সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:০৮ পূর্বাহ্ন

৭০ বছর ধরে একই মেনু চলছে যে রেস্টুরেন্টে

  • Update Time : সোমবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী, ২০২২
৭০ বছর ধরে একই মেনু চলছে যে রেস্টুরেন্টে

বিজ্ঞাপন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ভারতের রাজধানী দিল্লির ‘দ্যা অ্যামবেসি’ নামে একটি রেস্টুরেন্টে ঢুকলে যে কেউ অবাক হবেন। কারণ এ রেস্টুরেন্ট দীর্ঘদিন ধরে তার ঐতিহ্য শুধু ধরে রাখতে সক্ষম হয়নি, এমনকি এর মেনুও পরিবর্তন হয়নি দীর্ঘ ৭০ বছরে। এক প্রতিবেদনে বিষয়টি জানিয়েছে টাইমস অব ইন্ডিয়া।

১৯৪৮ সালে দ্যা অ্যামবেসি রেস্টুরেন্টটি চালু করা হয়। এরপর বহু উত্থান-পতন ঘটে গেছে এ উপমহাদেশে। কিন্তু রেস্টুরেন্টটি টিকে রয়েছে ঠিক আগের মতো।

আভিজাত্যের প্রতীক এ রেস্টুরেন্টে বহুদিন ধরেই ভোজনরসিক মানুষের আনাগোনা। তবে এ রেস্টুরেন্টের রয়েছে অভিজাত একটি নির্দিষ্ট শ্রেণির গ্রাহক, যারা একে টিকিয়ে রেখেছেন বহুদিন ধরেই।

১৯৪৮ সালের গ্রীষ্মে দুই বন্ধু পি এম মালহোত্রা ও জি কে ঘাই পাকিস্তানের রেস্টুরেন্ট ব্যবসা ত্যাগ করে দিল্লিতে রেস্টুরেন্টটি চালু করেন। এ রেস্টুরেন্ট সে সময় যে মেনু চালু করে তাতে সামান্য সংযোজন করা হলেও মূলত সেই মেনুটিই এখনো চলছে।

এ রেস্টুরেন্টের আতিথেয়তা গ্রহণ করতে বিভিন্ন সময়ে বিখ্যাত রাজনীতিক ও তারকারাও ভিড় করেছেন। এ রেস্টুরেন্টের অতিথিদের তালিকায় রয়েছেন সাবেক ভারতীয় রাষ্ট্রপতি ড. রাজিন্দ্রা প্রাসাদ ও গিয়ানি জেইল সিং, বলিউডের তারকা রাজ কাপুর, ওম প্রকাশ ও যোশ চোপড়া। এ ছাড়া এল কে আদভানি, অরুণ জেটলি, মদন লাল খুরানাসহ বহু রাজনীতিকও এ রেস্টুরেন্টের আতিথেয়তা নিয়েছেন।

রেস্টুরেন্টের উদ্যোক্তা মালহোত্রা বলেন, রেস্টুরেন্টের মেনুতে যে খাবারগুলো শোভা পাচ্ছে তা বহুদিন আগের। এ ছাড়া এ রেস্টুরেন্টে যে গ্রাহকরা আসেন তারা অত্যন্ত উচ্চপর্যায়ের। এমনকি জনশ্রুতি রয়েছে, আজকে পার্লামেন্টে কী ঘটনা ঘটবে তার আঁচ পাওয়া যাবে এ রেস্টুরেন্টে আসলেই।

কেন এতদিন ধরে একই মেনু রয়েছে রেস্টুরেন্টটিতে? এ প্রশ্নে মালহোত্রা বলেন, ‘আমাদের গ্রাহকরা পরিবর্তন পছন্দ করেন না। এ কারণে আমরা ঐতিহ্যবাহী খাবারগুলোই পরিবেশন করছি। অবশ্য সময়ে সময়ে সামান্য সংযোজন করা হয়েছে। আমাদের একটি ডিশের নাম টমেটো ফিশ। এটি পটেটো ফিংগার, মাছ ও বাড়িতে তৈরি টমেটো সসের সঙ্গে তৈরি করা হয়। আমরা যখন সেই ফিংগার চিপসকে কিছুটা মচমচে করলাম তখনই আমাদের নিয়মিত কাস্টমার এক ভদ্রলোক আপত্তি জানালেন। তিনি এ পরিবর্তনে অত্যন্ত ব্যথিত হয়েছেন এবং পরবর্তীতে কোনো পরিবর্তন না করতে পরামর্শ দিয়েছেন।’

এ রেস্টুরেন্টের কয়েকটি ঐতিহ্যবাহী খাবারের তালিকা ও তার প্রচলনের তারিখ :
অ্যামবেসি সমুচা (১৯৪৮)
তন্দুরি চিকেন (১৯৪৮)
অ্যামবেসি পুডিং (১৯৪৮)
মুর্গ মুসাল্লাম (১৯৫২)
ডাল মিট (১৯৫৪)
চানা ভাটুরা (১৯৪৮)
ফেশ চিজ কাটলেট (১৯৭৪)



Source by [সুন্দরবন]]

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Recent Posts

© 2022 sundarbon24.com|| All rights reserved.
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102