয়ামে সেমিনারটি অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন কলারোয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু। উপজেলা সহকারী কমিশনার এর সভাপতিত্বে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা, উপজেলা শিক্ষা অফিসার আব্দুল হামিদ, কৃষি অধিদপ্তরের কর্মকর্তা ইমরান হোসেন, উপজেলা বিআরডিবি কর্মকর্তা (এআরডিও) কানাই চন্দ্র, বিআরডিবি চেয়ারম্যান আব্দুল গফুর, কলারোয়া থানা পুলিশের প্রতিনিধি এস আই হাসান, সাংবাদিকবৃন্দ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা গোলাম মোস্তফা বলেন-পন্যে সঠিক মাপ, মান, মুল্য লেবেলের দূর্ণীতি শুধু মাত্র জরিমানা করে থামানো যাবে না প্রয়োজন ভোক্তা সাধারনের সচেতনতা। প্রধান অতিথির বক্তব্যে কলারোয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু বলেন- পন্যে ভেজাল, নকল, ওজনে কম দেওয়া, বাটখারা ওজনে ছোট করে ফেলা, ইত্যাদি বিষয়ে তদারকি প্রতিকার করা প্রশাসনের নীতিগত দায়িত্ব সাধারন মানুষের জন্য অতিব প্রয়োজন। লাল্টু আরো বলেন- এই সেমিনার থেকে আমরা শপথ নিই ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ এবং বাস্তবায়নে সরকারকে তথ্য দিয়ে সাহায্য করবো। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দূর্ণীতিমুক্ত বাংলাদেশ গড়বো।

অসুস্থ ছেলেকে মালয়েশিয়া থেকে দেশে ফিরিয়ে আনতে ঝিনাইদহের এক পিতার আকুতি

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি-

ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বিষয়খালীর কেশবপুর গ্রামের মহিউদ্দীনের ছেলে মোদাচ্ছের হোসেন পরিবারের সচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে ২০১৮ সালের ২৯ আগস্ট মালেশিয়া পাড়ি জমান। সেখানে একটি চায়না মালিকানাধিন একটি রাবার কারখানায় কাজ করে আসছেন। যার ইমপ্লয়ারর আইডি-৪৩০৩ কিন্তু দীর্ঘ দেড় বছর যাবৎ শারীরিক অবস্থা বেশি একটা ভালো না। তিনি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কথা বলে জানান, তিনি দীর্ঘ দেড় বছর অসুস্থ অবস্থায় কাজ করছি। কোম্পানির মালিককে বলেও ছুটি মিলছে না। ছুটি চাইলেই মাসের পর মাস ঘুরাচ্ছেন। এভাবেই কেটে গেছে দেড় বছর।

প্রবাসী মোদাচ্ছের হোসেন বলেন, বিদেশের মাটিতে চিকিৎসাসেবা নিতে এই দেড় বছরে আমার প্রায় লক্ষ টাকা খরচ হয়ে ছে। তারপরও আমি পাইনি কোন সুচিকিৎসা। আমার হার্টের সমস্যা, পেট ফুলে থাকে, খেতে পারিনা, বুকে ব্যথার জন্য ঠিকমতো কাজ করতে পারিনা। সব সময় বুকের ভেতর জ্বালা-যন্ত্রণা করে। তাই আমি কাজ বাদ দিয়ে এখন দেশে আসতে চাই। দেশে পিতা-মাতা,স্ত্রী, কন্যা, সন্তানদের নিয়ে বাকি জীবন যাপন করতে চাই।

মোদাচ্ছেরের পিতা মহিউদ্দীন বলেন, আমার ছেলেকে সুস্থ অবস্থায় সরকারের সহযোগিতায় নিরাপদে দেশে ফিরে আসার জন্যে আমার যা করা দরকার আমি তাই করবো। কিন্তু আমার ছেলেকে দ্রুত সময়ের মধ্যে দেশে এনে সুচিকিৎসা করাতে চাই। আমি পিতা হিসেবে আমার সন্তানের অসুস্থ অবস্থায় বিদেশে কাজ করবে এটা জে কি কষ্টের তা সকলকে বলে বুঝানো সম্ভব না।

মোদাচ্ছেরের স্ত্রী নার্গিস বেগম জানান, আমার স্বামী দেড় বছর ধরে মালয়েশিয়ায় অসুস্থ অবস্থায় কাজ করছে ওখানে ডাক্তার দেখিয়েছে কিন্তু কোন লাভ হয়নি বরং শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ঝিনাইদহ আল-মদিনা ডায়াগনস্টিক এন্ড কনসালটেশন সেন্টারের ডা.বিশ্বনাথ সরকার এর সাথে ভিডিও কলের মাধ্যমে কথা বলে। ডাক্তারের মাধ্যমে ঔষধ লিখে সেই ওষুধ কিনে কুরিয়ার করে মালয়েশিয়ায় পাঠিয়ে ছি। তারপরও সেই ওষুধ খেয়ে তেমন কোনো শরীরের পরিবর্তন হয়নি। তবে এখানকার চিকিৎসক বলেছে দ্রুত দেশে এসে চিকিৎসাসেবা নিতে। তা না হলে শরীরের বড় ধরনের কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই আমি সরকারের উপর মহলের কাছে জোর দাবি জানায়, আমার স্বামীকে দেশে আসার সকল ব্যবস্থা করে দেয় যেনো। আমি মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ হাই কমিশনারের মাধ্যমে বাংলাদেশ সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি তাকে যেন মালয়েশিয়া থেকে দ্রুত ফিরিয়ে আনার সকল ব্যবস্থা করা হয়।

চিতলমারীতে ব্যক্টেরিয়া ইউল্ড ভাইরাসে সর্বশান্ত টমেটো চাষীরা

চিতলমারী প্রতিনিধি

বাগেরহাটের চিতলমারীতেব্যক্টেরিয়া ইউল্ড ভাইরাস জনিত কারণে টমেটো গাছে মড়ক লেগেছে। এতে চাষকৃত টমেটো গাছ মরে যাওয়ার উপক্রম দেখা দেওয়ায় চাষিদের মাঝে হতাশা বিরাজ করছে। ব্যাপারে ক্ষতিগ্রস্ত চাষিরা কৃষি অফিসের সহায়তা কামনা করেছেন।

স্থানীয় চাষিদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, উপজেলার বড়বাড়িয়া, কলাতলা, হিজলা, শিবপুর, চিতলমারী সদর, চরবানিয়ারী সন্তোষপুর ইউনিয়নে আবাদিÑঅনাবাদি চিংড়িঘেরের পাড়ের জমিতে ব্যাপক টমেটোর চাষ করা হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে শীতকালীন সবজির পাশাপাশি টমেটো চাষ করে এখানকার চাষিরা লাভবান হলেও বছর ভাইরাস পাতা মোড়ানো রোগ দেখা দেওয়ায় টমেটো ক্ষেতের গাছ মরে যাচ্ছে। বিভিন্ন ঔষধ সার ব্যবহার করেও থামানো যাচ্ছে না এসব রোগ-বালাই। ফলে অর্থকারী ফসল চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন চাষিরা।

উপজেলার চরবানিয়ারী দক্ষিণপাড়ার টমেটো চাষি নিত্যানন্দ ম-লের স্ত্রী আরতী ম-হতাশা ব্যক্ত করে জানান, চলতি মৌসুমে একর জমিতে টমেটোর আবাদ করেছেন কিন্তু ক্ষেতের গাছে গোড়া পচন পাতা মোড়ানো রোগ দেখা দিয়েছে। নানা ঔষধ সার-কীটনাশক ব্যবহার করেও কোন সুফল মেলেনি। বিভিন্ন ব্যাংক , এনজিও এবং সুদে কর্যে টাকা এনে এসব চাষাবাদ করে হশাতায় ভুগছেন। স্থানীয় কৃষি অফিস এসব রোগ-বালাই প্রতিকারের জন্য কোন খোঁজ খবর রাখেনা বলেও অভিযোগ রয়েছে তার। এছাড়া এলাকার টমেটো চাষি ঈাইদুর শিকদার, রেজাউল শিকদার, নরেশ বাড়ৈ, মিঠু বালাসহ অনেক চাষি জানান, এখানকার টমেটো রাজধানীসহ সারাদেশে পাইকারদের মাধ্যমে চালান হয়ে থাকে। এর মাধ্যমে চাষিরা লাভবান হলেও বছর ব্যাপক ভাইরাস দেখা দেওয়ায় লোকসান গুনতে হবে বলে হতাশা ব্যক্ত করেন তারা।

ব্যাপারে উপজেলা কৃষি অফিসার মোসাঃ রাজিয়া সুলতানার সাথে একাধিক বার ফোনে যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোনটি কেটে দেন তবে উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অফিসার অসিম কুমার দাসের সাথে কথা হলে তিনি জানান, বছর ৬শ’ ৫০ হেক্টর জমিতে টমেটোর আবাদ করা হয়েছে। টমেটো গাছে যে ভাইরাসটি দেখা দিয়েছে এটার নাম ব্যাকটেরিয়া ইউল্ড। রোগ সম্পর্কে উঠান বৈঠকের মাধ্যমে চাষিদের নানা পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

কলারোয়ায় স্ত্রী হত্যার অভিযোগে স্বামী গ্রেপ্তার

সোহাগ হোসেন, কলারোয়া

কলারোয়ায় স্ত্রীকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে স্বামী আবু সাঈদ (৩২) কে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ঘটনাটি ঘটেছে-কলারোয়া পৌর সদরের মুরারীকাটি গ্রামে। থানার এসআই আবু সাঈদ জানান, সোমবার (২২নভেম্বর) সন্ধ্যায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে মুরারীকাটি গ্রামের মধ্যে থেকে আটক করা হয়।

সে স্ত্রী হত্যার মামলার এজাহারভুক্ত আসামী। উল্লেখ্য-মামলার বাদী হেলাতলা ইউনিয়নের শুভংকারকাটি গ্রামের খন্দাকার ইসরাইল হোসেনের স্ত্রী সেলিনা খাতুন ওরফে সেলি (৩৮) জানায়, তার কন্যা লাবণী খাতুন (১৯) কে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে দেড় বছর পূর্বে বিবাহ করে।বিবাহের পর থেকে আমার মেয়েকে বিভিন্নভাবে নির্যাতন করে আসছিলো। প্রায় সময় মারপিট করে জখম করে। বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার জন্য বেশ কিছুদিন ধরে নির্যাতন করে আসছিল। ২১ নভেম্বর রাত ৮টার দিকে আমার মেয়ে ফোন করে সাংসারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে রাত ৯টা পর্যন্ত কথা বলে। ২২ নভেম্বর রাত ২টার দিকে আমার জামাই আবু সাঈদ ফোন করে বলে আপনার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে। প্রথমে তিনি বিশ^াস করেন নি। কিছুক্ষণ পর ফোন করে জানায়, তোমার মেয়ে গলায় ওড়না দিয়ে ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করেছে, আমরা হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছি। তখন তিনি তার স্বামীকে সাথে নিয়ে কলারোয়া সরকারি হাসপাতালে গিয়ে দেখেন জরুরি বিভাগের বেডের উপর তার মেয়ে মৃত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। হাসপাতালের ডাক্তাররা জানায়, হাসপাতালে নিয়ে আসার পূর্বেই তার মৃত্যু হয়েছে। তিনি আরো বলেন, আমার মেয়েকে তারা পিটিয়ে হত্যার পরে ঘরের আড়ার সাথে ওড়না বেঁধে গলায় ফাঁস লাগিয়ে ঝুলিয়ে দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রচার করে। ঘটনায় নিহত মেয়ের মা সেলিনা খাতুন বাদী হয়ে কলারোয়া থানায় ৩৬(১১)২১ নং মামলা দায়ের করেছেন।

যুবককে পুড়িয়ে হত্যা, পরকীয়া প্রেমিকার নামে চার্জশিট

 যশোর অফিস

যশোরের শার্শায় পরকীয়া প্রেমিক মনিরুল ইসলাম মনির নামে এক যুবককে পেট্রোল ঢেলে পুড়িয়ে হত্যা মামলায় প্রেমিকা বিথি খাতুন (৩৩) নামে এক নারীকে অভিযুক্ত করে চার্জশিট দাখিল করা হয়েছে।

মঙ্গলবার মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শার্শা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোস্তাফিজুর রহমান আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

অভিযুক্ত বিথি খাতুন শার্শা উপজেলার কাজীরবেড় গ্রামের সিরাজুল ইসলামের বাড়ির ভাড়াটিয়া ঝিনাইদহ সদরের খানকুলা গ্রামের সাইদুর রহমানের স্ত্রী।

জানা যায়, মনিরামপুর উপজেলার মনোহরপুর (রাজগঞ্জ) গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে মনিরুল ইসলাম মনি রাজগঞ্জ বাজারে লোকাল বাসের কলারম্যান (বাস কাউন্টার কর্মী) হিসেবে কাজ করতেন। অপরদিকে অভিযুক্ত বিথি খাতুনের স্বামী সাইদুর রহমান ওয়েব ফাউন্ডেশন এনজিওর রাজগঞ্জ শাখায় চাকরি করতেন।

চাকরির সুবাদে রাজগঞ্জে স্বামীর সঙ্গে থাকতেন বিথি খাতুন। সেই সুবাদে বিথি খাতুনের সঙ্গে মনিরুল ইসলামের পরিচয় হয়। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে এবং তারা মোবাইল ফোনে কথাবার্তা বলতেন। পরবর্তীতে স্বামীর বদলিজনিত কারণে বিথি খাতুন তার সঙ্গে শার্শায় চলে যান। তারা কাজীরবেড়ে ঘর ভাড়া নিয়ে বসবাস শুরু করেন।

চলতি বছরের সেপ্টেম্বর বিকালে মনিরুল ইসলাম জরুরি কাজ আছে বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে যান। তার পরিবারের লোকজনকে বলে যান রাতে ফিরবেন না। পরদিন সেপ্টেম্বর ভোরে রাজগঞ্জ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশের কাছ থেকে মনিরুল ইসলামের পিতা আবুল হোসেন খবর পান, তার ছেলের লাশ শার্শা থানা পুলিশের হেফাজতে আছে। খবর পেয়ে আবুল হোসেন শার্শা থানায় গিয়ে তার ছেলের লাশ শনাক্ত করেন।

পরে আবুল হোসেন খোঁজ নিয়ে জানতে পারেন, স্বামী বাসায় না থাকার সুযোগে প্রেমিকা বিথি খাতুন তার ছেলেকে মোবাইল ফোন করে ডেকে নিয়ে গিয়েছিলেন। সেখানে ঘুমের ওষুধ খাইয়ে মনিরুল ইসলামকে প্রথমে অচেতন করেন বিথি খাতুন। পরে তাকে ওই অবস্থায় ঘর থেকে বের করে বাড়ির সিঁড়িতে নিয়ে আসেন এবং মোটরসাইকেল গায়ের ওপর তুলে দেয়া হয়।

এরপর মোটরসাইকেল থেকে পেট্রল বের করে তার গায়ের ওপর ঢেলে দিয়ে তাকে পুড়িয়ে হত্যা করেন বিথি খাতুন। ঘটনায় বিথি খাতুনকে আসামি করে শার্শা থানায় মামলা করেন আবুল হোসেন। পুলিশ আসামি বিথি খাতুনকে আটক করে।

 ‘ভাতারের ভাত খাবেন … গীত গাবেন, এটা মানব না’

 মেহেরপুর প্রতিনিধি

মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের পর এবার ভাইরাল হয়েছে জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোখলেছুর রহমান স্বপনের বক্তব্য। সদর উপজেলার বুড়িপোতা ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের পক্ষে পথসভায় মোখলেছুর  বলেছেনÍ ‘মেম্বার পদে গোপনে যাকে খুশি তাকে ভোট দেবেন কিন্তু চেয়ারম্যান পদে নৌকায় ভোট দেবেন প্রকাশ্যে। মুখে বলবেন আওয়ামী লীগ করি, ভোট দেবেন নৌকার বিপক্ষে- তা হবে না। ভাতারের ভাত খাবেন নাঙ্গের গীত গাবেন এটা আমরা মানব না।’ সম্প্রতি মেহেরপুর সদর উপজেলার কুতুবপুর ইউনিয়নের এক নির্বাচনী পথসভায় মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক মোখলেছুর রহমানের বক্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

ওই নির্বাচনী পথসভায় উপস্থিত ছিলেন- জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মতিউর রহমান, জেলা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সরফরাজ হোসেন প্রমুখ।

ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে মোখলেছুর রহমানকে বলতে শোনা যায়Í ‘রাজনীতির শেষ হিসাব হচ্ছে নির্বাচন। আর সেই নির্বাচনের ভোটের দিনে যদি আপনাদের কাছে না পাই, আপনি বিবাহ করবেন আমার সাথে আর শোবেন অন্যের কাছে এসব আর অত সহজ হবে না।’

একই পথসভার আরও একটি ভিডিওতে জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মতিউর রহমানকে বলতে শোনা যায়Í ‘আমরা ইতোমধ্যে জেনে এসেছি, এই কুলবাড়িয়া গ্রাম পশ্চিম পাকিস্তান। এই পশ্চিম পাকিস্তানের আস্তানা যদি ভাঙতে হয় তাহলে আওয়ামী লীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, যুবলীগের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করতে হবে। আগামী ২৮ নভেম্বর নৌকায় প্রকাশ্যে ভোট দিতে হবে। সদস্য ভোটটি গোপনে দিতে পারেন। বিরোধী দলের লোক যাতে ভোট কেন্দ্রে প্রবেশ করতে না পারে, সেদিকে আপনারা খেয়াল রাখবেন। আমাদের মন্ত্রী (জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন) বলেছেন, কুতুবপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ইদ্রিস আলীকে নির্বাচিত করার জন্য সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। মন্ত্রীর নির্দেশে আমর জেলা শহর থেকে জনপদে এসেছি।’

এর আগে গাংনী উপজেলার ষোলটাকা ইউনিয়নের নৌকা প্রার্থীর পক্ষে কর্মী সমাবেশে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম খালেক বলেন, ভোট কেন্দ্র দখলে নিয়ে প্রতিজন নৌকা প্রতীকে একবুর, দুবুর, তিনবুর প্রয়োজনে যতখুশি ততবার সিল মারবেন। সরকার আমাদের, প্রশাসন আমাদের। কেউ কোনো বাধা দেবে না। যদি বাধা দেয় আমাকে বলবেন।

ছিনতাই করতে গিয়ে ধরা ‘বেদের মেয়ে জোৎস্না’

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে টাকা ছিনতাই করার সময় নিপা খাতুন (২২) রুবিনা খাতুন (২৪) নামের দুই বেদেকে গ্রেফতার করেছে চুয়াডাঙ্গা সদর থানা পুলিশ।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বিকেলে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতাররা নিজেদের ‘বেদের মেয়ে জোৎস্না’ নামে পরিচয় দিতেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। চুয়াডাঙ্গা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ মহসীন তাদের গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, গ্রেফতাররা খুবই ধূর্ত। তারা মূলত সাপুড়ে। তারা বিভিন্ন সড়কে ঘুরে বেড়ান। এরপর কোথাও ভিড় দেখলে সেখানে মিশে যান এবং সুযোগ বুঝে ব্যাগ, টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যান। বুধবার চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের সামনে ভিড় দেখে তারা সেখানে যান। এসময় আছমা বেগম জমেলা বেগম নামের দুজনের ভ্যানিটি ব্যাগ থেকে টাকা ছিনিয়ে নিতে গিয়ে ধরা পড়েন। গ্রেফতার দুজনের বিরুদ্ধে এর আগে শেরপুর জেলায় একটি মামলা রয়েছে বলেও জানান ওসি।

দোকানে ঢুকে জুয়েলারি ব্যবসায়ীর বুকে ছুরিকাঘাত

যশোর অফিস

যশোরের ঝিকরগাছায় দোকানে ঢুকে প্রকাশ্যে মৃত্যুঞ্জয় সিংহ (৪৫) নামের এক স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাত করেছে দুর্বৃত্ত। বুধবার (২৪ নভেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ঝিকরগাছার কৃষ্ণনগর বাজারে ঘটনা ঘটে।

গুরুতর আহত মৃত্যুঞ্জয় সিংহকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের শনাক্ত করতে পারেননি প্রত্যক্ষদর্শীরা। আহতের ছেলে অভিজিৎ সিংহ বলেন, বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে অজ্ঞাতপরিচয় এক ব্যক্তি আমাদের জুয়েলারি দোকানে ঢুকে বাবার বুকের বাম

পাশে ধারালো ছুরি দিয়ে সজোরে আঘাত করেন। এতে তিনি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। এসময় পাশের দোকানে থাকা লোকজনের সহায়তায় তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তবে চিকিৎসক জানিয়েছেন, তার শারীরিক অবস্থা আশঙ্কামুক্ত।

তিনি আরও বলেন, একজন ছুরিকাঘাত করে দ্রুত দোকান থেকে বের হয়ে বাইরে দাঁড়িয়ে থাকা একজনের মোটরসাইকেলে উঠে দ্রুত পালিয়ে যান। তবে তারা দোকান থেকে কোনো অলংকার নিয়েছে কি-না তা মুহূর্তে বলা যাচ্ছে না। ধারণা করা হচ্ছে, পূর্বশত্রুতার জেরে বাবাকে হত্যাচেষ্টা করা হয়েছে।

ঝিকরগাছা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুমন ভক্ত বলেন, ছুরি মেরে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে গেছে। তাদের গ্রেফতারে পুলিশ তৎপর রয়েছে।

গোপালগঞ্জে কবির হত্যার মূলহোতা হাসান গ্রেপ্তার

গোপালগঞ্জ প্রতিনিধি।।

গোপালগঞ্জে ফ্রি ফায়ার গেমস খেলাকে কেন্দ্র করে কবির সরদার হত্যার মূলহোতা হাসান শেখকে গ্রেপ্তার করেছে গোপালগঞ্জ থানা পুলিশ। বুধবার সকালে যশোরের অভয়নগর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, যশোরের অভয়নগরে  অভিযান চালিয়ে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মনিরুল ইসলামের নেতৃত্বে একদল পুলিশ  হাসানকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেপ্তারকৃত হাসান শেখের বাড়ি ভোজেরগাতী গ্রামে। হাসান শেখ প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে কবিরকে কুপিয়ে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছেন ওসি। আগামীকাল হাসানকে আদালতের পাঠিয়ে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহণের আবেদন করা হবে বলেও জানান ওসি। গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলাম জানান, গত নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যার দিকে সদর উপজেলার ভোজেরগাতী গ্রামের ভোজেরগাতি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাদে স্থানীয় হাসান শেখ (২৫) টিটু সরদার (১৭) সঙ্গীয় কয়েকজন মিলে মোবাইল ফোনে ফ্রি ফায়ার গেম খেলছিল। এক পর্যায়ে টিটু সরদার হাসান শেখের মধ্যে খেলা নিয়ে কথা কাটাকাটি হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। পরে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের মেম্বার আরোজ আলী সরদার বিষয়টি মীমাংসা করে দেন। এর কিছু সময় পর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সামনে হাসান শেখ টিটু সরদার কবির সরদারকে কুপিয়ে আহত করে। পরে আহত দুজনকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায় স্থানীয় পরিবারে সদস্যরা। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কবির সরদার মারা যান। অন্যদিকে আহত টিটু সরদারের অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। উল্লেখ্য,  ঘটনার পর দুই দফায় আসামি পক্ষের লোকজনের পাঁচটি বাড়িঘর ভাঙচুর, লুটপাট আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে ব্যাপক ক্ষতি করে।

খুলনায় র‌্যাবের অভিযানে হত্যাচেষ্টা মামলার আসামী হৃদয় গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার

নগরীর বাগমারা মেইন রোডের একটি সেলুনের মধ্যে অবস্থানকালে মোটরসাইকেল যোগে একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মো. আব্দুল্লাহ (১৭) কে কুপিয়ে গুরুতর জখম করার হত্যাচেষ্টা মামলার এক আসামীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৬।

২৩ নভেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে রূপসা থানাধীন কাজদিয়া সরকারি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে তথ্য প্রযুক্তির সহয়তা এবং স্থানীয় সোর্সের তথ্যের ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আসামী হলেন নগরীর ৫৪/টুটপাড়া আমতলা এলাকার শেখ নজরুল ইসলামের ছেলে  মো. মেহেদী হাসান হৃদয় (২০)১৭ নভেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে পূর্বশত্রুতার জেরে আব্দুল্লাহকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে আসামীরা। আব্দুল্লাহ বাগমারা মেইন রোডের সৈয়দ মুরাদ আলীর ছেলে। 

মামলার আসামীরা হলেন নগরীর পুর্ব বানিয়াখামার এলাকার মজিবর রহমান ফরাজীর ছেলে ফরাজী রাসেল (৩০), ৬/৯, দক্ষিন টুটপাড়ার মা মঞ্জিলের মৃত. গোলাম মোস্তফা বাবুল শেখের ছেলে  মো. রোহান শেখ (২০), ৫৪/টুটপাড়া আমতলা এলাকার শেখ নজরুল ইসলামের ছেলে মেহেদী হাসান হৃদয় (২০), টুটপাড়া বড় খালপাড় এলাকার আফ্রিদী (১৯), হাজী মহসীন রোডের মাসুম (২২), ২৭৩ টুটপাড়া এলাকার তরিকুল হোসেন রাসেলের ছেলে সামির হোসেন (১৯), ২৭ পশ্চিম বানিয়াখামার এলাকার মো. মুরাদ হোসেনের ছেলে মো. অর্ণব (১৯), দক্ষিণ টুটপাড়া মাওলা বাড়ি মোড়ের মো. শাহাদাত হোসেন মল্লিকের ছেলে চঞ্চল মল্লিক (২২) জুম্মান (২৩), মিস্ত্রিপাড়া এলাকার ব্রাভো (১৯), হরিণটানা রিয়া বাজার এলাকার পারভেজ (২৮), দক্ষিণ টুটপাড়া মাওলা বাড়ি ছোট খালপাড়ের বাবু চৌধুরীর ছেলে শিশির চৌধুরী (২০) ১৬ দেবেন বাবু রোডের মোহাম্মদ আলীর ছেলে ফাহাদ (১৮)। 

র‌্যাব-জানায়, ১৭ নভেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৫টার দিকে নগরীর বাগমারা মেইন রোডের একটি সেলুনের মধ্যে অবস্থান করছিলো আব্দুল্লাহ। এসময়  মোটরসাইকেল যোগে একদল সন্ত্রাসী দেশীয় অস্ত্র দিয়ে আব্দুল্লাহকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। যার ফলে ভিকটিমের শরীরের বিভিন্ন অংশ ক্ষতবিক্ষত হয়। পরবর্তীতে স্থানীয়রা ভিকটিমকে জরুরী ভিত্তিতে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। এঘটনায় আব্দুল্লাহ’পিতা মুরাদ আলী বাদী হয়ে ১৩জনের নাম উল্লেখ এবং অজ্ঞাত ২/জনের বিরুদ্ধে সদর থানায় হত্যাচেষ্টা মামলা দায়ের করেন যার নং-৩৩। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই জুয়েল রানা অধিনায়ক র‌্যাব-এর নিকট আসামীদের গ্রেপ্তারে সহায়তা কামনা করে। এরই ধারাবাহিকতায় ২৩ নভেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে রূপসা থানাধীন কাজদিয়া সরকারি উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সামনে থেকে হৃদয়কে গ্রেপ্তার করা হয়। তাকে মামলার তদন্তকারী অফিসারের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে।

কেএমপির অভিযানে মাদকসহ গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার

মহানগর পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে নগরীর বিভিন্ন থানা এলাকা হতে ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ীরা হলেন নগরীর মুজগুন্নী ঝুড়িভিটা এলাকার মৃত. ফারুক মোল্লার ছেলে মো. শামীম মোল্লা (২৮)

কেএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. শাহ্ জাহান শেখ জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ। এসময় ঝুড়িভিটা এলাকার মাজার রোডস্থ ইসমাঈলের চায়ের দোকানের সামনে থেকে ১০০ গ্রাম গাঁজাসহ শামীম মোল্লাকে গ্রেফতার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বটিয়াঘাটায় জেলা ডিবির অভিযানে গাঁজাসহ গ্রেপ্তার

স্টাফ রিপোর্টার 

খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা থানাধীন টালিয়ামারা গ্রামে অভিযান চালিয়ে ১০০ গ্রাম গাঁজা একটি মোটরসাইকেলসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)২৩ নভেম্বর রাত পৌনে ৯টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ী হলেন খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা থানার রনজিতের হুলা গ্রামের ইউসুফ মোল্যার ছেলে মো. রেজওয়ান মোল্যা (৩৯)। 

জেলা ডিবি জানায়, ২৩ নভেম্বর রাত পৌনে ৯টার দিকে খুলনা জেলার বটিয়াঘাটা থানাধীন টালিয়ামারা গ্রামে অভিযান পরিচালনা করেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাহবুব হাসান এর দিক-নির্দেশনায় জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ উজ্জ্বল কুমার দত্ত এর নেতৃত্বে এসআই সৌরভ কুমার দাস। এসময় প্রগতি মাধ্যমিক স্কুল মাঠের সামনে থেকে ১০০ গ্রাম গাঁজা একটি মোটরসাইকেলসহ রেজওয়ান মোল্যাকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে বটিয়াঘাটা থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহেল আহম্মেদ এর ইন্তেকাল

খবর বিজ্ঞপ্তি

নগরীর নাজিরঘাট মেইন রোডের স্থায়ী বাসিন্দা বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহেল আহম্মেদ (৭০) ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না……রাজিউন)বুধবার (২৪ জুলাই) ভোর পৌনে ৪টার দিকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যবরণ করেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, মেয়ে, জামাতা, নাতি-নাতনিসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন রেখে গেছেন। মরহুমের বড় মেয়ে সালমা সোহেল রিপা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।   

মরহুমের নামাজে জানাযা বাদ জোহর নাজিরঘাট জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয়। পরে তাকে নিরালা কবরস্থানে (মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য সংরক্ষীত) গার্ড অব অনার শেষে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হয়। নামাজে জানাযা পরিচালনা করেন মরহুমের মেঝে মেয়ের ছেলে হাফেজ সালমান। সময় কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা আলমগীর কবির, বীর মুক্তিযোদ্ধা মহিউদ্দিন মোড়ল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. মোতাহার, বীর মুক্তিযোদ্ধা বাবু নির্মল, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. ফারুকুজ্জামান, বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. হাফিজুর রহমান, বীর মুক্তিযোদ্ধা রতন সহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ, প্রতিবেশী আত্মীয়-স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা সোহেল আহম্মেদ ১৯৭১ সালে ৯ম সেক্টরে যুদ্ধ করেন। তিনি নগরীর নাজিরঘাট মেইন রোডের মৃত. তোফাজ্জেল হোসেন সফুরা খাতুনের ছেলে। 


Post Views:
49



নিউজের উৎস by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি
সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০২১
Designer: Shimulツ
themesba-lates1749691102