শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:১৭ অপরাহ্ন

সুন্দরবনের নামকরণের ইতিহাস ও অপার সৌন্দর্য

  • Update Time : শুক্রবার, ৮ এপ্রিল, ২০২২

সুন্দরবন, বাংলার মানুষদের গর্ব করার মতো এক ঐতিহ্য। প্রকৃতি এমন একটি বনস্বর্গ আমাদের উপহার দিয়েছে যেটা নিয়ে সারা বিশ্বের কাছে গল্প করা যায়। বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশীদার এই সুন্দরবন। গঙ্গা এবং ব্রহ্মপুত্রের মোহনায় অবস্থিত পৃথিবীর সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন আমাদের এই সুন্দরবন। কী নেই এখানে? বিশ্ববিখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগারের আবাসস্থল এই বনভূমি।

আরও আছে চিত্রা হরিণ, কুমির, বিষাক্ত সাপ, কচ্ছপ আরও কত কী! এছাড়া আছে সুন্দরী, গরান, কেওড়া গাছের মতো বিচিত্র রকমের গাছ। এই ঐতিহ্যবাহী জঙ্গলে আছে পরিবার নিয়ে মানুষের বসবাস। তারা মধু সংগ্রহ করে, কাঠ কেটে, মাছ ধরে তাদের জীবিকা নির্বাহ করে চলে।

এসব জীবিকা নির্বাহ করে থাকার সময় এসব মানুষদের কত যে বিপদের সম্মুখীন হতে হয় তার ইয়ত্তা নেই। মধু সংগ্রহ বা কাঠ কাটতে যাওয়ার সময় বাঘে নিয়ে যাওয়ার ভয়, সাপ কামড়ানোর ভয়, নদীতে মাছ ধরতে যাওয়ার পর কুমিরের ভয় ইত্যাদি সর্বদা তাদের চিন্তার কারণ। তবুও মানুষ থাকে সেখানে। তাদেরকে থাকতে হয়।

সুন্দরবনের ইতিহাস বেশ প্রাচীন, প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ শতাব্দী, বাগমারা ব্লকে চাঁদ সওদাগর দ্বারা নির্মিত প্রাচীন শহরের ধন্গ্সাবসেশ পাওয়া যায়৷ মুঘল আমলে এই অঞ্চলটি স্থানীয় জমিদারদের ইজারা দেওয়া হয়েছিল৷ মুঘল সম্রাট আকবরের আমলে সৈন্য বাহিনীর হাত থেকে বাঁচতে বহু দুস্কৃতি জঙ্গলে আত্মগোপন করে থাকত এবং বহু দুষ্কৃতি হিঙ্গস্র বাঘের পেটে যায়৷ পরবর্তীকালে, ১৭০০ খ্রিস্টাব্দে বহু নির্মান পর্তুগিজ দস্যু, জলদস্যু, লবন স্মাগলার এবং ডাকাতদের দখলে যায়,যার বহু প্রমান এখনো পশ্চিমবঙ্গের নেতিধোপানি ও সুন্দরবনের বিভিন্ন অঞ্চলে আজও দেখা যায়৷

আজ থেকে প্রায় দুইশত বছর পুর্বে অষ্টাদশ শতাব্দীর শুরুতে সুন্দরবনের আয়তন বর্তমানের প্রায় দ্বিগুন ছিল এবং জমিদারদের নিয়ন্ত্রনাধীন ছিল। এই বনভূমি ধারাবাহিক পরিবর্তনের মাধ্যমে বর্তমান অবস্থানে পৌছেছে, সুন্দরবন হলো প্রথম মান্গ্রভ বনভূমি যা বিজ্ঞানসম্মত পরিকল্পনা করা হয়, ১৭৫৭ সালে ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি এই অঞ্চলটি মুঘল রাজ আলমগীর এর কাছ থেকে স্বত্বাধিকার পাওয়ার পর ১৭৬৪ সালে এর ম্যাপ তৈরি করেন৷ পরবর্তীকালে ১৮৬০ সালে ব্রিটিশরা বাংলা প্রদেশের অধীনে একটি বনবিভাগ তৈরি করেন৷ এই মাপজোকএর কাজটি পুরোটাই করা হয় স্থানীয় মানুষদের নিয়ে কারণ ইংরেজদের এই দুর্গম অঞ্চলের কোন অভিজ্ঞতা ছিল না৷

১৮২৮ সালে বৃটিশ সরকার সর্বপ্রথম সুন্দরবনের স্বত্ত্বাধিকার অর্জন করে। ১৮৩০ সাল থেকে সুন্দরনের বিভিন্ন অংশ লীজ দেওয়া শুরু হয়। ইউরোপীয়ানরা এই লীজ গ্রহণ করে অমূল্য এ বনাঞ্চলকে পরিস্কার করে আবাদী জমিতে রূপান্তর করতে থাকে। ফলে সুন্দরবনের আয়তন ব্যাপক হারে কমতে থাকার পর সরকারের বোধোদয় ঘটে। সুন্দরবনের উপর প্রথম বন ব্যবস্থাপনা বিভাগের আইনগত অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয় ১৮৬৯সালে ।

১৮৭৫ সালে এই ম্যানগ্রোভ বনভূমির একটা বড় অংশ সংরক্ষিত বন হিসাবে ঘোষণা করা হয়, ১৮৬৫ সালের বনভূমি আইন দ্বার৷ এবং ১৮৭৮ সালে সুন্দরবনকে সংরক্ষিত বন হিসাবে ঘোষনা দেয়া হয়। পরবতী বছরে বাকি বনাঞ্চলটিও সংরক্ষিত ঘোষণা করা হয়, যার ফলে পুরো বনভূমিটির নিয়ন্ত্রণ জেলা প্রশাসনএর বদলে বন প্রশাসনের অধীনে হয়ে যায়, ১৮৭৯ সালে হওয়া এই ফরেষ্ট বিভাগের প্রধান ভবনটি ছিল অধুনা বাংলাদেশের খুলনা জেলায় প্রথম লিখিত পরিকল্পনা নেওয়া হয় ১৮৯৩-৯৮ সালের জন্য৷ সুন্দরবনের প্রথম বিভাগীয় বন কর্মকর্তার নাম এম. ইউ. গ্রীন।

সর্বপ্রথম ১৮৩১ সালে বর্তমান খুলনা, সাতক্ষীরা ও বাগেরহাট জেলা জুড়ে সুন্দরবনের মানচিত্র প্রকাশিত হয়। সর্বশেষ ১৯৮৫ সালে আরও একটি মানচিত্র প্রকাশিত হয়। ১৯৪৭ সালে ভারত ভাগের সময় সুন্দরবনের ৬,০১৭ বর্গকিলোমিটার বাংলাদেশ অংশে পরে। যা বাংলাদেশের মোট আয়তনের প্রায় ৪.২% এবং সমগ্র বনভূমির প্রায় ৪৪%।

বাংলায় সুন্দরবন-এর আক্ষরিক অর্থ সুন্দর জঙ্গল বা সুন্দর বনভূমি। সুন্দরবনের প্রধান উদ্ভিদ সুন্দরী গাছ। সুন্দরী গাছ থেকে সুন্দরবনের নামকরণ হয়ে থাকতে পারে, যা প্রচুর জন্মায়। আবার সমুদ্রের নিকটে অবস্থিত বিধায় সমুন্দর শব্দ হতে প্রথমে সমুন্দরবন ও পরে সুন্দরবন নামের উৎপত্তি হয়েছে বলে অনেকে মনে করেন। অন্যান্য সম্ভাব্য ব্যাখ্যা এরকম হতে পারে যে, এর নামকরণ হয়তো হয়েছে “সমুদ্র বন” বা “চন্দ্র-বান্ধে (বাঁধে)” (প্রাচীন আদিবাসী) থেকে। তবে সাধারণভাবে ধরে নেয়া হয় যে সুন্দরী গাছ থেকেই সুন্দরবনের নামকরণ।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Recent Posts

© 2022 sundarbon24.com|| All rights reserved.
Designer:Shimul Hossain
themesba-lates1749691102