সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ০১:৪০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
মহাকাশ থেকে রহস্যময় ভুল তথ্য পাঠাচ্ছে নাসার যান! স্যাটেলাইট ‘অন্ধ’ করে দেয়ার মতো লেজার অস্ত্র আছে রাশিয়ার – টেক শহর এমবাপ্পে চায় জিদানকে, রাজি হচ্ছেনা জিদান – স্পোর্টস প্রতিদিন চিত্রনায়ক রিয়াজের ছবি দিয়ে একক আলোকচিত্র প্রদর্শনের আয়োজন করলো ল্যুভ মিউজিয়াম ‘ভাদাইমাখ্যাত’ কৌতুক অভিনেতা আহসান আলী আর নেই শরণখোলায় ভাইয়ের মারপিটে ভাইয়ের মৃত্যু, মামলা নিচ্ছে না পুলিশ অভিযোগ পরিবারের! পোশাকের জন্য তরুণীকে হেনস্থা, ‘মূল হোতা’ আরেক নারী বাইডেনসহ ৯৬৩ মার্কিন নাগরিকের বিরুদ্ধে রাশিয়ার নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি BOU Job Circular 2022 খুলনা সহ আট বিভাগে বৃষ্টির পূর্বাভাস

সারা খুলনা অঞ্চলের সব খবরা খবর

  • আপডেট সময় মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারী, ২০২২
সারা খুলনা অঞ্চলের সব খবরা খবর

খুলনায় ডাক্তার দেখাতে এসে প্রাণ গেল যুবকের

স্টাফ রিপোর্টার

খুলনা থেকে ডাক্তার দেখিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বাসের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে তোফিক হাসান সোহেল (৩৫) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। সোহেল যশোরের কেশবপুর সদরের মৃত আব্দুল মোমিনের ছেলে। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) বিকেল ৩টার দিকে ডুমুরিয়া উপজেলার চুকনগর সরদার বাড়ির বটতলা মোড়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। 

ডুমুরিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ ওরায়দুর রহমান জানান, বিকেলে খুলনা থেকে ডাক্তার দেখিয়ে মোটরসাইকেলে করে বাড়ি ফিরছিলেন সোহেল। পথে চুকনগর সরদার বাড়ির বটতলা মোড়ে এলে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি বাসের সঙ্গে মোটরসাইকেলটির মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। লাশ হাইওয়ে পুলিশের তত্ত্বাবধানে রয়েছে।

রোগী মৃত্যুর ঘটনায় সুষ্ঠু তদন্ত ও দায়ীদের শাস্তি দাবি সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের

খবর বিজ্ঞপ্তি

নগরীর ময়লাপোতা মোড়ে খানজাহান আলী হাসপাতালে ২৩ জানুয়ারি বিকেলে ভুল চিকিৎসায় ইলিয়াজ ফকির নামে এক রোগীর মৃত. হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মৃত ব্যক্তির স্বজনদের অভিযোগ, অপারেশন থিয়েটারে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু হয়েছে। উক্ত মৃত্যুর ঘটনায় যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেপ্তার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন খুলনা মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ।

ফাউন্ডেশনের খুলনা মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ মনে করেন, চিকিৎসা ক্ষেত্রে এ ধরণের অবহেলা এবং অস্বাভাবিক মৃত্যু কোনোভাবে কাম্য নয়। এ ব্যাপারে ভবিষ্যতে সবাইকে অধিকতর আন্তরিক এবং সতর্ক হওয়া উচিৎ।

বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন সংগঠনের খুলনা মহানগর সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম, উপদেষ্টা রোটা. এস এম শাহনওয়াজ আলী, আলহাজ্ব রোটা. ইঞ্জিনিয়ার রুহুল আমিন হাওলাদার, ডা. এটিএম মঞ্জুর মোর্শেদ, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব গাজী আলাউদ্দিন আহমদ, আলহাজ্ব রোটা. সরদার আবু তাহের, মোহাম্মদ আরিফ, শেখ মো. নাসির উদ্দিন, আব্দুস সালাম শিমুল, সাধারণ সম্পাদক এম. এ. মান্নান বাবলু এবং রোটাঃ মো. আজিজুল হক, রোটা. খান ইমরান আহমেদ, মো. রুকুনুজ্জামান, ইনামুল হক সবুজ, এস কে রানা আহমেদ, এইচ এম জহিরুল ইসলাম, বিমল মল্লিক, মো. বদিউজ্জামান লাবলু, মো. হাসানুর রহমান তানজির, এ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান মিজি, ইসরাত জাহান জিনাত, মো. হুমায়ুন কবির বালী, এসকে এমডি বাহলুল আলম, মো. মনির হোসেন, রকিব উদ্দিন মোল্যা, বিপ্লব কান্তি দাস, শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, অসীম কুমার বিশ্বাস, কাজী আব্দুল মান্নান, সোহাগ হোসেন, প্রীতিশ ঢালী, মো. ইউনুস সানা, ইলিয়াছ হোসেন লাবু, মানসুরা তুলি, এম হানিফ হোসেন, নাঈম ফারহান, মো. আফতাব উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন মোল্লা রাজীব, শাহিন আলম বাবু, মো. লিটন হোসেন ও ফারজানা ইয়াসমিন পপি।

কেএমপির অভিযানে মাদকসহ গ্রেপ্তার ২

স্টাফ রিপোর্টার

মহানগর পুলিশের মাদক বিরোধী অভিযানে নগরীর বিভিন্ন থানা এলাকা হতে ৩৬ পিস ইয়াবাসহ দুমাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তার দুমাদক ব্যবসায়ী হলেন লবণচরা থানাধীন বউ বাজার এলাকার আব্দুর রহিম সানার ছেলে মো. ফয়সাল উজ্জামান (২৬) ও দৌলতপুর দেয়ানা হাসপাতালের মোড়ের মো. হালিম শিকদারের ছেলে মো. রাকিবুল শিকদার (২২)। 

কেএমপির অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার  মো. কামরুজ্জামান পিপিএম জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নগরীর বিভিন্ন এলাকায় মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা করে পুলিশ। এসময় খুলনা থানাধীন দিলখোলা রোডস্থ কাউয়ুম খানের বসতঘরের সামনে হতে ৩৬ পিস ইয়াবাসহ দুমাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ২টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

মাগুরায় র‌্যাবের অভিযানে ২৯৬ বোতল ফেন্সিডিলসহ গ্রেপ্তার ১

স্টাফ রিপোর্টার

মাগুরা জেলার সদর থানাধীন টেক্সটাইল মিলগেট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৯৬ বোতল ফেন্সিডিলসহ এক মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব-৬। ২৩ জানুয়ারি দুপুর দেড়টার দিকে গোয়েন্দা তথ্যের মাধ্যমে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তার মাদক ব্যবসায়ী হলেন চুয়াডাঙ্গা জেলা সদরের আকন্দবাড়ীয়া এলাকার আমির হামজার ছেলে মো. হামিদুল ইসলাম (৪২)।

র‌্যাব-৬ জানায়, ২৩ জানুয়ারি দুপুর দেড়টার দিকে মাগুরা জেলার সদর থানাধীন টেক্সটাইল মিলগেট এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে র‌্যাবের একটি চৌকস আভিযানিক দল। এসময়

যশোর টু মাগুরাগামী মহাসড়ক এর উপর চেকপোষ্ট স্থাপন করে একটি প্রাইভেটকার হতে ২৯৬ বোতল ফেন্সিডিল ও নগদ ৬ হাজার টাকা হ হামিদুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়। তার বিরুদ্ধে মাগুরা সদর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রন আইনে মামলা রুজু করা হয়েছে।

চুরির অপবাদ দিয়ে মাদ্রাসাছাত্রকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ

 নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলের লোহাগড়ায় এক মাদ্রাসাছাত্রকে টাকা চুরির অপবাদ দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। উপজেলার শালনগর ইউনিয়নের মণ্ডলবাগ আকতার হোসেন এতিমখানা রহমানিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ আব্দুল্লাহর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে।

নিহত ছাত্র আরিফ বিল্লাহ (৯) উপজেলার লংকারচর গ্রামের নূর ইসলামের ছেলে। পুলিশ নিহতের লাশ উদ্ধার করে সোমবার সকালে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে।

১০ মাস আগে আরিফ বিল্লাহকে মণ্ডলবাগ আকতার হোসেন এতিমখানা রহমানিয়া মাদ্রাসায় হাফেজি শাখায় ভর্তি করা হয়।

জানা যায়, গত ১৭ জানুয়ারি ওই মাদ্রাসার এক ছাত্রের দুইশ টাকা চুরি হয়ে যায়। বিষয়টি সে মাদ্রাসার শিক্ষকদের জানায়। মাদ্রাসার শিক্ষক হাফেজ আব্দুল্লাহ ওই রাত ১১টার দিকে মাদ্রাসার সব ছাত্রকে ঘুম থেকে ডেকে তুলে নামাজে বসানোর মতো করে বসিয়ে বাঁশের কঞ্চি লাঠি দিয়ে পেটাতে থাকে। সময় ছাত্র আরিফ বিল্লাহ শিক্ষক আব্দুল্লাহর বেধড়ক মারধরে গুরুতর আহত হয়। ঘটনাটি পরিবারের কাউকে না জানাতে ছাত্রদের হুমকি দেয় ওই মাদ্রাসাশিক্ষক।

একপর্যায়ে আরিফ অসুস্থ হয়ে কয়েক দিন লজিংবাড়িতে খেতে না যাওয়ায় গত শুক্রবার সকালে লজিং বাড়ির মালিক হাফিজারের স্ত্রী মাদ্রাসায় খোঁজখবর নিতে যান। সেখানে গিয়ে আরিফকে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় মাদ্রাসায় শুয়ে থাকতে দেখেন এবং বিষয়টি আরিফের মা, বাবা তার ফুফুকে জানান। পরে তিনি অসুস্থ আরিফকে তার বাড়িতে নিয়ে যান।

খবর পেয়ে পার্শ্ববর্তী লাহুড়িয়া গ্রামের আরিফের ফুফু রুনা খানম ওই রাতেই লজিং বাড়ি থেকে তাকে নিজ বাড়িতে নিয়ে স্থানীয় চিকিৎসকের মাধ্যমে চিকিৎসা দেন। লাহুড়িয়ার ফুফু বাড়িতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার সন্ধ্যা ৭টার দিকে আরিফের মৃত্য হয়।

আরিফের পিতা নূর ইসলাম তার মা অভিযোগ করে বলেন, মাদ্রাসাশিক্ষকের বেধড়ক মারধরের কারণে সে অসুস্থ হয়ে পড়ে। পরিবারের কাউকে বিষয়টি না জানতে দিয়ে তাকে মাদ্রাসায় আটক করে রাখে। আমার ছেলের সময়মতো চিকিৎসা না করানোর কারণে অসুস্থ হয়ে মারা গেছে। আমি ছেলে হত্যার বিচার চাই।

অভিযুক্ত মাদ্রাসাশিক্ষক আব্দুল্লাহ সুপার আশরাফ আলীর সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাদের পাওয়া যায়নি।

লোহাগড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আবু হেনা মিলন চুরির ঘটনায় মাদ্রাসার সব ছাত্রকে মারধরের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, রোববার রাতে নিহত ছাত্র আরিফের লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নড়াইলে অস্ত্র মামলায় এক আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

 নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলে অস্ত্র মামলায় নাছির শেখ নামে একজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মামলার অপর দুই আসামিকে বেকসুর খালাস প্রদান করা হয়েছে। নাছির শেখ যশোর জেলার অভয়নগরের ধুলগ্রামের মো. তসির শেখের পুত্র।

সোমবার নড়াইল জেলা দায়রা জজ মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান রায় দেন। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ইমদাদুল ইসলাম।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০১৪ সালের ডিসেম্বর নড়াইল জেলা গোয়েন্দা পুলিশের এসআই মো. রেজাইল করিমের নেতৃত্বে একদল পুলিশ মাদক অস্ত্র উদ্ধার অভিযান পরিচালনার সময় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সদর উপজেলার সীতারামপুর সেতুর ওপর থেকে যশোরের দিক থেকে আসা একটি মোটরসাইকেলের গতিরোধ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়।

দ্রুত মোটরসাইকেলটি নড়াইল শহরের দিকে চলে যায়। সময় পুলিশ সদস্যরা ধাওয়া করে এবং কন্টোলরুমসহ গোয়েন্দা পুলিশের অন্য টিমকে মোটরসাইকেলটি আটকের জন্য নির্দেশ দেয়।

পরে বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে নড়াইল শহরের বউবাজার এলাকা থেকে স্থানীয়দের সহায়তায় নাছির শেখসহ দুজনকে একটি ইয়ামাহা এফজেড মোটরসাইকেলসহ গ্রেফতার করে।

সময় তাদের দেহ তল্লাশি করে একজনের কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, রাউন্ড এমএম গুলি উদ্ধার করে। ছাড়া ইয়ামাহা এফজেড মোটরসাইকেলটি হেলমেট একটি জ্যাকেটসহ জব্দ করা হয়। ব্যাপারে সদর থানায় অস্ত্র আইনে মামলা করা হয়।

আওয়ামী লীগ নেতার মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টার শোক।

দিঘলিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ত্রান দুর্যোগ ব্যবস্থপনা সম্পাদক  মোড়ল খলিলুর রহমান গত রাত ৩টা ৩০ মিনিটে ইন্তেকাল করেছেন (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)

তাঁর  মৃত্যুতে গভীর শোক, শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা এবং আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অর্থনৈতিক উপদেষ্টা বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য  ড. মসিউর রহমান।

এ্যাড. গোলাম মোস্তফা এবং এ্যাড. হাসানুর রহমানের ইন্তেকাল: আ’লীগের শোক

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক জেলা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি এ্যাড. গোলাম মোস্তফা ফরাজী ২৭নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা সাবেক সহ-সভাপতি বিশিষ্ট আইনজীবী এ্যাড. হাসানুর রহমান জিন্নাহ ইন্তেকাল করেছেন (ইন্নালিল্লাহি ……. রাজেউন)গতকাল সোমবার বার্ধক্যজনিত কারনে মৃতবরণ করেন। গোলাম মোস্তফা ফরাজীর নামাজে জানাযা বাদ জোহর মর্ডান টাওয়ারের সামনে অনুষ্ঠিত হয়। জানাযা শেষে মরহুমকে তার গ্রামের বাড়ি দামোদরে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তার দ্বিতীয় নামাজে জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়। অপরদিকে এ্যাড. হাসানুর রহমান জিন্নাহর নামাজে জানাযা বাদ মাগরিব নগরীর পিটিআই মোড়ে অনুষ্ঠিত হয়। জানাযা শেষে মরহুমকে টুটপাড়া কবরস্থানে দাফন করা হয়। গোলাম মোস্তফা ফরাজী হাসানুর রহমান জিন্নাহর মৃত্যুর সংবাদ পেয়ে খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি সিটি মেয়র আলহাজ¦ তালুকদার আব্দুল খালেক এবং সাধারণ সম্পাদক এম ডি বাবুল রানা শোকাহত পরিবারের পাশে যান। নেতৃবৃন্দ সেখানে কিছু সময় অবস্থান করেন এবং শোকাহতদের ধৈর্য্য ধারনের জন্য সান্তনা দেন। এসময়ে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি এ্যাড. রজব আলী সরদার, মহানগর আওয়ামী লীগ প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক কাউন্সিলর জেড মাহমুদ ডন, সদর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি ফেরদৌস হোসেন লাবু, সাধারণ সম্পাদক শেখ এশারুল হক সহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ। পরে নেতৃবৃন্দ দু’জনের জানাযায় অংশগ্রহণ করেন।

এদিকে এ্যাড. গোলাম মোস্তফা ফরাজী এবং এ্যাড. হাসানুর রহমান জিন্নাহ’মৃত্যুতে গভীর শোক, শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিবৃতি দিয়েছেন, শ্রম কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান এমপি, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সভাপতি সিটি মেয়র আলহাজ¦ তালুকদার আব্দুল খালেক, খুলনা-আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহ উদ্দিন জুয়েল, খুলনা জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ¦ শেখ হারুনুর রশীদ, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এম ডি বাবুল রানা, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী, মহানগর আওয়ামী লীগ প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক কাউন্সিলর জেড মাহমুদ ডন, সদর থানা আওয়ামী লীগ সভাপতি জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি এ্যাড. মো. সাইফুল ইসলাম, সদর থানা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক কাউন্সিলর ফকির মো. সাইফুল ইসলাম, ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ সভাপতি ফেরদৌস হোসেন লাবু, সাধারণ সম্পাদক শেখ এশারুল হক।

আদর্শ জাতি গঠনে মূল ভূমিকা রাখে শিক্ষক সমাজ: এমপি বাবু

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা-৬ (কয়রা-পাইকগাছা) আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আক্তারুজ্জামান বাবু বলেছেন, যে জাতি বা দেশের শিক্ষার অবকাঠামো যত মজবুত শিক্ষার সামগ্রিক পরিবেশ যত উন্নত, সে দেশ বা জাতি তত উন্নত স্বয়ংসম্পূর্ণ। বলা হয়, ‘শিক্ষায় জাতির মেরুদন্ড। আর এই জাতি গঠনের মূল কারিগর হলো আমাদের শিক্ষকরা। জাতির মেরুদন্ডকে মজবুত রাখার ক্ষেত্রে মূল ভূমিকা পালন করে আমাদের শিক্ষক সমাজ। আদর্শ জাতি গঠনের মূল কাজটি করেন তারাই। গত রবিবার দুপুরে কয়রা উপজেলার মহেশ্বরীপুরের হড্ডা ডি.এম. প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে ইউনিয়নের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের সাথে মতবিনিময় সভায় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। মহেশ্বরীপুর ইউপি চেয়ারম্যান প্রভাষক শাহনেওয়াজ শিকারীর সভাপতিত্বে বক্তৃতা করেন হড্ডা ডি.এম. প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নিহার রঞ্জন সরকার, শিক্ষক অরুণ কুমার সানা, মনোজ কান্তি বর্মন, হড্ডা জুনিয়র গার্লস স্কুলের শিক্ষক পরিতোষ কুমার বর্মন, ভাগবা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক আলী সরদার, আরও বক্তব্য রাখেন উপস্থিত ছিলেন খুলনা জেলা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক জসিম উদ্দিন বাবু, যুবলীগ নেতা শামীম সরকার, জেলা ছাত্রলীগের উপ-সম্পাদক মনিশংকর মন্ডল, ইউপি সদস্য মহাশিষ, গনি সরদার, আলমগীর, খোকন, ছাত্রলীগ নেতা উজ্জ্বল, বনি আমিন, তুহিন, রিপন প্রমুখ।

গাংনীতে ১৩ কেজি গাঁজা কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার, আটক

মেহেরপুর প্রতিনিধি

মেহেরপুরের গাংনীতে ১৩ কেজি গাঁজা কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার দুপুর আড়াইটার দিকে উপজেলার পলাশীপাড়া গ্রামের হুমায়ুন কবিরের বাড়ি থেকে এসব গাঁজা বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়। সময় হুমায়ন কবিরের ছেলে হাসানুজ্জামানকে (২০) আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গোপন খবরের ভিত্তিতে এসআই রাতুল হাসান, এস আই মাসুদুর রহমান এএসআই বিপ্লব হোসেন হুমায়ুন কবিরের বাড়িতে অভিযান চালান। সময় সিড়ির নিচ থেকে ১৩ কেজি গাঁজা কেজি বিস্ফোরক উদ্ধার করা হয়।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে হুমায়ন কবির তার স্ত্রী এবং মেয়ের জামাই মেহেরপুরের রাসেল রানা পালিয়ে গেছে। রাসেল রানার নামে হত্যাসহ অন্তত ১০টি মামলা রয়েছে।

বিস্ফোরক গাঁজা উদ্ধারের খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন মেহেরপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সার্কেল) অপু সরোয়ার গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: আব্দুর রাজ্জাক।

মোরেলগঞ্জে খাউলিয়া ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে  নির্যাতন হুমকির অভিযোগ

মোরেলগঞ্জ প্রতিনিধি

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে খাউলিয়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান কর্তৃক মারধর হুমকির অভিযোগে সংখ্যালঘু পরিবারের সংবাদ সম্মেলন। সোমবার(২৪ জানুয়ারি) দুপুরে অভিযোগ এনে ভুক্তভোগী পরিবার মোরেলগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাবে  এক সংবাদ সম্মেলন করেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন ভুক্তভোগীর মা  মিনতি রানী। মিনতি রানী ইউনিয়নের বড়পরী গ্রামের বাসিন্দা প্রাক্তন স্কুল শিক্ষক হরিপদ মিস্ত্রির স্ত্রী সাবেক ইউপি সদস্য। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন খাউলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি ইছহাক আলী,  সাধারন সম্পাদক আবুল কাশেম ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যবৃন্দ।

বনস্পতির মা  তার লিখিত বক্তব্যে বলেন আমার পুত্র বনস্পতি মিত্র প্রাণিসম্পদ বিভাগের খাউলিয়া ইউনিয়নের আই টেকনিশিয়ান হিসেবে কর্মরত। কয়েক মাস পূর্বে অনুষ্ঠিত  ইউপি নির্বাচন নিয়ে বর্তমান চেয়ারম্যান সাইদুর রহমানের সাথে শত্রুতা সৃষ্টি হয়। এর জের ধরে গত ১৭ জানুয়ারি  প্রতিবেশী দেলোয়ার গাজীর বাড়ির সম্মুখ হতে যাবার পথে  বনস্পতি মিত্রকে তার বাড়িতে ডেকে নেয়। সময় দেলোয়ার গাজীর রুগ্ন একটি গাভীকে ক্যালসিয়াম ইনজেকশন দেয়ার জন্য বললে বনস্পতি মিত্র নিয়ম অনুযায়ী গাভীটিকে ইনজেকশন পুশ করেন। বৃদ্ধ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত গাভীটি  রবিবার (২৩ জানুয়ারি) মারা যায়।

উক্ত গাভী মারা যাবার অজুহাতে  সোমবার (২৪ জানুয়ারি) ইউনিয়ন চেয়ারম্যান  সাইদুর রহমান বনস্পতিকে তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে   অকথ্য অশালীন ভাষায় গালিগালাজ করে। বনস্পতি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি বুঝিয়ে বলে এবং শান্ত হওয়ার অনুরোধ করলে তিনি আরও ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে চড়থাপ্পড় দেন। একটু পরে ঘর থেকে মোটা বেতের লাঠি এনে বনস্পতিকে বেদম প্রহার করে আহত করেন।

সংবাদ সম্মেলনে মিনতি রানী আরও জানান, সংখ্যালঘু পরিবার হওয়ায় বর্তমানে হুমকির মুখে ভীতসন্ত্রস্ত  অবস্থায়  দিন কাটাচ্ছেন তার পরিবার। পরিস্থিতিতে ন্থানীয় সংসদ সদস্য এবং মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি।

বিষয়ে   ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার সাইদুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি গরু মৃত্যুর ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়ে বনস্পতিকে ডেকে পাঠাই। সে আসলে  ভুক্তোভোগী পরিবারকে একটি গরু কিনে দেয়ার জন্য বলি। তবে মারধর গালিগালাজের মত কোন ঘটনা সেখানে ঘটেনি।

তেরখাদায় হতদরিদ্র শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে  বাংলাদেশ  আওয়ামী লীগ খুলনা জেলা শাখার  সাধারণ সম্পাদক এ্যাড. সুজিত অধিকারী তেরখাদা উপজেলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত দলীয়  চেয়ারম্যানদের   সঙ্গে নিয়ে অসহায় হতদরিদ্র শীতার্তদের মাঝে   কম্বল বিতরণ করেন।

২৪ জানুয়ারি সোমবার  উপজেলার আমতলা, বলরামপুর, পালেরহাট, বিভিন্ন জাইগাতে  ঘুরে ঘুরে অসহায়দের  কম্বল বিতরণের সময় তিনি বলেন, করোনাকালীন সহ দেশের ক্রান্তিকালীন সময়ে এক মাত্র আওয়ামী লীগই সাধারণ মানুষের পাশে থাকে। জননেত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে দেশ যখন বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করে দাড়িয়েছে ঠিক তখনই বিএনপি সহ দেশ বিরোধী দালালেরা দেশের মান নষ্ট করার জন্য লবিস্ট নিয়োগের মধ্যে দিয়ে নানান অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে।

সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক  শরফুদ্দিন বিশ্বাস বাচ্চু, এড. ফরিদ আহমেদ,  মোজাফফর মোল্লা, প্রফুল্ল কুমার রায়, এফ এম ওয়াহিদুজ্জামান, সরদার আবুল কাশেম ডাবলু, কে এম আলমগীর, আবুল খায়ের, কৃষ্ণ মেনন রায়, বুলবুল আহমেদ , শফিকুর রহমান পলাশ, শরাফত হোসেন, জোনাকি, খায়রুল বাশার, নীলমণি বিশ্বাস, জিহাদ হোসেন প্রমূখ।

সোনালী অতীত ক্লাবের শীতবস্ত্র বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

নগরীর অসহায় দু:স্থদের মাঝে সোনালী অতীত ক্লাব খুলনার উদ্যোগে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) সকাল ১১টায় জেলা স্টেডিয়ামস্থ ক্লাবের নিজস্ব কার্যালয়ে শীতবস্ত্র কম্বল বিতরণ করা হয়।

ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সাধারণ সম্পাদক রেজাউল আহমেদ রাজ এর পরিচালনায় অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ক্লাবের আজীবন সদস্য তাজ শরীফ রাজ, সহসভাপতি নুরুল ইসলাম খান কালু, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস এম সোহরাব হোসেন, কোষাধ্যক্ষ মো. আবুল হোসেন আবুল, সাংগঠনিক সম্পাদক মজিবর রহমান ফয়েজ, ক্রীড়া সম্পাদক মো. আদিলুজ্জামান আদিল, প্রচার সম্পাদক এম জলিল, কার্যনির্বাহী সদস্য সাহিদুল ইসলাম সাঈদ, জিএম আকরাম হোসেন, মাহফুজ (বড়), সির্জারসহ গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।

সাংবাদিক আহমদ আলী খানের সুস্থতা কামনা বৃহত্তর আমরা খুলনাবাসীর

খবর বিজ্ঞপ্তি

দৈনিক পুর্বাঞ্চল পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক খুলনা প্রেসক্লাবের সাবেক সভাপতি প্রবীন সাংবাদিক আহমদ আলী খান দুর্ঘটনায় আহত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার আশু সুস্থতা কামনা করেছেন বৃহত্তর আমরা খুলনাবাসীর নেতৃবৃন্দ।

নেতৃবৃন্দরা হলেন সভাপতি মোহাম্মদ আরিফ, সিনিয়র সহ-সভাপতি শেখ হেমায়েতুল ইসলাম, সহ-সভাপতি কবি সৈয়দ আলি হাকিম, ডা. সৈয়দ মোসাদ্দেক হোসেন বাবলু, ডা. মো. আব্দুস সালাম, শেখ হেদায়েত হোসেন হেদু, সরদার আবু তাহের মো. কামরুল ইসলাম কামু, যুগ্ম-সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, এম জলিল, আজাদুল হক আজাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক শাকিল আহমেদ রাজা, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক ইঞ্জি. এস এম শফিকুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ মো. ফিরোজ, দপ্তর সম্পাদক মো. কামরুল ইসলাম ভুট্রো, সহ দপ্তর সম্পাদক আশিকুর রহমান মিরাজ, পরিবেশ সম্পাদক মীর কাওসার আহমেদ মিজু,  শেখ শহিদুল ইসলাম প্রমুখ।

পাইকগাছা উপজেলা পৌর যুবদলের নব নির্বাচিত আহবায়ক কমিটিকে ফুল দিয়ে বরণ

পাইকগাছা প্রতিনিধি

পাইকগাছা উপজেলা পৌর যুবদলের নব নির্বাচিত আহবায়ক কমিটিকে ফুল দিয়ে বরণ করে নিলেন উপজেলা পৌর বিএনপি নেতৃবৃন্দ। সোমবার সন্ধ্যায় আল আমিন ক্লিনিক চত্বরে নতুন আহবায়ক কমিটিকে অনুষ্ঠানিক ভাবে বরণ করে নেন উপজেলা যুবদলের আহবায়ক তৈহিদুর রহমান মুকুল,সদস্য সচীব ইমরান হোসেন সরদার,পৌর যুবদলের আহবায়ক রুস্তম আলী সদস্য সচীব আনারুল ইসলামকে। উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপি আহবায়ক ডাঃ আব্দুল মজিদ,যুগ্ম আহবায়ক শাহদাৎ হোসেন ডাবলুএসএম এনামুল হক,পৌর বিএনপি আহবায়ক এ্যাড,গাজী আব্দুস সাত্তার, যুগ্ম আহবায়ক এসএম ইমদাদুল হক, অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তুষার কান্তি মন্ডল, কামাল আহম্মেদ সেলিম নেওয়াজ, শেখ আব্দুল গফুর, আবু তালেব, আব্দুল কুদ্দুস, মীর আজিজুর রহমান, ইকবাল হোসেন, আজহারুল ইসলাম, আমিনুর রহমান বজলু, হারুন অর রশীদ গাজী,বিপ্লব, ফয়সাল রাসেদ সনি, রাজ্জাক, ইউনুছ, আলতাব, লিপু, শাহীন, আলম, বাবু,

আজিজ গোলদার, শেখ আছাবুর, আতাউর রহমান আতা কামরুল ইসলাম। এর আগে নব  নির্বাচিত কমিটির নেতৃবৃন্দ উপজেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি মরহুম আমজাদ গোলদারের কবর জিয়ারত করে। উল্লেখ্য গত রোববার জেলা যুবদল সভাপতি সেক্রেটারি কমিটি ঘোষনা দেন।

আশাশুনিতে ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতির অভিযোগ নিয়ে গুঞ্জন

আশাশুনি প্রতিনিধি

আশাশুনির রাজাপুর গ্রামে ব্যবসায়ীর বাড়িতে ডাকাতির অভিযোগ নিয়ে গুঞ্জন শুরু করেছে। প্রকৃত পক্ষে ডাকাতি হয়েছে না প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করতে ঘটনা সাজানো হয়েছে এনিয়ে এলাকায় ব্যাপক গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে।

আনুলিয়া ইউনিয়নের রাজাপুর গ্রামের মৃত আঃ সামাদ গাজীর ছেলে আবু সাইদ জানান, রবিবার দিবাগত রাত্র দেড়টার দিকে ডাকাতদল তার ঘরের জানালার গ্রিল কেটে ভিতরে প্রবেশ করে। পরে পরিবারের সদস্যদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে ক্যাশ বাক্সে থাকা নগদ লক্ষ ৮০ হাজার টাকা, দশ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার, ১৪ ভরি রুপাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র নিয়ে যায়। তিনি গ্রীল কাটার শব্দ বুঝতে পেরে বাড়ির ছাদ দিয়ে বাইরে গিয়ে চিৎকার দিলে ডাকাতরা দ্রুত বেরিয়ে যাওয়র সময় জুতা কিছু জিনিসপত্র রেখে যায়। ডাকাতরা পালানোর সময় ২টি বোম বিষ্ফোড়ন ঘটায় বলে তিনি দাবী করেন। পুলিশ ঘটনাস্থান পরিদর্শন করেছেন। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এব্যাপারে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছিল।

আনুলিয়া ইউপি’নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান রুহুল কুদ্দুছ মেম্বারবৃন্দ জানান, ডাকাতির ঘটনা সাজানো। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে প্রতিপক্ষকে ফাঁসানোর জন্য পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ডাকাতির সাজানো ঘটনা তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে।

আশাশুনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মমিনুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে তারা ঘটনাস্থানে গিয়ে বিষয়টি খতিয়ে দেখার চেষ্টা করেন। তবে ডাকাতির কোন ঘটনা ঘটেছে বলে প্রমান মেলেনি। তাছাড়া সাইদের ছোট ভগ্নিপতি জামির হোসেন। জমাজমির বিরোধ নিয়ে ৪/৫দিন পূর্বে জামিরকে মারপিট করেছিল। এনিয়ে মামলা করার সময় জামিরের স্ত্রী তার ভাইয়ের সাথে মিমাংসা করে নেবেন বলে কেস না করে ফিরিয়ে নিয়ে গিয়েছিল। এসব ঘটনার কারনে ডাকাতির ঘটনা সাজানো হয়েছে বলে সরেজমিন গিয়ে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারপরও মামলা করা হলে বিষয়টি অধিকতর তদন্ত পূর্বক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি জানান।

কুল্যা টু দরগাহপুর সড়কে জনভোগান্তি চরমে

আশাশুনি প্রতিনিধি

আশাশুনির কুল্যার মোড় টু দরগাহপুর ভায়া বাঁকা সড়কের বেহাল দশায় জনভোগান্তি চরম আকার ধারণ করেছে।

সড়ক দিয়ে প্রতিদিন শত শত যানবাহন, ট্রাক, পিকআপসহ মালবাহী গাড়ি চলাচল করে থাকে। যাত্রীবাহি বাস চলাচল করে। বিভিন্ন যানবাহনে পাইকগাছা, কয়রা, তালা আশাশুনির দক্ষিণ অঞ্চলে যাতায়াত করে থাকে মানুষ। সড়কের অসংখ্য স্থানে বড়বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। একটু বৃষ্টি নামলেই গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। প্রায় এক বছর যাবৎ বেহাল অবস্থার সৃষ্টি হলেও যথাযথ সংস্কার কাজ না করায় ভোগান্তির অবসান ঘটেনি। কুল্যার মোড়, গুনাকরকাটি বাজার, বাহাদুরপুর কচুয়া মোড়, কাদাকাটি হাজিরহাট, কাদাকাটি ব্রিজসহ বিভিন্ন স্থানে রাস্তার অবস্থা খুবই খারাপ হয়ে গেছে। এসব স্থানে নিয়মিত সড়ক দুর্ঘটনা ঘটে থাকে।

কাদাকাটি বাজারের ব্যবসায়ী শফিকুল ইসলাম জানান, প্রতিদিন বুধহাটা সাতক্ষীরা থেকে কাঁচামাল নিয়ে বাজারে বিক্রয় করে থাকে অনেক ব্যবসায়ী। রাস্তার অবস্থা খারাপ হওয়ায় পরিবহর খরচ বেড়ে যাওয়ায় মালের মূল্য বেড়ে যায়। এতে খরিদ্দারদের মন সন্তুষ্ট করা যায় না। নারায়ন চন্দ্র দাস বলেন, আমি একজন মৎস্য ব্যবসায়ী, প্রতিদিন কাদাকাটি মৎস্য সেট থেকে মাছ কিনে মহেশ্বরকাটি মৎস্য সেটে নিয়ে যাই। রাস্তার দুরাবস্থার কারনে খুবই অসুবিধায় পড়তে হয়।

সড়কটি সংস্কারের জন্য এলাকার মানুষ এলজিইডি’নির্বাহী প্রকৌশলীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

খুলনা মহানগর মহিলা শ্রমিক লীগের উদ্যোগে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

সোমবার বাদ মাগরিব দলীয় কার্যালয়ে খুলনা মহানগর মহিলা শ্রমিক লীগের উদ্যোগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করা হয়। এসময় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ¦ তালুকদার আব্দুল খালেক। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি বাবুল রানা। এসময় উপস্থিত ছিলেন খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ শহিদুল হক মিন্টু, সদস্য এস এম আকিল উদ্দিন, খুলনা মহানগর শ্রমিক লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ মোতালেব মিয়া, খুলনা জেলা শ্রমিক লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মোঃ পীর আলী, মহিলা শ্রমিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি খুলনা মহানগর শাখার সভাপতি নাসরিন আখতার, মল্লিক নওশের আলী, আব্দুর রহিম খান, মোঃ শাহিন আহম্মেদ, শেখ মোঃ রমজান, শেখ মঈনুল ইসলাম মোহন, মোঃ নূর ইসলাম, মোঃ আজিম উদ্দিন, জাহানার বেগম, মোঃ আলমগীর মল্লিক, ঝুমুর, পারভীন, আকলিমা, সেলিম ফরাজী, ফারুক খা, লাবনী, শিরিন, নাসরিন, নাহার, রোজি, ফাতেমা, মোঃ আয়নুল ইসলাম, মোঃ দেলোয়ার, মোঃ কামাল, সাথী, মোমেনা, আলমিরা, বকুলী, সোমা, রেশমা, শিমা, কনা, রুমা, লক্ষ্মী রানী, শাহানাজ, মাহিনুর, মোঃ ইখলাস প্রমুখ নেতৃবৃন্দ।

রূপসায় শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রকে বেদম মারপিট

রূপসা প্রতিনিধি

রূপসার এক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান/হাফেজ শিক্ষক কর্তৃক ছাত্রকে বেদম মারপিট এর ঘটনা ঘটেছে এবং ছাত্র হাসপাতলে ভর্তি। পরিবার সূত্রে জানা যায়, আরসিপ্ল তলা ইউনিয়নের মোহাম্মাদিয়া হাফেজিয়া মাদরাসায় গ্রামের মোহাম্মদ শেখ (কৃষক ) এর ছোট ছেলে মো. সাব্বির রহমান (১১) প্রায় তিন বছর হাফেজী পড়িয়া আসিতছে মাদ্রাসায়। ছাত্র ঘটনার বর্ণনা দিয়ে বলে, গত ২২ জানুয়ারি দুপুরের খাবার খেয়ে কেবলমাত্র উঠে দাঁড়িয়েছে। এমন সময় এক ছাত্র ভাই মোঃ সাজ্জাদ বলে তোকে হুজুর ডাকছে (মাদ্রাসার হাফেজ শিক্ষক/হুজুর মোঃ মেহেদী হাসান)।  তারপর আমি হুজুরের রুমে সালাম দিয়ে প্রবেশ করার সাথে সাথে হুজুর নিজেই তার রুমের দরজার ছিটকিনি আটকে দেয় এবং বলেন তুই বলে কি করেছিস এই বলেই পেটাতে শুরু করেদেন। আমি কাতরাতে কাতরাতে  বলি হুজুর আমার কি অপরাধ করেছি; আমাকে খালি খালি এভাবে মারছেন কে? তারপরও হুজুর আমার কোন কথাই শোনে না বরং আরো বেশি পেটাতে থাকে। একপর্যায়ে অচেতন হয়ে মাটিতে পড়ে যায়। তারপর গত ২৩ তারিখ ব্যথার শরিরীরে সহ্য করতে না পেরে মাদ্রাসা থেকে পালাইয়া আমার গ্রামের বাড়ি আনন্দনগর চলে যায় এবং সব খুলে বলি যে মাদ্রাসার হুজুর আমাকে অহেতুক খালি খালি রুমে আটকে মেরেছে। তারপর আমার পিতা মাতা আমার অবস্থা দেখে উপজেলা হাসপাতালে ভর্তি করান এবং রুপসা থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন।   

বঙ্গবন্ধু মোংলা-ঘাষিয়াখালী চ্যানেলে কোস্টার-কার্গোর ধাক্কায় সিমেন্ট বোঝাই কার্গো জাহাজ দুর্ঘটনাকবলিত

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

বঙ্গবন্ধু মোংলা-ঘাষিয়াখালী আন্তর্জাতিক নৌ চ্যানেলে কোস্টার কার্গোর সাথে ধাক্কা লেগে কার্গো জাহাজের হ্যাচ ফেটে দুর্ঘটনাকবলিত হয়েছে। তাৎক্ষনিকভাবে কার্গোটি চ্যানেলের পাশে চরে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়। ওই সময়ের মধ্যে জাহাজের ফাঁটা জায়গা থেকে পানি ঢুকে প্রায় হাজার ব্যাগ/বস্তা সিমেন্ট ভিজে নষ্ট হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন দুর্ঘটনাকবলিত কার্গোর মাষ্টার।

দুর্ঘটনার শিকার কার্গো জাহাজ এম,ভি মেঘনা-০৭ এর মাষ্টার মোঃ মিরাজ জানান, সোমবার বিকেলে বঙ্গবন্ধু মোংলা-ঘাষিয়াখালী চ্যানেলের রামপালের পুটিমারী এলাকা দিয়ে কার্গোটি যাওয়ার সময় সামনে থাকা অপর কোস্টার এম,ভি এ, আজিজ জাহাজের পিছনের সুকানে ধাক্কা লাগে। এতে কার্গোটির বাম পাশের হ্যাচ ফেটে যায়। ফেটে যাওয়া জায়গা থেকে পানি ঢুকতে থাকলে দ্রুত কার্গোটি চ্যানেলের পাশের চরে সরিয়ে নেয়া হয়। সেখানে নিয়ে সন্ধ্যা পর্যন্ত কার্গোটি হতে হাজার বস্তা সিমেন্ট অন্য নৌযানে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। পরে কার্গোটি হালকা হলে পুটিমারী খালের ভিতরে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়। কার্গোটিতে হাজার শত ৮০ বস্তা সিমেন্ট ছিলো। কার্গোটি ঢাকার নারায়ণগঞ্জের মেঘনা গ্রুপের ঘাট থেকে সিমেন্ট নিয়ে খুলনার শিকিরহাটে যাচ্ছিল।

বিআইডব্লিউটিএর উপ-সহকারী প্রকৌশলী (ড্রেজিং বিভাগ) মোঃ জাহিদ হাসান বলেন, দুর্ঘটনার শিকার কার্গো জাহাজটি ঘাষিয়াখালী মুল চ্যানেলের বাহিরে একটি খালের মধ্যে নিরাপদে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। তারপরও আমরা সেখানে নজরদারীর রেখেছি, যাতে সেখানে নতুন করে কোন ধরণের দুর্ঘটনা না ঘটে

জেলা তাঁতীলীগ নেতার মায়ের মৃত্যুতে শোক

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা জেলা তাঁতীলীগের শহিদুল ইসলাম ইমন এর মাতা সুফিয়া বেগম (৫২) গতকাল নিজ বাসভবনে বার্ধক্যজনীত কারণে মৃত্যুবরণ করেণ (ইন্না .. রাজিউন)তার মৃত্যুর  খবর শুনে শোক প্রকাশ করেন খুলনা জেলা মহানগর তাঁতীলীগ নেতৃবৃন্দ। মৃত্যুর খবর শুনে মরহুমার খালিশপুরস্থ নিজস্ব বাসভবনে শোকাহত পরিবারের পাশে ছুটে যান খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান জামাল। এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর (দক্ষিণ) তাঁতীলীগের ইঞ্জিঃ বরকত হোসেন, ঢাকা মহানগর (উত্তর) তাঁতীলীগ এর এস কে সেলিম আহমেদ ছোটন, খুলনা মহানগর তাঁতীলীগ এর সাব্বির আহমেদ শুভ, মোস্তফা কামাল, খুলনা জেলা তাঁতীলীগ এর কাজী আজাদুর রহমান হিরক, মিলন মল্লিক, রেভা সুলতানা, জি.এম জাহাঙ্গীর আলম, মোঃ সোহেল খান, মাহামুদুল হক রুবেল, রাসেল হাওলাদার প্রমুখ।

এসময় নেতৃবৃন্দ মরহুমার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকাহত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। এছাড়াও মৃত্যুর খবর শুনে সমবেদনা জানান কেন্দ্রিয় তাঁতীলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক লায়ন মোঃ শহিদুল ইসলাম পলাশ।

রুপসায় জেলা আ’লীগ নেতা অসিত বরণে’কম্বল বিতরণ

থবর বিজ্ঞপ্তি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় অসহায় মানুষের পাশে দাড়াবার অঙ্গিকার নিয়ে বাগেরহাট-আসনের সংসদ সদস্য শেখ হেলাল উদ্দিন এমপি’পক্ষ থেকে রুপসায় শীতার্তদের মাঝে কম্বল বিতরণ করেন জেলা আওয়ামীলীগের সদস্য সাবেক ছাত্রনেতা অসিত বরণ বিশ^াস। সোমবার(২৪ জানুয়ারী) বিকালে রুপসার সরকারি বঙ্গবন্ধু কলেজ মাঠে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।

এসময় জেলা আওয়ামীলীগ নেতা অসিত বরণ বিশ^াস বলেন, যেকোনো দুর্যোগ দু:সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানুষের পাশে থেকেছেন। করোনার কঠিন সময়েও তিনি সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছেন। সেই সাথে খুলনাঞ্চলে শেখ পরিবারের বলিষ্ট ভূমিকায় প্রতিটা মানুষের কাছে পৌছে গেছে সহযোগিতা। তারই ধারাবাহিতায় শীতের সময় যাদের বস্ত্র কেনার সামথ্য নেই তাদের জন্য শেখ হেলাল উদ্দিন এমপির পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণ করা হচ্ছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, রুপসা উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি আয়ুব মল্লিক বাবু, যুগ্ন-সাধারন সম্পাদক মো: ইমাদ হোসেন, আইচগাতী ইউনিয়ন আওয়ামীলীরে সভাপতি শেখ মনিরুজ্জামান মনি, সাধারন সম্পাদক আরিফুজ্জামান লিটন, উপজেলা যুবনেতা এবিএম কামরুজ্জামান, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মো: পারভেজ হাওলাদার।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন, প্রদীপ বিশ্বাস, শাহনেওয়াজ টিংকু, মিয়া আরমান, মো: মারুফ হোসেন, গোপাল শাহ জগ, নাজিম, সালাহউদ্দিন মোড়ল, জুয়েল, সরদার শরিফুল ইসলাম তনু, আবির হোসেন, হৃদয়, সুমন শেখ, শামিম, শাহিন, মলয় প্রমুখ।

মেয়র কাপ কিশোরী ফুটবল টুর্ণামেন্টের ৩য় দিনে দু’টি খেলা অনুষ্ঠিত

খবর বিজ্ঞপ্তি

মেয়র কাপ কিশোরী ফুটবল টুর্ণামেন্টের ৩য় দিনেও (সোমবার) দু’টি খেলা অনুষ্ঠিত হযেছে। দুপুর ২টায় ‘ভৈরব’ দলের সাথে ‘ইছামতি’ দল এবং বিকেল সাড়ে ৩টায় ‘কপোতাক্ষ’ দলের সাথে ‘চিত্রা’ দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে।

প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলায় সংরক্ষিত আসন-এর কাউন্সিলর সাহিদা বেগমের নেতৃত্বাধীন ‘ইছামতি’ দল প্রতিপক্ষ মেয়র প্যানেলের সদস্য (সংরক্ষিত আসন-৫) মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু’নেতৃত্বাধীন ‘ভৈরব’ দলকে ট্রাইবেকারে ৩-গোলে এবং সংরক্ষিত আসন-এর কাউন্সিলর মাজেদা খাতুনের নেতৃত্বাধীন ‘কপোতাক্ষ’ দল, প্রতিপক্ষ সংরক্ষিত আসন-এর কাউন্সিলর কনিকা সাহা’নেতৃত্বাধীন ‘চিত্রা’ দলকে ট্রাইবেকারে ১-গোলে পরাজিত করে। উল্লেখ্য, নির্ধারিত সময়ে ইছামতি ভৈরব দল গোল শূন্য থাকায় এবং কপোতাক্ষ চিত্রা দল ১-গোলে সমতা অর্জন করায় ট্রাইবেকারের মাধ্যমে খেলা দু’টির নিষ্পত্তি করা হয়।

দাতা সংস্থা ইউনিসেফ এর সহযোগিতায় কেসিসি খুলনা জিলা স্কুল মাঠে ‘মেয়র কাপ কিশোরী ফুটবল টুর্ণামেন্টের’ আয়োজন করেছে। গত শনিবার শুরু হওয়া টুর্ণামেন্টে কেসিসি’১০ জন সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলরের নেতৃত্বে ১০টি কিশোরী টীম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছে। আগামীকাল মঙ্গলবার দুপুর ২টায় ১ম সেমিফাইনালে ‘ইছামতি ও ‘রূপসা’ এবং বিকাল সাড়ে ৩টায় ২য় সেমিফাইনালে ‘পশুর’ কপোতাক্ষ দল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে। আগামী ২৭ জানুয়ারী ২০২২ বৃহস্পতিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে।

সিটি মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ খেলা দু’টি উপভোগ করেন। খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শেখ মোঃ ফারুক আহমেদ, কেসিসি’মেয়র প্যানেলের সদস্য মেমরী সুফিয়া রহমান শুনু, কাউন্সিলর শেখ মোহাম্মদ আলী, এমডি মাহফুজুর রহমান লিটন, সংরক্ষিত আসনের কাউন্সিলর মনিরা আক্তার, সাহিদা বেগম, মাজেদা খাতুন, কনিকা সাহা, সচিব মোঃ আজমুল হকসহ কর্মকর্তা-কর্মচারী ইউনিসেফের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ খেলা চলাকালীন সময়ে উপস্থিত ছিলেন।

সিটি মেয়রের শোক

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনার বিশিষ্ট আইনজীবী, সমাজসেবক আওয়ামী লীগ নেতা এ্যাড. গোলাম মোস্তফা ফারাজী এবং এ্যাড. টি এম হাসানুজ্জামান (জিন্নাহ)-এর ইন্তেকালে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

শোক বার্তায় সিটি মেয়র মরহুম গোলাম মোস্তফা এবং মরহুম টি এম হাসানুজ্জামান-এর রূহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং উভয়ের শোক সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।

মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৮ তম জন্মদিন আজ

আলমগীর হোসেন, কেশবপুর

আজ ২৫ জানুয়ারি মঙ্গলবার আধুনিক বাংলা সাহিত্যের রুপকার  মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৮ তম জন্মদিন। ১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারি যশোর জেলার কেশবপুর থানার কপোতাক্ষ নদের তীরে সাগরদাঁড়ি গ্রামের বিখ্যাত দত্ত পরিবারে জন্ম নেন মধুসূদন দত্ত। তার বাবা ছিলেন জমিদার  রাজনারায়ণ দত্ত মা জাহ্নবী দেবী। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সাগরদাঁড়িতে করোনা ভাইরাসের কারণে একদিনেই শেষ হচ্ছে মাইকেল মধূসূদন দত্তের জন্মনুষ্ঠান।

সাহিত্যের প্রবাদ পুরুষ আধুনিক বাংলা কাব্যের রূপকার অমিত্রাক্ষর ছন্দের জনক  সনেট প্রবর্তক  মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৮ তম জন্মবার্ষিকী ( ২৫ জানুয়ারি)দিবসটি পালন উপলক্ষে  যশোর জেলা প্রশাসনের আয়োজনে বিকাল তিন টায় উদ্বোধন, আলোচনাসভা সাংষ্কৃতিক অনুষ্ঠানের  মধ্য দিয়ে আয়োজন শেষ করা হবে বলে উদযাপন কমিটির সদস্য সচিব কেশবপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এম এম আরাফাত হোসেন নিশ্চিত করেছেন।  বিকাল টায়  জন্মবার্ষিকীর উদ্বোধন করবেন যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান।  করোনা ভাইরাসের কারণে এবার জন্ম বার্ষিকী সপ্তাব্যাপী মধূ মেলার আয়োজন হচ্ছে না বলে উদযাপন কমিটির সভাপতি জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান জানিয়েছেন। সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে  অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। তিনির ভার্চুয়ালি সভার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করবেন।

১৮২৪ সালের ২৫ জানুয়ারি যশোর জেলার কেশবপুর থানার কপোতাক্ষ নদের তীরে সাগরদাঁড়ি গ্রামের বিখ্যাত দত্ত পরিবারে জন্ম নেন মধুসূদন দত্ত। তার বাবা ছিলেন রাজনারায়ণ দত্ত মা জাহ্নবী দেবী। মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের ১৯৮তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে সাগরদাঁড়িতে করোনা ভাইরাসের কারণে একদিনেই শেষ হচ্ছে মাইকেল মধূসূদন দত্তের জন্মনুষ্ঠান। জানা গেছে, দুপুরে সাগরদাঁড়িতে মধুকবির আবক্ষে পুষ্পার্ঘ অর্পণের মধ্য দিয়ে এবারের অনুষ্ঠান শেষ হবে।

মহাকবি যশোর জেলার কেশবপুর উপজেলার সাগরদাঁড়ি গ্রামে ১৮২৪ সালের এদিনে জন্মগ্রহণ করেন।মাইকেল মধুসূদন দত্তের পিতার নাম রাজনারায়ণ দত্ত, মা জাহৃবী দেবী। শৈশবে সাগরদাঁড়ির পাশে শেখপুরা গ্রামের মৌলভী খন্দকার মখমল সাহেবের কাছে বাংলা ফার্সি শিক্ষা লাভ করেন। ১৮৩৩ সালে সাগরদাঁড়ি ছেড়ে কলকাতার খিদিরপুর যান। সেখানে লালবাজার গ্রামার স্কুলে ইংরেজি, ল্যাটিন সহ বিভিন্ন ভাষা শিক্ষা নেন। কবি ১৮৩৭ সালে হিন্দু কলেজে ভর্তি হন। ১৮৪২ সালে ইংরেজিতে প্রবন্ধ প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ প্রবন্ধ লিখে কলেজ থেকে স্বর্ণপদক লাভ করেন।১৮৪৩ সালের ফেব্রয়ারি হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে খ্রিস্টান ধর্ম গ্রহণ করেন কবি। একইসাথে পিতৃগৃহ থেকে স্বেচ্ছা নির্বাসন নেন। হিন্দু কলেজে পড়তে না পেরে অন্য কলেজে ভর্তি হন গ্রিক সংস্কৃত ভাষায় জ্ঞানার্জন করেন তিনি। ১৮৪৮ সালে সাগরদাঁড়িতে আসেন। তারপর মাদ্রাজ চলে যান। ১৮৫২ সালে মাদ্রাজ বিশ্ববিদ্যালয়ের হাইস্কুল বিভাগে শিক্ষকতার চাকরি নেন। ১৮৫৪ সালে দৈনিক ¯েপকটেটর পত্রিকায় সহ-স¤পাদক পদে নিযুক্ত হন। ১৮৫৭ সালে আদালতে দোভাষী হিসেবে কাজ শুরু করেন। এবছরই তিনি মহাকাব্য রচনায় মনোনিবেশ করেন।সাহিত্যিক কালিপ্রসন্ন সিংহের বাসভবনে অমিত্রাক্ষর ছন্দে মহাকাব্য রচনার জন্য বিদ্যোৎসাহিনী সভার পক্ষ থেকে সম্বর্ধনা এবং মহাকবি হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেন। পরবর্তীতে তিনি ইংল্যান্ডে গিয়ে ব্যারিস্টারিতে ভর্তি হন। মাইকেল মধুসূদন বাংলা ভাষায় সনেট অমিত্রাক্ষর ছন্দের প্রবর্তক। তার সর্বশ্রেষ্ঠ কীর্তি অমিত্রাক্ষর ছন্দে রামায়ণের উপাখ্যান অবলম্বনে রচিত মেঘনাদবধ কাব্য নামক মহাকাব্য। তার অন্যান্য উল্লেখযোগ্য গ্রন্থাবলী : দ্য ক্যাপটিভ লেডি, শর্মিষ্ঠা, বুড়ো শালিকের ঘাড়ে রোঁ, একেই কি বলে সভ্যতা, তিলোত্তমাসম্ভব কাব্য, বীরাঙ্গনা কাব্য, ব্রজাঙ্গনা কাব্য, চতুর্দশপদী কবিতাবলী, হেকটর বধ ইত্যাদি।১৮৭৩ সালের ২৯ জুন বেলা ২টায় মারা যান মহাকবি মধুসূদন দত্ত।

ডুমুরিয়ায় কৃষিজমি সরকারী খাল ভরাট করে তৈরি হচ্ছে বসতি শিল্প-কারখানা

এস.রফিক, ডুমুরিয়া

ডুমুরিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ উপেক্ষা করেই কৃষি জমিতে একের পর এক গড়ে তোলা হচ্ছে শিল্প কল কারখানা, আবাসিক ভবনসহ অন্যান্য স্থাপনা। এতে ক্রমেই কমছে কৃষি জমি, ফলে উৎপাদন কমছে কৃষিপণ্যের। সরকারী খাল জলাশয় ভরাট হলে ভূমি অফিসের এক শ্রেণির কর্মকর্তার সহযোগিতায় ভূমিহীন সেজে অনেকেই বরাদ্দ নিয়ে বেআইনীভাবে বিক্রি করছে প্রভাবশালীদের কাছে।

সরকারি নিদের্শনার মাঝেই খুলনা জেলার সর্বত্র নির্দেশনা উপেক্ষা চলছে বালি মাটি দ্বারা কৃিষ জমি ভরাট করে সরকারী বেসরকারী ব্যক্তিমালিকানার প্রতিষ্ঠান বসতি। কৃষি অধিপ্তরের হিসেব মতে প্রতিবছর উন্নয়নমূলক কাজ, বসতি, শিল্প কল-কারখানা স্থাপনে আবাদি জমি কমে যাচ্ছে।

খুলনা জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি দখলবাজি সরকারী খাল জলাশয় ভরাটের ঘটনা ঘটছে শহর সংলগ্ন ডুমুরিয়া উপজেলায়। শহরের পার্শ¦বর্তি হওয়ায় উপজেলার চক আসানখালী, বিলপাবলা, জিলেরডাঙ্গা, ভেলকামারী, উপজেলা সদরের জোয়ারের বিলসহ প্রায় প্রতিটি এলাকায় প্রভাবশালী ব্যক্তিরা জমি কিনে তা বালি দিয়ে ভরাট করছে। একই সাথে খুলনা- সাতক্ষীরা সড়কের পাশে সড়ক জনপথ বিভাগের খাল ভরাট করা হচ্ছে। যে যার মত ভরাট করে রাস্তা তৈরি ফলে পানি নিষ্কাশন হতে পারছে না। ভেলকামারী বিলের গুটুদিয়া ব্র্যাক হ্যাচারীর পশ্চিম পাশ দিয়ে বয়ে চলা খালটির উপরে এক প্লট ব্যবসায়ী ছোট একটি কালভার্ট তৈরি করছে। হ্যাচারীর দক্ষিণ পাশে অপর এক প্লট ব্যবসায়ী বিলের মধ্যে দিয়ে বয়ে চলা আকাবাকা খালটির উপরে ইট বিছিয়ে রাস্তা তৈরি করছে। ওই খালটি দোয়ানিয়া খাল থেকে উৎপত্তি যা ভরাট হয়ে যায়। ভূমিহীন হিসেবে এক ব্যক্তি এটি বরাদ্দ নিয়ে ওই প্লট ব্যবসায়ীদের কাছে বিক্রি করেছে বলে দাবি তাদের।

স্থাণীয়দের অভিমত এসব দখলবাজরা প্রভাবশালী তাই প্রশাসনকে জানানোর পরও দখলবাজি বন্ধ হয় না। এক সাথে কয়েক বিঘা জমি ক্রয় করার পর তা ভরাট করে প্লট আকারে তৈরি করছে। এতে নষ্ট হচ্ছে আবাদি জমি। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়নে প্রশাসনের কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিও তাদের।

ডুমুরিয়া উপজেলা নির্বাহি অফিসার মোঃ আব্দুল ওয়াদুদ বলেন, সরকারী খাল ভরাট করা বেআইনী। এরুপ যারা করছে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

খুলনা কৃষি সম্প্রারণ অধিদপ্তর উপ-পরিচালক কৃষিবিদ মো: হাফিজুর রহমান বলেন, কোন অবস্থাতেই কৃষি জমির শ্রেণির পরিবর্তন করা যাবে না। যদি বিশেষ কারণে শ্রেণি পরিবর্তনের প্রয়োজন পড়ে তবে যথাযথ কর্তৃপক্ষের অনুমোদন সাপেক্ষে তা করতে হবে। কৃষি জমি ভরাট করে দেদারছে আবাসন ব্যবস্থা গড়ে তোলা হচ্ছে। তিনি বলেন খুলনা জেলায় ২২শত কিলোমিটারের মত সরকারী খাল রয়েছে যার মধ্যে ৫৬০ কিলোমিটার খাল ভরাট হয়ে বেদখল হয়েছে। এসকল খাল উদ্ধার করে সেটি খনন  করে জলাধার সৃষ্টি করলে কৃষি পণ্য উদপাদনে ভূমিকা রাখবে।

খুলনা জেলা প্রশাসক মোঃ মনিরুজ্জামান তালুকদার বলেন, সরকারী খাল জলাশয় ভরাট করা আইনতঃ দণ্ডনীয় অপরাধ। যারা কাজের সাথে জড়িত তাদেরকে আইনের আওতায় আনা হবে। তিনি বলেন, সরকার দু ধরনের খাস জমি বরাদ্দ দিয়ে থাকে। এর মধ্যে কৃষি অকৃষি। কৃষি জমি বরাদ্দ নিয়ে সেটা কেউ বিক্রি বা হস্তান্তর করতে পারবে না। এমন কোথাও হলে তদন্ত করে বরাদ্দ বাতিল করে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

খুলনায় ভিবিডির শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

দেশে চলছে কনকনে শীত, পাশাপাশি ঘন কুয়াশায় অসহায় দারিদ্র মানুষের কষ্টের সীমা থাকে না। এসব হতদরিদ্র শীতার্ত মানুষের কষ্ট লাঘবে এগিয়ে এসেছে সামাজিক সংগঠন ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশ (ভিবিডি)বাংলাদেশের সকল জেলায় এই সংগঠনের কার্যক্রম চলমান রয়েছে।

ভিবিডি প্রতিষ্ঠার পর থেকে খাবার বিতরণ, করোনাকালীন ত্রাণ বিতরণ, শীতার্তদের মাঝে কম্বল এবং শীতবস্ত্র বিতরণ সহ নানামূখি কার্যক্রম এগিয়ে যাচ্ছে এই সংগঠন।

বছরের শুরুতে শুক্রবার (জানুয়ারি) ভিবিডি খুলনা জেলার স্বেচ্ছাসেবকরা “শীত কাটুক উষ্ণতায়” নামক একটি ইভেন্ট আয়োজনের মাধ্যমে প্রায় ২০-২৫ জন অসহায়, গরীব মানুষকে শীতের গরম কাপড় দিয়ে সহায়তা করে।

ভিবিডির খুলনা জেলার সভাপতি এনামুল হাসান বলেন, শহরের ছিন্নমূল মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য অর্থের থেকে বেশি যেটা প্রয়োজন, সেটা ইচ্ছা। সমাজের বিত্তবানদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে শীতের কষ্ট লাঘবে যতটা সম্ভব এগিয়ে আসার জন্য অনুরোধ করছি। আমরা করোনাকালীন সময়ে শ্রমজীবী মানুষের পাশে ত্রাণসামগ্রী নিয়ে হাজির হয়েছিলাম। করোনা পরিস্থিতির অবনতি হলে আবারও তাদের পাশে দাঁড়াবো।

শিরোমণি দিশারী যুব পর্ষদ এর উদ্যোগে দুস্থ ও  শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

শিরোমনি ঐতিহ্যবাহী দিশারী যুব পর্ষদ এর পক্ষ থেকে ২৩ জানুয়ারি রাতে শিরোমনিতে হতদরিদ্র,দুস্থ এবং শীতার্তদের মাঝে শীতবস্ত্র (কম্বল) বিতরণ করা হয়। সময় উপস্থিত ছিলেন,আটরা গিলাতলা ইউপি চেয়ারম্যান ও  দিশারী যুব পর্ষদ এর সভাপতি আলহাজ্ব শেখ মনিরুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক কাজী আজাদুর রহমান হিরোক, খানজাহান আলী থানার এস আই শতদল মজুমদার, সাংবাদিক গাজী মাকুল উদ্দীন, কাজী মঈনুল কবীর, শেখ ওমর ফারুক মিন্টু, মোঃ হুমায়ুন  কবির, মোঃ বিপ্লব হসেন, মোঃ জাহিদ হাসান, মোঃ ইমদাদুল ইসলাম, মিনা আবুল হাসান সহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

খুলনা জেলা তাঁতী লীগ নেতা শহীদুল ইসলামের  মাতার ইন্তেকাল

ফুলবাড়ীগেট প্রতিনিধি

খুলনা জেলা তাঁতী লীগের যুগ্ন আহবায়ক শহীদুল ইসলাম ইমনের মাতা সুফিয়া বেগম ২৩ জানুয়ারী দিবাগত রাত সাড়ে ১২ অসুস্থ জনিত কারণে ইন্তেকাল করেন মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিলো ৫২ বছর। সোমবার মরহুমার জানাজা যশোর বোনের বাড়ীতে জানাযা শেষে দুপুরে গোয়ালখালী কবরস্থানে দাফন করা হয় এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা মহানগর দক্ষিণ তাঁতী লীগের সহ-সভাপতি ইঞ্জিনিয়ার মোঃ বরকত হোসেন, খুলনা মহানগর তাঁতী লীগের সভাপতি সাব্বির আহমেদ শুভ , সহ-সভাপতি শেখ মনজুর হোসেন, খুলনা জেলা তাঁতী লীগের সদস্য সচিব আজাদুর রহমান হিরোক, ঢাকা মহানগর উত্তর তাঁতী লীগ নেতা ছোটন আহমেদ, কাজী মইনুল কবীর, জেবা সুলতানা ,খোকন মনি, জি ,এম জাহাঙ্গির আলম , মাহামুদুল হক রুবেল , সোহেল খান সহ অনন্য নেতৃবৃন্দ

ঝিনাইদহে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী গরুর গাড়ীর দৌড় প্রতিযোগিতা

খাইরুল ইসলাম নিরব, ঝিনাইদহ

প্রতি বছরের ন্যায় এবারও ঝিনাইদহ সদর উপজেলার বেতাই গ্রামে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল গ্রাম বাংলার ঐহিত্যবাহী গরুর গাড়ীর দৌড় প্রতিযোগিতা। গান্না ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আতিকুল হাসান মাসুম আয়োজন করে মনোমুগ্ধকর এই প্রতিযোগিতা। যা দেখতে ভীড় করেছিল হাজার হাজার দর্শক। প্রতিযোগিতাকে ঘিরে বেতাই গ্রাম যেন পরিণত হয়েছিল উৎসবের নগরীতে।

রোববার সকালে বেতাই গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, কনকনে শীত আর বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করেই সকাল থেকে বেতাই গ্রামের মাঠে হাজির হয় ঝিনাইদহসহ আশপাশের জেলার হাজার হাজার মানুষ। ভ্যান, রিক্সা, মোটর সাইকেলসহ নানা বাহনে সেখানে জড়ো হয় নারী-শিশু বয়োবৃদ্ধরা। মঞ্চ থেকে প্রায় কিলোমিটার দুরে গরু গাড়ী নিয়ে টি সারিতে চলে দৌড়ের প্রস্তুতি। বাঁশিতে ফুৎকার দেওয়ার সাথে সাথে গাড়োয়ানের হাতের ছোঁয়ায় যেন মুহূর্তে পাল্টে যায় চরিত্র। একে অপরকে পেছনে ফেলতে ছুটতে থাকে বিদ্যুৎ গতিতে। যা দেখে উচ্ছ্বাসিত হাজার হাজার দর্শক।

কালীগঞ্জ উপজেলার কোলা ইউনিয়নের রামচন্দ্রপুর গ্রাম থেকে আসা ইলিয়াস মোল্লা বলেন, গ্রাম বাংলা ঐহিত্য গরুর গাড়ীর দৌড় প্রতিযোগিতা সত্যিই খুবই মনোমুগ্ধকর। এটা দেখতে যে কত ভালো লাগছে তা বলে বোঝানো যাবে না। এই খেলা দেখতে হাজার হাজার মানুষ জড়ো হয়েছে। মানুষের মাঝে এক ধরনের আনন্দ কাজ করছে। প্রতিবছর এই আয়োজন করা উচিত।

ঝিনাইদহ শহর থেকে আসা অন্তর মাহমুদ নামে এক যুবক বলেন, অঞ্চলের ঐহিত্য যে গরুর গাড়ীর দৌড় প্রতিযোগিতা। আমরা শুনে আসছি এখানে এই আয়োজন করা হয়। আমরা বন্ধুরা মিলে দেখতে এসেছি। খুবই ভালো লাগছে খেলা দেখতে। গ্রামের মানুষের মাঝে প্রাণের সঞ্চার হয়েছে। খেলাটি সত্যিই উপভোগ্য। জন্য আয়োজকদের আমরা ধন্যবাদ জানায়।

খেলায় অংশ নেয় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার জিয়ালা গ্রামে কবির হোসেন বলেন, আমরা সারাবছর চাষাবাদ করি। বছরের এই সময়টা অপেক্ষায় থাকি এই খেলায় অংশ নেওয়ার জন্য। মানুষ আমাদের খেলা দেখে আনন্দ পায় তা দেখে আমরাও আনন্দ পায়। আনন্দ পাওয়ার জন্যই আমরা দৌড় প্রতিযোগিতায় অংশ নিই।

ব্যাপারে আয়োজক গান্না ইউনিয়নের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান আতিকুল হাসান মাসুম বলেন, গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষকে আনন্দ দেওয়া আর গ্রামীণ ঐতিহ্য ধরে রাখতেই আমরা প্রতিবছর এই ধরনের আয়োজন করে থাকি। শীত আর বৃষ্টি উপেক্ষা করে হাজার হাজার মানুষ খেলা দেখতে এখানে এসেছেন তাতেই প্রমাণ হয় এটি মানুষকে কতটা আনন্দ দেয়। আমরা আশা করি আগামীতে আরও বড় পরিসরে এই আয়োজন করতে পারব।

দিনভর প্রতিযোগিতা শেষে সবাইকে পেছনে ফেলে প্রথম হয় যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার নজরুল মুন্সি। পুরস্কার হিসেবে তাকে দেওয়া হয় টেলিভিশন। ২য় হয় মহেশপুর উপজেলার দোলন হোসেন। তাকে দেওয়া হয় একটি বাইসাইকেল ৩য় হয়ে ফ্যান পুরস্কার পান যশোরের রহমত আলী।

অর্গানিক বেতাগায় খিরাই চাষে বাম্পার ফলন: চাষিদের মুখে খুশির হাঁসি

পি কে অলোক,ফকিরহাট।

বাগেরহাটের ফকিরহাটের অর্গানিক বেতাগায় ২০একর জমিতে ৪০জন চাষি খিরাই চাষ করে আগের তুলনায় অনেক লাভবান হয়েছেন। খিরাই চাষে বাম্পার ফলন হওয়ায় চাষিদের মুখে খুশির হাঁিস ফুটে উঠতে শুরু করেছে। কীটনাশক মুক্ত পদ্ধতিতে কোন প্রকার কেমিক্যাল ছাড়াই খিরাই চাষ করায় বাজারে তার চাহিদা অনেকাংশে বেড়ে গেছে। উপজেলা কৃষি অফিস প্রতিবছরের ন্যায় এবারও নানা প্রকার সহযোগীতা করায় তাদের ক্ষেতে বাম্পার ফলন হয়েছে। ধারা অব্যাহত রাখলে এঅঞ্চলে খিরাই চাষ উত্তর উত্তর আরো বেড়ে যাওয়ায় আশাংকা করছেন চাষিরা।

অর্গানিক বেতাগার খিরাই চাষি দেবাতুষ কুমার দাশ বলেন, তিনি গত কয়েক বছর আগে উপজেলা কৃষি অফিস থেকে নানা প্রকার সবজি চাষের উপর প্রশিক্ষন গ্রহন করেন। এর পর সেখান থেকে বীজ নিয়ে প্রথম বছর খিরাই চাষ শুরু করেন। প্রথম বছর ফলন তেমন একটা ভাল না হলেও হাল ছাড়েননি তিনি। এর পর তিনি কৃষি অফিসের পরামর্শক্রমে চলতি বছর আবারও নতুন করে খিরাই এর চাষ শুরু করেন। প্রথম দিকে গাছের চেহারা তেমন একটা ভাল না হওয়ায় তিনি হতাশ হয়ে পড়েন। কিন্তু স্থানীয় উপ-সহকারীর পরামর্শে তার ক্ষেতে ভাল ফলন দেখা দিয়েছে। তিনি দুই বিঘা জমিতে খিরাই চাষ করেছেন। এবং ফলন যা হয়েছে তা অন্যান্য বছরের তুলনায় অনেক ভাল। তিনি আরো বলেন একদিন বাদে একদিন অন্ততপর ১০/১৫মন খিরাই তুলছেন ক্ষেত থেকে। বাজারে বর্তমানে তিনি পাইকারী ২৫টাকা দর মূলে তা বিক্রয় করছেন। তার খিরাই খুলনা রাজশাহী চট্টগ্রাম এমন কি রাজধানী ঢাকায়ও বিক্রয় হচ্ছে। কোন প্রকার কেমিক্যাল ছাড়াই কিটনাশক মুক্ত পদ্ধতিতে চাষাবাদ করায় বাজারে এই খিরাই এর চাহিদা অনেক গুন বেড়ে গেছে। এই একই বিলের মনোতোষ কুমার দাশ বলেন, কৃষি বিভাগ হতে বীজ জৈব সার ফেরোমন ফাঁদ প্রদান করেছেন। যাহাতে বিষাক্ত পোকামকড় খিরাই গাছে লাগতে না পারে। তিনি ১২কাটা জমিতে খিরাই চাষ করেছেন। এছাড়া অসিত কুমার দাশ (মেম্বর) দুই বিঘা, তরিকুল ইসলাম ১৬কাটা, শহীদুল ইসলাম ১০কাটা, তপন কুমার দাশ এক বিঘা, সুধাশু কুমার দাশ ১০কাটা, শেখ দেলোয়ার হোসেন ১০কাটা, কৃষ্ণ কুমার দাশ ১০কাটা, পরেশ কুমার দাশ ১০কাটা, হারাধন দাশ ৫কাটা, আউব আলী ১৫কাটা তনয়  কুমার দাশ ৫কাটা সহ বিভিন্ন চাষি প্রায় ২০একর জমিতে খিরাই এর চাষ করেছেন। চাষিরা বলেন, স্বল্প খরচে অধিক মুনাফা পাওয়ার আশায় তারা খিরাই চাষ করে থাকেন। মাত্র তিন মাসে খিরাই গাছে ফলন ধরে। বাজারে এর চাহিদাও অনেক বেশি তাই তারা লাভবান হওয়ার জন্য খিরাই চাষে আগ্রহী হয়ে থাকেন।

পাইকারী বিক্রেতা হরিপদ কুমার দাশ বলেন, তিনি প্রায় দিনই অর্গানিক বেতাগার খিরাই সহ নানা প্রকার সবজি জাতীয় পণ্য ক্রয় করে খুলনা বাগেরহাট গোপালগঞ্জ সহ বিভিন্ন মোকামে পাইকারী দরে বিক্রয় করে থাতেন। জৈব সার দিয়ে উৎপাদন রাসায়নিক সার ছাড়াই খিরাই চাষ করা হয়েছে, শুনে অধিকাংশ ক্রেতা আগ্রহ প্রকাশ করে ক্রয় করেন। আর এর চাহিদা সব মোকাম বা বাজারে অনেক বেশি। বেতাগা ইউপি চেয়ারম্যান মোঃ ইউনুস আলী শেখ এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন,আমরা অর্গানিক বেতাগায় নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন বাজারজাত করনের জন্য অর্গানিক পল্লী গড়ে ছিলাম। কিন্তু মহিষ প্রজনন উন্নয়ন খামার সম্প্রসারণ করার কারনে অনেকাটা জমি বেহাত হয়ে গেছে। তার পরেও যে টুকু আছে সেখানেই আমরা নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন করার চেষ্টা করছি। উপ-সহকারী কৃষি অফিসার প্রদীপ কুমার মন্ডল উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ মোঃ নাছরুল মিল্লাত এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, আমরা কৃষি অফিস থেকে খিরাই চাষিদের জন্য জৈব সার ফেরোমন ফাঁদ চাষিদের আর্থিক ভাবে সহযোগীতা করেছি। শুধু তাই নয়, আমাদের একজন উপ-সহকারী কৃষি অফিসার সার্বক্ষনিক চাষিদের পাশে থেকে পরামর্শ প্রদান করেছেন। যে কারণে অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার ফলন বাম্পার হয়েছে। ব্যাপারে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অগার্নিক বেতাগার প্রতিষ্টাতা স্বপন দাশ এর সাথে আলাপ করা হলে তিনি বলেন, আমরা নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন বাজারজাত করণের জন্য অর্গানিক বেতাগা প্রতিষ্টা করেছি। সে অনুযায়ী কৃষকরা নানা প্রকার সবজি উৎপাদন করছে কীটনাশক ছাড়াই। আমরা নিরাপদ খাদ্য উৎপাদন করতে কৃষকদের উৎসাহ যোগাচ্ছি। আর তারাও নিরাপদ খাদ্য উৎপাদনে জোর চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

ভুল চিকিৎসায় রোগী মৃত্যুর অভিযোগের সুষ্ঠু তদন্ত শাস্তি দাবী সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা মহানগরীর ময়লাপোতা মোড়ে খানজাহান আলী হাসপাতালে ২৩ জানুয়ারি ২০২২ তারিখ বিকেলে ভুল চিকিৎসায় ইলিয়াস ফকির (৩০) নামে এক রোগীর মৃত হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। মৃত ব্যক্তির স্বজনদের অভিযোগ অপারেশন থিয়েটারে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু হয়েছে। উক্ত মৃত্যুর ঘটনায় যথাযথ কর্তৃপক্ষের নিকট সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে অভিযুক্তদের দ্রুত গ্রেফতার এবং দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়েছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের নির্ধারিত কর্তৃপক্ষ এবং দক্ষিণ এশিয়ার সার্কভুক্ত বিভিন্ন দেশ সংস্থা কর্তৃক অনুমোদিত মানবাধিকার সংগঠন সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন, খুলনা মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ।

ফাউন্ডেশনের খুলনা মহানগর শাখার নেতৃবৃন্দ মনে করেন চিকিৎসা ক্ষেত্রে ধরণের অবহেলা এবং অস্বাভাবিক মৃত্যু কোনোভাবেই কাম্য নয়। ব্যাপারে ভবিষ্যতে সবাইকে অধিকতর আন্তরিক এবং সতর্ক হওয়া উচিৎ।

বিবৃতিদাতা নেতৃবৃন্দ হলেন সংগঠনের খুলনা মহানগর সভাপতি মোঃ নজরুল ইসলাম, উপদেষ্টা রোটাঃ এস এম শাহনওয়াজ আলী, আলহাজ¦ রোটাঃ ইঞ্জিনিয়ার রুহুল আমিন হাওলাদার, ডাঃ এটিএম মঞ্জুর মোর্শেদ, সহ-সভাপতি আলহাজ¦ গাজী আলাউদ্দিন আহমদ, আলহাজ¦ রোটাঃ সরদার আবু তাহের, মোহাম্মদ আরিফ, শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, আব্দুস সালাম শিমুল, সাধারণ সম্পাদক এম. এ. মান্নান বাবলু এবং রোটাঃ মোঃ আজিজুল হক, রোটাঃ খান ইমরান আহমেদ, মোঃ রুকুনুজ্জামান, ইনামুল হক সবুজ, এস কে রানা আহমেদ, এইচ এম জহিরুল ইসলাম, বিমল মল্লিক, মোঃ বদিউজ্জামান লাবলু, মোঃ হাসানুর রহমান তানজির, এ্যাডভোকেট হাবিবুর রহমান মিজি, ইসরাত জাহান জিনাত, মোঃ হুমায়ুন কবির বালী, এসকে এমডি বাহলুল আলম, মোঃ মনির হোসেন, রকিব উদ্দিন মোল্যা, বিপ্লব কান্তি দাস, শায়খুল ইসলাম বিন হাসান, অসীম কুমার বিশ^াস, কাজী আব্দুল মান্নান, সোহাগ হোসেন,  প্রীতিশ ঢালী, মোঃ ইউনুস সানা, ইলিয়াছ হোসেন লাবু, মানসুরা তুলি, এম হানিফ হোসেন, নাঈম ফারহান,  মোঃ আফতাব উদ্দিন, নিজাম উদ্দিন মোল্লা রাজীব, শাহিন আলম বাবু, মোঃ লিটন হোসেন ফারজানা ইয়াসমিন পপি।

বাগেরহাটে মোসাফির ব্লাড ডোনারস ক্লাবের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

‘‘প্রয়োজনে পাশে আছি সবসময়’’ এই স্লোগানকে সামনে রেখে বাগেরহাটে মোসাফির ব্লাড ডোনারস ক্লাব নামে অনলাইন ভিত্তিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের যাত্রা শুরু করেছে। রবিবার (২৩ জানুয়ারী) সন্ধায় বাগেরহাট সদর উপজেলার কান্দাপাড়া বাজারে কার্যক্রমের উদ্বোধন অনুষ্ঠিত হয়। মোসাফির ব্লাড ডোনারস ক্লাবের উপদেষ্টা নূর মোহাম্মদের সভাপতিত্বে উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন,বাগেরহাট সদর হাসপাতালের সমাজ সেবা কর্মকর্তা এস এম সাকিব, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন আলোর পথের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ আবু বক্কর সিদ্দিক, মোসাফির ব্লাড ডোনারস ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ডাঃ মিজানুর রহমান, গোটাপাড়া ইউনিয়নের নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য তালুকদার আলী আহম্মেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কুদ্দুস শেখ, বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ সরোয়ার হোসেন,আলোর দিশারী ব্লাড ব্যাংকের প্রতিষ্ঠাতা মোঃ শফিকুল ইসলাম,আমরা করবো জয় এর প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল্লাহ আল মাসুদ, সাংবাদিক সোহেল রানা বাবুসহ স্থানীয় গন্য মান্য ব্যক্তিবর্গ।

উদ্ধোধন অনুষ্ঠান শেষে স্থানীয় দরিদ্র প্রতিবন্ধীদের মাঝে হুইল চেয়ার, শীতার্থ মানুষের মাঝে কম্বল, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে পোশাক গরীব অসহায়দের মাঝে খাবার বিতরন করা হয়।

বাগেরহাটে কোকোর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া আলোচনা সভা

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাটে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের কনিষ্টপুত্র আরাফাত রহমান কোকোর ৭ম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার দুপুরে বাগেরহাট জেলা বিএনপির আয়োজনে সরুইস্থ দলীয় কার্যালয়ে এই আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বাগেরহাট জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মোজাফফর রহমান আলমের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন, জেলা বিএনপি নেতা অধ্যাপক হাদিউজ্জামান হীরো, মেহেবুবুল হক কিশোর, আসাফেদ্দৌলা জুয়েল,  মোঃ কামরুজ্জামান, নাজমুল হুদা, ওমর আলী মুন্না প্রমুখ। আলোচনা সভায় বাগেরহাট জেলা বিএনপি বিভিন্ন অংগসংগঠনের নেতাকর্মীরা অংশগ্রহন করেন।

আলোচনা সভা শেষে আরাফাত রহমান কোকোর রুহের মাগফেরাত কামনা এবং বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি সুস্থ্যতা কামনায় বিশেষ দোয়া মোনাজাত করেন মাওলানা আবুবক্কর সিদ্দিক।

বাগেরহাটে আইএলও‘প্রতিনিধিদের সাথে শিল্প প্রতিষ্ঠান মালিকদের মতবিনিময়

স্টাফ রিপোটার,বাগেরহাট

বাগেরহাটে আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) এর প্রধান কারিগরি উপদেষ্টার সাথে বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের মালিকসহ বিভিন্ন স্টেকহোল্ডাররা মতবিনিময় করছেন। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) সকালে ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি, বাগেরহাট মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আইএলও‘প্রধান কারিগরি উপদেষ্টা লট্টি কেজসার। ইনস্টিটিউট অব মেরিন টেকনোলজি, বাগেরহাটের অধ্যক্ষ প্রকৌশলী শামীম হোসাইনের সভাপতিত্বে মতবিনিময় সভায় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, আইএলও, বাংলাদেশের প্রোগ্রামের অফিসার এমডি আনিসুজ্জামান, শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মোজাফফর হোসেন, বাগেরহাট জেলা প্রতিবন্দী কর্মকর্তা শামীম আহসান, বাগেরহাট চেম্বার অব কমার্স এ্যান্ড ইন্ডাষ্ট্রিজের সচিব নুরুল ইসলাম পিন্টুসহ শিল্প প্রতিষ্ঠান সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় বাংলাদেশে আইএলও‘প্রশিক্ষন কার্যক্রমসহ নানা বিষয়ে আলোচনা করা হয়। শ্রমিকদের স্বার্থরক্ষা দক্ষ শ্রমিক তৈরির জন্য করনীয় বিভিন্ন প্রস্তাবনা দেন স্থানীয় সুশীল সমাজের নেতৃবৃন্দ।

বাগেরহাটে ২৪ ঘন্টায় ২৫ জনের করোনা শনাক্ত

বাগেরহাট প্রতিনিধি

বাগেরহাটে গেল ২৪ ঘন্টায় ৭৮ জনের নমুনা পরীক্ষায়  ২৫ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। পরীক্ষার হিসেবে জেলায় করোনার সংক্রমণের হার ৩২.০৫ শতাংশ। এই নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাড়িয়েছে হাজার ১৫০ জন। সুস্থ হয়েছেন হাজার ৯৩৫ জন। বিভিন্ন হাসপাতাল বাড়িতে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ২১৫ জন। বাগেরহাটে করোনা আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১৪৪ জনের। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুরে বাগেরহাটের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমান তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আক্রান্ত ২৫ জনের মধ্যে মোল্লাহাট উপজেলায় ৮টি নমুনা পরীক্ষায় জনের, ফকিরহাটে ১৯টি নমুনা পরীক্ষায় জনের, মোংলায় ২০টি নমুনা পরীক্ষায় জনের, চিতলমারীতে ১০টি নমুনা পরীক্ষায় জনের, কচুয়াতে টি নমুনা পরীক্ষায় জন এবং সদরে ১৩টি নমুনা পরীক্ষায় জনের শরীরে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আক্রান্ত ২৫ জনের মধ্যে জনকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বাকিদের বাড়িতে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

এনিয়ে জেলায় গত এক সপ্তাহে ২৩৭ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৬৪ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে।

বাগেরহাটের ডেপুটি সিভিল সার্জন ডাঃ মোঃ হাবিবুর রহমান বলেন, করোনার সংক্রমণ রোধে প্রথম থেকেই মানুষকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছি। এতে জেলায় সংক্রমণ হার নিয়ন্ত্রণে ছিল। সম্প্রতি আবারও জেলায় করোনার সংক্রমণ বাড়ছে। অসচেতনতা, মাস্ক না পরা স্বাস্থ্যবিধি না মানার কারণে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। এজন্য সবাইকে স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।

কয়রায় গড়িয়াবাড়ী স্লুইসগেটের পাট তুলে লবন পানি তোলার অভিযোগ

শাহজাহান সিরাজ, কয়রা (খুলনা) প্রতিনিধি

কয়রায় দুটি ইউনিয়নের সীমানায় গড়িয়াবাড়ী স্লুইস গেটের লোহার পাট বাকিয়ে স্থানীয় দূর্বৃত্তরা চিংড়ী চাষ করতে লবণ পানি তোলায় দুটি ইউনিয়ন এখন হুমকীর মুখে। বিষয় সরেজমিনে জানা গেছে, শুক্রবার রাতে কতিপয় ঘের ব্যবসায়ী স্লুইসগেটের বাহিরের লোহার পাটে মোটা কাঠ দিয়ে রাখায় জোয়ারের পানির চাপে পাট দুমড়ে মুচড়ে বাঁকা হয়ে যায়। এলাকাবাসী জানায়, গেটের পাট দুমড়ে যাওয়ায় প্রতিদিন জোয়ারের পানি ভিতরে প্রবেশ করছে এবং এভাবে জোয়ারের লবণ পানি ঢুকলে কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার আশংকা রয়েছে। জানা গেছে, জাতীয় সংসদ সদস্য আলহাজ¦ মোঃ আকতারুজ্জামান বাবু বিগত বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে উক্ত গড়িয়াবাড়ী স্লুইসগেটের দুটি পাট নির্মানের জন্য লক্ষ টাকা বরাদ্ধ দেয়। উত্তরবেদকাশি ইউপি চেয়ারম্যান সরদার নুরুল ইসলাম বিগত এপ্রিল মাসে দুটি পাট তৈরি করে লাগিয়ে দেয়। কিন্তু স্থানীয় কয়েকটি গ্রামে সম্প্রতি লবণ পানির চিংড়ীঘেরের পাইপ বন্ধ করায় ঘের মালিকরা গেট ব্যবহার করে লবন পানি তুলে চিংড়ী চাষের আশায় গেটের পাট ক্ষতি করেছে বলে একাধিক সূত্রে জানা যায়। সূত্র জানায়, এভাবে প্রতিদিন জোয়ারের লবণ পানি উঠলে কাশির খালের দু’পাড়ের কয়রা সদর উত্তর বেদকাশি ইউনিয়নের একাধিক গ্রাম প্লাবিত হতে পারে এবং স্লুইস গেটটিও হুমকীর মুখে পড়বে। এদিকে উপজেলা চেয়ারম্যন এসএম শফিকুল ইসলাম শনিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্থ পাট দ্রুত মেরামতের আশ^াস দিযেছেন। এবিষয় সংসদ সদস্য জানান, উল্লেখিত গেটের পাট দীর্ঘদিন নষ্ট থাকার খবর পেয়ে তিনি এক বছর আগে ঘটনাস্থলে গেলে এলাকাবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে দুটি পাট নির্মানের জন্য লক্ষ টাকা দিয়েছিলাম। তিনি বলেন, গেট দিয়ে লবণ পানি তুলে কাউকে কৃষকের ক্ষতি করতে দেয়া হবে না এবং দূর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।  কয়রা সদর বেদকাশি ইউপি চেয়ারম্যান এসএম বাহারুল ইসলাম এবং সরদার নুরুল ইসলাম জানান, লবণ পানির ঘেরের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে ্্উঠায় অসাধু কিছু ঘের মালিক রাতের আধারে স্লুইস গেট ব্যবহার করে লবণ পানি তোলার চেষ্ঠা করছে এবং তারাই পাট নষ্ট করেছে বলে ধরনা করা হচ্ছে। চেয়ারম্যানদ্বয় বলেন, ইতোমধ্যেই লবণ পানি তোলার পাইপ ভেঙ্গে দেওয়া হয়েছে এবং আমরা ঘেরের বিপক্ষে নই লবণ পানির বিপক্ষে।

রূপসা উপজেলা মাসিক আইনশৃংখলা সমন্বয় কমিটির সভা

রূপসা প্রতিনিধি

গত ২৪জানুযারী (সোমবার) বেলা ১১টায় রূপসা উপজেলা মাসিক আইন শৃংখলা সমন্বয় কমিটির সভা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়।

সহকারী কমিশন ভূমি মো:সাজ্জাদ হোসেন এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন বাদশা, ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ যোবায়ের, ফারহানা আফরোজ মনা,  উপজেলা স্বাস্থ্য প.কর্মকর্তা ডা: শফিকুল ইসলাম,থানা অফিসার ইনচার্জ সরদার মোশাররফ হোসেন,কৃষি কর্মকর্তা মো:ফরিদুজ্জামান।

এসময় বক্তৃতা করেন মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আইরিন পারভিন, উপজেলা প্রকৌশলী এস এম ওয়াহিদুজ্জামান, সমাজসেবা কর্মকর্তা জেসিয়া জামান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: আরিফ হোসেন, মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আইরিন পারভিন, বন কর্মকর্তা মুজিবুর রহমান, সমবায় কর্মকর্তা প্রশান্ত ব্যানার্জী, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী শেখ মো: রাসেল, ইউপি চেয়ারম্যান অধ্যাপক আশরাফুজ্জামান বাবুল,  আলহাজ্ব এসহাক সরদার, মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান মিজান,

সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা মন্ডল মধু সুদন, সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা লিয়াকত আলী,  আনসার ভিডিপি কর্মকর্তা আজিজা বেগম,আওয়ামীলীগ নেতা আ:মজিদ ফকির, সৈয়দ মোরশেদুল আলম বাবু,  এস এম হাবিব,আজিজুল হক কাজল,

দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটির সহ-সভাপতি শিক্ষক শামসুর রহমান,ইসলামী ফাউন্ডেশন এর মডেল কেয়ারটেকার আব্দুস সালাম, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক বিনয় হালদার,বাজার কমিটির সভাপতি জুলফিকার আলীসহ বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তাগণ,শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি সংবাদকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

সাতক্ষীরায় দূর্ধর্ষ ডাকাতি , ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার সহ বিভিন্ন মালামাল লুট

খান নাজমুল হুসাইন, সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরা জেলা শহরের অদূরে লাবসা দরগাপাড়া এলাকায় কাজী আব্দুর রাশীদ নামের এক প্রকৌশলীর বাড়িতে দুর্ধর্ষ ডাকাতি হয়েছে। সোমবার ভোর রাত টার দিকে ১০ থেকে ১২ জন অস্ত্রধারী ডাকাত বাড়ির গ্রীল ভেঙে সবাইকে জিম্মি করে ১৫ ভরি স্বর্ণালংকার, ৮০ হাজার টাকা , একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা লুট করে নিয়ে গেছে। ডাকাতদের অস্ত্রাঘাতে প্রকৌশলী আব্দুর রাশীদের বৃদ্ধা মা রাহেলা বেগম (৮২) মারাত্মক জখম হয়েছে। সাতক্ষীরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপারসহ, র‌্যাবের কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।

বাড়ির মালিক প্রকৌশলী কাজী আব্দুর রাশীদ জানান, রাত টার দিকে থেকে জন ডাকাত জানালার গ্রীল ভেঙে ঘরের ভিতর প্রবেশ করে। প্রথমে তারা তার বৃদ্ধা মা রাহেলা বেগমকে রাম-দা দিয়ে আঘাত করে। তিনি মারাত্বক জখম হন। মার চিৎকারে দ্বিতীয় তলা থেকে নেমে এসে আব্দুর রশিদ দেখতে পান রক্তাক্ত অবস্থা। সবার হাতে রাম দা। তারা একে একে বাড়িরে সবাইকে বেঁধে ফেলে এবং মোবাইল গুলো নিয়ে নেয়। অস্ত্রেরমুখে তাদেরকে জিম্মি করে আলমারীর চাবি নিয়ে নগদ টাকা সোনার গহনা নিয়ে যায়। তিনি বলেন, ডাকাতদের বয়স ২০ থেকে ২৫ বসরের মধ্যে হবে। মুখে কাপড় বাঁধা ছিল। তারা যাওয়ার সময় হুমকী দিয়ে বলে গেছে, কাউকে বললে পরবর্তীতে তাদের ছেলে মেয়েদের অপহরন করা হবে।

প্রকৌশলী কাজী আব্দুর রাশীদের একমাত্র মেয়ে আমেরিকা প্রবাসী শাম্মা বিনতে রাশীদ (৩০) জানান, ২৫ দিন আগে তিনি আমেরিকা থেকে বাড়িতে ফিরেছেন। তার, তার মা চাচির গায়ে যত গহনা ছিলো সবই ডাকাতরা কেড়ে নিয়ে গেছে। এছাড়া আলমারীতে যেসব গহনা টাকা ছিলো তাও নিয়ে গেছে। সমস্ত বাড়ি তছনছ করেছে দুর্বৃত্তরা। ডাকাতরা সবাই যুবক। ঘরের ভিতর ৬/জন প্রবেশ করে। ঘরের বাইরে ছিল আরও ৪/জন।

প্রকৌশলী কাজী আব্দুর রাশীদের স্ত্রী শাকিলা হোসেন (৫২) জানান, বাড়িতে আমরা ৮জন ছিলাম। তারা সবার হাত বেঁধে ফেলে। রাম-দা, সাবলসহ দেশীয় অস্ত্র ছিলো তাদের হাতে। প্রায় ১৫ ভরি স্বর্ণাংকার, নগদ ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা , একটি ডিএসএলআর ক্যামেরা লুট করে নিয়ে গেছে। যাওয়ার সময় মোবাইল গুলো ঘরের ভিতর ফেলে রেখে গেছে তারা।

সাতক্ষীরা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম কবীর ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, বাড়ির মালিক প্রকৌশলী কাজী আব্দুর রাশীদ ব্যাপারে অভিযোগ দিয়েছেন। ঘটনা জানার পরপরই তিনিসহ পুলিশের উদ্ধর্তন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তিনি বলেন, মনে হচ্ছে এটি একটি পরিকল্পিত ডাকাতির ঘটনা। সোমবার ভোর রাত টার দিকে একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত দল দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে গেষ্ট রুমের  গ্রীল ভেঙে বাড়ির ভিতর প্রবেশ করে। পুলিশ ডাকাতির ঘটনায় জড়িতদের খোঁজে মাঠে নেমেছে।

মোংলায় হঠাৎ করোনার উর্ধগতি, সোমবারের পরীক্ষায় অর্ধেকেরই করোনা পজেটিভ শনাক্ত

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

হঠাৎ করে মোংলায় বেড়েই চলেছে করোনা সংক্রমণের হার। বর্তমানে এখানে সংক্রমণের গড় হার শতকরা ৩১ ভাগ। গেল সপ্তাহ থেকে এখানে এই সংক্রমণ উর্ধগতিতে। চলতি সপ্তাহেও তা ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। করোনা উপসর্গ নিয়ে সোমবার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ১০ জন নমুনা পরীক্ষা করিয়েছেন। তাদের মধ্যে জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে। এর আগে রবিবার জনে জন শনিবার জনে জনের করোনা পজেটিভ হয়।

মোংলার সরকারী হাসপাতালে করোনা পরীক্ষা নমুনা সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত ষ্টাফ মোঃ মহিউদ্দিন খাঁন তিতাস বলেন, বর্তমান করোনার বাস্তব অবস্থা খুবই ভয়াবহ। হঠাৎ করে করোনা সংক্রমণের হার মারাত্মকভাবে বেড়ে গেছে। কিন্তু সেই অনুযায়ী বিধি নিষেধ প্রতিপালনের বালাই নেই এখানে। এক্ষেত্রে মাঠ প্রশাসনের কঠোর হওয়া প্রয়োজন।

মোংলায় সংখ্যালঘুর চিংড়ি ঘের লুটে গৈঘরে আগুন দেয়ার অভিযোগ

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

মোংলায় এক সংখ্যালঘুর চিংড়ি ঘেরের মাছ লুট ওই ঘেরের গৈঘরে আগুন দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।উপজেলার মিঠাখালী ইউনিয়নের চৌরিডাঙ্গা গ্রামের সাতপুকুর এলাকায় রবিবার গভীর রাতে ঘটনা ঘটে। ঘটনায় ওই এলাকার মান্নান শেখের ছেলে হুমায়ূন কবির (৪০) মৃত সৈয়দ আহম্মদ মীরের ছেলে রেজাউল ইসলাম মীর (৪৫) সহ অজ্ঞাত আরো ৭/জনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী রনজিৎ মিস্ত্রি।

মোংলা থানায় দায়েরকৃত অভিযোগের প্রেক্ষিতে জানা যায়, গত শনিবার রনজিৎ মিস্ত্রির চিংড়ি ঘের থেকে হুমায়ূন কবির রেজাউল মীরসহ আরও কয়েকজন দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে এক লাখ ৭০ হাজার টাকার মাছ লুটে নেয়। ঘটনায় রনজিৎ বাঁধা দিলে তাকে হুমকি-ধামকি দিয়ে বীরদর্পে ওই এলাকা ত্যাগ করেন তারা। ঘটনা এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের জানালে তাতে ক্ষিপ্ত হয়ে পরদিন রবিবার (২২ জানুয়ারি) গভীর রাতে অভিযুক্ত হুমায়ুন রেজাউল ওই ঘেরের গৈঘরে আগুন দেয়।

এদিকে ঘটনায় অভিযুক্ত হুমায়ুন রেজাউলের বক্তব্য জানতে তাদের মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করে পাওয়া যায়নি।

বিষয়ে মিঠাখালী ইউপি চেয়ারম্যান উৎপল মন্ডল বলেন, ভুক্তভোগীদের কাছে ঘটনার বর্ণনা শুনেছি, ঘটনায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপ সুষ্ঠু বিচারের দাবী করছি।

মোংলা থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মনিরুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত চলছে।

জাতীয় সরকারের দাবিতে নগরীতে জেএসডি’প্রচার পত্র বিতরণ

খবর বিজ্ঞপ্তি

বিদ্যমান রাজনৈতিক সংকট নিরসনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জেএসডি জাতীয় সরকারের দাবি তুলেছে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ভিত্তিক একটি নৈতিক মানবিক রাষ্ট্র বিনির্মাণ করার লক্ষ্যে জাতীয় সরকার গঠনের দাবি।

দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে সোমবার দুপুর ১২টায় স্থানীয় পিকচার প্যালেস মোড় থেকে খুলনা জেলা আইনজীবী সমিতি পর্যন্ত দলের প্রচারপত্র বিতরণ করা হয়। এসময় দলের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোঃ লোকমান হাকিম, নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যক্ষ শেখ আব্দুল খালেক, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সিনা ইবনে ওয়াহিদ মিকি, জেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক কামরুল ইসলাম বাবু, নগর শাখার যুগ্ম সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, নগর সাংগঠনিক সম্পাদক এলপি গাইন বিল্লাল হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

জেএসডির জেলা নগর শাখার উদ্যোগে প্রচারপত্র বিলি করা হয়। প্রচারপত্রে উল্লেখ করা হয়েছে, সাংবিধানিক ব্যবস্থাকে পুনরুজ্জীবিত করে রাষ্ট্রিয় প্রতিষ্ঠানসমূহকে সংবিধানের আওতায় প্রতিস্থাপন করা, স্বাধীন নির্বাচন কমিশন গঠন, রাজবন্দিদের মুক্তি, গায়েবি মামলা প্রত্যাহার, আইনের  শাসন, বিচার বিভাগের স্বাধীনতা, নির্বাচিত প্রতিনিধির হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর, সংসদে উচ্চকক্ষ গঠন, জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল গঠন, খাদ্য, বাসস্থান চিকিৎসার নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

খুবির উপাচার্যের গভীর শোক

খবর বিজ্ঞপ্তি

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোঃ গোলাম হোসেনের মাতা আমেনা বেগম রোববার দিবাগত রাত ২-৪০ টায় যশোরের কেশবপুর উপজেলার মঙ্গলকোট গ্রামের নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি … রাজিউন)মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিলো ১০২ বছর। তিনি বেশকিছুদিন যাবত বার্ধক্যজনিতরোগে ভুগছিলেন। তিনি চার পুত্র তিন মেয়েসহ অসংখ্য আত্মীয়-স্বজন গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। আজ বাদ যোহর মঙ্গলকোট গ্রামে নামাজে জানাজা শেষে তাঁকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হবে।

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. মাহমুদ হোসেন ফার্মেসি ডিসিপ্লিনের প্রফেসর ড. মোঃ গোলাম হোসেনের মাতার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন। এক শোক বার্তায় তিনি মরহুমার রুহের মাগফিরাত কামনা করে শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানিয়েছেন। অনুরূপভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মোসাম্মাৎ হোসনে আরা, জীববিজ্ঞান স্কুলের ডিন রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) প্রফেসর খান গোলাম কুদ্দুস, সংশ্লিষ্ট ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. জামিল আহমেদ শিল্পীসহ ডিসিপ্লিনের শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ শোক প্রকাশ করেছেন। এছাড়া অপর এক বিজ্ঞপ্তিতে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি প্রফেসর মোঃ শরীফ হাসান লিমন সাধারণ সম্পাদক প্রফেসর ড. তরুণ কান্তি বোস অনুরূপ শোক প্রকাশ করেছেন।

মেঘে ঢাকা আকাশে সূর্যের দেখা নেই:মোংলাসহ আশপাশ উপকূলের মানুষ শীতে জুবুথুবু

মোংলা (বাগেরহাট) প্রতিনিধি

হঠাৎ হঠাৎ করে মেঘ, বৃষ্টি, কুয়াশা বাতাসে শীত জেকে বসায় জুবুথুবু হয়ে পড়েছে মোংলা বন্দরসহ সংলগ্ন উপকূলের বাসিন্দারা। সোমবার ভোর থেকে সূর্যের দেখা মেলেনি আকাশে। মেঘা ঢাকা আকাশের পাশাপাশি রয়েছে চারিদিকে ঘন কুয়াশা। সেই সাথে ভোর থেকেই হচ্ছে থেমে থেমে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টি। গত রাতভরই এলাকায় বৃষ্টি ঝরেছে। তাই শীতও বেড়েছে। পৌর শহরের কবরস্থান রোডের বাসিন্দা মোঃ রহমান বলেন, রবিবার দিবাগত গত রাতে বৃষ্টি হয়েছে, সোমবার ভোর থেকেও থেমে থেমে গুড়ি গুড়ি হচ্ছে। সূর্য নেই, বৃষ্টি, কুয়াশায় খুবই শীত বেশি। তাই আমাদের স্বাভাবিক কাজ কর্ম ব্যাহত হচ্ছে।

বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা ‘সার্ভিস বাংলাদেশ’ ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মোঃ ফরহাদ হোসেন, এখন মাঘ মাসেও বৃষ্টি হচ্ছে। এতে শীত অনেক বেড়েছে, ফলে দরিদ্র শ্রেণীর মানুষের কষ্ট বেড়েছে। তাদের কাজ নেই বললে চলে, রাস্তাঘাটে লোকজনও কম।

কয়েকদিনের এমন আবহাওয়া চরম বিপাকে পড়েছে নৌপথে চলাচলকারী মানুষেরা। কুয়াশায় রাতে নদীতে কিছু দেখা না গেলেও দিনের বেলায়ও প্রায় একই অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। নদী সড়ক পথে যান চলাচল বিঘ্নিত হওয়ার পাশাপাশি দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়ছে।

নৌযান চালক (কার্গো মাষ্টার) হিরু মিয়া বলেন, কুয়াশায় রাতে নদীতে কিছুই দেখা যায় না। তাছাড়া দিনের বেলায়ও প্রায় একই অবস্থা, তাই আমরা পশুর নদীতে নোঙ্গর করে বসে আছি। দুর্ঘটনার ঝুঁকির আশংকা থাকায় জাহাজ চালানো যাচ্ছে না।

মেঘলা আকাশ, ঘন কুয়াশা বৃষ্টিতে শীতের প্রকোপ বাড়ায় বিপাকে পড়েছেন সাধারণ দিনমজুরের।

এদিকে গত কয়েকদিনের শীতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ঠান্ডাজনিত রোগীদের সংখ্যাও বাড়ছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ জীবিতেষ বিশ্বাস বলেন, দুই তিনদিন ধরে শীতজনিত রোগীদের সংখ্যা বেড়েছে। সকল রোগীদের মধ্যে শিশু বয়স্করাই বেশি।

অবুঝ মেহেদী জানে না তার বাবা আর নেই!

সাবজাল হোসেন,বিশেষ প্রতিনিধি

বাড়ি জুড়ে চলছে কান্নাকটি। আত্বীয় স্বজনেরাও যে আসছেন সকলেই কাঁদছেন। আহাজারিতে বাদ নেই প্রতিবেশীরাও। এমন শোকের মাতমের মধ্যে অবুঝ শিশু দেড় বছরের মেহেদি দাদার কোলে বসে শুধু ভীড়ের মানুষের দিকে ফ্যালফেলিয়ে চেয়ে থাকছে। স্বজন গ্রামবাসীদের আহাজারিতে বাতাস হয়ে উঠেছে ভারি। প্রিয় মানুষকে হারিয়ে সবাই যখন শোকে কাতর। অবুঝ মেহেদী জানে না যে, তার বাবা আর পৃথিবীতে নেই। কোনদিনও আর ফিরে আসবে না। বাবার লাশ পড়ে আছে। মানুষ আসছে বাবাকে দেখতে। কান্নারত দাদা মেহেদীকে কোলে করে বাড়ির একপাশে। আর কিছুই বুঝতে পারছে না অবুঝ মেহেদী।

সোমবার সকালে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নলভাঙ্গা গ্রামের একটি খাল থেকে পীর আলী (৩৩) নামে দুই মামলার স্বাক্ষীর মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। সে ওই গ্রামের দুটি স্পর্শকাতর মামলার প্রধান স্বাক্ষী ছিল। নিহত পীর আলী নলভাঙ্গা গ্রামের সামছুল হকের ছেলে ওয়ার্ড যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক। এছাড়াও সে গত ২৮ নভেম্বর জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড থেকে ফুটবল প্রতিক নিয়ে মেম্বার পদে নির্বাচন করে পরাজিত হন পীর আলী।

পীর আলী দুটি মামলার স্বাক্ষী। বিভিন্ন সময় আসামিরা তাকে প্রাণনাশের হুমকি দিত। নিজের জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে গত ডিসেম্বর জিডি করেছিলেন পীর আলী। কিন্তু এক মাস ২০ দিনের মাথায় খাল থেকে পীর আলীর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

পীর আলীর স্ত্রী জোসনা খাতুন জানান, সাংসারে কোন গোলযোগ ছিল না। সে কারও ক্ষতিও করেনি। প্রতিদিন সে রাতে পেয়ারা বাগান পাহারা দিতে যায় আবার রাতেই ফিরে আসে। গতকাল রাতে গিয়ে আর ফিরে আসেনি। সকালে খালের পাড়ে তার লাশ পাওয়া গেছে। এখন অবুঝ শিশুকে নিয়ে কোথায় যাবো বলতে বলতে বার বার মূর্ছা যাচ্ছিলেন।

প্রতিবেশীরা জানায়, নিহত পীর আলীর ছেলে দেড় বছরের মেহেদী ছাড়াও তার বছরের একটি বোন রয়েছে। বোনটা বুঝতে পারছে তার বাবা আর নেই। কিন্ত মেহেদীর বোঝার বয়স এখনও হয়নি। অবুঝ শিশু দুটির মাথার ওপর থেকে বাবা নামের ছাতাটা আজ হারিয়ে গেলো। এখন আর কোথায় গিয়ে তাড়াবে। কি হবে তাদের ভবিষৎ। স্ত্রীসহ পরিবারের অন্যরা কিভাবে চলবে ভাবনায় কেউ চোখের পানি ধরে রাখতে পারছেন না।

নিহত পীর আলী বাবা সামছুল ইসলাম জানান,আমার ছেলে কারও ক্ষতি করিনি। কারা এমন ক্ষতি করলো আমার। আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে। সাংসারিক তেমন কোন বিষয় নেই যে সে আত্মহত্যা করবে। আমি আমার ছেলের হত্যার বিচার চাই বলতে বলতে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

কালীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মতলেবুর রহমান জানান, খালের পাড়ে পড়ে থাকা অবস্থায় পীর আলীর লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে তার গলায় ফাঁসের চিহ্ন পাওয়া গেছে। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ছাড়া বলা সম্ভব না। আসল রহস্য উৎঘাটনের চেষ্টা করছে পুলিশ।

কালীগঞ্জে খালের পাড়ে পড়েছিল পীর আলীর মরদেহ

সাবজাল হোসেন, বিশেষ প্রতিনিধি

প্রতিদিনের মত পীর আলী (৩৫) রবিবার দিবাগত রাতে পেয়ারা বাগান পাহারা দিতে গিয়েছিলেন। কিন্ত আর বাড়িতে ফিরে আসেননি তিনি। সকালে গ্রামের খালের পাড় থেকে তার গলায় ফাঁস দেয়া মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। পরিবারের লোকজনের দাবি, ওই এলাকার দুটি আলোচিত মামলার সাক্ষী ছিলেন পীর আলী। আবার গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে উপজেলার কাষ্টভাঙ্গা ইউনিয়নের নং ওয়ার্ড থেকে মেম্বর পদে প্রতিদ্বন্দিতা করেছিলেন। অন্যদিকে একটি মামলার আসামীরা তাদের পক্ষে স্বাক্ষীর দেওয়ার জন্য হুমকি দিতো। জন্য তিনি  নিজের নিরাপত্তা চেয়ে গত ডিসেম্বর কালীগঞ্জ থানায় একটি জিডিও করেছিলেন। আবার পাওয়া গেছে গলায় ফাঁস লাগানো মরদেহ। এমন অবস্থায় এটা হত্যা না আত্মহত্যা তা এখনি সঠিকভাবে বলতে পারছে না পুলিশ। পীর আলী ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার নলভাঙ্গা গ্রামের সামছুল হকের ছেলে। তিনি ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদকের দায়িত্বে ছিলেন বলে দলটিরসূত্রে জানাগেছে। 

স্থানীয়রা জানায়, নলভাঙ্গা গ্রামের সামছুল হকের ছেলে পীর আলী রাতে নিজের পেয়ারা বাগান পাহারা দিতে যায়। রাত টার দিকে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর বাড়ি ফিরে আসেনি। সকালে অনেক খোঁজাখুঁজির পর বাড়ির পাশের খালে গলায় দড়ি বাঁধা অবস্থায় তার মরদেহ পড়ে থাকতে দেখে পুলিশকে খবর দেয় স্থানীয়রা।

নিহতের ভাই রবিউল ইসলাম জানান, রোববার রাত টার দিকে সর্বশেষ তার ভাইয়ের সাথে কথা হয়েছে। প্রতিদিনই সে রাতে পেয়ারা বাগান পাহারা দিতে যায়। গত রাতেও গিয়েছিল। কিন্ত আর ফিরে আসেনি। পরিবারের পক্ষ থেকে অনেক খোঁজাখুজি করা হয়েছে। এলাকাবাসী সকালে খালের পাড়ে তার লাশ পড়ে থাকতে দেখে তাদেরকে খবর দেয়।

শাহিনুর রহমান নামে এক মামলার বাদী জানান, ২০১৬ সালের অক্টোবর মাসে গ্রামের কয়েকজন তাকে মারধর করে। সেই মামলায় পীর আলী প্রধান স্বাক্ষী ছিল। এছাড়াও মেয়েদের উত্ত্যক্তের প্রতিবাদ করায় শাহানুর নামে আরেক জনের দুই পা কাটা মামলার প্রধান স্বাক্ষী ছিল পীর আলী। মামলার স্বাক্ষী দেওয়ায় আসামিরা তাকে বিভিন্ন সময় হুমকি দিতো। বিষয়ে ডিসেম্বর মাসের তারিখে কালীগঞ্জ থানায় পীর আলী একটি জিডিও করেছিল। আবার মাঠের খালের পাড়ে পাওয়া যাচ্ছে তার গলায় ফাঁস দেয়া মৃতদেহ। বিষয়টি রহস্যজনক।

কালীগঞ্জ থানার ওসি (তদন্ত) মতলেবুর রহমান জানান, খালের পাড়ে পড়ে থাকা অবস্থায় পীর আলীর লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। তার গলায় ফাঁসের চিহ্ন পাওয়া গেছে। পুলিশ প্রাথমিক ভাবে মনে করছে গাছের ডালে রশি বেধে আত্বহত্যাকালে হয়তো ডালটি ভেঙে পড়তে পারে। মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে এটি হত্যা নাকি আত্মহত্যা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট ছাড়া বলা সম্ভব না।

যশোরে বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত

যশোর প্রতিনিধি

যশোরের কেশবপুরে বাসের ধাক্কায় তৌফিক হাসান সোহেল (৩৮) নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। তিনি কেশবপুর প্রেসক্লাবের সাবেক সহ-সভাপতি রুহুল কুদ্দুসের ভাই।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) বিকালে চুকনগর-খুলনা মহাসড়কের চুকনগর বটতলা এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

পুলিশ পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, তৌফিক হাসান খুলনা থেকে ডাক্তার দেখিয়ে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরছিলেন। চুকনগর বটতলা এলাকায় বাসের ধাক্কায় মোটরসাইকেল থেকে পড়ে তিনি নিহত হন।

রুহুল কুদ্দুস বলেন, মরদেহ খুলনার ডুমুরিয়া থানা পুলিশের কাছ থেকে আমরা বাসায় এনেছি। মঙ্গলবার সকালে জানাজা শেষে পারিবাারিক গোরস্তান কেশবপুর পৌর এলাকার ভোগতি নরেন্দ্রপুরে দাফন করা হবে। কোনও অভিযোগ না থাকায় পুলিশ মরদেহ হস্তান্তর করেছে বলে জানান তিনি।

কেশবপুর থানার ওসি বোরহান উদ্দীন বলেন, বিষয়টি ডুমুরিয়া থানার অধীনে। আমাদের ব্যাপারে কিছুই জানা নেই। তবে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এদিকে, সাংবাদিক রুহুল কুদ্দুসের ভাই তৌফিক হাসান সোহেলের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন কেশবপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আশরাফ-উজ-জামান খান সাধারণ সম্পাদক জয়দেব চক্রবর্তী।

সরকারি বরাদ্দ ৩০ টাকা, অর্ধেক খরচে দেওয়া হয় নাস্তা

চুয়াডাঙ্গা সংবাদদাতা

প্রধানমন্ত্রীর অগ্রাধিকার প্রকল্পের অধীন চুয়াডাঙ্গার কিশোর-কিশোরী ক্লাবে শিক্ষার্থীদের জন্য খাবার বরাদ্দের অর্থ উপকরণ কেনাকাটায় অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। জেলার ৪১টি ক্লাবে প্রশিক্ষণার্থীদের জন্য প্রতিদিনের নাস্তার জন্য ৩০ টাকার খাবার বরাদ্দ থাকলেও অর্ধেক টাকায় নাস্তা দেওয়া হয়। এছাড়া ক্লাবের সরঞ্জাম কেনাকাটার অধিকাংশ বরাদ্দের টাকার কোনও হিসাব নেই কারও কাছে। এছাড়া প্রশিক্ষকদের সন্মানি নিয়েও রয়েছে নয়-ছয়। এতে ক্ষোভ ছড়িয়েছে ক্লাবের শিক্ষার্থী প্রশিক্ষকদের মধ্যে।

তবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দাবি, প্রকল্পের সব বরাদ্দই সুষ্ঠুভাবে বণ্টন করা হয়। এদিকে, অভিযোগের বিষয়টি নজরে এলে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে জেলা প্রশাসন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রান্তিক পর্যায়ে কিশোর-কিশোরীদের মধ্যে সৃজনশীল গঠনমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে আত্মনির্ভরশীল এবং দক্ষ মানবসম্পদে রূপান্তর করতে চুয়াডাঙ্গায় চালু হয় কিশোর-কিশোরী ক্লাবের কার্যক্রম। জেলা মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের আওতায় সব ইউনিয়ন পর্যায়ে ৪১টি ক্লাবে অন্তত ১২শ’ কিশোর-কিশোরী সপ্তাহে দুইদিন বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ নিয়ে থাকেন।

জন্য প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্যে নাস্তা খেলাধুলার উপকরণ সরবরাহ করা হয়। সপ্তাহের দু’দিনের প্রতি ক্লাসে শিক্ষার্থীদের জন্য ৩০ টাকা সমপরিমাণের নাস্তা সরবরাহের কথা রয়েছে। কিন্তু সে বরাদ্দের অর্ধেক টাকার নাস্তা দিয়েই দায় সারছে কর্তৃপক্ষ। বাকি অর্ধেক টাকা কোথায় যায় তার স্পষ্ট ধারণা নেই কারও। কিশোর-কিশোরীদের জন্য খেলা অন্যান্য সামগ্রীর জন্য বরাদ্দ রয়েছে এসব ক্লাবে। কিন্তু কিছু কিছু ক্লাবে এসব সামগ্রী দিলেও তার মান নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। এছাড়া সঠিক নজরদারি নিয়েও অভিযোগ তুলেছে শিক্ষার্থীরা।

নেহালপুর কিশোর-কিশোরী ক্লাবের শিক্ষার্থী প্রিয়া আক্তার বলেন, আমাদের জন্য নাস্তার বরাদ্দ ৩০ টাকা থাকলেও আমাদের নাস্তা দেওয়া হয় ১২ থেকে ১৫ টাকার। একটি কলা একটা কেকের সঙ্গে ছোট লাড্ডু দেওয়া হয় আমাদের।

রেল-বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কিশোর-কিশোরী ক্লাবের শিক্ষার্থী রাজু বলেন, নাস্তায় দুই টাকার একটি বিস্কুটের প্যাকেট, দুই টাকা দামের একটি লাড্ডু টাকা দামের একটি কমলা লেবু দেওয়া হয়।

প্রতিদিনই কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দের টাকার নয়-ছয় নিয়ে ক্ষুব্ধ প্রশিক্ষকরাও। ক্লাবের প্রশিক্ষক সম্রাট অভিযোগ করেন, ক্লাবের সরঞ্জাম কেনাকাটার অধিকাংশ বরাদ্দের টাকার কোনও হিসাব নেই। গানের ক্লাসের বরাদ্দকৃত টাকায় তবলা, হারমনিয়ামসহ যেসব সরঞ্জাম কেনা হয়েছে তা দেখলেই বোঝা যায় কতটা দুর্নীতি হয়েছে।

ক্লাবের আরেক প্রশিক্ষক আফসানা জানান, করোনাকালে ক্লাস নিলেও সেই সময়ে সম্মানি পাইনি। প্রশিক্ষণার্থী কোমলমতি শিশুদের দেওয়া হয়নি কোনও নাস্তা। দীর্ঘদিন ধরেই বরাদ্দের অর্ধেক টাকার হিসাব মেলে না। প্রশ্নের কোনও উত্তরও কেউ দিতে পারে না। এসব বিষয়ে কর্তৃপক্ষের কাছে ধর্ণা দিয়েও মেলেনি কোনও সমাধান।

তবে চুয়াডাঙ্গা মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের উপ-পরিচালক মাকসুরা জান্নাতের দাবি সব অভিযোগই অসত্য। প্রকল্পের সব বরাদ্দ সুষ্ঠুভাবে বণ্টন করা হয়। শিক্ষার্থী প্রশিক্ষকদের অভিযোগও সঠিক না। মনগড়া কথা বলেছেন সবাই।

চুয়াডাঙ্গায় কিশোর-কিশোরী ক্লাবে খাবারের অর্থ কেনাকাটায় অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়টি নজরে এলে বিষয়টির তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছেন জেলা প্রশাসন।

চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার শামীম ভূঁইয়া জানান, কিশোর-কিশোরী ক্লাবে অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগের বিষয়টি আমি শুনেছি। অভিযোগ শোনার পরে আমরা তদন্ত কমিটি গঠন করেছি। কমিটির সদস্যরা বিষয়ে খোঁজ নিচ্ছেন।

জেলার সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা বলছে, অপসংস্কৃতি হটাতে কিশোর-কিশোরী ক্লাব সাহায্য করবে। সৃজনশীল গঠনমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে কিশোর-কিশোরীদের অবস্থান দৃঢ় করাসহ তাদের ক্লাবে সরকারি বরাদ্দের সঠিক ব্যবহারের দাবি জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

ট্রাকচাপায় গরুর মালিককে হত্যা, গ্রেফতার ৫, ১১ গরু উদ্ধার

মাগুরা প্রতিনিধি।।

মাগুরায় গরু চুরি করে পালানোর সময় গরুমালিককে ট্রাকচাকায় হত্যা করা আন্তঃজেলা গরুচোর চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)একই সময় ১১টি গরু, ঘাতক ট্রাক, ছুরি, চাকুসহ অন্যান্য মালামাল উদ্ধার করা হয়।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) দুপুর আড়াইটায় মাগুরা সদর থানা মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে এতথ্য জানান জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কামরুল হাসান।

গ্রেফতার ব্যক্তিরা হলেন-ফরিদপুরের শালথা উপজেলার কামদিয়া গ্রামের মাসুদ খান, মাগুরা সদর উপজেলার আজমপুর গ্রামের কাজল মুন্সী, ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার চানপুর গ্রামের মনিরুল বিশ্বাস, বড়কান্দিয়া গ্রামের হাবিল সিংহ প্রতাপ গ্রামের বিল্লাল সিকদার।

পুলিশ জানায়, গত নভেম্বর মাগুরা শালিখার পুখুরিয়া গ্রাম থেকে গরু চুরি করে পালানোর সময় ট্রাকচাপায় গরুর মালিক সাজ্জাদকে হত্যা করে চোর চক্র। এছাড়া জেলার বিভিন্ন এলাকায় গরু চুরি হয়। রোববার (২৩ জানুয়ারি) মাগুরা পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জয়নাল আবেদিনের নেতৃত্বে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানে শালিখার গরু চুরি হত্যায় জড়িত গরুচোর চক্রের নেতা মাসুদসহ পাঁচজনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। পরে আসামিদের দেওয়া স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে চুরি করা ১১টি গরু, ঘাতক ট্রাক, ছুরি, চাকুসহ বিভিন্ন মালামাল উদ্ধার করা হয়।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. কামরুল হাসান জানান, আটকদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে।

অপরিকল্পিত মাছের ঘেরে প্রায় হাজার হেক্টর জমির আবাদ বন্ধ

নড়াইল প্রতিনিধি।।

নড়াইলের বাশঁগ্রাম বগুড়া দৌলতপুর আন্দারকোটা বিলে অপরিকল্পিতভাবে মাছের ঘের করায় প্রায় হাজার হেক্টর জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। পানি বের না হতে পারায় শীত মৌসুমেও পরিপূর্ণ বিল-জমি। ফলে ফসল আবাদ করতে পারছেন না কৃষক জমির মালিকরা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, নড়াইল সদর, লোহাগড়া উপজেলার লক্ষ্মীপাশা কাশিপুর ইউনিয়ন, সদরের বাঁশগ্রাম এবং কালিয়া উপজেলার চাঁচুড়ী ইউনিয়নের মাঝে মাছের অভয়াশ্রম বলে খ্যাত বাশঁগ্রাম বগুড়া দৌলতপুর আন্ধারকোটা বিল। দুটি বিলের পানি খাল হয়ে নদীতে গিয়ে পড়ে।

কিন্তু গত কয়েক বছর ধরে প্রভাবশালীরা বাঁশগ্রাম, বগুড়া, গোপালপুর কামাল প্রতাপ, নন্দদখোল, ডুমদি, টাবরা হুগলাডাঙ্গা, লোহাগড়া উপজেলার আমাদা, বয়রা, উলা, তালবাড়িয়া, কুমড়ি গ্রামে প্রায় এক হাজার হেক্টর জমিতে অপরিকল্পিতভাবে মাছের ঘের করে। এতে পানি বরে হতে না পারায় বর্ষায় হাজার হেক্টর জমিতে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সেই পানি এখনো নামতে না পারায় আবাদ করা যাচ্ছে না কোনো ফসলই।

এর থেকে মুক্তি পেতে প্রায় দেড়বছর আগে স্থানীয় জমির মালিক কৃষকরা জেলা প্রশাসক এবং পুলিশ সুপারের কাছে লিখিতভাবে অভিযোগও দেন। প্রশাসন সরেজমিন তদন্ত করে অভিযুক্ত তিন ঘের মালিককে গ্রেফতার করে। পরবর্তীতে তারা আদালত থেকে জামিনে ছাড়া পেয়ে আবার ঘেরের কাজ শুরু করে।

ভুক্তভোগী বগুড়া গ্রামের সোহেল মোল্যা বলেন, চারটি ইউনিয়নের প্রায় ১৫টি গ্রামের কারও ফসল নষ্ট করে আবার কারও জমিতে জোরপূর্বক ঘের কাটা হয়েছে। আবার এমনভাবে ঘের কাটা হয়েছে তাতে জমিতে যাওয়ারও কোনো পথ নেই।

তিনি আরও বলেন, অপরিকল্পিতভাবে মাছের ঘের কাটায় বিস্তীর্ণ অঞ্চলে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে। ফলে আউস, আমন এবং পাট চাষ করা যায়নি। শীতকালেও জমিতে পানি থাকায় বোরো আবাদ নিয়ে শঙ্কায় আছি।

অভিযুক্ত ঘের মালিক মিন্টু মিয়া বলেন, আন্দারকোটা বিলের জলাবদ্ধতার জন্য আমি একা না আরও অনেক প্রভাবশালীর ঘের রয়েছে। তারাই বেশি দায়ী।

অভিযোগ উঠেছে, সদরের বাঁশগ্রাম ইউনিয়নের কামাল প্রতাপ গ্রামের এনায়েত কাজী প্রায় ১৫ একর, পার্শ্ববর্তী লোহাগড়া উপজেলার আমাদা গ্রামের কামরুল খান ৪০ একর এবং কামঠানা গ্রামের মিন্টু মিয়া আন্ধারকোটা বিলে ৬০ একর সহ ১০০জন ঘের মালিক হাজার হেক্টর জমিতে মাছের ঘের করছে।

কামাল প্রতাপ গ্রামের সত্যরঞ্জন মালাকার বলেন, আমার একর ১৪ শতক জমিতে ধান তিল আবাদ করেছিলাম। সেই ফসল নষ্ট করে কামরুল খান মাছের ঘের কেটেছে।

আরেক বাসিন্দা ভক্তদাস বিশ্বাস বলেন, আমার ৭৮ শতক জমিতে মিন্টু মিয়া জোরপূর্বক ঘের কেটেছে।

সিদ্দিক মল্লিক বলেন, মামলা জনিত কারণে আমি এলাকায় না থাকায় কামরুল এনায়েত আমার একর ৩৫ শতক ফসলি জমিতে জোর করে ঘের কেটেছে।

এছাড়া একই গ্রামের বাসিন্দা জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি ফায়েকুজ্জামান ফিরোজের ৪২ শতক, দুলাল বিশ্বাসের ৯০ শতক, শক্তিপদ বিশ্বাসের ৭৮ শতক, শান্তিরাম বিশ্বাসের একর ২৬ শতক, প্রশান্ত বিশ্বাসের ৬০ শতক, সুশীল মন্ডলের ১২ শতক, সৈয়দ রানার ৭৫ শতক এবং সৈয়দ নায়েব আলীর এক একর জমি জবর দখল করে কামরুল, এনায়েত মিন্টু মাছের ঘের কেটেছে।

ওই গ্রামের জয় বিশ্বাস, খায়ের মল্লিক আমজাদ কাজী বলেন, কামরুল খান মিন্টু মিয়া এমনভাবে ঘের কেটেছে তাতে তিনজনের পৈত্রিক এক একর ৭০ শতক জমিতে যাওয়ার কোনো পথ নেই। প্রতিবাদ করলে হত্যাসহ বিভিন্ন প্রকার হুমকি দেওয়া হচ্ছে।

তারা আরও জানান, কামাল প্রতাপ গ্রামে দুটি হত্যাকাণ্ডের পর এখন অনেকেই গ্রাম ছাড়া। এই সুযোগে অবৈধভাবে একাধিক মাছের ঘের তৈরি করছে প্রভাবশালীরা।

তবে জমি জবরদখলের অভিযোগ অস্বীকার করে এনায়েত কাজী বলেন, ‘আমি নয়, এসব জবরদখল করে কামরুল এবং মিন্টু ঘের কেটেছে। তারা অধিকাংশ জমির মালিকদের কাছ থেকে না শুনে চুক্তি না করে ঘের কেটেছে।’

তবে কামরুল খান বলেন, ‘বিষয়টি সেরকম নয়। আপনারা সরেজমিনে এসে জমির মালিকদের সঙ্গে মুখোমুখি করেন তাহলে বিষয়টির সত্যতা বোঝা যাবে।’

অভিযুক্ত মিন্টু মিয়া বলেন, ‘বিলে প্রায় ৬০ একর জমিতে মাছের ঘের কাটছি। এর মধ্যে আমার নানা শ্বশুরের নিজস্ব ২০ একরের বেশি জমি রয়েছে। নিজেদের জমি ছাড়া অন্য জমির মালিকদের বাড়ি বাড়ি গিয়েছি। অনেকে জমি দিয়েছেন। আবার কেউ কেউ বলেছেন অন্যরা জমি দিলে আমরাও জমি দেবো। অনেকের মৌখিকভাবে সম্মতি নেওয়া হয়েছে।’

বিষয়ে লক্ষ্মীপাশা ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আররাফ হোসেন বলেন, ওই এলাকায় প্রায় হাজার হেক্টর ফসলি জমিতে খালের মুখ বন্ধ করে মাছের ঘের করেছে। অপরিকল্পিতভাবে মাছের ঘের করায় একদিকে ফসলি জমি কমে যাচ্ছে অন্যদিকে দেশি মাছের বিলুপ্তি হচ্ছে।

কলমিলতা পানি ব্যবস্থাপনা সমিতির সভাপতি সায়েদ আলী শান্ত জাগো নিউজকে বলেন, অবস্থা প্রায় সারা জেলার। সদরের নুনীক্ষীর, সাতঘোরিয়া, বড়েন্দার, গোবরা কাড়ার বিলের প্রায় ১৫০০ একর জমিতে অপরিকল্পিতভাবে মাছের ঘের করার ফলে খাল থেকে জমিতে প্রয়োজনের সময় ঢুকতে এবং বের হতে পারে না। ফলে ফসলহানি এবং মৎস্য সম্পদের ক্ষতি হচ্ছে।

বিষয়ে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান বলেন, জমির শ্রেণি পরিবর্তন করে অর্থাৎ কৃষি জমি নষ্ট করে ধরনের মাছের ঘের করা যাবে না। বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করবো।

দ্রুতই মন্ত্রিপরিষদে উঠবে শিক্ষা আইন: শিক্ষামন্ত্রী

ঢাকা অফিস ।।

প্রায় এক বছর আগে বহু প্রত্যাশিত ‘শিক্ষা আইন ২০২১‘খসড়া চূড়ান্ত হলেও এখনো তা আইনে পরিণত হয়নি। দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনটি পর্যবেক্ষণ শেষে মন্ত্রিপরিষদে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

সোমবার (২৪ জানুয়ারি) জাতীয় শিক্ষা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক সভায় ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি কথা জানান। ইউনেস্কো, জাতীয় কমিশন, মাধ্যমিক উচ্চশিক্ষা বিভাগ এবং শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যৌথভাবে এই সভার আয়োজন করে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষার মান নিশ্চিতে দেশে শিক্ষা আইনকে যুগোপযোগী করা হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে পর্যবেক্ষণ শেষে আমাদের কাছে পাঠানো হবে। আমরা পরিবর্তন বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণ করে পরবর্তী অনুমোদনের জন্য মন্ত্রিপরিষদে পাঠিয়ে দেবো। সেখান থেকে অনুমোদন দেওয়া হলে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য জাতীয় সংসদে পাঠানো হবে।

তিনি আরও বলেন, শিক্ষার কারিকুলাম, অবকাঠামো উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষাকে ব্যববহারিক বিশ্ব মানের করতে শিক্ষা নীতিমালা করা হবে। পঁচাত্তর পরবর্তী সময়ে দেশের গতিপথ যখন থামিয়ে দিয়ে ইতিহাস বিকৃতি করা হয়, তখন দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাও অশিক্ষায় আক্রান্ত হয়। বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থায় জ্ঞান চর্চার পাশাপাশি দক্ষতা নির্ভর করার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। নতুন প্রজন্ম সচেতন, তাদের আরও উদ্ভাবনী কাজে যুক্ত করতে হবে।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন প্রাথমিক গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ জাকির হোসেন, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী, বিএনসিইউ’যুগ্মসচিব সোহেল ইমাম খান, কারিগরি মাদরাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব আমিনুল ইসলাম খান, ইউনেস্কোর বাংলাদেশ প্রতিনিধি মিজ বিয়াট্রিস কালডুন প্রমুখ।


Post Views:
61



নিউজের উৎস by [সুন্দরবন]]

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও সংবাদ এই ক্যাটাগরি

Recent Posts

সুন্দরবন টোয়েন্টিফোর ডট কম, সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত - ২০১৯-২০২২
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102